রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ১০:৩৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ পবিত্র শব-ই-কদর নয় সহশ্রাধিক মানুষের মাঝে সরকারি সহায়তা বিতরণে এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে জাহির হত্যার মামলা ॥ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে আসামীদের গোপন বৈঠক ‘হৃদ্যতা হবিগঞ্জ’র দরিদ্রদের মাঝে অর্থ সহায়তা বিতরণ শহরের শায়েস্তানগরে তুচ্ছ ঘটনায় যুবককে ছুরিকাঘাত নবীগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পদক উজ্জ্বল সরদারকে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা উপ কমিটির সদস্য মনোনীত নবীগঞ্জের বিশিষ্ট মুরুব্বী ওয়াহিদ চৌধুরী আর নেই সুশীল সমাজ, এতিম ও শিক্ষার্থীদের সম্মানে নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আজমিরীগঞ্জে ছুরিকাঘাতে নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে গেছে নবীগঞ্জে নুরানী মার্কেটে মহিলা ক্রেতাকে মারধোর ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ ॥ এলাকায় উত্তেজনা
স্থানীয় উন্নয়নের চিত্র বদলে দিতে পারে হোল্ডিং ট্যাক্স ॥ ৩ বছরে রিচি ইউনিয়ন পরিষদ হোল্ডিং ট্যাক্স থেকে আয় করেছে ৫ লাখ ৯ হাজার ২২৬ টাকা

স্থানীয় উন্নয়নের চিত্র বদলে দিতে পারে হোল্ডিং ট্যাক্স ॥ ৩ বছরে রিচি ইউনিয়ন পরিষদ হোল্ডিং ট্যাক্স থেকে আয় করেছে ৫ লাখ ৯ হাজার ২২৬ টাকা

এম কাউছার আহমেদ ॥ হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ে ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ২নং আদর্শ ইউনিয়ন পরিষদ। ২০১১ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের ব্যাপারে চেষ্টা চালান বর্তমান পরিষদ। ৩ বছরে এ ইউনিয়ন পরিষদ হোল্ডিং ট্যাক্স থেকে আয় করেছে ৫ লাখ ৯ হাজার ২২৬ টাকা।
হোল্ডিং ট্যাক্স থেকে প্রাপ্ত টাকা ব্যয়ে অর্থ ও সংস্থাপন নামে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ ও সামজিক কাজে ট্যাক্সের টাকা ব্যয় করে।
হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ২নং রিচি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিয়া মোঃ ইলিয়াছ ২০১১ সাল থেকে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে কাজ করে আসছেন। স্থানীয় জনসাধরণকে হোল্ডিং ট্যাক্স প্রদানের ব্যাপারে বিভিন্ন ভাবে উৎসাহিত করেন। পরে ২০১২-১৩ অর্থ বছর থেকে রিচি ইউনিয়নে হোল্ডিং ট্যাক্সের পুরোপুরি উত্তোলন করা শুরু হয়। পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকার সত্বেও বর্তমান পরিষদ অত্যান্ত দক্ষতার সাথে জনসচেতনা সৃষ্টি করে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ে হবিগঞ্জের শীর্ষে রয়েছে।
গত ২০১২-২০১৩ অর্থ বছরে ৬৬.৬৮ ভাগ হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় করলেও ২০১৩-২০১৪ অর্থ বছরে তা কমে দাড়িয়েছে ৫০.৯৮।
এ ব্যাপারে ইউনিয়ন সচিব দেওয়ান আব্দুল মতিন জানান-বকেয়া ট্যাক্স কম থাকার কারণে আমাদের ট্যাক্সের হার কম হয়েছে। তিনি জানান চলতি বছরে রিচি ইউনিয়ন পরিষদের দাবী ছিল ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা। কিন্তু বকেয়া ট্যাক্স সহ আদায় করা হয়েছে ২ লাখ ৮৭ হাজার ২০৯ টাকা।
প্রথমদিকে এই ব্যবস্থায় জনগণ বিরূপ মন্তব্য করলেও বর্তমানে নিজ আগ্রহ থেকেই তারা হোল্ডিং ট্যাক্স প্রদান করছেন। এর কারণ হল চেয়ারম্যান মিয়া মোঃ ইলিয়াছ সকল মেম্বার আর এলাকার জনগণকে নিয়ে উন্মুক্ত সভায় এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে ট্যাক্স প্রদানের আহবান জানান। আর এই টাকা তিনি সরাসরি জনগণের কল্যাণে ব্যয় করে থাকেন বলেন জানান-রিচি ইউনিয়নের ৪.৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্যা নূর চান বিবি। তিনি জানান-হোল্ডি ট্যাক্স আদায়ের ব্যাপারে বর্তমান পরিষদ প্রতি বছরে ২ বার প্রতিটি ওয়ার্ডে উন্মুক্ত সভা করে। সভায় হোল্ডিং ট্যাক্সে’র গুরুত্ব ও হোল্ডিং ট্যাক্স প্রদানের ব্যাপারে স্থানীয় জনসাধারণকে উদ্বুদ্ব করা হয়।
এ প্রতিবেদল ইউনিয়ন পরিষদে থাকাকালিন সময়ে হোল্ডিং ট্যাক্স দিতে আসেন রিচি ৩নং ওয়ার্ডের আব্দুল হাসিম, আব্দুল জব্বার, শরীফুল, জালালবাদ গ্রামের আব্দুর নূর একই ইউনিয়নের সুলতানমাহমুদপুর গ্রামের নূর আলী। তাদের মন্তব্য-আগে আমরা ট্যাক্সের গুরুত বোঝতাম না, কিন্তু বিভিন্ন সভার মাধ্যমে যখন আমরা বোঝতে পারলাম হোল্ডি ট্যাক্স দেওয়ার আমাদের কর্তব্য। তখন থেকে আমরা নিয়মিত ট্যাক্স দিয়ে আসছি।
হোল্ডিং ট্যাক্স কিভাবে নির্ধারণ করা হয় জানতে চাইলে, ইউনিয়ন সচিব দেওয়ান আব্দুল মতিন জানান-ট্যাক্স নির্ধারণের পূর্বে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে এসেসমেন্ট নিয়োগ করা হয়। তার কাজ তদারকি করেন ইউপি সদস্য/সদস্যাগণ। সে খানা ভিত্তিক জরীপের মাধ্যমে হোল্ডিং ট্যাক্সের একটি খসড়া তালিকা প্রনয়ন করে। তালিকাটি নিয়ে নির্ধারণী বৈঠকে বসে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃপক্ষ। বৈঠকে ৯টি ওয়ার্ডে ৯টি রিভিও কমিটি গঠন করা হয়। এ ব্যাপারে স্থানীয় জনগণকে অবহিত করার জন্য ১৫ দিনের একটি নোটিশ প্রদান করা হয়। নোটিশে উল্লেখ করা হয়, আরোপিত ট্যাক্সে কারো কোন ধরনের আপত্তি থাকলে ইউনিয়ন পরিষদ বরাবরে অভিযোগ করার জন্য। যদি কেউ অভিযোগ করেন রিভিও কমিটির মাধ্যমে তার স্বাক্ষাৎকার গ্রহণ করে বিষয়টি মিমাংসা করা হয়। পরে চূড়ান্ত তালিকা প্রনয়নের জন্য জেলা প্রশাসকের বরাবর প্রেরণ করা হয়।
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রতিটি খানা/পরিবারের ওপর আরোপিত কর (হোল্ডিং ট্যাক্স) আদায় করেই স্থানীয় অনেক উন্নয়ন করা সম্ভব। এ কার্যক্রম জোরদার করা হলে সামগ্রীক ভাবে এই উন্নয়ন দেশের স্থানীয় সরকারের চিত্র বদলে দিতে পারে। তাই ইউনিয়ন পরিষদের অভ্যন্তরীণ আয়ের খাতকে গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করে সরকারের কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়া উচিত বলে তারা মন্তব্য করেন।
রিচি ইউপি চেয়ারম্যান মিয়া মোঃ ইলিয়াছ বলেন-হোল্ডিং ট্যাক্সের আয় দিয়েই ইউনিয়নের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা যায়। এছাড়া ইউনিয়নের অভ্যান্তরীণ বিভিন্ন খরচ মিটিয়ে বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডেও এ আয় কাজে আসতে পারে। এ ট্যাক্সের আয় দিয়ে ইউনিয়নের ছোট খাট কালভার্ট ও ইট সলিং রাস্তা নির্মাণ এবং পরিষদের অভ্যান্তরীণ খরচ মেটাচ্ছে রিচি ইউনিয়ন পরিষদ।
হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশফাকুল হক চৌধুরী বলেন-হোল্ডিং ট্যাক্স অবশ্যই স্থানীয় উন্নয়নে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে। এ ভাবে স্থানীয় ট্যাক্স আদায়ের মাধ্যমে উন্নয়ন কাজ পরিচালনা করলে জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহিতাও বাড়বে এলাকার উন্নয়ন হবে।
চার স্তরবিশিষ্ট স্থানীয় সরকার কাঠামোর সর্বশেষ ধাপ ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে দেশের বিশাল জনগোষ্ঠীর শতকরা প্রায় ৭০ ভাগ মানুষের বসবাস। স্থানীয় উন্নয়ন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গণতান্ত্রিক বিকাশ ও সামগ্রিক উন্নয়নে ইউনিয়ন পরিষদের কোনো বিকল্প নেই। ইউনিয়ন পরিষদের মতো একটি বড় প্রতিষ্ঠান চালানোর জন্য অভ্যন্তরীণ আয়ের যেসব খাত পরিচালনা করার দরকার ছিল সে ব্যবস্থা আজও পুরোপুরি গড়ে উঠেনি। যার কারণে সব সময়ই এ প্রতিষ্ঠানটি কেন্দ্রীয় সরকারের নিয়মতান্ত্রিক বরাদ্দ ও দাতাগোষ্ঠীর মুখাপেী হয়ে থাকে। অথচ অভ্যন্তরীণ উপার্জন দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদকে অর্থনৈতিকভাবে পুরোপুরি আত্মনির্ভরশীল করা সম্ভব। কিন্তু এটি নানা কারণে করা সম্ভব হচ্ছে না বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com