বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
ওলিপুরে প্রাণের চিপস কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ॥ কোটি টাকার ক্ষতি নাছিরনগরে কাজ করতে গিয়ে মাধবপুরে ৩ শ্রমিক নিহত শায়েস্তাগঞ্জে আটক প্রেমিক যুগল পুলিশ হেফাজতে দেশে ফিরলেন এমপি আবু জাহির ও হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলেয়া আক্তার চুনারুঘাটে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাউলসহ এক ব্যক্তি গ্রেফতার চুনারুঘাটে নোহা উল্টে শিশু নিহত ॥ হাসপাতালে মা নবীগঞ্জে উপ-নির্বাচনে বিজয়ী ইউপি সদস্য আব্দুল মোমিনের শপথ গ্রহন আজমিরীগঞ্জে গরুর ঘাস কাটা নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০ পবিত্র ওমরাহ পালন শেষে পৌরসভায় ফিরেছেন মেয়র আতাউর রহমান সেলিম নবীগঞ্জের প্রবীণ মুরুব্বি ফজল মিয়ার ইন্তেকাল ॥ দাফন সম্পন্ন

শহরতলীর জালালাবাদ গ্রামে মানববন্ধন ॥ সেঁচের পানি না দেয়ার অভিযোগে প্রকাশিত সংবাদকে মিথ্যা দাবি

  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ২৭ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রিচি ইউনিয়নের জালালাবাদ গ্রামে জমিতে সেঁচের পানি না দেয়ার অভিযোগে প্রকাশিত সংবাদকে মিথ্যা দাবী করে এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন এলাকাবাসী। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১০টায় এক মানববন্ধনের মাধ্যমে প্রতিবাদ জানানো হয়। গ্রামের বিশিষ্ট মুরুব্বি হাজী আবু মিয়ার সভাপতিত্বে এই প্রতিবাদী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বক্তারা দাবী করেন- জালালাবাদ গ্রামের প্রবীণ মুরুব্বি হিসেবে আব্দুল কাইয়ূম সরদারকে সেঁচ প্রকল্পের কমিটিতে রাখা হয়। একজন সৎ ও বিশ^স্ত ব্যক্তি হিসেবে গ্রামের মানুষজন তাকে বিশ^াস করেন বলে তার নামে বিদ্যুতের মিটার করা হয়। কিন্তু তার নামে মিটার হলেও তিনি সেচ প্রক্রিয়া সাথে সম্পৃক্ত না। বিদ্যুতের তার চুরির পর জব্দ হয়। যে কারণে আইন-আদালতের প্রক্রিয়ায় সেই তার ফেরতে আসতে কয়েক মাস পেরিয়ে যায়। এতে জমিতে ধান আবাদে কৃষকরা সমস্যায় পড়েন। সেঁচ প্রকল্প কমিটির সদস্য মো. আব্দুর রশিদ বলেন- গতবছর এই প্রকল্পটি লিজ নেন এই কমিটির আরেক সদস্য জালালাবাদ গ্রামের ফুল মিয়া। তিনি দুটি নষ্ট মিটার আমার কাছে হস্তান্তর করেন। কিন্তু এগুলো যে নষ্ট তিনি তা প্রকাশ করেননি। প্রকল্পের একটি মটর ও প্রায় ৩ হাজার ফুট বৈদ্যুতিক তার গোপনে বিক্রি করেন। চলতি বছরের লিজদার মো. আব্দুল আউয়াল বিষয়টি ফুল মিয়ার চাচা এডভোকেট রফিক উদ্দিন তালুকদারকে জানান। তিনি এর সমাধানের আশ^াস প্রদান করে সালিশের দায়িত্ব নেন। কিন্তু নিজের অপকর্ম ঢাকতে ফুল মিয়া এবং তার সহযোগী দেওয়ান কবির, গ্রামের প্রবীণ মুরুব্বি আব্দুল কাইয়ুম সরদারকে হেয় করতে সাংবাদিকদের মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য প্রদান করেন। আমরা গ্রামবাসী ওই মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত তথ্যের ভিত্তিকে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
সেঁচ প্রকল্পের সদস্য ও চলতি বছরের লিজদার মো. আব্দুল আউয়াল তার বক্তব্যে বলেন- বৈদ্যুতিক তার আদালত থেকে পেতে দেরীর বিষয়টি গ্রামবাসীকে আমি অবগত করি। এনিয়ে গ্রামের কয়েকজন মুরুব্বিকে নিয়ে মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ¦ এডভোকেট মো. আবু জাহিরকে বিষয়টি জানাই। তার ফেরত পাবার পর সংযোগ দিতে গেলে আমরা বুঝতে পারি ফুল মিয়া নষ্ট দুই মিটার দেন। এরপর সরকারি প্রক্রিয়ায় মিটার আনতে সময় ক্ষেপন হয়। এরপর যুক্ত হয় বিদ্যুতের লো-ভোল্টেজ সমস্যা। মূলত এসব কারণেই সেঁচের পানি সময়মত পাননি গ্রামের কৃষকরা। যখন পানি দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়, তখন কৃষকরা এর প্রয়োজন নেই বলে জানান।
মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন- হাজী আবু মিয়া, আলফু মিয়া, সবুর মিয়া, শামছুল হক, কিম্মত আলী, নাছির মিয়া, আব্দাল মিয়া, বাবুল মিয়া, রশিদ মিয়া, খালেক মিয়া, আব্দুল আউওয়াল, জাহির মিয়া প্রমুখ। জালালাবাদ সেঁচ প্রকল্প কমিটি সূত্রে জানা যায়- ধান রোপনের শেষ পর্যায়ে আসায় কৃষকদের আর সেঁচের পানি দরকার নেই বলে বর্তমান লিজদার আব্দুল আউয়ালের কাছে বিশিষ্ট মুরুব্বি ইউনুছ মিয়া, সেবু মিয়া, সুহেল মিয়া মজনু মিয়া, বেলাল মিয়া, আব্দুস সাত্তার, জাহির মিয়া, মুশাহিদ মিয়া প্রমূখ কৃষকগণ জানান।
উল্লেখ্য- গত বুধবার হবিগঞ্জ সমাচার ও বিজয়ের প্রতিধ্বনীসহ কয়েকটি পত্রিকায় সময়মত সেঁচের পানি না পাওয়ায় জালালাবাদ গ্রামে ২শ’ একর জমি অনাবাদি থাকার অভিযোগে সংবাদ প্রকাশ হয়।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com