সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৬:২২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
করোনা ভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে এক যুবক ভর্তি পরিবেশ ও নিরাপত্তায় আপোষহীন শিল্প প্রতিষ্ঠান সায়হাম গ্রুপ পানির অভাবে গুঙ্গিয়াজুরী হাওর বিরান ভূমিতে পরিণত বানিয়াচঙ্গে ডোবা থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার শায়েস্তাগঞ্জে আপনজনের উদ্যোগে শিক্ষা সহায়ক উপকরণ বিতরণ বিথঙ্গল জেডিসি উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও স্বেচ্ছারিতার অভিযোগ হবিগঞ্জ জেলা যুবদলের সাথে যুবদলের কেন্দ্রীয় মনিটরিং টিমের কর্মীসভা নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নে গণফোরামের ৭নং ওয়ার্ড কমিটি গঠিত সারা বছরই অরক্ষিত থাকে বানিয়াচঙ্গের শহীদ মিনার বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা দ্রুত সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে-এমপি আবু জাহির
মাছুলিয়া এলাকায় ৫ মাসের গর্ভবতী সেলিনার মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজাল

মাছুলিয়া এলাকায় ৫ মাসের গর্ভবতী সেলিনার মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজাল

স্টাফ রিপোর্টার \ হবিগঞ্জ পৌর এলাকার মধ্য মাছুলিয়া এলাকায় ৫ মাসের গর্ভবতী সেলিনা আক্তার নামে এক গৃহবধুর মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে। নিহত সেলিনার মুখে রক্তের দাগ রয়েছে। শ্বশুর বাড়ির লোকজনের দাবী ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। আর নিহতের পিতার পরিবারের দাবী পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে সেলিনার স্বামী নায়েব আলী আত্মগোপন করেছে।
হবিগঞ্জ পৌর এলাকার মধ্য মাছুলিয়া এলাকার নায়েব আলী প্রায় ৫ বছর পূর্বে দ্বিতীয় বিয়ে করে বানিয়াচঙ্গ উপজেলার হরিপুর গ্রামের মৃত দুদু মিয়ার কন্যা সেলিনা আক্তারকে। তার রোহেলা নামে একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। অপর দিকে নায়েব আলীর ১ম স্ত্রী আছমা আক্তারের গর্ভে এক কন্যা সন্তান রয়েছে। নিহত সেলিনার সতীন আছমা আক্তার জানান, গতকাল বিকেল ৪ টার দিকে সেলিনা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়। এ সময় আশংকাজনক অবস্থায় তাকে সদর হাসপাতাল নিয়ে যাবার পথে মারা গেলে লাশ বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।
এদিকে নিহত সেলিনার দাদা আজগর আলী এ প্রতিনিধিকে জানান, তাদের আত্মীয় শহরতলীর পূর্ব মাহমুদাবাদের আয়ূব আলী মারফত খবর পেয়ে তারা হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে আসেন। এখানে তাদের না পেয়ে নায়েব আলীর বাড়িতে গিয়ে সেলিনার লাশ দেখতে পান। এ সময় তারা সেলিনার মুখে রক্তের দাগ দেখতে পান। তার দাবী নায়েব আলী পরিকল্পিতভাবে দ্বিতীয় স্ত্রী সেলিনাকে হত্যা করেছে। তিনি আরো জানান, নায়েব আলী প্রায়ই কারনে অকারনে সেলিনাকে মারধর করতো। স্বামীর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে সেলিনা ৬/৭ বার স্বামীর বাড়ি থেকে পিত্রালয়ে চলে যায়। আজগর আলীর দাবী পূর্বের ন্যায় নায়েব, তার ১ম স্ত্রী আছমা ও তার মেয়ের নির্যাতনের এক পর্যায়ে সেলিনা মারা গেছে। কিন্তু নিজেদের রক্ষায় তারা হত্যা ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করে। পরে আজগর আলীর মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি তদন্ত বিশ্বজিৎ দেব ও এসআই একেএম রাসেলের নেতৃত্বে পুলিশ রাতে নায়েব আলীর ঘর থেকে সেলিনার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com