রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৫১ অপরাহ্ন

নবীগঞ্জে নীলু হত্যাকাণ্ডে ঘাতকের দায় স্বীকার ॥ আসল ঘটনা গোপন করার অভিযোগ-বাদীর

নবীগঞ্জে নীলু হত্যাকাণ্ডে ঘাতকের দায় স্বীকার ॥ আসল ঘটনা গোপন করার অভিযোগ-বাদীর

ছনি চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জে ঘরে প্রবেশ করে নীলু সুত্রধর (৬০) নামে বৃদ্ধার হত্যাকারী রঞ্জিত সুত্রধর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। গত সোমবার হবিগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক তাহমিনা হক এর আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে। হত্যাকাণ্ডের ৪ দিন পর গত শনিবার দিবাগত রাতে কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরবের ঘুমড়াকান্দা মহল্লা থেকে ঘাতক রঞ্জিতকে (২৪) গ্রেফতার করে একদল পুলিশ। রঞ্জিত নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউপির রাজনগর (ভুমিহীন) গ্রামের অভিনাশ সুত্রধরের ছোট ছেলে।
স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন।
রঞ্জিত এর বরাত দিয়ে ওসি বলেন, নিহত নীলু সুত্রধর তার সম্পর্কে ঠাকুর মা হয়। সে তার ঠাকুর মায়ের কাছে ঘটনার ১০/১২ দিন পূর্বে বিশ হাজার টাকা জমা রেখেছিল। ঘটনার দিন গত মঙ্গলবার (২ এপিল) সন্ধ্যায় রঞ্জিত ঠাকুর মায়ের কাছ থেকে টাকা আনতে তাদের বাড়িতে যায়। সে তার ঠাকুর মায়ের কাছে টাকা চাইলে তিনি কিসের টাকা জানতে চান। তিনি রঞ্জিতের টাকার কথা অস্বীকার করলে তাদের মধ্যে বাকবিতান্ডা শুরু হলে, নীলু সুত্রধরের ছোট মেয়ে রঞ্জিতের পিসি শিল্পী সুত্রধর তাকে দা দিয়ে কোপ দিতে গেলে রঞ্জিত প্রাণ রক্ষার্থে দা কেড়ে নিয়ে তাদেরকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে।
অন্যদিকে রঞ্জিতের এ জবানবন্দী সঠিক নয় বলে জানিয়েছেন মামলার বাদী আহত শিল্পি সুত্রধর।
তিনি জানান, ঘটনার সময় টাকার বিষয়ে কোন কথাই হয়নি তার সাথে। রঞ্জিতের সাথে আমার মায়ের টাকা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কোন লেনদেন নেই। রঞ্জিত মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে সত্যটা গোপন করছে।
নিহত নীলু সুত্রধরের পুত্র কুয়েত প্রবাসী জীবন সুত্রধর বলেন, রঞ্জিত দিন এনে দিন খায়। ২০ হাজার টাকা এক সাথে জমানো তার জন্য এটা অসম্ভব। আমার মাকে আমি মাসের মাস বিদেশ থেকে টাকা পাঠিয়েছি। কারো কাছে আমার মা টাকা ঋণ নিবেন এটা অবিশ্বাস্য। রঞ্জিত যে জবানবন্দী দিয়েছে সম্পূর্ণ মিথ্যা। এ হত্যাকান্ডের পিছনে অন্য কারো হাত রয়েছে বলে তিনি সন্দেহ করছেন। তিনি সহ তার পরিবারের কেউই রঞ্জিতের এ জবানবন্দি মেনে নিতে পারছেন না। তারা চান প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন হউক।
উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার ২ এপ্রিল সন্ধ্যা রাতে নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের ইছবপুর গ্রামের মৃত চাঁনমণি সুত্রধরের ২য় স্ত্রী নীলু রানী সুত্রধর ও তার কন্যা শিল্পী সুত্রধরের উপর তাদের বসত ঘরে প্রবেশ করে রঞ্জিত হামলায় চালায়। হামলায় ঘটনাস্থলে নীলু সুত্রধর নিহত হন। তার মেয়ে শিল্পী সুত্রধরকে আশংকাজনক থাকায় তাকে রাতেই সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। চিকিৎসা শেষে গত শনিবার সন্ধ্যায় শিল্পী ঘটনাস্থল বাবার বাড়িতে আসেন। শিল্পী ঘটনার ১৫/১৬ দিন পূর্বে মাধবপুর উপজেলার চৌমুহনী মনোহরপুর গ্রাম থেকে মায়ের বাড়ীতে বেড়াতে আসেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com