রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন

বানিয়াচংয়ে প্রেমিকের ব্যবসা প্রতিষ্টানে প্রেমিকার অনশন ॥ সালিশে নিষ্পত্তির শর্তে মুরুব্বীদের জিম্মায়

বানিয়াচংয়ে প্রেমিকের ব্যবসা প্রতিষ্টানে প্রেমিকার অনশন ॥ সালিশে নিষ্পত্তির শর্তে মুরুব্বীদের জিম্মায়

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচংয়ের বড়বাজারে স্ত্রীর মর্যাদার দাবীতে প্রেমিকের ব্যবসা প্রতিষ্টানে প্রেমিকার অনশন করেছে। ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির নির্বাচনে সভাপতি পদে পরাজিত প্রার্থী মতিউর রহমানের বড়বাজারস্থ ওয়ালটন শো-রুমে স্ত্রীর মর্যাদার দাবীতে দিনভর অনশন করেছেন প্রেমিকা শিরীন আক্তার। সে যাত্রাপাশা গ্রামের মৃত ওমর আলী মাষ্টারের কন্যা। মতিউর ইনাতখানী গ্রামের মৃত ময়না মিয়ার ছেলে। সংসার জীবনে মতিউর ৩ সন্তানের পিতা। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার ৫ মার্চ বানিয়াচং সদরের বড়বাজারে। খবর পেয়ে বানিয়াচং থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে প্রেমিক ৩ সন্তানের জনক মতিউর রহমান ও প্রেমিকা শিরীনকে থানা নিয়ে যায়। পরে দীর্ঘ আলোচনার পরসালিশে নিষ্পত্তির শর্তে মুরুব্বীদের জিম্মায় প্রেমিক যুগলকে দেয়া হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মতিউর রহমান ও শিরীন একই ক্লাসে পড়াশোনা করতেন। স্কুল জীবন শেষ করে মতিউর অন্যত্র বিয়ে করেন। তার ৩টি সন্তান রয়েছে। বিয়ের কয়েক বছর পর মতিউর বিয়ের প্রলোভন দিয়ে শিরীন এর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে। তা দিনে দিনে গভীর আকার ধারণ করে। এরই সুবাধে গত ২৩ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার মতিউর রাতে শিরীনদের বাড়িতে যায়। ওই সময় প্রেমিকা শিরীন প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী তাকে বিয়ে করতে বললে এতে মতিউর রাজী না হলে তাকে আটক করে রাখেন শিরীন। পরদিন স্থানীয় মাওলানা দিয়ে তাদের বিবাহ সম্পন্ন হয়। কিন্তু মতিউর রহমানের ১ম স্ত্রী আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সহযোগিতায় শিরীনের বাড়ি থেকে স্বামী মতিউরকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসেন। বাড়িতে এসে শিরীনের সাথে মতিউর যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। এদিকে গত শুক্রবার বড়বাজারস্থ মতিউরের দোকানে এসে স্ত্রীর মর্যাদা চান শিরীন। এ সময় মতিউর স্ত্রীর মর্যাদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে প্রেমিক শিরীন দোকানেই অনশন শুরু করে। এ খবর সর্বত্র চাউর হলে শত শত ব্যবসায়ী জনতা বড়াবজারের ওয়ালটন দোকানের সামনে ভীড় জমান। খবর পেয়ে বানিয়াচং থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই আব্দুর রহমান এর নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে হাজির হন। এক পর্যায়ে প্রেমিক যুগলকে থানায় নিয়ে যান। রাতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ এলাকার মুরুব্বীগণ বিষয়টি সালিশে নিষ্পত্তি করবে এই শর্তে প্রেমিক যুগলকে জিম্মায় নিয়ে যান।
এ ব্যাপারে বানিয়াচং বড়বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব জয়নাল আবেদীনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এফিডেভিডের মাধ্যমে শিরীনকে বিয়ে করে মতিউর। কিন্তু স্ত্রীর স্বীকৃতি না দেয়ায় মেয়েটি মতিউরের দোকানে অবস্থান নেয়। পরে থানা পুলিশ দুজনকেই থানায় নিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে বানিয়াচং ৪নং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউপি চেয়ারমান মোঃ রেখাছ মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ৯ মার্চ বিষয়টি সালিসে নিষ্পত্তি করা হবে এই শর্তে থানা থেকে মতিউর ও শিরীনকে জিম্মায় থানা থেকে নিয়ে আসা হয়েছে।
এ বিষয়ে বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ এমরান হোসেন এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মতিউর ও শিরীন কে থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ মুরুব্বীগণ বিষয়টি সালিশে নিষ্পত্তি করবেন এই শর্তে জিম্মায় নিয়ে গেছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com