বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১০:০৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
লাখাইয়ে যানজট নিরসনে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা আজমিরীগঞ্জে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর আব্দুর রাজ্জাকের দাফন সম্পন্ন হবিগঞ্জে নতুন আরো ১৬ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবিগঞ্জে বকেয়া ভাতা দেয়ার দাবীতে ডিপিএড প্রশিক্ষণার্থীদের মানববন্ধন হবিগঞ্জে হিটস্ট্রোকে এক দিনে তিন ব্যক্তির মৃত্যু মাধবপুরে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষ ॥ মহিলাসহ আহত ২০ নরসিংদীতে মলম পার্টির কবলে পড়ে নবীগঞ্জের যুবকের সর্বস্ব খোয়া বেসরকারী হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার করোনা প্রতিরোধে অগ্রনী ভূমিকা পালন করবে-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম নবীগঞ্জের দাউদপুরে সমিতির প্রয়াত ৩ সদস্যের স্মরণে শোকসভা, দোয়া মাহফিল ও বার্ষিক সাধারণ সভা হবিগঞ্জে ব্র্যাকের ইনসেপশন মিটিং ॥ নিজের পরিবার থেকে জেন্ডার জাস্টিস চর্চা শুরুর আহবান

ঢাকায় সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের ইনভেস্টিগেশন বিভাগ ॥ নবীগঞ্জ থেকে আটক মাওলানা মুকিত জঙ্গী সংগঠনের সদস্য

  • আপডেট টাইম মঙ্গলবার, ১১ মে, ২০২১
  • ২৩ বা পড়া হয়েছে

ছনি চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ শাখোয়া বাজারস্থ মারকাযুস সুন্নাহ আল ইসলামিয়া মাদরাসা প্রতিষ্ঠাতা হেফাজত নেতা মাওলানা হাফেজ আব্দুল মুকিতকে আটকের ৭দিন পর গ্রেফতার দেখিয়েছে আইনশৃংখলা বাহিনী। গত শনিবার (৮ মে) সন্ধ্যায় ঢাকার মোহাম্মদপুরে বছিলায় অভিযান চালিয়ে নবীগঞ্জের মাদ্রাসা শিক্ষক আব্দুল মুকিতসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করে আইনশৃংখলা বাহিনী। গ্রেফতারকৃত ৪ জন নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের সদস্য বলে দাবী করছে আইনশৃংখলা বাহিনী। গ্রেফতারকৃত ৪ জন পুলিশ ও বিজিবির ওপর ‘হামলার পরিকল্পনা’ করছিল বলে আইনশৃংখলা বাহিনীর ভাষ্য। রবিবার (৯ মে) বিকেলে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের ইনভেস্টিগেশন বিভাগ এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য নিশ্চিত করে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ থানার মারকাজুস সুন্নাহ আল ইসলামিয়া মাদরাসার শিক আব্দুল মুকিত (২৯), রাজধানীর অতীশ দীপঙ্কর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএর ছাত্র জসিমুল ইসলাম জ্যাক (২৫), সিলেটের আল হিদায়া ইসলামিক ইনস্টিটিউটের ছাত্র আমিনুল হক (২০) এবং সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের অনার্সের শিার্থী সজীব ইখতিয়ার (২০)। গ্রেফতারের সময় তাদের হেফাজত হতে ১টি ব্যাগ, ১টি চাপাতি, ৫টি স্মার্ট ফোন ও ২টি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়। কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান উপ মহাপরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের গ্রেফতারকৃত সদস্যরা ঢাকা ও সিলেটে পুলিশ ও বিজিবির টহল টিমে হামলার পরিকল্পনা করেছিল। এজন্য তারা রেকিও করে।” গ্রেফতার ওই চারজন এবং তাদের অন্য সদস্যরা ‘সায়েন্স প্রজেক্ট’ নামে একটি মেসেঞ্জার গ্রুপ খুলে নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রাখতেন। ওই গ্রুপের দুইজন ইতোমধ্যে আফগানিস্তানে চলে গেছেন এবং বাকিরাও দেশে কোনো ‘নাশকতা ঘটিয়ে’ আফগানিস্তানে চলে যাওয়ার ‘প্রস্তুতিতে ছিলেন’ বলে পুলিশের এই বিশেষায়িত ইউনিটের ভাষ্য। জঙ্গিরা হঠাৎ কেন বিজিবিকে নিশানা করল-এমন প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান বলেন, “জঙ্গিরা আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীকে তাদের হামলার লক্ষ্য হিসেবে রেখেছে।” এ দলের জঙ্গিদের আফগানিস্তানে ‘হিজরত’ করা নিয়ে এক প্রশ্নে ডিআইজি আসাদুজ্জামান বলেন, “আপনারা জানেন, আমাদের দেশে যে কটি জঙ্গি সংগঠন সক্রিয়, তাদের অধিকাংশই আল-কায়েদার সঙ্গে তাদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে দাবি করে। “আনসার আল ইসলাম উপমহাদেশের আল-কায়েদার শাখা বলে দাবি করে। সেই সূত্র ধরেই তারা হয়ত আফগানিস্তানে হিজরত করতে গিয়ে থাকতে পারে। তবে এটা তাদের ভাষ্য, এ বিষয়ে আমরা এখনও নিশ্চিত হতে পারিনি।” আরেক প্রশ্নের জবাবে সিটিটিসি প্রধান বলেন, “তাদের পরিকল্পনা ছিল অক্সিজেন গ্যাস সিলিন্ডারের মাধ্যমে বড় ধরনের বিস্ফোরণ ঘটানো। এ বিষয়টি তাদের পরিকল্পনা পর্যায়ে ছিল।” সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গ্রেফতার ওই ‘জঙ্গিরা’ সম্প্রতি সংগঠনের নেতাদের নির্দেশে সিলেটের কোতোয়ালি থানা এলাকায় একটি আবাসিক হোটেলে ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে হোটেল ম্যানেজারকে আহত করে পালিয়ে যায়। ওই চারজনের সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে খোঁজ-খবর করা হচ্ছে বলে জানান কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের আসাদুজ্জামান। গ্রেফতার চারজনকে পরে ঢাকার আদালতে নিয়ে যায় পুলিশ। তাদের ১০ দিন হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট। শুনানি শেষে বিচারক মাসুদ-উর-রহমান তাদের সাত দিন হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন। আসামিদের পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। মাদ্রাসা শিক্ষক ও স্থানীয় হেফাজত নেতাদের দাবী, নবীগঞ্জ উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের ছোট শাখোয়া গ্রামের রাঙ্গা মিয়ার ছেলে হাফেজ মাওলানা আব্দুল মুকিত ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন (চরমোনাই) এর সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। প্রায় দুই বছর আগে সিলেট থেকে নবীগঞ্জস্থ তার জন্মস্থান শাখোয়া বাজার সংলগ্ন এলাকায় মারকাযুস সুন্নাহ আল ইসলামিয়া মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন তিনি। প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই তিনি ওই মাদরাসার মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। সম্প্রতি সারা দেশে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আন্দোলনের অংশ হিসেবে নবীগঞ্জ শাখার বিভিন্ন কর্মসূচিতে তাকে সরব ভূমিকা পালন করতে দেখা গেছে।ঃ গত (১ মে) দিবাগত রাত ২টার দিকে ঢাকা থেকে আসা আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা নবীগঞ্জ উপজেলার শাখোয়া বাজারস্থ মারকাযুস সুন্নাহ আল ইসলামিয়া মাদরাসা থেকে হাফেজ আব্দুল মুকিতকে আটক করে ঢাকায় নিয়ে যায়। এ সময় আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা মাদরাসায় অবস্থানরত অন্যান্য শিক্ষকদের জানান তারা ঢাকার ডিবি পুলিশের লোক। ওই সময় নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ডালিম আহমদ জানান, এ বিষয়ে নবীগঞ্জ থানাকে কিছু অবহিত করা হয়নি। তবে তিনি জেনেছেন যে ঢাকা থেকে আসা ডিবি পুলিশের একটি টিম মাওলানা মুকিতকে আটক করেছে। এ প্রসঙ্গে হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশ নবীগঞ্জ উপজেলা শাখার মহাসচিব মাওলানা শাহ আলম বলেন- মুকিত একজন ভালো ছেলে, সে একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেছে, সাম্প্রতিক সময় হেফাজতের বিভিন্ন আন্দোলনে সে অংশ গ্রহণ করে, তাকে গত (১ মে) দিবাগত গভীর রাতে তাঁর প্রতিষ্ঠিত শাখোয়া বাজারস্থ মাদ্রাসা মারকাযুস সুন্নাহ আল ইসলামিয়া মাদরাসা থেকে আটক করা হলেও শনিবার তাকে ঢাকায় গ্রেফতার দেখানোর বিষয়টি দুঃখজনক।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com