রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ১১:৩৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ পবিত্র শব-ই-কদর নয় সহশ্রাধিক মানুষের মাঝে সরকারি সহায়তা বিতরণে এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে জাহির হত্যার মামলা ॥ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে আসামীদের গোপন বৈঠক ‘হৃদ্যতা হবিগঞ্জ’র দরিদ্রদের মাঝে অর্থ সহায়তা বিতরণ শহরের শায়েস্তানগরে তুচ্ছ ঘটনায় যুবককে ছুরিকাঘাত নবীগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পদক উজ্জ্বল সরদারকে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা উপ কমিটির সদস্য মনোনীত নবীগঞ্জের বিশিষ্ট মুরুব্বী ওয়াহিদ চৌধুরী আর নেই সুশীল সমাজ, এতিম ও শিক্ষার্থীদের সম্মানে নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আজমিরীগঞ্জে ছুরিকাঘাতে নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে গেছে নবীগঞ্জে নুরানী মার্কেটে মহিলা ক্রেতাকে মারধোর ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ ॥ এলাকায় উত্তেজনা
কেয়ারের দোকান দখল নিয়ে সীমান্তের আসামপাড়ায় উত্তেজনা ৬টি দোকান প্রশাসনের নজরধারীতে

কেয়ারের দোকান দখল নিয়ে সীমান্তের আসামপাড়ায় উত্তেজনা ৬টি দোকান প্রশাসনের নজরধারীতে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কেয়ার বাংলাদেশ কর্র্র্র্র্র্তৃক নির্মিত দোকান ঘরের দখল নিয়ে রাজনৈতিক দলের নেতা কর্মীদের মাঝে চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। আওয়ামীলীগ-তাঁতীলীগ-স্বেচ্ছা সেবকলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা এ নিয়ে রয়েছেন মুখোমুখি অবস্থানে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে প্রশাসন ওই স্থাপনাটি তাদের কব্জায় নিয়েছে।
স্থানীয়রা জানান, ২০০৫ সালে হত দরিদ্র মহিলাদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে উপজেলার আসামপাড়া বাজারে খাস জমিতে ৬টি দোকান ঘর এবং একটি রেস্ট হাউস ১৯ লাখ ৪৭ হাজার ৫৫৪ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করে ৬ জন মহিলার নামে বরাদ্দ দেয় কেয়ার বাংলাদেশ। প্রকল্পটি বাস্তাবায়ন করে এলজিইডি। এর জন্য প্রতি দোকানের জন্য প্রতি মাসে ভাড়া নির্ধারন করা হয় ১৩৪ টাকা পঞ্চাশ পয়সা। কয়েকজন মহিলা ওই ৬টি দোকানে প্রথমে ব্যবসা শুরু করেন। পরবর্তীতে মহিলাদের কাছ থেকে দোকান গুলো চলে যায় কয়েকজন পুরুষের হাতে। মহিলার স্থলে দোকান সাজিয়ে বসেন পুরুষরা। স্থানীয় গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ভাড়া আদায় করতে থাকেন নিয়মিত। এক সময় কেয়ার বাংলাদেশের সেই দোকানের আশ-পাশ দখল করে নেয় স্থানীয় কয়েকজন লোক। এরা কেয়ারের দোকানকে আড়াল করে বসায় টং দোকান। গত ৯ মে তাঁতীলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতা কর্মীরা কেয়ার বাংলাদেশের সেই রেস্ট হাউস দখল করে নেয় এবং এটাকে তাদের কার্যালয় ঘোষণা দিলে চেয়ারম্যানের সাথে তাদের বিরোধ দেখা দেয়। চেয়ারম্যান হুমায়ুন খান বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করলে ১০ মে সহকারী কমিশনার (ভুমি) আজহারুল ইসলাম একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন। এ ঘটনা নিয়ে এক ছাত্রলীগ নেতাকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। ঘন্টা খানেক পর তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। কেয়ার বাংলাদেশের সেই দোকানগুলো এখন উপজেলা প্রশাসনের নজরধারীতে রয়েছে।
ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন খান বলেন, রাতের আধারে সরকারের ওই সম্পত্তি দখলে নিয়ে তাঁতীলীগের সভাপতি জালাল খান এতে দলীয় সাইন বোর্ড সেঁেট দেন যা সম্পুর্ণ বেআইনী। তাঁতীলীগ সভাপতি জালাল খান বলেন, তারা কেয়ার বাংলাদেশের কোন দোকান দখলে নেন নাই। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মইন উদ্দিন ইকবাল বলেন, সরকারের কোন স্থাপনা তিনি বেদখল হতে দিবেন না। এ ব্যপারে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে বলে জানান তিনি। এলাকার মানুষজন বলেন, সরকারের ওই সম্পত্তিতে কেবল দুস্থ মহিলাদের হক রয়েছে। কেয়ার বাংলাদেশের ওই দোকান ও দোকানের আশ পাশে গড়ে উঠা টং দোকান উচ্ছেদ করে বাজারের শ্রী বৃদ্ধির দাবী জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com