বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৬:২২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
কাল খুশির ঈদ পাথারিয়ায় ভাগ্নের ফিকলের আঘাতে মামা নিহত কাকাইলছেওয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের ॥ আটক ৩৫ আউশকান্দির মেম্বার উস্তার প্রতারণার দায়ে ঈদ উদযাপন করছেন কারাগারেই রেড ক্রিসেন্ট হবিগঞ্জ ইউনিটের ৪শ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ পুরান মুন্সেফীতে মোতাচ্ছিরুল ইসলামকে সংবর্ধনা প্রদান ও ২ শতাধিক মানুষকে ঈদ উপহার বিতরণ শায়েস্তাগঞ্জ অজ্ঞাত গাড়ি চাপায় গ্যাস অফিসের কর্মচারী নিহত হবিগঞ্জ জেলা রিপোর্টার্স ইউনিটির আয়োজনে ইফতার ও দোয়া মাহফিল পশ্চিমভাগ গ্রামের আলহাজ্ব মশাহিদ আহমেদ খানের ইন্তেকাল ॥ শোক নবীগঞ্জে শাহ হেল্প ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে অসহায় দরিদ্রদের মাঝে কাপড় বিতরণ
নবীগঞ্জের বহুল আলোচিত ছাত্রলীগ নেতা হেভেন চৌধুরী হত্যা মামলার ॥ প্রধান আসামী হাবিব গ্রেফতার

নবীগঞ্জের বহুল আলোচিত ছাত্রলীগ নেতা হেভেন চৌধুরী হত্যা মামলার ॥ প্রধান আসামী হাবিব গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জে আলোচিত হেভেন হত্যা মামলার প্রদান আসামী নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের বহিস্কৃত আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান হাবিবকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। গোপন সংবাদের Untitled-2ভিত্তিতে গতকাল রাত সাড়ে ১০ টার দিকে ঢাকার ফকিরাপুল এলাকার একটি বাসা থেকে ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে থাকে গ্রেফতার করে। পরে হাবিব গ্রেফতারের খবর ঢাকা থেকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে জানানো হয়। খবর পেয়ে হাবিবকে হবিগঞ্জ নিয়ে আসার জন্য রাতেই হবিগঞ্জ থেকে পুলিশ রাতেই ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। নিহত হেভেন চৌধুরীর পিতা মকবুল হোসেন চৌধুরীর সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি হবিব গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গ্রেফতারের বিষয়টি তাকে অবহিত করেছেন।
গত ২৪ ফেব্র“য়ারী রাত সাড়ে ১০ টার দিকে প্রতিপক্ষের হামলায় ছাত্রলীগ নেতা হেভেন চৌধুরী (২৬) গুরুতর আহত হন। সাথে সাথে তাকে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে তাকে অজ্ঞান অবস্থায় সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। উপজেলার বোরহানপুর গ্রামের মকবুল হোসেন চৌধুরীর একমাত্র পুত্র হেভেন চৌধুরী। সিলেট মেডিকেলে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হেভেন চৌধুরীর একাধিক অস্ত্রোপচার করা হলেও কোন উন্নতি হয়নি। ফলে গত ২৬ ফেব্র“য়ারী সকালে হেলিকপ্টার যোগে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। ২৭ ফেব্র“য়ারী স্কয়ার হাসপাতাল থেকে এ্যাপোলো হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে তার মাথায় একাধিক অস্ত্রোপচার শেষে তাকে এ্যাপোলো হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়। গঠন করা হয় মেডিকেল বোর্ড। কিন্তু চিকিৎসকদের প্রাণান্তকর চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যায়। ২৮ ফেব্র“য়ারী বিকেলে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন হেভেন চৌধুরী। হেভেন মারা যাবার খবরে এলাকার মানুষ প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠে। মানবন্ধন, প্রতিবাদ, সভা, মিছিল, স্মারকলিপি প্রদান করা হয় বিচারের দাবীতে।
এদিকে ছাত্রলীগ নেতা হেভেন চৌধুরী হত্যাকান্ডের ঘটনায় গত ৪ মার্চ হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের এক জরুরী সভায় নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান হাবিব, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক গোলাম রসুল চৌধুরী রাহেল, যুগ্ম আহ্বায়ক খুর্শেদ আলম মফিজ ও জায়েদ চৌধুরী, নবীগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক কাশেম, সুমন ও মুনায়েমকে ছাত্রলীগ থেকে বহিস্কার করা হয়। একই সাথে নবীগঞ্জ উপজেলা ও কলেজ চাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়।
নিহত হেভেন চৌধুরীর পিতা বোরহানপুর গ্রামের মকবুল হোসেন চৌধুরী বাদী হয়ে হাবিবুর রহমান হাবিবকে প্রধান আসামী করে ১৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ৯/১০ জনের বিরুদ্ধে গত ২ মার্চ গভীর রাতে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হচ্ছে- নবীগঞ্জ পৌর এলাকার আকলিছ মিয়ার ছেলে নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান হাবিব, নবীগঞ্জ শহরের ওসমানী রোডের আলতা মিয়ার ছেলে মফিজ উদ্দিন, সালামতপুর গ্রামের খুর্শেদ মিয়ার ছেলে মুছা মিয়া, বোরহানপুর গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে মাহের, নবীগঞ্জ শেরপুর রোডের হাফিজ রুহুল আমীনের ছেলে মুনাইম, হরিধরপুর গ্রামের নুনু মিয়ার ছেলে সুমন, নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চনু মিয়া চৌধুরীর ছেলে জাহেদ চৌধুরী, গন্ধা গ্রামের আব্দুস শহীদের ছেলে কাসেম, নহরপুর গ্রামের ফয়জুল হকের ছেলে মাহফুজ, রতনপুর গ্রামের হাতিম উল্লার ছেলে জুনু মিয়া, গন্ধা গ্রামের মৃত আব্দুল্লার ছেলে ছানু মিয়া, শেরপুর রোড এলাকার কাচা মিয়ার ছেলে জুয়েল মিয়া, বেগমপুর গ্রামের মুজিবুর রহমানের ছেলে নুরুল আমীন, গন্ধা গ্রামের আব্দুল মালিকের ছেলে জুলহাস মিয়া ও শিবপাশা গ্রামের পিকলু দাস।
মামলায় মকবুল হোসেন চৌধুরী উল্লেখ করেন তার একমাত্র ছেলে হেভেন চৌধুরী সিলেট এম সি কলেজে বি.এ (পাস) কোর্সে অধ্যয়নরত। মাঝে মধ্যে সে বাড়ীতে আসে এবং আমার রড, সিমেন্টের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ‘সোনার খনি’ দোকানে ব্যবসা পরিচালনা করিত। ঘটনার ৪/৫ মাস পূর্বে ১নং আসামী হাবিবুর রহমান হাবিব দোকান থেকে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকার রড, সিমেন্ট নিয়ে নগদ ৫০ হাজার টাকা পরিশোধ করে। বাকী ২,৭০,০০০/- টাকা ৮/১০ দিন পরে দিবে বলে মালামাল নিয়ে যায়। তৎপর আমি এবং আমার ছেলে বিভিন্ন সময়ে আমাদের পাওনা টাকা চাইলে দেই দিচ্ছি করিয়া সময় নিতে থাকে। ঘটনার ৩ দিন পূর্বে হেভেন চৌধুরী আসামী হাবিবুর রহমানকে নবীগঞ্জ বাজারে পেয়ে পাওনা টাকা খুজে। এ নিয়ে হাবিব ও হেভেনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে হেভেনকে হুমকী দিয়ে হাবি চলে যায়।
গত ২৪ ফেব্র“য়ারী রাত অনুমান পৌণে ৯টার দিকে দোকানের বিক্রয়লব্দ প্রায় ৩০/৩৫ হাজার টাকা নিয়ে বাসার উদ্দেশ্যে দোকান থেকে বের হয়। সে প্রয়োজনীয় বাজার সদাই করার জন্য বাজারে যায়। নবীগঞ্জ বাজারে যাওয়ার পথে সেন্ট্রাল প্লাজার সামনে ঘটনার রাত ২১টার দিকে পৌছামাত্র গ্রেফতারকৃত হাবিব সহ আসামীরা জি, আই পাইপ, হকিষ্টিক, লোহার রড, ডেগার, ধারালো ক্ষুর নিয়ে হেভেন চৌধুরীকে রাস্তার উপর ঘেরাও করে। এ সময় আসামী হাবিবসহ আসামীরা হেভেনকে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে।
এ সময় পারভেজ চৌধুরী ও রিপন মিয়া চৌধুরীসহ স্থানীয় লোকজন হেভেনকে রক্ষায় এগিয়ে যায়। এ সময় হামলাকারীদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে পারভেজ চৌধুরী ও সুমন আহত হয়। পরে হামলাকারীরা হেভেনের নিকট থেকে ২টি মোবাইল সেট এবং নগদ ৩০/৩৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন হেভেন, পারভেজ ও রিপন মিয়াকে দ্রুত নবীগঞ্জ থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।
এদিকে হেভেন হত্যার ঘটনার পর থেকে আসামীরা আত্মগোপন করে। পরে প্রধান আসামী হাবিবুর রহমান হাবিব হাইকোর্ট থেকে অস্থায়ী জামিন লাভ করে। জামিন লাভের পরও হাবিব এলাকায় আসেনি বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com