সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৩:০০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
প্রেমিকার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করায় তেঘরিয়ার খোকনকে গলা টিপে হত্যা ॥ প্রেমিকা ও তার বন্ধু ও বান্ধবী গ্রেফতার হবিগঞ্জ জেলাকে মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চান জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান খোশ আমদেদ মাহে রমজান সার-বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে এমপি আবু জাহির ॥ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করে রাস্তায় বের হওয়া মানেই জীবনের ঝুঁকি ব্রি ৮৮ জাতের নতুন ধান আগাম কাটতে পেরে বেজায় খুশি কৃষক হবিগঞ্জে স্বাস্থ্য-বিধি লঙ্ঘনের করায় ৪০ জনকে জরিমানা ঠিকাদারের বিরুদ্ধে সুতাং বাজারের পুরাতন ব্রীজের রাড বিক্রির অভিযোগ ॥ ট্রাক বোঝাই রড আটক বানিয়াচংয়ে ব্র্যাক সিড এর ধান কর্তন সহায়তা কর্মসূচি ল্যাবএইড হাসপাতালে ৮ কেজি ওজনের টিউমার অপসারণ সংবাদ সম্মেলন দাবী ॥ গ্রাম্য মাতব্বরদের ইন্ধনে বানিয়াচংয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী আহত
সেহরির ফযিলত ॥ এবিএম আল-আমীন চৌধুরী

সেহরির ফযিলত ॥ এবিএম আল-আমীন চৌধুরী

পবিত্র রামাদ্বানুল মোবারকে অত্যন্ত ফযিলতপূর্ণ একটি ইবাদত হচ্ছে সেহরী খাওয়া। আহলে কিতাব এবং মুসলিমদের রোযার মধ্যে পার্থক্য হল সেহরী। সেহরীর গুরত্ব সম্পর্কে হযরত আবু সায়িদ খুদরি রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে হদিস বর্ণিত হয়েছে। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসালল্লাম এরশাদ করেন সেহরি বরকতময় খানা, তোমরা তা ত্যাগ কর না, যদিও তোমাদের কেউ এক ঢোক পানি গলাধঃকরণ করে। কারণ আল্লাহ তায়ালা সেহির ভক্ষণকারীদের ওপর রহমত প্রেরণ করেন ও ফেরেশতাগণ তাদের জন্য ইস্তেগফার করেন”। (আহমদ)
হযরত আব্দল্লাহ ইব্ন হারেস রাসূলল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জনৈক সাহাবি থেকে বর্ণনা করেন, “এক ব্যক্তি নবী সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট আগমন করেন, তখন তিনি সেহরি খাচ্ছিলেন, তিনি বললেন, নিশ্চয় সেহরির রকতময়, আল্লাহ তোমাদেরকে তা দান করেছেন, অতএব তোমরা তা ত্যাগ কর না”। (আহমদ)
হযরত আমর ইব্ন আস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আমাদের সওম ও আহলে কিতাবিদের সওমের পার্থক্য হচ্ছে সেহরি ভক্ষণ করা”। (মুসলিম) আবু সূআইদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন নবী সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: “হে আল্লাহ সেহরি ভক্ষণকারীদের ওপর রহমত বর্ষণ করুন”। (তাবরানি ফিল কাবির) হযরত আনাস ইব্ন মালিক রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, নবী সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “তোমরা সেহরি খাও, কারণ সেহরিতে বরকত রয়েছে”। (বুখারী) হযরত মিকদাদ ইব্ন মাদি কারিব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, নবী সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসালল্লাম বলেছেন, “তোমরা সেহরি অবশ্যই ভক্ষণ কর, কারণ তা বরকতপূর্ণ খাবার”। (নাসায়ী)
হযরত আব্দুল্লাহ ইব্ন ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসালল্লাম ইরশাদ করেছেন, “নিশ্চয় আল্লাহ সেহরি ভক্ষণকারীদের উপর রহমত প্রেরণ করেন ও তার ফেরেশতাগণ তাদের জন্য ইস্তেগফার করেন”। (সহিহ ইব্ন হিব্বান)
এ সকল হাদিস থেকে একটি কথা সুস্পষ্টভাবে বুঝা যায় যে, সেহরি অত্যন্ত ফযিলতপূর্ণ একটি ইবাদত। সেহরি আল্লাহর পক্ষ থেকে রুখসত ও বরকত। এ জন্য আমরা সেহরী খাব এবং মহান আল্লাহ তায়ালার শোকর আদায় করব। এতে রয়েছে বান্দার ইহকাল ও পরকালের সফলতা। সেহরি ভক্ষণকারীদের জন্য ফেরেস্তাগণ ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং মহান পরওয়ারদেগার আলম অফুরন্ত রহমত বর্ষণ করেন। নবী করিম সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সেহরি ত্যাগ করতে নিষেধ করেছেন, যা সেহরির গুরুত্ব প্রমাণ করে। তিনি সামান্য কোন খাবার দ্বারা এমনকি একঢোক পানি দ্বারা হলেও সেহরী খাওয়ার তাগিত করেছেন। সকল আলেম একমত যে, সেহরি মোস্তাহাব, ওয়াজিব নয়। তবে সেহরী এ উম্মতে মুহাম্মদীর অন্যতম বিশেষ বৈশিষ্ট্য। সেহরিতে আহলে কিতাবের বিরোধিতা রয়েছে, তারা সেহরি খায় না। আর তাদের বিরোধিতা আমাদের দ্বীনের মূলনীতি। তাই ইসলামের দৃষ্টিতে তাদের সাথে মিল রাখা ও তাদের আখলাক, বৈশিষ্ট্য গ্রহণ হারাম। সেহরির ফলে সওম ও ইবাদতের শক্তি অর্জন হয়, ক্ষুধা ও পিপাসা থেকে সৃষ্ট খারাপ অভ্যাস দূর হয়। মুসলিমদের কর্তব্য সেহরিতে বাড়াবাড়ি না করা, বিশেষভাবে যেহেতু নবী সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  বলেছেন, “তোমরা তা ত্যাগ করো না”। এছাড়া নেক নিয়তে সওয়াবের আশায় সেহরি ভক্ষণ করা জরুরী। কেবলমাত্র অভ্যাসে পরিণত করার জন্য সেহরী খাওয়া উচিত নয়। সেহরির খাওয়ার জন্য দাওয়াত দেয়া ও দাওয়াত গ্রহণ করা ফযিলতের কাজ এবং সুন্নাতে নববী। কারণ নবী সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সেহরি খেতে ও একত্র হতে আহ্বান করেছেন। যেমন, এক হাদিসে এরূপ এসেছে, “তোমরা বরকতপূর্ণ খানার জন্য আস”। এছাড়াও সেহরি ভক্ষণকারী যথাসময়ে ফজর সালাতে হাজির হয়, অনেক সময় মসজিদে আগে এসে প্রথম কাতার ও ইমামের নিকটবর্তী দাঁড়ানোর সাওয়াব লাভ করে। আযানের জওয়াব দেওয়া ও ফজরের দুরাকাত সুন্নত আদায়ে সম হয়। হাদিস শরীফে এসেছে দুনিয়া ও তার মধ্যে বিদ্যমান সবকিছু থেকে ফজরের দুই রাকাত সুন্নত উত্তম। অতএব আমাদের সকলে উচিত সেহরী খাওয়ার এ সুন্নত যথাযথভাবে পালন করে মহান রাব্বুল আলামীনের সন্তুষ্টি হাসিল করা। আল্লাহ পাক আমাদের তৌফিক দান করুন। আমীন!
আজ সেহরীর সময়ে এ দোয়া পাঠ করি: “আল্লাহুম্মা আইন্নী ফিহি আলা ছিয়ামিহি ওয়া কিয়ামিহি, ওয়া জান্নিবনী ফিহি মিন হাফাওয়াতিহি ওয়া আছা-মিহি, ওর্য়াজুকনী ফিহি যিকরিকা বি দাওয়ামিহি বি তাওফীকিকা, ইয়া হা-দিয়াল মুদাল্লীন।”
-হে আল্লাহ! আজকের এ দিনে রোযা পালন ও ইবাদত করতে আমাকে সাহায্য কর। অপ্রয়োজনীয় কথাবার্তা ও সকল গুনাহ্ থেকে আমাকে দুরে রাখ। তোমার তৌফিক ও শক্তিতে সর্বক্ষণ তোমার যিকির নছিব কর। হে পথ হারাদের পথ প্রদর্শনকারী।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com