রবিবার, ২৪ মে ২০২০, ১১:১৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম বাগুনিপাড়া ডিফেন্স হোল্ডার এ্যাসোসিয়েশন ঈদ উপহার বিতরন
কল্যাণপুর থেকে সৈয়দ কালা শাহ কলিম শাহ আধ্যাত্মিকতার কিছু কথা

কল্যাণপুর থেকে সৈয়দ কালা শাহ কলিম শাহ আধ্যাত্মিকতার কিছু কথা

সৈয়দ কালা শাহ সৈয়দ কলিম শাহ’র আধ্যাত্মিক জীবদ্দশায় আলোকিত ঘটনা বর্ণনা রয়েছে। তারা প্রায় ২০০ বছর পূর্বে ভারতে কল্যাণপুরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বাল্যকাল থেকে আধ্যাত্মিকতার কাজ শুরু করেন। তিনি ভারত বর্ষের বিভিন্ন স্থানে আস্তানা গড়ে ছিলেন এবং বহু কেরামতি হাসিল করে দেশবাসীকে ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট করেছিলেন। তাদের জন্ম হয় ভারতের কল্যাণপুরে। এক সময় ভারতে কোন প্রকার বৃষ্টি হয়নি। দীর্ঘদিন যাবৎ বৃষ্টি না হওয়ায় জমিতে হাল চাষ করা সম্ভব হয় নাই। ফলে ফসলাদি হয়নি। তাতে ভারত বর্ষের অনেক মানুষ অনাহারে মারা গিয়েছিল। তখন সৈয়দ কালা শাহ ফকির আগরতলা মহারাজের বাড়ীতে ভাত খুজেছিলেন। তখন মহারাজ রাগান্বিত হয়ে বলিল যে, আমি কোন পীর ফকিরকে ভাত খাওয়াইনা। তখন কালা শাহ বলিলেন মহারাজা আমাকে ভাত দেবে না কেন? এ প্রশ্নের উত্তরে মহারাজা বলিল আমার দেশে বৃষ্টির অভাবে ফসল হয়নি। অনাহারে মারা যায় অনেকেই। আমি অনেক দান খয়রাত করেও তাতে কোন কাজ হয়নি। এ কথা বলে মহারাজা রাগান্বিত হয়ে আদেশ করল যে, কে কোথায় আছ সেই কালা শাহকে আমার কারাগারে বন্দি করে রাখ। তখন কালাশাহ মহারাজাকে বলিলেন আপনি হলেন ভারতের মহারাজা আমাকে যা খুশি তা করিতে পারেন। তখন রাজা বলিল আমি কিছু চাইনি আমি আমার দেশের জন্য বৃষ্টি চাই। তখন কালা শাহ ফকির কারাগারে বসে আল্লাহর ধ্যানে লা-ইলাহা, জিকির শুরু করেছিলেন। এর কিছুক্ষণ পর থেকে মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয়েছিল। ওই বৃষ্টিতে মানুষ, গরু, ছাগল ঘর হইতে বের হইতে পারে নাই। ওইদিন বুঝা গেল আগরতলা ধ্বংস হয়ে যাবে। তখন মহারাজা দৌড়াইয়া কালা শাহর কাছে বলিল যে, বাবা আমি বুঝিতে পারি নাই। আল্লাহর বান্দা এখনো দুনিয়াতে আছে। আমার প্রজাগণ মারা যাইতেছে আপনার জিকির বন্ধ করুন। তখন কালা শাহ্ জিকির বন্ধ করলেন। জিকির বন্ধের কিছুক্ষণ পর রহমতের বৃষ্টি বন্ধ হয়ে গেল। তখন মহারাজা বলিলেন আপনি কি চান, বাবা আমার কাছে। তখন কালা শাহ বলিলেন, আপনার কাছে আমার চাওয়ার কিছুই নেই। আমার একমাত্র চাওয়ার জায়গা আল্লাহর কাছে, তিনিই আমাকে দিতে পারেন। তৎকালীন মহারাজার একটি বাজার ছিল ওই বাজারের নাম ছিল রাজার বাজার। এই বাজারটি তৎকালীন সীলহট্ট বিভাগের হবিগঞ্জ মৌকুমার কাচারী ছিল চুনারুঘাটের রাজার বাজারে। এর পূর্বদিকে একটি বিল ছিল সেই বিলের নাম ছিল নেড়াচুঙ্গের বিল। কালা শাহর আলোকিত অলৌকিক ঘটনা দেখে মহারাজা খুশি হয়ে রাজার একটি কাসার বাটিসহ নেড়াচুঙ্গের বিলটি কালা শাহকে দান করে দেন। বর্তমান বাড়ী বিশগাঁও পরগনার বড়াব্দা মাইজগাঁও ফকির বাড়ী। সৈয়দ কালা মানিক শাহ ও সৈয়দ কলিম শাহ ওই বাড়ীতে আস্তানা বসতি ঘরে তোলার পর থেকে কালা মানিক শাহ ও কলিম শাহর দুই ভাইয়ের মাঝে আধ্যাত্বিকতার বাড়াবাড়ি শুরু হয়। সৈয়দ কালা শাহর জন্য কেহ কলা নিয়ে যাওয়ার চাইলে পথিমধ্যে কলিম শাহ রাস্তায় কলা খোজলে ভক্তরা কলিম শাহকে কলা না দিয়ে কালা শাহর নিকট কলা নিয়ে চলে যাইত। কালা শাহর নিকট হস্তান্তর করার পর ওই কলাগুলো কাঁচা কলায় পরিণত হয়ে যেত। কলিম শাহর জীবনে ছিল অনেক কৃতিময়। কালা শাহ্র স্ত্রী কালা পিরানী ও ছিলেন অনেক কৃতিময়। কেহ যদি কোন জিনিস বিক্রি করতে হত সেই জিনিস পীরের হাত ছুয়ে নিত। তখন মালটি বিক্রি হয়ে যেত। কেহ যদি রোগে আক্রান্ত হতো পিরানী হাত ছুয়ালে সে আরোগ্য হত। কালা শাহর তিনটি নাম ছিল কালা শাহ, কালু শাহ ও কালা মানিক শাহ নামে ভক্তরা চিনত। তাদের বংশধর হলেন সেলিমের বাবা সৈয়দ মোঃ ইসমাইল শাহ, দাদা সৈয়দ ছিদ্দিক শাহ। সেলিম শাহ’র পীর ছিলেন সিলেটের আব্দুল জলিল শাহ। তিনি না খেয়ে ৫ বৎসর লাহোরের পাহাড়ে অবস্থান করে মজযুস আধ্যাত্মিক সাধনা লাভ করে সিলেটে ফিরে আসেন। সেলিম শাহর বয়স যখন বার বছর তখন তিনি জলিল শাহর নিকট থেকে খেলাফত নিয়ে আধ্যাত্মিকতার জগতের কাজ শুরু করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com