মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২০, ০৬:২০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ছাত্রদলের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ ॥ আহত অর্ধশতাধিক ॥ চেয়ার ও মোটর সাইকেল-দোকান ভাংচুর ॥ আটক ২ নবীগঞ্জের চাঞ্চল্যকর জ্যোস্না হত্যা মামলায় ১৬ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ ॥ ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেছে ষড়যন্তকারীরা-মিজান মাধবপুর ও চুনারুঘাট সীমান্ত দিয়ে অবাধে আসছে ভারতীয় পণ্য ॥ সক্রিয় নারী পুরুষের বিশাল সিন্ডিকেট ॥ লোকসানে বাজার হারাচ্ছে দেশীয় পণ্য বাণিজ্য মেলায় বিক্রি হচ্ছে নকল কসমেটিকস ও মেয়াদউত্তীর্ণ ড্রিংকস এমপি আবু জাহির এর সভাপতিত্বে সংসদীয় সাব কমিটির সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে প্যানেল চেয়ারম্যানের উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন মহাসড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ চুনারুঘাট থেকে ৩ মাদক ব্যবসায়ী আটক ॥ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান মাধবপুর উপজেলার শাহজাহানপুর ইউনিয়ন আ.লীগের কমিটি গঠন শহরের পুরান মুন্সেফী এলাকায় ২ শতাধিক অসহায় লোকদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সকল ইউনিট কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা
ডা. শাহ পরান বদলে দিয়েছেন বানিয়াচংয়ের স্বাস্থ্যসেবা

ডা. শাহ পরান বদলে দিয়েছেন বানিয়াচংয়ের স্বাস্থ্যসেবা

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ মানুষ মানুষের জন্য, একজন মানুষের ভাল কর্মই তাকে মানুষের মধ্যে বাচিঁয়ে রাখে সারা জীবন। পৃথিবীর বৃহত্তম গ্রাম বানিয়াচংয়ের একমাত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিকে আলোকিত করে রেখেছেন ডা. আবুল হাদি মোহাম্মদ শাহ পরান। বদলে দিয়েছেন বানিয়াচংয়ের স্বাস্থ্যসেবা। হাওর অঞ্চল অধ্যূষিত এ মহাগ্রামের মানুষকে দিনরাত স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন। শহরে মানুষ হওয়ার পরও নিজের পরিবার পরিজনকে ভূলে নিজ কর্মস্থলে স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে ইতিমধ্যে তিনি জয় করেছেন বানিয়াচঙ্গের অগনিত মানুষের ভালবাসা। আলোকিত ডঃ শাহ পরান ২০১৭ সালের ৩০ আগষ্ট বানিয়াচং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগদানের পরই পাল্টে গেছে পুরো স্বাস্থ্য ব্যবস্থা। আগে যেখানে রোগীরা ডাক্তারকে খোজ করত, এখন ডাক্তাররা রোগীকে খোঁজ করেন। ইতিমধ্যে ৩১ শয্যা থেকে হাসপাতালটি ৫০ শয্যায় উন্নীত হয়েছে। এখন পর্যন্ত ৫০ শয্যার কার্যক্রম শুরু হয়নি, এটা চালু হলে সেবারমান আরো একধাপ এগিয়ে যাবে।
এছাড়া হাসপাতালে ভর্তিকৃত রোগীদেরও সরকার কর্তৃক বরাদ্দকৃত সকল ঔষধপত্র বিনা মূল্যে সরবরাহ করা হচ্ছে। ভর্তিকৃত রোগীরা যথা সময়ে ঔষধপত্র পাচ্ছে কিনা তা নিজে গিয়ে তদারকি করছেন টিএইচও শাহ পরান। একজন ডাক্তার আন্তরিক হলে রোগীরা কতটুকু সেবা পায় তার বাস্তব উদাহরন হচ্ছেন ড. শাহ পরান।
শুধুমাত্র রোগীর সেবার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতে চান ডঃ শাহ পরান। তিনি রোগীর জন্য স্বাস্থ্যসম্মত সুন্দর পরিবেশ তৈরীর জন্যও হাতে নিয়েছেন নানা পরিকল্পনা। হাসপাতালের সামনের পরিবেশকে সুন্দর রাখতে ইতিমধ্যে ডাঃ শাহ পরান নিজ উদ্যোগে ৬টি ফুলের বাগান ও ৬টি ফলের বাগান তৈরী করেছেন। হাসপাতালে আগত রোগী ও এলাকাবাসীর নামাজের জন্য হাসপাতাল মসজিদে নিজ খরচে মনোরম একটি ঘাটলা করে দিয়েছেন। মাঠ পর্যায়ের স্বাস্থ্যখাতেও আগের চেয়ে অনেক জবাবদিহিতা বেড়েছে। প্রতিটি স্বাস্থ্যকর্মীকে নিজ দায়িত্বও কর্তব্য পালনে আন্তরিক হওয়ার জন্য প্রতিনিয়ত ব্রিফ করছেন। তারাও কাজের শেষে তাদের কাজের ফলোয়াফ রিপোর্ট প্রদান করছেন। কাজের স্বীকৃতি হিসেবে হবিগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন অফিস থেকে সম্প্রতি বানিয়াচং হাসপাতালকে জেলার মধ্যে একটি মডেল হাসপাতাল হিসেবে তৈরীর করার জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে। পুরো হবিগঞ্জ জেলার মধ্যে বানিয়াচং হাসপাতাল সেবার দিক থেকে অনেকটাই এগিয়ে। ইতিমধ্যে হাসপাতাল পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য ড. শাহ পরান’র উদ্যোগে স্থানীয়ভাবে ২ জন আয়া নিয়োগ দেয়া হয়েছে। যাদের বেতন দেয়া হচ্ছে হাসপাতালে কর্মরত স্টাফদের বেতন থেকে। এ বিষয়ে কথা হয় আলোকিত ডঃ আবুল হাদী মোহাম্মদ শাহপরান এর সাথে। তিনি জানান, লোকবলের অভাবে অনেক সময় ইচ্ছা থাকাসত্ত্বেও সর্বোচ্চ সেবা দেয়া সম্ভব হয়ে ওঠে না, তারপরও আমাদের চেষ্টার কোন ঘাটতি নেই, যা কিছু আছে তার মধ্যে থেকেই রোগীকে সর্বোচ্চ দেয়ার চেষ্টা সব সময়ই আমরা করে থাকি। হাসপাতাল নিয়ে আপনার কি পরিকল্পনা আছে, এমন প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, হাসপাতালে আগত সেবা গ্রহিতাদের সেবা দেয়াটাই আমার কাছে আনন্দের। আমি মনে করি চিকিৎসকরা হচ্ছে রোগীর পরম আপনজন, কেননা একজন মানুষ অসুস্থ হলে প্রথমেই তাকে ডাক্তার এর কাছে আসতে হয়। এ সময় আমরা যদি রোগীকে আন্তরিকভাবে সেবা দেই, তাহলে প্রাথমিক অবস্থায়ই রোগী অনেকটা সুস্থ হয়ে উঠবে। সেবাই পরম ধর্ম, এটা যদি আমাদের মধ্যে লালন করতে পারি, তাহলে আমার বিশ্বাস এক সময় বানিয়াচং হাসপাতাল বাংলাদেশের মধ্যে একটি আদর্শ হাসপাতালের স্বীকৃতি পাবে। কথা হয় হাসপাতালে সেবা নিতে আসা একজন রোগী মোঃ তোফাজ্জ্বল হোসাইন এর সাথে, তিনি জানান হাসপাতালের পরিবেশ দেখলে মনে হয়না এটা আমাদের গ্রামের হাসপাতাল। এখন হাসপাতালে আসলে মনে হয় জেলা সদরে আছি। বড় ডাক্তার সাব (ড. শাহ পরান) খুবই ভাল মানুষ, উনার আন্তরিক সেবায় আমরা অভিভূত। উনার মত ডাক্তার যদি বাংলাদেশের প্রতিটি হাসপাতালে থাকতো, তাহলে আমরা সাধারন জনগণ আর প্রাইভেট হাসপাতালের দ্বারস্থ হতাম না। সত্যিই উনার মত ডা. যেন প্রতিটি হাসপাতালে মানুষের সেবার ব্রত নিয়ে কাজ করেন এটাই আমাদের চাওয়া।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com