মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০১:১৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ পবিত্র শব-ই-কদর নয় সহশ্রাধিক মানুষের মাঝে সরকারি সহায়তা বিতরণে এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে জাহির হত্যার মামলা ॥ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে আসামীদের গোপন বৈঠক ‘হৃদ্যতা হবিগঞ্জ’র দরিদ্রদের মাঝে অর্থ সহায়তা বিতরণ শহরের শায়েস্তানগরে তুচ্ছ ঘটনায় যুবককে ছুরিকাঘাত নবীগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পদক উজ্জ্বল সরদারকে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা উপ কমিটির সদস্য মনোনীত নবীগঞ্জের বিশিষ্ট মুরুব্বী ওয়াহিদ চৌধুরী আর নেই সুশীল সমাজ, এতিম ও শিক্ষার্থীদের সম্মানে নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আজমিরীগঞ্জে ছুরিকাঘাতে নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে গেছে নবীগঞ্জে নুরানী মার্কেটে মহিলা ক্রেতাকে মারধোর ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ ॥ এলাকায় উত্তেজনা
নবীগঞ্জে এবারের ঈদে কোরবানী আশাতীত নয়

নবীগঞ্জে এবারের ঈদে কোরবানী আশাতীত নয়

কিবরিয়া চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশি। মুসলমানদের জন্য সবচেয়ে বড় আনন্দ দুটি ঈদ। ধনী-গরীব নির্বিশেষে সকল মুসলমান নিজেদের সাধ আর সাধ্যমত ভাগাভাগি করে ঈদ আনন্দ উপভোগ করে থাকেন। কিন্তু এবারের ঈদে অন্যান্য বছরের মত তেমন আনন্দ নেই। কথায় আছে “অভাব যখন দরজার সামনে দাড়ায় আনন্দ তখন জানালা দিয়ে পালিয়ে যায়”। মানুষে পেটের খোড়াক যোগাতে যেখানে হিমশিম খাচ্ছে সেখানে আনন্দ উপভোগ করা অনেকটা সম্ভব হচ্ছে না। বন্যায় ফসলহানীর কারণেই তেমন আনন্দ নেই বলে অনেকের সাথে আলাপ করে জানা গেছে।
উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের বহরমপুর গ্রামের মধ্যবিত্ত পরিবারের কৃষক আব্দুর রহমান জানান, এ বছর তার পক্ষে কোরবানী দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা, কারণ দুফসলই বন্যার পানিতে তলিয়ে গিয়ে তার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। উপজেলার বড়ভাকৈর গ্রামের কৃষক আব্দুল মান্নান জানান, তার পক্ষেও অন্যের সাথে শরিক হয়েও কোরবানী দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। এ বছর পরিবার-পরিজন নিয়ে তিনি অন্ন যোগাতেই দুশ্চিন্তায় আছেন। তাদের মতো আরো অনেকে এ বছর বন্যায় ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় কোরবানী দিতে পারছেন না। তাদের একটাই চিন্তা আগামী বা বছরের অবশিষ্ট দিন কিভাবে পরিবার -পরিজন নিয়ে দিনাতিপাত করবেন। প্রতি বছরই নবীগঞ্জ উপজেলার প্রায় পৌনে চারশ গ্রামে প্রচুর পরিমানে কোরবানী দেয়া হতো। এবছর অর্ধেকের নেমে আসবে বলে অনেকের সাথে আলাপ করে জানা গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ঘুরে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে জানা গেছে, অন্যান্য বছর লোকজন ঈদের এক দুই সপ্তাহ পূর্বে বিভিন্ন জাতের মসলা ক্রয় করতেন। কিন্তু এবছর তাদের সমাগম কম। গত বছর মসলার বাজার ছিল সবচেয়ে গরম। এবছর তাহা ব্যতিক্রম দেখা দিয়েছে। সব মিলিয়ে বন্যায় ফসলহানী হওয়ায় ঈদ আমেজহীন ঈদে পরিণত হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com