মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ পবিত্র শব-ই-কদর নয় সহশ্রাধিক মানুষের মাঝে সরকারি সহায়তা বিতরণে এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে জাহির হত্যার মামলা ॥ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে আসামীদের গোপন বৈঠক ‘হৃদ্যতা হবিগঞ্জ’র দরিদ্রদের মাঝে অর্থ সহায়তা বিতরণ শহরের শায়েস্তানগরে তুচ্ছ ঘটনায় যুবককে ছুরিকাঘাত নবীগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পদক উজ্জ্বল সরদারকে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা উপ কমিটির সদস্য মনোনীত নবীগঞ্জের বিশিষ্ট মুরুব্বী ওয়াহিদ চৌধুরী আর নেই সুশীল সমাজ, এতিম ও শিক্ষার্থীদের সম্মানে নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আজমিরীগঞ্জে ছুরিকাঘাতে নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে গেছে নবীগঞ্জে নুরানী মার্কেটে মহিলা ক্রেতাকে মারধোর ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ ॥ এলাকায় উত্তেজনা
সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলায় চার্জশীট ॥ গউছ ও আরিফুল হকের বিরুদ্ধে পরিকল্পনা ও সহায়তার অভিযোগ ॥ গ্রেনেড হামলার কিছুক্ষণ পূর্বে খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা হারিছ চৌধুরী নীল রংয়ের একটি মোটর সাইকেল যোগে এসেছিলেন বৈদ্যের বাজার

সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলায় চার্জশীট ॥ গউছ ও আরিফুল হকের বিরুদ্ধে পরিকল্পনা ও সহায়তার অভিযোগ ॥ গ্রেনেড হামলার কিছুক্ষণ পূর্বে খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা হারিছ চৌধুরী নীল রংয়ের একটি মোটর সাইকেল যোগে এসেছিলেন বৈদ্যের বাজার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলার সম্পূরক চার্জশীটে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জি কে গউছ ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে হত্যার পরিকল্পনা ও সহায়তার অভিযোগ আনা হয়েছে।
সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া, তার ভাতিজা শাহ মঞ্জুরুল হুদা সহ ৫ হত্যা মামলার সম্পূরক চার্জশীট গত ১১ নভেম্বর হবিগঞ্জ আদালতে দাখিল করা হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিলেট জেলা সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মেহেরুন নেছা পারুল ৩৫ জনকে অভিযুক্ত করে এ চার্জশীট প্রদান করেন। চার্জশীটে ১৭১ জনকে স্বাক্ষী করা হয়েছে। ৩৫ জন অভিযুক্তর মধ্যে মামলার প্রথম তদন্তকারী কর্মকর্তার সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মুন্সি আতিকুর রহমানের ২০০৫ সনের ১৯ মার্চ দেয়া চার্জশীটভূক্ত ১০ জন, সম্পূরক তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলামের ২০১১ সনের ২০ জুন দেয়া চার্জশীটের অতিরিক্ত ১৪ জন এর নাম এ চার্জশীটে অন্তর্ভূক্ত রয়েছে। বর্তমান সম্পূরক চার্জশীটে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ নতুন করে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে আরো ১১ জনকে। তদন্তে অভিযোগের দায় থেকে ৩ জনকে অব্যহতি প্রদানের আবেদন জানিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা মেহেরুন নেছা পারুল। আগামী ৩ ডিসেম্বর আমল আদালতে উক্ত মামলার নির্ধারিত তারিখ রয়েছে।
৩৫ জন অভিযুক্ত হচ্ছে-১। নড়াইল জেলার আমডাঙ্গা গ্রামের নূরুল ইসলামের পুত্র মঈন উদ্দিন শেখ ওরফে মুফতি মঈন ওরফে খাজা ওরফে জানদাল ওরফে মাসুম বিল্লাহ ২। গোপালগঞ্জ জেলার হিরণ গ্রামের মোহাম্মদ মুন্সীর পুত্র আবুল কালাম ওরফে আব্দুল মান্নান, ৩। তার ভাই মুহিব উল্লাহ ওরফে মফিজুর রহমান ওরফে অভি, ৪। চাদপুর জেলার মৈশাদি গ্রামের হেমায়েত হোসেন পাটোয়ারীর পুত্র শরীফ সাহেদুল আলম ওরফে বিপুল, ৫। সুনামগঞ্জ জেলা সাহারপাড় গ্রামের সৈয়দ আবুল কালামের পুত্র হাফেজ সৈয়দ নাঈম আহমেদ ওরফে নিমু, ৬। হবিগঞ্জ শহরের চৌধুরী বাজার এলাকার ফজর আলী মুন্সীর পুত্র মোঃ বদরুল আলম মিজান, ৭। সাবেক স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, ৮। বানিয়াচং উপজেলার সিকান্দপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফা ওরফে উস্তার মিয়ার পুত্র মিজানুর রহমান মিজান ওরফে মিঠু, ৯। সিরাজগঞ্জ জেলার মৃত আব্দুর রহমান বাট এর পুত্র মোঃ আব্দুল মাজেদ বাট ওরফে ইউসুফ বাট,  ১০। বগুড়া জেলার পেচিবাড়ী গ্রামের শেখ মাজহাব এর পুত্র মাওলানা শেখ আব্দুস সালাম, ১১। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ভাদৈ গ্রামের মৃত এম এ সামাদের পুত্র একেএম আব্দুল কাইয়ূম, ১২। আব্দাবহাই গ্রামের আব্দুল হালিমের পুত্র জয়নাল আবেদীন জালাল, ১৩। বনগাও গ্রামের মৃত আঞ্জব আলীর পুত্র জমির আলী, ১৪। একই গ্রামের মৃত ওসমান গণির পুত্র জয়নাল আবেদীন মমিন, ১৫। ভাদৈ গ্রামের মৃত মোস্তফা মিয়ার পুত্র তাজুল ইসলাম, ১৬। লুকড়া গ্রামের আতাব উল্লাহ’র পুত্র শাহেদ আলী ওরফে চন্দু, ১৭ বহুলা গ্রামের রোসমত উল্লাহ পুত্র সেলিম আহমেদ, ১৮। শরীফপুর গ্রামের ছমেদ আলীর পুত্র আয়াত আলী, ১৯। মাহমুদপুর গ্রামের হাজী আব্দুল খালেকের পুত্র আব্দুল জলিল, ২০। খুলনা জেলার পাচদিয়া গ্রামের আকরাম হোসেনের পুত্র সৈকত ওসমান, ২১। মৌলভী বাজার জেলার কোনাগাও গ্রামের আবু ইউছুব মিয়ার পুত্র দেলোয়ার হোসেন রিপন, ২২। টাঙ্গাইল জেলা গুলিপেচা গ্রামের মহিউদ্দিন মিয়ার পুত্র মাওলানা তাজ উদ্দিন, ২৩। কিশোরগঞ্জ জেলার বাশগাড়ি গ্রামের নূরুল ইসলামের পুত্র মুফতি শফিকুর রহমান, ২৪। কুমিল্লা জেলার নয়ানগর গ্রামের মোজাফ্ফর হোসেনের পুত্র মুফতি আব্দুল হাই, ২৫। বানিয়াচং উপজেলার নোয়াগাও গ্রামের আব্দুল বারীর পুত্র মোহাম্মদ আলী, ২৬। নবীগঞ্জ উপজেলার কালিয়াঙ্গা গ্রামের আব্দুল বারীকের পুত্র বদরুল ওরফে মোহাম্মদ বদরুল, ২৭। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার কাটাখালী গ্রামের ফরিদ মিয়ার পুত্র মহিবুর রহমান, ২৮। ভাদৈ গ্রামের রঙ্গু মিয়ার পুত্র কাজল মিয়া, ২৯। চট্টগ্রামের ইউছুফ বিন শরীফ, ৩০। সিলেটের খানাইগাটের শরীফুল হক চৌধুরীর পুত্র বেগম খালেদা জিয়ার তৎকালীন রাজনীতিক উপদেষ্ঠা হারিছ চৌধুরী, ৩১। সিলেটের পরবর্তপুর গ্রামের আব্দুল রশিদের পুত্র মাওলানা ইয়াহিয়া, ৩২। হবিগঞ্জ পৌর সভার মেয়র ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া গউছ (জিকে গউছ), ৩৩। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল ইসলাম চৌধুরী (আরিফুল হক চৌধুরী), ৩৪। মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখার আবু বকর ওরফে আব্দুল করিম ও ৩৫ ফরিদপুর জেলার চৌরাঙ্গীরমোড় গ্রামের আব্দুল গণির পুত্র হাসান উল্লাহ কাজল।
তদন্তকারী কর্মকর্তা মেহেরুন নেছা পারুল চার্জশীটে উল্লেখ করেন, অভিযুক্ত মুফতি আব্দুল হান্নান, সাহেদুল আলম বিপুল, নাইমুর রহমান নিমু, মিজানুর রহমান ওরফে মিজান ওরফে মিঠু, মাজেট বাট ও মাওঃ শেখ আব্দুস সালামদের বিভিন্ন সময় দেয়া ১৬৪ ধারায় দেয়া স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, উল্লেখিত আসামীরা পরস্পর যোগসাজসে ২০০১ সালের প্রথম দিকে কোন একদিন ঢাকার মোহাম্মদপুরস্থ ৭ গম্বুজ মসজিদ এবং সুলতান আহমদের বাড়িতে, বিভিন্ন তারিখে মাওঃ তাজ উদ্দিন এবং মাজেদ বাট এর ভাড়া বাসায় পরিকল্পনা করে যে, আওয়ামীলীগ ইসলাম বিদ্বেষী দল। এরা ক্ষমতায় আসলে ইসলাম বিরোধী কার্যকলাপ করে। তাদের সময় ফতোয়া নিষিদ্ধ হয় এবং আলেম ওলামাদের গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। এ কারণে হত্যার মাধ্যমে আওয়ামীলীগকে নেতাশুন্য করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। পরিকল্পনা মোতাবেক দায়িত্ব বন্টন করা হয়। তাদের মধ্যে মুফতি আব্দুল হান্নান ও মাওঃ শেখ আব্দুস সালাম আফগানিস্তানে অংশগ্রহণ করে অভিজ্ঞতাপ্রাপ্ত। সাহেদুল আলম বিপুল লিবিয়া থেকে সামরিক প্রশিক্ষণ গ্রহন করে সামরিক বিষয়ে অভিজ্ঞতাপ্রাপ্ত। পরিকল্পনা মোতাবেক মাওঃ তাজ উদ্দিন পাকিস্তান থেকে আর্জেস্ট গ্রেনেড সংগ্রহ করে। যা মাজেদ বাটের মাধ্যমে কাশ্মীর যুদ্ধে প্রেরণের জন্য মজুদ রাখা হয়। কিন্তু এরই মধ্যে সীমান্ত পাহারা জোরদার করায় মজুদকৃত গ্রেনেড পাচার করতে না পেরে মাওঃ মুফতি হান্নান আওয়ামীলীগকে নেতা শুন্য করা এবং সিলেট ও ঢাকায় মানুষ হত্যা করার জন্য মাওঃ তাজউদ্দিনের নিকট থেকে প্রয়োজনীয় সংখ্যক গ্রেনেড সংগ্রহ করে। পরে তার সহযোগি আহসান উল্লাহ কাজল এবং তার ভাই অভির ঢাকার বাড্ডাস্থ বাসায় গ্রেনেড রাখে। পরে আহসানুল্লাহর বাসা কাম হরকাতুল জেহাদের অফিসে মুফতি হান্নান তার সহযোগি বিপুলের সাথে সিলেট অঞ্চলের আওয়ামীলীগ নেতাদের হত্যার পরিকল্পনা গ্রহণ করে। পরিকল্পনানুযায়ী এ দায়িত্ব বিপুলের উপর ন্যাস্ত হয়। পরে বিপুল তার সহযোগি রিপনকে সাথে নিয়ে হরকাতুল জেহাদের অফিস থেকে ৪টি গ্রেনেড গ্রহণ করে সতর্কতার সাথে সিলেটে তার বাসায় নিয়ে যায়। পরবর্তীকালে ব্রিটিশ হাই কমিশনার আনোয়ার চৌধুরী, আওয়ামীলীগ নেতা জেবুন্নেছা হক, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র বদরুদ্দিন আহমেদ কামরানের উপর দু’দফায় গ্রেনেড নিক্ষেপ করে হতাহতের ঘটনা ঘটায়। পরবর্তীতে বিপুলের নির্দেশে তার সহযোগি হাফেজ নাইমুর রহমান নিমুর মাধ্যমে ডাকাস্থ হরকাতুল জেহাদ অফিস থেকে মুফতি হান্নানের নির্দেশে আবুজান্দালের উপস্থিতিতে আরো ৫টি গ্রেনেড সিলেট নিয়ে আসে। পরে বিপুলের নির্দেশে গ্রেনেডগুলো নিমুর দোকানে রাখা হয়। ওই গ্রেনেড দিয়ে সুনামগঞ্জে আওয়ামীলীগ নেতা সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের জনসভায় বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এতে মানুষ হতাহতের ঘটনা ঘটে।
চার্জশীটে বলা হয়, ২০০৫ সনের ২৭ জানুয়ারী হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজার প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ঈদ পুনর্মিলণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া প্রধান অতিথি উপস্থিত থাকবেন বলে ঘোষনা দেয়া হয়। এ খবর পেয়ে সিলেটের দায়িত্বরত সাহেদুল আলম বিপুল হুজি সদস্য বদরুল আলম মিজানকে উক্ত সভায় গ্রেনেড হামলার নির্দেশ দেয়। সে অনুযায়ায়ী মিজান লাল রংয়ের একটি মোটর সাইকেল যোগে তার বন্ধু রুহেল মাস্টারকে সাথে নিয়ে গ্রেনেড আনার জন্য ২০০৫ সনের ১৮ জানুয়ারী সুনামগঞ্জের হাফেজ নিমুর দোকানে যায়। এবং তার নিকট থেকে গ্রেনেড সংগ্রহ করে সতর্কতার সাথে একটি ব্যাগে করে মোটর সাইকেল যোগে হবিগঞ্জ নিয়ে আসে। এরা উমেদনগর মাদ্রাসার নিকট পৌছার পর মিজান তার বন্ধু রুহেল মাষ্টারকে চলে যেতে বলে। এ সময় রুহেল মাষ্টার ব্যাগে রক্ষিত জিনিসটি দেখার বায়না ধরে। তখন মিজান বন্ধু রুহেলকে নিয়ে মাদ্রাসায় প্রবেশ করে ব্যাগে রক্ষিত গ্রেনেডটি দেখায়। পরে এটি এনে মিজান তার চৌধুরী বাজারস্থ বাসার একটি ট্যাঙ্কে রাখে। ওই ট্যাঙ্কে তার বই ও কাগজপত্র রাখতো। এর ৪/৫ দিন পর সকাল ১১ টার দিকে মিজান তার সহযোগি মিজান মিঠু, বদরুল ও মোঃ আলীকে মোবাইল করে উমেদনগর মাদ্রাসায় নিয়ে আসে। পরে চৌধুরী বাজার বানিয়াচঙ্গ হোটেলে বসে বৈদ্যার বাজারে কিবরিয়ার জনসভায় গ্রেনেড নিক্ষেপের সিদ্ধান্ত নেয়।
২০০৫ সনের ২৭ জানুয়ারী বিকেল ৩ টার দিকে জড়ো হয়ে সাড়ে ৩ টার দিকে উমেদনগর মাদ্রাসা থেকে বদরুল ও মিজান মিঠু সিএনজি যোগে এবং বদরুল আলম মিজান ও মোঃ আলী মোটর সাইকেল যোগে বৈদ্যের বাজারে গিয়ে একটি চা স্টলের নিকট লাল রংয়ের মোটর সাইকেল রেখে সভাস্থলের নিকট জড়ো হয়। এ সময় বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক উপদেষ্টা হারিছ চৌধুরী নীল রংয়ের একটি মোটর সাইকেল যোগে অচেনা একজনকে নিয়ে ওই চা স্টরের নিকট লাল মোটর সাইকেলের নিকট যান। সেখানে বদরুল আলম মিজান ও মোঃ আলীর সাথে হারিছ চৌধুরী ও অচেনা লোকটি কথা বলেন। এক পর্যায়ে কিবরিয়া সাহেবের জনসভা শেষ হবার প্রায় ২০/৩০ মিনিট পূর্বে হারিছ চৌধুরী অচেনা লোকটিকে নিয়ে নীল রংয়ের মোটরসাইকেল যোগে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। পরে বদরুল, মিজান মিঠু, বদরুল আলম মিজান ও মোঃ আলী বৈদ্যার বাজার মসজিদে নামাজ পড়ে। পরে বদরুল আলম মিজান গ্রেনেড বের করে মোঃ আলীকে গ্রেনেড ছুড়ার নিয়ম দেখিয়ে তাকে এটি ছুড়ার দায়িত্ব দেয়। এবং বদরুল, মিজান মিঠু ও বদরুল আলম মিজান ৩দিকে অবস্থান নেয়। এরই মধ্যে মোঃ আলী গ্রেনেড ছুড়তে অপরগতা প্রকাশ করে গ্রেনেডটি বদরুল আলম মিজানের নিকট দিয়ে দেয়। সন্ধ্যা ৭ টা ১০ মিনিটের দিকে জনসভা শেষ হবার পর শাহ এ এস এম কিবরিয়াকে প্রাইমারী স্কুলের গেইটে দেখার সাথে সাথে কিবরিয়াকে লক্ষ্য করে গ্রেনেডটি ছুড়ে মারে মিজান। এতে বিকট শব্দ হয়। সাথে সাথে বিদ্যুৎ চলে যায়। এ সময় দৌড়ে মোটর সাইকেলের কাছে গিয়ে বদরুল আলম মিজান ও মোঃ আলী মোটর সাইকেল যোগে দ্রুত হবিগঞ্জে চলে যায়। গ্রেনেড হামলায় শাহ এ এস এম কিবরিয়া সহ ৫ জন নিহত হয়। আহত হয় ৪৩ জন।
পরবর্তীতে ঢাকার রমনা বটমুলে বোমা হামলার ঘটনায় বদরুল আলম মিজান গ্রেফতার হলে বৈদ্যের বাজারে গ্রেনেড হামলার ঘটনা স্বীকার এর বর্ণনা দেয়। পরবর্তীতে মিজানের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ২০০৮ সনের ২২ ডিসেম্বর শহরের মোহনপুরস্থ তার ভগ্নিপতি মাওঃ কুতুব উদ্দিনের বাসা থেকে লাল রংয়ের মোটর সাইকেলটি এবং ২০০৮ সনের ২৪ ডিসেম্বর তার চৌধুরী বাজারস্থ বাসা থেকে গ্রেনেড সংরক্ষনের ট্যাঙ্কটি উদ্ধার করা হয়।
এদিকে চার্জশীটে উল্লেখিত স্বাক্ষী মেজর জেনারেল অবঃ সাদেক হারুন রুমী, লেঃ কমান্ডার অবঃ মিজানুর রহমান, লেঃ কমান্ডার আফজাল নাসির ভূইয়া (বরখাস্ত) ও মেজর মনিরুল ইসলাম (বরখাস্ত) এর জবানবন্দি মতে জানা যায়, তারা ২০০৫ সালের শেষের দিকে মাওঃ তাজ উদ্দিনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। জিজ্ঞাসাবাদে মাওঃ তাজউদ্দিন জানায়, ২০০৪ সালের ২১ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে বোমা বিস্ফোরনে ব্যবহৃত সকল গ্রেনেড সে সরবরাহ করেছিল। তার নিকট থেকে আব্দুল হান্নান মুন্সি ৩২ গ্রেনেড সংগ্রহ করে। এর মধ্যে দু’দফায় ৯টি গ্রেনেড সিলেট অঞ্চলে প্রেরণ করে। কিবরিয়া হত্যার ঘটনায় ব্যবহৃত গ্রেনেডটি  উল্লেখিত ৯টি গ্রেনেডের একটি বলে তাদের জবানবন্দি থেকে জানা যায়।
পলাতক আসামী মাওঃ তাজ উদ্দিন হতে প্রাপ্ত বিস্তারিত তথ্য তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরকে অবহিত করলে তিনি বিষয়টি নিয়ে অগ্রসর না হওয়ার নির্দেশ দেন। এবং মাওঃ তাজ উদ্দিনকে বাবরের হেফাজতে রেখে বিশেষ ব্যবস্থায় পাকিস্তান প্রেরণের ব্যবস্থা করেন।
আলোচিত কিবরিয়া হত্যার ঘটনা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সংঘটিত ঘটনায় ব্যবহৃত গ্রেনেড সংগ্রহ, সরবরাহকারীকে মদদ দানে তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর আশ্রয় ও প্রশ্রয় দাতার ভূমিকা পালন করেছেন। এছাড়া ঢাকার মতিঝিল থানার একটি মামলায় গ্রেফতারকৃত মাওঃ মুফতি হান্নান স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দিতে বলেন, ২০০৩ সালের শেষের দিকে তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের বেইলী রোডস্থ সরকারী বাসায় অপরাপর আসামীদের সাথে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জি কে গউছ ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে সিলেটের পরিকল্পনা মোতাবেক কাজ করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর। উক্ত নির্দেশের প্রেক্ষিতে তাদের সহায়তায় শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যার ঘটনা ঘটানো হয়। উল্লেখিত আসামীদের বিরুদ্ধে দঃবিঃ ১২০বি/৩২৪/৩২৬/৩০৭/৩০২/৩১২/১০৯/৩৪ ধারার অপরাধ প্রাথমিক ভাবে প্রমানিত হওয়ায় আদালতে সম্পূরক চার্জশীট নং ২৯১ তারিখ ১১-১১-২০১৪ইং দাখিল করা হয়। এছাড়া আসামী আহসান উল্লাহ কাজল ভারতীয় পুলিশের হাতে এনকাউন্টারে নিহত হওয়ায় এবং চট্টগ্রামের ইউসুফ বিন শরীফ ও মৌলভীবাজারের বড়লেখার আবু বক্কর ওরফে আব্দুল করিমের ঠিকানা না পাওয়ায় তাদেরকে মামলা থেকে অব্যাহতি প্রদানের জন্য তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির সিনিয়র এএসপি মেহেরুন নেছা পারুল আদালতে আবেদন জানান। তদন্তের ফলাফল বাদীকে জানানো হয়েছে বলে চার্জশীটে উল্লেখ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com