শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ১১:৩৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি মাধবপুরে গাছ এবং বৈদ্যুতিক খুঁটি ॥ প্রাণ বাঁচাল শিশু ও বৃদ্ধসহ ৪০-৫০ জন বাস যাত্রীর চুনারুঘাটের স্ত্রী-বিজয়নগরের স্বামী বিপুল গাঁজাসহ ভৈরব রেলওয়ে পুলিশের খাঁচায় হবিগঞ্জে আরো ৭০৩ জন করোনা টিকা নিয়েছেন চুনারুঘাট এসোসিয়েশন ইউকে ও শায়েস্তাগঞ্জ সমিতি ইউকের ভার্চুয়াল শোক সভা ও দোয়া মাহফিল হবিগঞ্জে জাতীয় জীবন বীমা দিবস উপলক্ষে র‌্যালী নব নির্বাচিত মেয়র সেলিমের সাথে আইনজীবীদের শুভেচ্ছা বিনিময় শহরের মাদক ব্যবসায়ী সৈয়দ আলী কারাগারে ॥ রিমান্ডের আবেদন কাঁচা সুপারি দিয়ে পান খেয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু মাধবপুরে মাদক বিরোধী জনসচেতনতার লক্ষ্যে বিটং পুলিশিং এর সভা অনুষ্টিত
এসএসসি’র ফল প্রকাশ ॥ সেরা ২০-এ হবিগঞ্জের ৪ স্কুল ॥ জেলায় সেরা নবীগঞ্জের হোমল্যান্ড

এসএসসি’র ফল প্রকাশ ॥ সেরা ২০-এ হবিগঞ্জের ৪ স্কুল ॥ জেলায় সেরা নবীগঞ্জের হোমল্যান্ড

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গতকাল দেশব্যাপী একযোগে এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। এসএসসি পরীক্ষায় হবিগঞ্জে ১৩ হাজার ৫৬৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১১ হাজার ৪৮৩ জন পাশ করেছে। এতে ৬ হাজার ৬২ জন ছেলের মধ্যে ৫ হাজার ১৫৭ জন এবং মেয়ে ৭ হাজার ৫০৭ জনের মধ্যে ৬ হাজার ৩২৬ জন পাশ করেছে। পাশের হার শতকরা ৮৪.৬৩ ভাগ। এর মধ্যে ছেলেদের পাশের হার শতকরা ৮৫.০৭ এবং মেয়েদের ৮৪.২৭ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪১৬ জন। এর মধ্যে ২২০ জন ছেলে এবং ১৯৬ জন মেয়ে।
এ বছর সিলেট বিভাগের ৪ জেলায় ৭২ হাজার ২৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৫৮ হাজার ৯৩২ জন পাশ করে। পাশের হার শতকরা ৮১.৮২ ভাগ। পাশের হারের দিক দিয়ে শতকরা ৮৪.৬৩ ভাগ পাশ করে সিলেট বোর্ডে হবিগঞ্জ সেরা নির্বাচিত হয়েছে।
পরীক্ষায় সিলেট বোর্ডের সেরা ২০-এ হবিগঞ্জের ৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থান করে নিয়েছে। এর মধ্যে নবীগঞ্জ উপজেলার হোমল্যান্ড আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় অষ্টম, হবিগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় নবম, বিকেজিসি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় দশম এবং মাধবপুর উপজেলার শাহজিবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড উচ্চ বিদ্যালয় ১৭তম স্থান লাভ করেছে।
জেলা প্রশাসনের শিক্ষা ও কল্যাণ শাখা সূত্রে জানা যায়, এ বছর নবীগঞ্জ উপজেলার হোমল্যান্ড আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪৪ জন পরীক্ষার্থীর সবাই কৃতকার্য হয়। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৯ জন।
হবিগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ২১১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২১০ জন কৃতকার্য হয়। পাশের হার শতকরা ৯৯.৫৩ ভাগ। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮৫ জন।
বিকেজিসি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৫৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৫৭ জন কৃতকার্য হয়। পাশের হার শতকরা ৯৯.৬১ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬২ জন।
মাধবপুর উপজেলার শাহজিবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪০ জন পরীক্ষার্থীর সবাই কৃতকার্য হয়। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৬ জন।
আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদ-
এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থেকে জানান
সারা দেশের ন্যায় নবীগঞ্জ উপজেলার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল আনুষ্টানিকভাবে প্রকাশ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে এ ফলাফল ঘোষনা করেন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) মোঃ আনোয়ার হোসেন। এ সময় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলামসহ কেন্দ্র সচিবগণ উপস্থিত ছিলেন। এবারের এসএসসি পরীক্ষায় উপজেলার ১৮টি উচ্চ বিদ্যালয়ের ১ হাজার ৯ শত ৩৪ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করে। এর মধ্যে ৪৫টি জিপিএ-৫সহ ১ হাজার ৬ শত ৫১ জন পরীক্ষার্থী কৃতিত্বের সাথে কৃতকার্য হয়েছে। বোর্ডের মধ্যে এ উপজেলায় পাশের হার ৮৫.৩৭%। ঘোষিত ফলাফলে নবীগঞ্জ উপজেলার সেরা স্কুল নির্বাচিত হয় হোমল্যান্ড আইডিয়াল স্কুল। ২য় স্থান অর্জন করেছে নবীগঞ্জ জেকে হাইস্কুল। এছাড়া হোমল্যান্ড আইডিয়াল স্কুল ২০১৫ইং সনে প্রথম এসএসসি’তে অংশ নিয়ে সিলেট বিভাগের মধ্যে ৮ম এবং হবিগঞ্জ জেলার মধ্যে ১ম স্থান অধিকার করেছে। এই প্রতিষ্টানে ১ম বারের মতো পরীক্ষায় মোট ৪৪জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। এর মধ্যে ১৯টি জিপিএ ৫সহ সবাই কৃতকার্য হয়।
অপর দিকে ১টি জিপিএ-৫ সহ শতভাগ পাশ করার গৌরব অর্জন করেছে নাদামপুর উচ্চ বিদ্যালয়। শত ভাগ পরীক্ষার্থী পাশ করায় উক্ত প্রতিষ্টানের ছাত্র ছাত্রী, শিক্ষক শিক্ষিকা ও অভিভাবকদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বইছে।
৬টি জিপিএ-৫সহ ৯৩.২০% পাশ করে উপজেলার মধ্যে ২য় স্থানের গৌরব অর্জন করেছে ঐতিহ্যবাহী নবীগঞ্জ জেকে হাইস্কুল। ৩টি জিপিএ-৫সহ ৮৫% পাশ করেছে নবীগঞ্জ হিরামিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। ৫টি জিপিএ-৫সহ ৯২% পাশ করেছে সৈয়দ আজিজ হাবিব উচ্চ বিদ্যালয়। ৩টি জিপিএ-৫সহ ৮১.২৫% পাশ করেছে দীঘলবাক উচ্চ বিদ্যালয়। এছাড়াও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের ভোকেশনালের আওতায় ঘোলডুবা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ২টি জিপিএ-৫সহ ৩৩ জন পরীক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে। অপর দিকে উপজেলার মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের দাখিল পরীক্ষার ফলাফল ঘোষনা করা হয়েছে। উপজেলার ১৬টি মাদ্রাসার ৬৬২ জন পরীক্ষার্থী দাখিল পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে ৯টি জিপিএ-৫সহ ৬২৯ জন পরীক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে। বোর্ডের মধ্যে পাশের হার ৯৫.০১%। এদিকে আনুষ্টানিকভাবে ফলাফল ঘোষনার পর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের উল্লাস লক্ষ্য করা হয়েছে। আশানুরূপ ফলাফলে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন নবীগঞ্জ হোমল্যান্ড আইডিয়াল স্কুল, জেকে হাইস্কুল, হিরামিয়া গার্লস স্কুল ও নাদামপুর উচ্চ বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানের প্রধান শিক্ষকসহ শিক্ষক-শিক্ষিকা, শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং ম্যানেজিং কমিটির নেতৃবৃন্দ। নবীগঞ্জ জেকে হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুস ছালাম তার প্রতিক্রিয়ায় অতীতের সকল ফলাফলের চেয়ে এ বছর আশানুরূপ ফলাফল উপহার দেয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের প্রতি কৃতজ্ঞা প্রকাশ করেছেন। এবং ভবিষ্যতে আরো ভাল ফলাফলের আশাবাদ ব্যক্ত করেন। হিরা মিয়া গার্লস স্কুলের প্রধান শিক্ষক এটিএম বশির আহমদ স্বপন জানান, চলতি পরীক্ষার ফলাফল সন্তোষ জনক। তবে আগামীতে আরো ভাল ফলাফল উপহার দেয়া হবে। এ ক্ষেত্রে ছাত্র-শিক্ষক এবং অভিভাবেকদের সর্বাত্মক সহযোগিতার আহ্বান জানান। সন্তুষ্টি প্রকাশ করে হোমল্যান্ড আইডিয়াল স্কুলের অধ্যক্ষ তাপস লাল আর্চায্য বলেন, এ বছর হোমল্যান্ড স্কুল প্রথম এসএসসিতে অংশ নিয়ে যে ফলাফল উপহার দিয়েছে তার জন্য শিক্ষক মন্ডলী, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের প্রতি কৃতজ্ঞ। তিনি বলেন ২০১৪ইং সনে জেএসসি পরীক্ষায় সিলেট বিভাগের মধ্যে ১৫তম ও জেলার মধ্যে ৩য় স্থান অর্জন করেছিল। চলতি এসএসসি পরীক্ষায় বিভাগের মধ্যে ৮ম এবং জেলার মধ্যে ১ম স্থান এর গৌরব অর্জন করেছে। তিনি বলেন, এই সফলতা নবীগঞ্জবাসী।
মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে জানান
বানিয়াচং উপজেলায় এবার এসএসসি পরীক্ষায় ১হাজার ৯শ ৩০জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১হাজার ৬শ ৪২জন। জিপিএ ৫ পেয়েছে ৩০ জন। পাশের হার ৮৫.০৮। মাদ্রাসা থেকে এবার ২শ ৪৩ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে ২শ জন। জিপিএ ৫ পেয়েছে ২ জন। পাসের হার ৮২.৩০। বানিয়াচং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২শ ৬০ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে ২শ ৩৪জন। জিপিএ ৫ পেয়েছে ১২জন। পাসের হার ৯০। এলআর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৯৮ জন অংশ নেয়। তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৮৭জন, জিপিএ ৫ পেয়েছে ৭জন। পাসের হার ৮৮.৭৮। সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১শ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৮৪ জন, জিপিএ ৫ পেয়েছে ৫ জন। পাসের হার ৮৪। ডাঃ ইলিয়াছ একাডেমী থেকে ১শ ৭জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৮২জন, পাসের হার ৭৬.৬৪। দৌলতপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮৯ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৮৫ জন, পাসের হার ৯৫.৫০। কাদিরগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১শ ৪৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১শ ৪২ জন, পাসের হার ৯৬.৫৯। আড়িয়ামগুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭৫ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৬৯ জন, জিপিএ ৫ পেয়েছে ৪জন, পাসের হার ৯২। সাতগ্রাম একতা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৪৮ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৪০জন, পাসের হার ৮৩.৩৪। রতœা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮৪ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৩৯ জন, পাসের হার ৪৬.৪৩। একতা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২৫জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২০ জন, পাসের হার ৮০। বক্তারপুর আবুল খায়ের উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১শ ২৪ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৯৯ জন, পাসের হার ৭৯.৮৩। জনতা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৯০ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৬৫জন, পাসের হার ৭২.২২। নাগুড়া ফার্ম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১শ ২৬ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১শ ২২ জন, জিপিএ ৫ পেয়েছে ১জন, পাসের হার ৯৬.৮২। সন্দলপুর বিসি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১শ ২৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১শ ১৭ জন, জিপিএ ৫ পেয়েছে ১জন, পাসের হার ৯২.১২। জেডিএম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৬৫ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৫৬ জন, পাসের হার ৮৬.১৫। ইকরাম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮৮ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৬০ জন, পাসের হার ৬৮.১৮। হিয়ালা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫৪ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৪৯ জন, পাসের হার ৯০.৭৫। হানিফ খান দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১শ ২জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৯৭ জন। পাসের হার ৯৫.০৯। উত্তর সাঙ্গর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৪১ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৯ জন, পাসের হার ৭০.৭৩। মেধা বিকাশ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২৬ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৩ জন, পাসের হার ৮৮.৪৬। বিজিএম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২৪ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৭ জন, পাসের হার ৭০.৮৩। হযরত শাহজালাল (রাঃ) উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩০ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৬ জন, পাসের হার ৮৬.৮৮। অপরদিকে বানিয়াচং সিনিয়র ফাযিল মাদ্রাসা থেকে ৬২ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৫৬ জন, জেপিএ ৫ পেয়েছে ২জন, পাসের হার ৯০.৩২। বিএসডি মহিলা আলিম মাদ্রাসা থেকে ৭৫ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৫৩ জন, পাসের হার ৭০.৬৬। কুমড়ী নজরপুর বালিকা দাখিল মাদ্রাসা থেকে ২৯ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৬ জন, পাসের হার ৮৯.৬৫ জন। দূর্গাপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ২৭ জন অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৫ জন, পাসের হার ৯২.৫৯। জামেয়া রেদওয়ানিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৫০ জন  অংশ নেয়, তন্মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৪০ জন, পাসের হার ৮০।
মাধবপুর থেকে আবুল হোসেন সবুজ জানান
মাধবপুরে এসএসসি পরীক্ষায় ২ হাজার ৪শ ৬৩ জন অংশগ্রহণ করে উত্তীর্ণ হয়েছে ২ হাজার ৫১ জন। পাশের হার শতকরা ৮৫ ভাগ। এর মধ্যে জগদীশপুর জেসি স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ৩৪ জন জিপিএ-৫ পেয়ে উপজেলার মধ্যে শীর্ষে রয়েছে। শতভাগ উত্তীর্ণ হয়েছে শাহজীবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড স্কুল। এ প্রতিষ্ঠানে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৬ জন। এছাড়া গোবিন্দপুর সরকারি হাইস্কুলে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২১ জন, সাউথ কাশিমনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪ জন, শাহজাহানপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩জন, সৈয়দ সঈদ উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজে ৫ জন, ছাতিয়াইন বিশ্বনাথ হাইস্কুল এন্ড কলেজে ৪জন, প্রেমদাময়ী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৯জন, মাধবপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ৭ জন। অন্যদিকে মাধবপুরে ৫টি মাদ্রাসায় দাখিল পরীক্ষায় ১৬৩ জন অংশগ্রহণ করে সবাই উত্তীর্ণ হয়েছেন। কাজিরচক মাদ্রাসায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫জন, সুন্দাদিল রহমানিয়া দাখিল মাদ্রায় ১ জন, ছালেহাবাদ এমএস দাখিল মাদ্রাসায় ৫ জন, মাধবপুর দরগাঁহ বাড়ি দাখিল মাদ্রাসায় ১ জন, ইটাখোলা সিনিয়র দাখিল মাদ্রাসায় ১ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।
আবুল কাসেম লাখাই থেকে জানান
চলতি ২০১৫ সালের এসএসসি পরীক্ষায় লাখাই উপজেলার ১০টি বিদ্যালয় থেকে মোট ৭৭০ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করে পাস করেছে ৫৭৪ জন। পাসের হার ৭৪%। এবছর পুরো উপজেলা থেকে মাত্র ৫টি জিপিএ পেয়েছে। জিপিএ ৫ পাওয়া বিদ্যালয়গুলো হচ্ছে বামৈ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২টি, লাখাই এসিআরসি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১টি, মুড়াকরি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১টি ও রাঢ়িশাল করাব উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১টি। স্কুল ওয়ারি পাসের সংখ্যা হচ্ছে লাখাই এসিআরসি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭৮ জনের মধ্যে ৬৭ জন, মুড়াকরি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১০০ জনের মধ্যে ৭৫ জন, বামৈ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৪৩ জনের মধ্যে ১২৮ জন, কালাউক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১২৬ জনের মধ্যে ১১১ জন, মুুড়িয়াউক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৪৯ জনের মধ্যে ৪৩ জন, কৃষ্ণপুর কমলাময়ী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২৮জনের মধ্যে ১৮ জন, ভবানীপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩৭ জনের মধ্যে ১৩ জন, রাঢ়িশাল করাব উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৫২ জনের মধ্যে ৮০ জন, বুল্লা সিংহগ্রাম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৪৬ জনের মধ্যে ২৮ জন, ও তেঘরিয়া এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১১ জনের মধ্যে ১১ জন পরীক্ষার্থী পাস করেছে। এদিকে তেঘরিয়া এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে শতভাগ পাস করেছে। সর্বনিু পাসের হারের বিদ্যালয়টি হচ্ছে ভবানীপুর উচ্চ বিদ্যালয়। যার পাসের হার ৩৫%। এদিকে এই উপজেলায় ২টি মাদ্রাসা থেকে মোট ১২০ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করে পাস করেছে ১১৭ জন। পাসের হার ৯৭%। মাদ্রাসা ওয়ারি করাব রহমানিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৪৮ জনের মধ্যে পাস করেছে ৪৭ জন ও জিরুন্ডা মানপুর সিনিয়র তোপাইলিয়া মাদ্রাসা থেকে ৭২ জনের মধ্যে ৭০ জন পাস করেছে।  জিপিএ ৫ পেয়েছে মোট ৬ জন। এর মধ্যে জিরুন্ডা মাদ্রাসা থেকে ৫ জন ও করাব মাদ্রাসা থেকে ১ জন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com