রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:২৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
অবৈধ লেনদেনের অভিযোগে শায়েস্তাগঞ্জ থানার ওসি ও এক এসআই প্রত্যাহার যুক্তরাষ্ট্র হবিগঞ্জ সদর সমিতির ত্রাণ ও স্বাস্থ্য সামগ্রী বিতরণ সাংবাদিকদের সাথে পরামর্শ সভায় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা ॥ সকলে মিলে মিশে কাজ করলে সমাজ থেকে সকল অসংগতি দুর করা সম্ভব শহরতলীর আলমবাজার সংলগ্ন তারা মিয়া জামে মসজিদের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন যুবলীগ সভাপতি ও তার ভাইকে জড়িয়ে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করার প্রতিবাদে সভা নবীগঞ্জে প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধার সম্পদ গ্রাস করতে মরিয়া প্রভাবশালী মহল আজ আজিজুর রহমান তোতা মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী শহরে দুর্বৃত্তের হামলায় এক ব্যক্তি আহত বৃক্ষ প্রেমিক বানিয়াচঙ্গের ইউএনও মাসুদ রানা মাধবপুরে শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু
মক্রমপুরে বন্দোবস্ত বাতিল করে ভূমিহীনদের জায়গা দখলের ষড়যন্ত্র

মক্রমপুরে বন্দোবস্ত বাতিল করে ভূমিহীনদের জায়গা দখলের ষড়যন্ত্র

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচং উপজেলার ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের মক্রমপুর গ্রামে ভূমিহীনদের নামে বরাদ্দকৃত ১৮ একর ভূমির মধ্যে ১০ একর ভূমি জোর পূর্বক দখল করে রেখেছে হিয়ালা-কচুয়ার আব্দার গ্রামের একটি প্রভাশালী মহল। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসকের কাছে ভূমিহীনদের পক্ষে মোঃ সাবান মিয়া, মোঃ আব্দুল আজিজ, মোঃ রেতু মিয়া, মোঃ টেনু মিয়াসহ ১০ জন স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছে। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, হিয়ালা-কচুয়ার আব্দা গ্রামের জ্যোতিময় দাশ গং তাদের বন্দোবস্তকৃত জায়গায় পুকুর ও ঘর নির্মাণ করেছেন। এদিকে মঙ্গলবার আরডিসি মাসুদ রানার নেতৃত্বে প্রশাসনের কর্মকর্তারা বন্দোবস্তকৃত সরকারি জায়গার সীমানা চিহ্নিত করেন। ভূমিহীনরা জানান, মক্রমপুর গ্রামের ১৮ জন ভূমিহীন খাসজমি পাওয়ার জন্য আবেদন করলে ২০০০ সালে সুলতানপুর মৌজার বিভিন্ন দাগে ১৮ একর ভূমি রেজিস্ট্রি মূলে তাদেরকে বন্দোবস্ত দেয়া হয়। পরে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে ১৮ জন দরিদ্রকে এই জমি হস্তান্তর করা হয়। পরে ভূমিহীনরা সেই জমি তাদের নামে নামজারী করে ভোগদখল শুরু করেন। ভূমিহীনদের অভিযোগ, ১৮ একর জমির মধ্যে ১০ একর জমি জ্যোতিময়সহ প্রভাবশালী ১৫ জন অবৈধভাবে তাদের দখলে নিয়ে যায়। আর ৮ একর জায়গা ভূমিহীনদের দখলে রয়েছে। ওই জায়গায় ভূমিহীনদের মধ্যে কেউ কেউ ঘর-বাড়ি নির্মাণ করেন। আবার কেউ ঘর বাড়ি নির্মাণ করার জন্য মাটি ফেলে ভিটা তৈরী করছেন। ইদানিং ওই মহলটি তাদের নামে বন্দোবস্তকৃত জায়গা উদ্ধারের মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে লীজ বাতিল করে দখল করার পায়তারা করছে। পূর্বে জ্যোতিময় গং ১০ একক জায়গা অবৈধ দখলে নিলে তৎকালীন চেয়ারম্যান ও জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজা ন্যায় সঙ্গত কারনে ভূমিহীনদের পাশে দাড়ান। চেয়ারম্যান ভূমিহীনদের পাশে থাকার কারনে এলাকার সাবেক মেম্বার সফিক মিয়া হত্যাকান্ডে হুমায়ুন কবীর রেজাকেসহ ভূমিহীনদের আসামী করা হয়। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমদুল হকসহ জেলার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে সালিশ বৈঠকে সেই মামলার ঘটনা নিস্পত্তি হয়। সালিশে মামলার বাদীকে এবং খরচ বাবদ ২০ লাখ টাকা দেয়ার জন্য ধার্য্য করা হলে ভূমিহীনদের আর্থিক সঙ্গতি না থাকায় সমুদয় টাকা প্রদান করেন চেয়ারম্যান রেজা। পরে ভূমিহীনরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে তাদের নামে রেজিস্ট্রিকৃত ভূমির কিছু অংশ হুমায়ুন কবীর রেজাকে দিতে চাইলে তিনি তা না নিয়ে সেখানে ব্যক্তিগত খরচে একটি মসজিদ, একটি মাদ্রাসা এবং এতিমখানা প্রতিষ্ঠা করে দেন। এতে ভূমিহীনরা তার প্রতি আরও বেশী কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে এবং নিজেরাই মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতিমখানা দেখভাল করেন। আর এর সমূদয় অর্থ প্রদান করেন হুমায়ুন কবীর রেজা ও তার পরিবার।
মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতিমখানা প্রতিষ্ঠা হওয়ায় জ্যোতিময় গংরা অবশিষ্ট ভূমি গ্রাস করতে পারবে না বলে আবারও বেপরোয়া হয়ে উঠে। তারা ভূমি মন্ত্রণালয়ে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে। ভূমিহীনদের নামে রেজিস্ট্রি কবালা থাকার পরও সেই ভূমি নতুন করে নেয়ার জন্য তথ্য গোপন করে তারা এই আবেদন করে।
ভূমিহীন সাবান মিয়া, আব্দুল আজিজ, রেতু মিয়াগং জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদনে তাদের বেদখল ভূমি উদ্ধার এবং সাবেক চেয়ারম্যান হুমায়ুনক কবীর রেজার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের প্রতিকারের দাবি জানান।
এদিকে মঙ্গলবার সরজমিনে মক্রমপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, ভূমিহীনদের নামে বন্দোবস্তকৃত জমিতে বোরো ধান আবাদ করা হচ্ছে। রাস্তার সাথে থাকা জমিতে রয়েছে মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতিমখানা। সাথেই একটি পুকুর। সেখানে অনেক শিশু লেখাপড়া করছে। মসজিদে আশ পাশের এলাকার লোকজন নামাজ পড়তে আসেন। সেখানে দেখা হয় ভূমিহীন সাবান মিয়া, আব্দুল আজিজ, রেতু মিয়া টেনু মিয়াগংদের সাথে। তারা জানায়, সরকার তাদেরকে জমি রেজিস্ট্রি করে দিলে তারা এর একটি অংশ ভোগ দখল করছেন। কিন্তু বন্দোবস্তকৃত ভূমির বেশী অংশ রয়েছে জ্যোতির্ময় দাস গং এর দখলে। আমরা ভূমিহীন ও তারা প্রভাবশালী হওয়ায় আমরা কিছুই করতে পারছি না। আমাদেরকে হত্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করলে সাবেক চেয়ারম্যান হুমায়ূন কবীর রেজা আমাদের পাশে না দাড়ালে আমাদের অস্থিত্ব বিলীন হয়ে যেত। চেয়ারম্যান মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতিমখানা দেয়ায় আমরা আনন্দিত ও তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমরা এখন নামাজ পড়ার জায়গা পেয়েছি। বাচ্চারা লেখাপড়ার সুযোগ পেয়েছে। এ ব্যাপারে সাবেক চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রেজা জানান, আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ আমাকে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে হয়রানী করতে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে। আমি শুধু আল্লাহকে খুশি করার জন্য ভূমিহীন ও এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে মসজিদ, মাদ্রাসা ও এতিমখানা করি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com