সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৪৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সিলেট এমসি কলেজে স্বামীকে বেধে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় ॥ হবিগঞ্জ থেকে ধর্ষক অর্জুন রনি ও রবিউল গ্রেফতার মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় চালক ও হেলপার নিহত নবীগঞ্জের প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুলের অনিয়মের তদন্ত শুরু নবীগঞ্জে ৭ মামলার পলাতক আসামী ইয়াহিয়া অধরা বানিয়াচঙ্গের নয়াপাথারিয়া গ্রামের ডাবল মার্ডার মামলার আসামী যুবদল নেতা কুহিনুর আলম কারাগারে ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরীকে সংবর্ধনা সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ট উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামকে গণসংবর্ধনা প্রদান হবিগঞ্জ জীবন বীমা কর্পোরেশন সেলস অফিসের ব্যবসা উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত শহরে নাম্বার প্লেইটের দাবিতে শ্রমিকের বিক্ষোভ ও সমাবেশ দাবী আদায়ে অনশনের হুমকি লাখাইয়ে মেম্বারের বিরুদ্ধে চাল আত্নসাতের অভিযোগ
নবীগঞ্জে কোটি টাকার সরকারী ভূমি দখল নিয়ে দু’পক্ষে উত্তেজনা উচ্ছেদে তৎপর উপজেলা প্রশাসন

নবীগঞ্জে কোটি টাকার সরকারী ভূমি দখল নিয়ে দু’পক্ষে উত্তেজনা উচ্ছেদে তৎপর উপজেলা প্রশাসন

এম এ বাছিত, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের নামে সরকারের কোটি টাকার ভূমি দখল এবং উচ্ছেদ নিয়ে এলাকায় দু’টি পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। রাজনীতির আবরণে ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার অভিযোগ উঠেছে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আনোয়ার হোসেন দখলীয় ভূমি থেকে নির্মাণ সামগ্রী সরিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেয়ার পরও সরকারী নির্দেশ আমলেই নেয়নি দখলদার বাহিনী। অদৃশ্য শক্তির ইশারায় রাতের আধারে নির্মিত বাঁশের তৈরী টিনশেড স্থাপনা বহাল তবিয়তে রয়েছে। গত বুধবার উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির বৈঠকে এনিয়ে আলোচনা হয়। শনিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শনের ঘোষণা দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ।
স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের মোস্তফাপুর মৌজার জেএল নং-১৮, খতিয়ান নং-১,দাগ নং ১২৮ এর গোপাট শ্রেণির ২২ শতক ভূমি গত ২৭ জুন রাতে ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের নাম ব্যবহার করে একটি টিন সেড ঘর নির্মান করা হয়। স্থানীয় তহশীল অফিস অবৈধ দখলদারদের আপত্তি জানালেও তা আমলে নেয়া হয়নি। ২৮ জুন স্থানীয় তহশীলদার মহসিন ভূইয়া ৮৭ নং স্মারকে উপজেলা সহকারী কমিশনারকে অবৈধ দখলের ঘটনা অবহিত করেন। ৩০ জুন সহকারী কমিশনার মোঃ আনোয়ার হোসেন সরেজমিনে গিয়ে ৩ দিনের মধ্যে স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দেন। নিজ দায়িত্বে অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে না নিলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দেন। কিন্তু নির্দিষ্ট তারিখ অতিবাহিত হওয়ার পরও বহাল তবিয়তে রয়েছে অবৈধ স্থাপনা।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল বাতেন বলেন, সরকারের কোটি টাকা মূল্যের ভূমি স্কুলের নামে রাতের আধারে দখল করে বিশেষ একটি মহল। এতে পানি নিষ্কাশনের রাস্তা বন্ধ হয়ে পরিবেশ বিনষ্টের আশংকা রয়েছে। স্কুল কমিটির সভাপতি ও দখলদারদের একজন শকদিল হোসেন বলেন, স্কুলের স্বার্থে নির্মিত ঘরটি ১২৮ দাগের নয়, ১২৭ নং দাগ ভুক্ত। যা স্কুলের নামে ১৯৮০ সালে লীজ নেয়া হয়। তবে প্রয়োজনীয় প্রমাণাদি দেখাতে ব্যর্থ হন তিনি। স্থানীয় তহশীলদার মহসিন ভূইয়া বলেন, ১২৭ নং দাগের ভূমি স্কুল সীমানা থেকে অনেক দুরে। স্কুল কর্তৃপক্ষ লীজের জন্য ভিপি মামলা নং ৪০/৬৬, ২২৪/৭৫-৭৬ ইং, ৩৮/৭৯-৮০ নং স্মারকে আবেদন করেন। আবেদনভুক্ত দাগগুলো হচ্ছে-৩৭, ৩৮, ১৬৫ ও ১৬৬। মোট মোয়াজি ১ একর ৮৮শতক। যা এখনও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ওই দাগগুলো ব্যতিত স্কুলের নামে লীজের কোন আবেদন নেই বলে নিশ্চিত করেছে স্থানীয় তহশীল অফিস। স্থানীয় সূত্র জানায়, স্কুল গেইটের নিকটবর্তী নির্মিত দখলীয় ভূমির বাজার মূল্য প্রায় দু’কোটি টাকা। ক্ষমতার দাপটে স্কুলের নাম দিয়ে ওই ভূমি দখল করতে চায় বিশেষ একটি মহল। সরকারী আদেশ অমান্য এবং অবৈধ স্থাপনা নিয়ে তীব্র উত্তেজনার খবর পাওয়া গেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com