শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৪৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাটে দুই সহোদরসহ ৩ জন গ্রেফতার ॥ ২০ কেজি গাঁজা উদ্ধার শায়েস্তাগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে স্বামী-স্ত্রীর মনোনয়নপত্র দাখিল আজ শায়েস্তাগঞ্জ থানা উদ্বোধন করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আউশকান্দি এলাকা থেকে মহিলার লাশ উদ্ধার আন্দোলনের মুখে শেখ হাসিনা পালানোর পথ খুঁজে পাবেনা-শেখ সুজাত মিয়া সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চুনারুঘাটের সোহাগের মরদেহ ২৮ দিন পর দেশে ॥ দাফন সম্পন্ন বানিয়াচঙ্গে পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ এক ব্যাক্তি আটক শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ের জংশন গাড়ির স্ট্যান্ডে পরিণত আজমিরীগঞ্জের কৃতি সন্তান আনিসুল ইসলাম জুয়েল কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মনোনীত জুমার খুৎবায় মাওলানা গোলাম মোস্তফা নবীনগরী ॥ রাত জেগে খেলা দেখে উল্লাস করে ঘুমন্ত মানুষকে ডিস্টার্ব করছে তাদের জন্য দোযকের বার্তা রয়েছে

মাধবপুরে হাজার বছর পুরানো তিন গম্বুজ দেওগাঁ জামে মসজিদ ॥ প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন ও পর্যটনের নতুন সম্ভাবনা

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ২৫ বা পড়া হয়েছে

মাধবপুর প্রতিনিধি ॥ মাধবপুর উপজেলার বহরা ইউনিয়নের দেওগাঁ গ্রামে প্রাচীন মসজিদের সন্ধান পাওয়া গেছে। মসজিসটির নির্মাণ শৈলী এবং স্থাপত্য কলা অবলোকন করতে ইদানিং সেখানে দর্শনার্থীর ভিড় বাড়ছে। এই মসজিদের একটি ফলকে এর সংস্কার কাল মোঘল সম্রাট আকবরের শাসনামলে বলে উল্লেখ আছে। তবে এর নির্মাণ এর অনেক আগে বলে ইতিহাস গবেষকদের ধারনা। এই মসজিদের সামনে রয়েছে একটি প্রাচীন দিঘিসহ একটি পুরনো মাজার রয়েছে যাকে স্থানীয়রা হযরত বদরুদ্দিন শাহ (রহঃ) মাজার বলে উল্লেখ করেন। জঙ্গল-বাশঝাড় ঘেরা উচু উচু টিলা এবং ঘনবৃক্ষের অন্য রকম পরিবেশের কারণে এলাকাটি অত্যন্ত রহস্যময় হওয়াতে দর্শনার্থীদের আগ্রহ বাড়ছে দিন দিন।
ঐতিহাসিক তথ্যসূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ পাঠানদের অধীনে থাকা কালীন তাদের দ্বারা মাঝে মধ্যেই ত্রিপুরায় আক্রমন হতো এই এলাকা তৎকালীন ত্রিপুরার অংশ ছিল। এক যুদ্ধে পাঠান বাহিনীর সেনাধিনায়ক কাশিম খাঁ ও দাউদ খাঁ নামক বিশেষ বীরত্ব প্রদর্শনপূর্বক এ অঞ্চলের বিজয় লাভ করেন। তারা এখানে থাকার ইচ্ছা প্রকাশ করলে সম্রাট তাদেরকে এখানকার কিছু ভূমি দান করেন। তন্মধ্যে কাসিম খাঁ দিনাদহ নামক এলাকা প্রাপ্ত হন। দিনাদহ তখন থেকে কাসিম খাঁর নামানুসারে কাশিমনগর হিসেবে নাম আসে। পরবর্তীতে দীর্ঘ এলাকা নিয়ে কাশিমনগর পরগণা প্রতিষ্ঠিত হয়। এই দিনাদহেরই একাংশ ছিল দেওগাঁ। কাশিম খাঁর বসতি স্থাপনের পর থেকে এখানে আস্তে আস্তে মুসলিম জনগন বাড়াতে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় এই মসজিদ হতে পারে মনে করেন অনেকে। অথবা মসজিদকে কেন্দ্র করে তৈরি হয় এই মুসলিম জনপদ।
প্রাচীন এই মসজিদটি ইট সুরকি নির্মিত ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট একটি দ্বিতল ভবন। এর আয়তন উত্তর-দক্ষিণে দৈর্ঘ ৩৭ ফুট এবং পূর্ব-পশ্চিমে প্রস্থ ৩৩ ফুট। দুইভাগে বিভক্ত ভবনের পশ্চিমাংশ অর্থাৎ মূল ভবন দ্বিতল বিশিষ্ট। প্রস্থ ১৬ ফুট ৬ ইঞ্চি করে ২ অংশের অভ্যন্তর ভাগ ৪ ফুট প্রস্থের দেয়াল দ্বারা বিভক্ত। পশ্চিমাংশের মূল ভবন তিনটি কক্ষে বিভক্ত। তন্মধ্যে মধ্যের কক্ষের অভ্যন্তর ভাগ বর্গাকার ১০ ফুট আয়তন বিশিষ্ট। উভয় পাশের কক্ষ প্রতিটির আয়তন ১০ ফুট ও ৮ফুট ৬ ইঞ্চি পরিমাণ। কক্ষ তিনটির প্রতিটির সামনে ও পেছনে একটি করে দরজা রয়েছে।
এই মসজিদের বর্তমান মোয়াজ্জিন ও স্থানীয় বিজ্ঞ বাসিন্দা আফজাল চৌধুরী জানান, এ মসজিদের অভ্যন্তরে একটি ফলক রয়েছে যেখানে ফারসি ভাষায় লিখিত আছে এই মসজিদ আকবরের আমলে সংস্কার করা হয়েছে। এর নির্মাণ অনেক আগে। দিল্লি সালতানাতের আমলেও হতে পারে। মসজিদের নিচতলায় অনেকগুলো বসতি রুম রয়েছে। যেগুলোয় মুসাফির সাধু-সন্ন্যাসীরা থাকতো বলে মনে হয়। নৃত্তাত্ত্বিক গবেষণা পরিচালনা করলে আরো অনেক কিছু বেরিয়ে আসতো।
স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহজাহান মিয়া জানান, প্রাচীন এই মসজিদটি সংস্কারের জন্য বিভিন্ন দপ্তরে দৌড়াদৌড়ি করলেও তিনি তেমন ফল পাইনি। আমরা স্থানীয় বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী মহোদয় এবং প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
বহরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আলাউদ্দীন জানান, প্রাচীন এই জামে মসজিদ আমাদের ইউনিয়ন তথা উপজেলার গর্ব। দিন দিন এর দর্শনার্থীর সংখ্যা বাড়ছে। এটি সংস্কার, গবেষনা, প্রচারের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com