সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১, ০১:০২ অপরাহ্ন

বানিয়াচংয়ে একটি পরিবারকে সমাজচ্যুত ও হয়রানীর অভিযোগ

বানিয়াচংয়ে একটি পরিবারকে সমাজচ্যুত ও হয়রানীর অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচং সদরের আমিরখানী গ্রামের একটি পরিবারকে সমাজচ্যুত করেছেন গ্রামের আমজাদ হোসেনসহ কতিপয় মাতব্বর। সমাজচ্যুত করার কারণে ওই পরিবারের নারী-পুরুষ হাট-বাজারসহ কোথায়ও যেতে পারছেন না। তাদের বাড়িতেও কাউকে যাতায়াত করতে দেয়া হচ্ছেনা। এছাড়া মিথ্যে অভিযোগে মাতব্বররা বিভিন্নভাবে হয়রানী করছেন। মঙ্গলবার দুপুরে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন সমাজচ্যুতির শিকার আমিরখানী গ্রামের ফুল মিয়া। একটি জলমহাল প্রকল্পকে কেন্দ্র করে মাতব্বরদের দাবিকৃত চাঁদা না দেয়ায় ফুল মিয়া ও তার ভাই মোতাহের মিয়াকে সমাজচ্যুত করা হয়।
সংবাদ সম্মেলন ফুল মিয়া বলেন, আমাকে সামজচ্যুত করায়, আমার বাড়ীর মেয়ে লোক বাইরে চলাফেরা করতে পারেনা। আমার বাড়ীতে কোন কাজের লোক আসেনা। যদি কেউ আসে তাকে জরিমানা করা হয়। আমরা অসুস্থ হলে হাসপাতালে যাওয়ারও কোন উপায় নেই। বাজারে আসা যাওয়াও করতে পারিনা। যে কোন সময় আমাকে হত্যা করতে পারে সর্দার আমজাদ হোসেন ও তার লোকজন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করে বলেন আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল একজন মানুষ হিসাবে আইন মেনে চলতে পছন্দ করি। কিন্তু আইনগতভাবে আমার সাথে কুলিয়ে উঠতে না পেরে উক্ত আমজাদ হোসেন গংরা আমাকে বিভিন্নভাবে হয়রানী করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় আমজাদ হোসেন, আলী হোসেন, আলতাব হোসেন, আব্দুর রহমানরা সবাই মিলে আমি এবং আমার ভাই মোতাহের মিয়াকে সমাজচ্যুত করে। আমি এ ব্যাপারে প্রতিকার ছেয়ে পুলিশ, প্রশাসন এবং মানবাধিকার সংগঠন এবং সাংবাদিকদের স্মরণাপন্ন হই। বিষয়টি মিডিয়ায় প্রকাশিত হলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এতে করে আরও ক্ষব্ধ হয়ে উঠে আমজাদ হোসেন গংরা। তারা রবিবার আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ সৃষ্টি করে বিক্ষোভ এবং স্মারকলিপি প্রদান করে। একের পর এক এই ধরনের অমানবিক ঘটনায় আমি মর্মাহত ও মানসিকভাবে বিপর্যস্থ হয়ে আজ আমি সাংবাদিক ভাইদের স্মরণাপন্ন হয়েছি।
তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে আমজাদ হোসেন গংরা যে কারণে বিক্ষুব্ধ হয়ে একের পর এক ঘটনা এবং নাটক সাজাচ্ছে তার মূল কারন হল-পানি উন্নয়ন বোর্ডের সুটকী নদী প্রকল্পের ইজারা। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উক্ত প্রকল্প বিগত প্রায় ১৫ বছর যাবৎ ইজারা নিয়ে বৈজ্ঞানিক উপায়ে মৎস্য চাষ ও সংরক্ষণ করে আসছেন জাহেদুল আলম চৌধুরী জাক্কু। আমি আম মোক্তার নামা বলে উক্ত প্রকল্প বিগত ১২ বছর যাবৎ দেখাশোনা করে আসছি। কিন্তু প্রকল্পটি ১৪২৫-১৪২৯ বাংলা পর্যন্ত ইজারা নবায়নের যাবতীয় প্রক্রিয়া সম্পাদন করার পরও পানি উন্নয়ন বোর্ডের ডিজি কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে এবং এর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু হলে জাহেদুল আলম চৌধুরী জাক্কু মহামান্য হাইকোর্টে রীট পিটিশন নং ৭৩৩৫/১৮ দায়ের করেন। এ প্রেক্ষিতে মহামান্য হাইকোর্ট সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ৪ সপ্তাহের রুল ইস্যু করেন এবং প্রকল্পে ৬ মাসের স্থিতাবস্থার আদেশ দেন। আমি আম মোক্তার নামা বলে উক্ত প্রকল্পে মাছের পোনা অবমুক্ত করা, দল, কাটা দিয়ে অভয়াশ্রম তৈরি করা, পাহারাদার নিয়োগ এবং অন্যান্য খাতে প্রায় ১০/১২ লাখ টাকা ব্যয় করি। এরই মধ্যে আমজাদ হোসেন আমার কাছে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। টাকা না দিলে আমার প্রকল্পের মাছ লুটপাটসহ বিভিন্নভাবে হয়রানী করার হুমকি দেয়া হয়।
স্মারকলিপিতে তারা উল্লেখ করেছেন, আমি নাকি খাল দখল করে এলাকাবাসীর জমি চাষাবাদে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছি। অথচ খালের পাশের জমি আমাদের। আর খালে আমরা দীর্ঘদিন যাবৎ বৈজ্ঞানিক উপায়ে মাছ চাষ ও আহরণ করে আসছি। খালে মাছ চাষে জমির আবাদ কিভাবে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয় সেই প্রশ্ন আমার। বিক্ষোভ সমাবেশের ব্যানারে আমাকে অবৈধ সম্পদ অর্জনকারী ও দখলবাজ এবং আমার ভাই মোতাহেরকে জুয়াড়ি বলা হয়েছে। আমি স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই, আমার কোন অবৈধ সম্পদ নেই বা কোন দখল করিনি। আমার ভাইও জুয়াড়ি নয়। বরং আমজাদ হোসেন এর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজী মামলা রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজী, মাদক ব্যবসা, জুয়ার আসর বসানোসহ সরকার বিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের স্পষ্ট অভিযোগ রয়েছে।
তিনি আরও অভিযোগ করেন, আমজাদ হোসেন মহল্লার সর্দার হয়ে নিজস্ব বাহিনী গড়ে তোলে এলাকায় রামরাজত্ব কায়েম করেছে। তার ভয়ে কেউ কোন কথা বলতে পারে না। মহল্লার তহবিলে প্রতিবছর বিল ইজারা থেকে ১৫/২০ লাখ টাকা আয় হয়। উক্ত টাকা ৩শ’ পরিবারে বন্টন করে বাকী ৫/৭ লাখ টাকা বিভিন্ন খরচ দেখিয়ে আত্মসাত করে থাকেন। কিন্তু এর প্রতিবাদ করতে কেউ সাহস পায় না। তিনি সুটকী প্রকল্পের সরকারি ইজারা এবং আদালতের আদেশ থাকার পরও প্রকাশ্যে কিছুদিন পূর্বে জনসম্মুখে নিলামের মাধ্যমে ইজারা প্রদান করে। লীজ গ্রহীতা চাঁনপাড়া গ্রামের জিতু মিয়ার টাকাও আমজাদ হোসেন খরচ দেখিয়ে আত্মসাত করে। সরকার সম্পত্তি এবং আদালতের স্পষ্ট আদেশ থাকার পরও তার এই ইজারা প্রদান আদালত অবমাননার সামিল এবং সরকার বিরোধী অপরাধ হিসাবে স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হলেও সে রয়েছে ধরা ছোয়ার বাইরে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com