বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১২:৪০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের দায়ে বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতিকে জরিমানা করায় বিক্ষোভ নবীগঞ্জে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় ১ লাখ টাকা জরিমানা ড্রেজার মেশিন পুড়িয়ে ধ্বংস হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল ! নবীগঞ্জে ধান চাল ও মিল মালিক সমিতির কমিটি গঠন হবিগঞ্জ জেলা যুবদলের বিবৃতি ॥ সাংগঠনিক কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত ও প্রশ্নবিদ্ধ করতেই যুবদল নেতা জালাল আহমেদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার নবীগঞ্জে সুদখোরের বিরুদ্ধে অভিযোগ ॥ তদন্তে পুলিশ প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে দরিদ্রদের মাঝে মোতাচ্ছিরুল ইসলামের শাড়ী-লুঙ্গী বিতরণ শহরের গোসাইপুরে সাপের দংশনে ১ ব্যক্তি গুরুতর আহত পানিউমদায় ডায়মন্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর মাসিক উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ দলিল লেখক সমিতি হবিগঞ্জ সদর উপজেলা কমিটি গঠন
ঢাকায় ৬ জনকে জবাই করে হত্যা ॥ হবিগঞ্জের ২ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক

ঢাকায় ৬ জনকে জবাই করে হত্যা ॥ হবিগঞ্জের ২ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক

এক্সপ্রেস রিপোর্ট ॥ রাজধানীর গোপীবাগে কথিত আধ্যাত্মিক সাধক লুৎফর রহমান ফারুকী (৬০), তার ছেলে মনির (১৭) সহ ৬ জনকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার রাতে গোপীবাগের ৬৪/৪ রামকৃষ্ণ মিশন রোডের আয়না নামক চারতলা ভবনের দ্বিতীয় তলার একটি ফ্ল্যাটে হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। নিহত অপর ৪জন হচ্ছেন বাড়িটির কেয়ারটেকার মঞ্জু (৩৫), ভক্ত জাহিদুল (৩০), রাসেল (২৫) এবং শাহীন (২৫)। তিন মাস আগে ওই ফ্ল্যাটটি ভাড়া নিয়েছিলেন কথিত পীর লুৎফর রহমান ফারুকী। কি কারণে এবং কারা এ খুনের ঘটনা ঘটিয়েছে প্রাথমিকভাবে পুলিশও তা নিশ্চিত হতে পারেনি।  সন্ধ্যার পরপরই লোমহর্ষক ৬ খুনের এ ঘটনায় আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়। এ হত্যাকান্ডের ঘটনার পরপরই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ ওই ফ্ল্যাটের একটি কক্ষ থেকে নিহত আধ্যাÍিক সাধকের স্ত্রীসহ পরিবারের ৬ সদস্য ও ইে ভবনের নীতলার একটি মেস থেকে কয়েকজনকে আটক করেছে। মেস থেকে আটককৃতদের মধ্যে হবিগঞ্জের ২ জন রয়েছে। এরা হচ্ছে শহরের চিড়াকান্দি এলাকার বাসিন্দা গোপেশ্বর পালের পুত্র ধানমন্ডির ইউডা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ূয়া ছাত্র অমিনেষ পাল জয় ও শহরের কোর্ট ষ্টেশন এলাকায় বসবাসরত লাখাই উপজেলার ভবানীপুর টিটু দাশ। টিটু ফার্মাসিউটিকেলে লেখা পড়া করছে। নিহত লুৎফুর রহমান ফারুকের গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের ভুয়াপুর উপজেলার মির্জাপুরে। তার অপর ছেলে আবদুল্লাহ সিটি ব্যাংকে কর্মকর্তা। তিনি ঘটনার সময় বাসার বাইরে ছিলেন।
নিহত ফারুকের স্ত্রী সালমা বলেন, বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মাগরিবের নামাজের আগে ৭/৮ জন লোক হঠাৎ করে দৌঁড়ে উঠেন। জানতে  চাইলে তারা বলেন, ‘আমাদেরকে পুলিশ ধাওয়া করেছে। একটু আশ্রয় দেন। মাগরিবের নামাজ পড়ে চলে যাবো।’ এরা ফারুকের সঙ্গে নামাজ আদায় করেন। নামাজ শেষ হওয়ার পর তাকেসহ ভক্ত আছমা, পুত্রবধূ বিথি, ২ মেয়ে ও আড়াই বছরের ১ নাতীর মুখ বেঁধে একটি রুমে আটকে রাখে। এরপর দু’টি কক্ষে ফারুক ও তার ছেলেসহ ৬ জনকে জবাই করে। ফারুকের স্ত্রী আরো জানান এ সময় তিনি গোঁঙানির শব্দ ছাড়া আর কিছু শুনতে পাননি। পরে পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার এবং দুটি কক্ষ থেকে ৬ জনের জবাই করা লাশ উদ্ধার করে। নিহতের স্ত্রী পুলিশকে জানান, ঘাতকরা এর আগে কখনোই তাদের ফ্ল্যাটে আসেনি। তবে তাদের দেখলে তিনি চিনতে পারবেন।
ভবনের মালিক ওয়ালিউর রহমান থাকেন ইলিশিয়াম ভবনে সরকারি কোয়ার্টারে। খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে আসেন। তিনি জানান, লুৎফর রহমান ফারুক বাসা ভাড়া দিয়েছিলেন।
ওই ভবনের আশপাশের বাসিন্দারা জানান, সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ওই বাসা থেকে চিৎকার আসতে থাকে। এর পরই মানুষজন এগিয়ে যায়। বাসায় ঢুকে একটি কক্ষে ২ জন এবং অপর একটি কক্ষে ৪জনের লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়।
ভবনটির পাশের ভবনের দোতলার বাসিন্দা মফিজ উদ্দিন বলেন, পাশের ফ্ল্যাট থেকে ডাকাত ডাকাত চিৎকার শুনতে পেয়ে আমি দৌড়ে যাই। গিয়ে দেখি দরজার সামনেলুৎফুর রহমান ফারুকসহ দুটি লাশ পড়ে আছে। গত মে মাসে লুৎফুর বাসাটিতে উঠেছিলেন বলেও জানান তিনি।
এলাকার অপর একজন বাসিন্দা জানান, এ বাসাটিতে পীর ফারুকের মুরিদদের যাতায়াত ছিল। পীর সাহেব এবং তার মুরিদরা মসজিদে নামাজ পড়তে যেতেন না। তারা নিজেরাই বাসায় নামাজ পড়তেন।
খবর পাবার পরপরই পুলিশ, র‌্যাব, সিআইডি ও ডিবির কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। তারা পুরো বাড়িটি ঘেরাও করে রাখেন। ওয়ারি বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মেহেদী হাসান বলেন, ফারুক আধ্যাত্মিক গুরু ছিলেন। তার কাছে বিভিন্ন ধরনের ধর্মীয় লোকজন আসা-যাওয়া করত।
গোয়েন্দা পুলিশের একটি সূত্র জানায়, নিহত লুৎফর রহমান ইমাম মেহেদীর অনুসারী পীর বলে পরিচিত। ইসলাম বিরোধী প্রচারণার অভিযোগে এর আগে ২বার পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। সর্বশেষ ২০১২ সালে গোয়েন্দা পুলিশ তাকে মতিঝিল থেকে ৬ শিষ্যসহ গ্রেফতার করে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com