বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০২:০০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
সিগন্যাল অমান্য করে ক্রসিংয়ে প্রবেশ ॥ লস্করপুরে ট্রেনের ধাক্কায় সিএনজি যাত্রী নিহত বানিয়াচং হাসপাতালে সরকারি নিয়ম ভঙ্গ করে রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায় বাজেট অধিবেশনের বক্তব্যে এমপি আবু জাহির ॥ দেশের মানুষ এখন ‘গরীব বাঁচানোর বাজেট’ শ্লোগানে আনন্দ-উল্লাস করে শায়েস্তাগঞ্জে ৪ কেজি গাঁজাসহ যুবক গ্রেপ্তার জেলা ছাত্রদল সভাপতি রিংগনের মুক্তির দাবিতে নবীগঞ্জে তৌহিদ চৌধুরীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল চুনারুঘাটে ৬ বছরের ব্যবধানে দুই ভাইকে হত্যা ॥ গ্রেপ্তার ৩ বানিয়াচংয়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন বাস্তবায়নে সেমিনার অনুষ্টিত এমপি আবু জাহির সিঙ্গাপুরে গেছেন নবীগঞ্জে হাওরে অভিযান চেক ডিজঅনার মামলায় কাউন্সিলর পান্না গ্রেপ্তার

বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান পেলেন ২৬৯ ভোট

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ২৩ মে, ২০২৪
  • ৩০ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাহুবলে গো’হারা হেরেছেন বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান। ৭ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে তিনিই হয়েছেন ৭ম। ভোট পেয়েছেন মাত্র ২৬৯টি। অথচ আগের নির্বাচনে জয়ী হয়েছিলেন বিপুল ভোটে। পরাজিত করেছিলেন তৎকালীন উপজেলা চেয়ারম্যান ও তৎকালীন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুল হাইসহ বাঘা বাঘা নেতাদের। এবারের পরাজয়কে সহজভাবেই মেনে নিয়েছেন বলে জানালেন বর্তমান চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান। তিনি দায়ি করলেন কালো টাকার কাছে হেরেছেন। তিনি বলেন, এখন দেশে নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট হয়ে গেছে। ভালো মানুষদের নির্বাচনে যাওয়া ঠিক নয়। আমি নিরুৎসাহিত করি। কোটি কোটি টাকা না থাকলে রাজনীতি, নির্বাচনে যাওয়া ঠিক নয়। তিনি দাবি করেন, দু’দিন আগেও মানুষ তাকে ভোট দিতে প্রস্তুত ছিল। কিন্তু আগের রাতে কয়েকজন প্রার্থী বিপুল পরিমান টাকা বন্টন করেছেন। টাকার কাছে আমি হেরেছি। মানুষ এখন সেবা চায়না। নগদ টাকা চায়। তিনি বলেন, আমি অভিনন্দন জানাই নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানকে। আমাকে মানুষ যা দিয়েছে, আমার আর প্রয়োজন নেই। আমিতো একবার হয়েছি। স্থানীয়রা জানান, তার এ গো’হারার পেছনে নিজের লোভ ও মাঠ পর্যায়ের নেতাদের সাথে দূরত্ব। তিনি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই ছেলেকে দিয়ে বিভিন্ন ব্যবসায় জাড়িয়ে পড়েন। ছেলেকে নিয়েই চালান উপজেলা পরিষদ। যেন ছেলেই আরেক উপজেলা চেয়ারম্যান। উপজেলা প্রশাসনের সাথেও তার বিরোধ লেগেই থাকতো। তার এসব কর্মকান্ডে দিনে দিনে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছিলেন স্থানীয়রা। এসবের প্রতিফলনই ঘটেছে এবারের নির্বাচনে। ব্যবসায়ী দুলাল মিয়া ওরফে আব্দুল জলিল জানান, লটারীর মাধ্যমে প্রায় ২০ লক্ষ টাকার একটি কাজ পান তিনি। কাজ পাওয়ার শুরু থেকেই চেয়ারম্যান ও তার ছেলে সৈয়দ ইসলাম এক লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন। আমি দেইনি বলে আমার বিলে স্বাক্ষর না করে বিল ফিরত পাঠিয়ে দেন। পরে হাইকোর্ট তথা মন্ত্রনালয়ের বিভিন্ন চিঠি চালাচালির মাধ্যমে বহু কষ্টে বিল উদ্ধার করি। মিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান শামীম আহমদ বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকার কাজ পেতে হলেও ম্যানেজ করতে হয় তার ছেলেকে। তার মন না ভরলে কোন কাজই দেন না চেয়ারম্যান। এ নিয়ে সকল ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মিলে তার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগও করেছি। একই কথা বললেন সদর ইউপি চেয়ারম্যান আজমল হোসেন চৌধুরী। তিনি বলেন, প্রতিটি গভীর নলকূপ প্রকাশ্যে তার ছেলে ৩০ হাজার টাকা করে নিয়ে মানুষের ঘরে ঘরে বসানোর সুযোগ করে দিয়েছে। স্ট্রিট লাইট রাস্তার পাশে বসানোর কথা থাকলেও উৎকোচ পেয়ে মানুষের বাড়ির আঙ্গিনায় স্থাপন করে দিয়েছেন। এসবে মানুষ ক্ষুব্দ ছিল। সব পুঞ্জিভূত ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে নির্বাচনে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com