মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
লাখাইয়ে ২ ডাকাতকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে জনতা মাধবপুরে ৪০ লাখ টাকার ভারতীয় চুলসহ গ্রেপ্তার ২ শায়েস্তাগঞ্জে রেলের জায়গা দখলের অভিযোগে সাবেক কাউন্সিলরসহ ৩ জন আটক নবীগঞ্জে বন্যার্তদের পাশে হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলি হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের অর্ধবার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জের বন্যার্ত পরিবারের মধ্যে যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতা তানহা চৌধুরী তালহা’র পক্ষ থেকে ত্রান সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত হবিগঞ্জ পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডে বন্যা দুর্গতদের মাঝে মেয়রের চাল বিতরণ নবীগঞ্জ পৌরসভায় বন্যায় আশ্রয় কেন্দ্র গুলোতে নগদ অর্থ বিতরণ নবীগঞ্জে রাজরানী সুভাসীনি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে বন্যার্তদের মাঝে খাদ্য বিতরণ মাধবপুরে দুর্ঘটনায় হাডল্যান্ড সিরামিক কর্মকর্তা নিহত

ক্রীড়াঙ্গনের নতুন উদ্দীপনা হবিগঞ্জ আধুনিক স্টেডিয়াম

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন, ২০১৫
  • ৩৭২ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মানুষ জন্মগতভাবে কিছু বিশেষ সুযোগ সুবিধা পেয়ে থাকে। যেমন কারও যদি জন্ম হয় উন্নত দেশে তবে সে জন্মের পর থেকেই পাবে উন্নত সুযোগ সুবিধা। তেমনিভাবে যদি কেউ জন্ম নেয় রাজধানীতে তার সুবিধা থাকে বেশী। এভাবে বিভাগীয় শহর, জেলা শহর, উপজেলা শহর ও প্রত্যন্ত এলাকায় যত নিচের দিকে যাওয়া যাবে ততই সুবিধা বঞ্ছনার চিত্র পাওয়া যায়। একজন ক্রীড়াসংগঠক হিসাবে এই অবস্থানগত সুবিধার বিষয়টি আমরা প্রতিনিয়ত উপলব্ধি করে থাকি।
অসাধারণ প্রতিভা, জনগণের ভালবাসা। কোন কিছুরই কমতি নেই হবিগঞ্জ জেলায়। ক্রীড়াঙ্গনের ঐতিহ্য নিয়ে গর্ব করতে পারে হবিগঞ্জের মানুষ। খোয়াই, সুনাই, সুতাং, করাঙ্গী, ভেড়ামোহনা, শুটকী, রতœা,  বিজনা, শাখা বরাক, কুশিয়ারা, মেঘনা, বিবিয়ানা ও কালনী নদী বিধৌত হবিগঞ্জ জেলার  ক্রীড়াঙ্গনকে এগিয়ে নিতে কাজ করছেন কত ক্রীড়াপ্রেমী মানুষ।  কিন্তু মফস্বল জেলা হওয়ায় একটি গন্ডিতেই থমকে যেতে হয় আমাদেরকে।
একসময় জালাল স্টেডিয়ামই ছিল ক্রীড়াঙ্গনে আমাদের প্রাণ। এই মাঠে খেলা আয়োজন করার পর মাঠ ভর্তি দর্শকদের জন্য খেলা আয়োজন করে টেনশনে থাকতে হত সব সময়। সবাই ভাবে কর্মকর্তা হিসাবে আমরা বিশেষ সুবিধা নিয়ে খেলা উপভোগ করি। বাস্তবতা হল মাঠে দর্শকদেরকে সামাল দিতে গিয়ে আর খেলা দেখা হয়ে উঠেনা। এমন হতাশার মাঝেও আশার প্রদীপ হয়ে আসে নতুন আধুনিক স্টেডিয়ামটা। ১৭ কোটি টাকায় নির্মিত আধুনিক স্টেডিয়াম ঘিরে আমরা চিন্তা করছিলাম এবার হয়ত শান্তিপূর্ণভাবে খেলা দেখা যাবে। বাস্তবতা হল জালাল স্টেডিয়ামের ৫গুন বড় মাঠেও আমাদেরকে খেলা উপভোগ না করে বরং পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়েছে।
১৬ জুন আধুনিক স্টেডিয়ামে জেলা প্রশাসক আন্তঃজেলা ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলায় যে জনস্রোত দেখা যায় তা কল্পনাকেও হার মানিয়েছে। ২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর নিউফিল্ডে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় যে লোকসমাগম হয় তা যদি প্রথম স্থান অধিকার করে তাহলে নিঃসন্দেহে বলা যায় ১৬ জুনের জনসমাগমের অবস্থান ২য় হবে। উপচে পড়া মানুষের ভীড়ে মাঠের ভিতরেও দর্শক প্রবেশ করে। ভেঙ্গে যায় নিরাপত্তার গ্রিল। এই বাধ ভাঙ্গা জোয়ার দেখে আমরা আনন্দিত। এই আনন্দের কারণ হল আমরা যে কারনে স্টেডিয়াম ছেয়েছিলাম তা সত্য প্রমাণ হওয়ায়। আর এই আনন্দের দিনে সবছেয়ে বেশি ধন্যবাদ জানাতে হয় যার প্রচেষ্টায় আমার স্টেডিয়ামটি পেয়েছি সেই জননেতা অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহিরকে। এই জননেতা শুধু মাঠ দেননি বদলে দিয়েছেন হবিগঞ্জকে। অথচ এক শ্রেণীল কাপুরুষ তাকে সামনা সামনি মোকাবেলা করতে না পেরে আড়ালে বসে ইঙ্গিতে বাজে কথা বলে।
জেলা শহরে যে স্টেডিয়াম করা হয় সেখানে আন্তর্জাতিক খেলাধুলা আয়োজনের তেমন সুযোগ সুবিধা থাকেনা। আবার বড় জেলাগুলোতে যে স্টেডিয়াম করা হয় সেগুলো পড়ে থাকে শ্বেত হস্তি হিসাবে। হবিগঞ্জে আধুনিক স্টেডিয়াম হওয়ার পর আমরা চেয়েছিলাম আন্তর্জাতিক টুর্ণামেন্ট করার। লন্ডনের একটি দল, ভারতের আসাম ও ত্রিপুরা এতে অংশ গ্রহণ করবে বলে প্রাথমিক সম্মতিও জানিয়েছিল। সহায়তার হাত বাড়ানোর কথা বলেছিলেন হবিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির। কিন্তু ১৬ জুনের জনস্রোত আমাদেরকে থমকে দিয়েছে। এখন আমরা দাবী করছি স্টেডিয়ামের নিরাপত্তা আরও বাড়ানোর জন্য। পাশাপাশি জনগণের এই ভালবাসাকে সঠিকভাবে কাজে লাগানো সবাইকে অনুরোধ করছি এবার যেন নতুন করে আন্দোলন করা হয় এই মাঠকে আন্তর্জাতিক স্টেডয়াম করার জন্য।
হবিগঞ্জ মফস্বল জেলা হলেও এখানে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম নির্মানের অনেকগুলো যৌক্তিক কারণ রয়েছে। কারণগুলো হল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম করতে হলে থাকতে হবে ভাল যোগাযোগ ব্যবস্থা ও বিদেশী দলের জন্য ভাল আবাসন ব্যবস্থা। এই দুটিই আছে হবিগঞ্জে। আর দ্রুত শিল্পায়ন হওয়ায় পৃষ্টপোষকতারও সমস্যা হবেনা। ক্রিকেট জাতীয় দলের স্পন্সর প্রাণ গ্র“প হবিগঞ্জে জেলা প্রশাসক আন্তঃজেলা ফুটবল টুর্ণামেন্টে স্পন্সর করে যেমন সামাজিক দায়িত্ব পালন করেছে, তেমনিভাবে আম জনতার কাছে তাদের পণ্যের প্রচারও হয়েছে যথেষ্ট পরিমাণে। হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার পুটিজুরীতে দি প্যালেস রিজট এন্ড স্পাতে যে সুযোগ সুবিধা রয়েছে এই উপমহাদেশেই আর নেই। আর শ্রীমঙ্গলের গ্র্যান্ড সুলতান থেকে হবিগঞ্জ স্টেডিয়ামের যোগাযোগ সোনারগা হোটেল থেকে ফতুল্লার ছেয়ে বেশী নয়। হবিগঞ্জে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম হলে আন্তর্জাতিক টুর্ণামেন্টের পাশাপাশি দেশের প্রথম শ্রেণীর টুর্ণামেন্টগুলোর ভ্যানুও হতে পারে নিঃসন্দেহে।
১৬ জুনের জনসমাগম আমাদেরকে আরেকটি জিনিস উপলব্ধি করাতে শিখেছে। সেটি হল আমরা বিনোদনের জন্য ফুটবলকে এখনও খুব বেশী ভালবাসি। এখনও একজন ফুটবলারকে নায়ক মনে করে সাধারণ জনগণ। কিন্তু দুঃখজনক হল আমাদের ফুটবলের এখন কাংখিত মান নেই। সঠিক পরিকল্পনার অভাবে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। অথচ ফুটবল শুধু আমাদের জনগণকে বিনোদনই দিতে পারেনা। এই ফুটবল দেশের অর্থনীতিতেও বড় অবদান রাখে। আমরা যেভাবে বিদেশে শ্রমিক আর মহিলা কর্মী রপ্তানীর ক্ষেত্রে মনোযোগ দেই সেঠিকে বদলে দিয়ে যদি ফুটবলার রপ্তানীর কর্মসূচী গ্রহণ করতাম তাহলে আরও বেশী রেমিটেন্স আসত। এই শিল্পটিকে আয়ত্ব করে অনগ্রসর আফ্রিকা অনেক এগিয়ে গেছে। আমাদেরকে মনে রাখতে হবে মধ্য প্রাচ্যের ১ লাখ শ্রমিক আমাদেরকে যে পরিমাণ রেমিট্যান্স দেয় তার ছেয়ে বেশী রেমিট্যান্স আর্জোন্টিনায় প্রেরণ করে এক লিওনাল মেসি। আর আফ্রিকার ৪র্থ সাড়ির শত শত ফুটবলার আমাদের মত দেশে এসে নিয়ে যায় লাখ লাখ ডলার।
আমাদের শিশুরা বেড়ে উঠে পানিতে হাওড়, পাহাড় আর দুর্গম এলাকায় দুরন্তপনার মাধ্যমে। এভাবে বেড়ে উঠায় তাদের মধ্যে প্রচুর স্ট্যামিনা আর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার সৃষ্টি হয়। তারা যখন কচি বয়সে থাকে যদি একটি নির্দিষ্ট প্রক্রিয়ায় তাদেরকে খেলোয়াড় বানানোর দিকে মনোযাগো দেয়া হত তাহলে সত্যিকারের ফলাফল আসত এবং সাধারণ জনগণের ভালবাসার সত্যিকারের মূল্যায়ন হত।
আর  আমরা যদি এভাবে চলতে থাকি তখন জনগণ বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আমাদের সন্তানদের খেলা দেখতে মাঠে না আসে টেলিভিশনে মেসি রোনালদোতে ব্যস্ত হয়ে পড়বে। তাই এখনই সময় নতুন উদ্যোগ নেয়ার।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com