মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:২৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে বহু কাঙ্খিত পুরোনো খোয়াই নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু শারদীয় দুর্গাপুজাকালে মন্ডপগুলোতে ডিজে বন্ধ থাকবে-এসপি মোহাম্মদ উল্লাহ কয়েন বিভ্রাটে জেলাবাসী বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিধি থাকলেও প্রয়োগ নেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাতীসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন হবিগঞ্জ চেম্বার প্রেসিডেন্ট মোতাচ্ছিরুল হবিগঞ্জ পৌর যুবলীগের আহবায়ক কমিটি গঠন নবীগঞ্জে ঢাকাইয়া নারীসহ আটক ৪ বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে নবীগঞ্জে পোষ্টার লাগলেন মেয়র ছাবির চৌধুরী বাহুবলে সিএনজিকে জরিমানা করায় শ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ বিকেজিসি স্কুলে রচনা প্রতিযোগিতায় পুলিশ সুপার ॥ মোবাইলের অপব্যবহারে সামাজিক বন্ধন নষ্ট হচ্ছে নবীগঞ্জে সর্বদলীয় উলামা পরিষদের জরুরী সভা
শেরপুরে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন কার্যক্রম ॥ ভূমি অধিগ্রহণে কর্মকর্তাদের ঘুষ বাণিজ্য চরমে

শেরপুরে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন কার্যক্রম ॥ ভূমি অধিগ্রহণে কর্মকর্তাদের ঘুষ বাণিজ্য চরমে

কিবরিয়া চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ হবিগঞ্জ জেলার পার্শ্ববর্তী মৌলভীবাজার জেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে শেরপুর এলাকায় শ্রীহট্র অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভূমি অধিগ্রহণকে কেন্দ্র করে কোটি টাকার ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। ভূমি অধিগ্রহণ শাখার কর্মকর্তাদের ঘুষ না দিলে হয়রানীর শিকার হতে হচ্ছে ভূমি মালিকদের। এনিয়ে ভূমি মালিকরা কর্মকর্তাদের বদলীর জন্য বিগত দিনে আন্দোলন করেও কোন সুফল পাননি।
বিভিন্ন সুত্রে জানা যায়, অর্থনৈতিক কাঠামো শক্তিশালীকরণ ও শিক্ষিত বেকারদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে বিগত ২০১৬ সালের ২৯শে ফেব্র“য়ারি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গঁবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শ্রীহট্র অথর্নৈতিক অঞ্চলসহ সারাদেশে ১০টি অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। শ্রীহট্র অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলতে  সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পার্শ্বে শেরপুর এলাকায় প্রায় সাড়ে ৩শ একর জমি অধিগ্রহণের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এমনকি অনেক স্থানে ইতিমধ্যেই মাটি ভরাটের কাজ শুরু হয়েছে। ওই অর্থনৈতিক অঞ্চলটিতে বড় পাঁচটি প্রতিষ্টান ১শ ৩০কোটি ১১লাখ ডলার বিনোয়োগ করার প্রস্তাব দিয়েছে। এ ছাড়াও আরো কয়েকটি প্রতিষ্টান এ অঞ্চলে বিনিয়োগের প্রস্তাব দিয়েছে। এতে বার্ষিক ৩শ ৫২ কোটি ৬৯ লাখ ডলার রপ্তানির এবং ৪৫ হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সম্ভাবনা রয়েছে।
অভিযোগ উঠেছে, ওই অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভূমির অধগ্রহণের কাজ শুরুর পর থেকে ভূমি মালিকদের  ভোগান্তির শেষ নেই। বিভিন্ন অজুহাতে মৌলভীবাজার ভূমি অফিসের কর্মকর্তারা ভূমি মালিকদের  থেকে ঘুষ আদায় করছেন। এই বিষয়ে ভূমি মালিকরা  নানা আন্দোলন করলেও কোন প্রতিকার পাননি।
একাধিক ভূমি মালিকের সাথে আলাপকালে তারা জানান, ভূমির মূল্য টাকার ১ ভাগ ভ্যাট হিসেবে কর্তন করার নিয়ম থাকলেও অধিগ্রহণ অফিসের কিছু কর্মকর্তা নানান অজুহাতে কয়েকগুন বেশী ভ্যাট কর্তন করছেন। অতিরিক্ত টাকা না দিলে সহজে চেক ইস্যু হয়না।
আবার অনেকে ভূমি অধিগ্রহণের অফিসের যোগসাজশে ভূমির ভূয়া মালিক সেজে  উত্তোলন করছেন লক্ষ লক্ষ টাকা। এতে প্রকৃত ভূমির মালিকরা বঞ্চিত হচ্ছেন ন্যায্য দাবি থেকে। ভূমি অধিগ্রহণ শাখার জারিকারক আব্দুল হক, কানুনগো মোঃ আনোয়ার হোসেন, সার্ভেয়ার আব্দুল মালিকের নামে অবৈধ ফায়দা হাসিলের অহরহ অভিযোগ উঠেছে। ভূমি মালিক আব্দুল আহাদ জানান, একই খতিয়ানের ভূমির টাকার একাধিক দাবিদার  থাকলে টাকা উঠানোর জন্য মিস কেইস আবেদন করার নিয়ম কানুন রয়েছে। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে অবৈধ ফাঁয়দা নিচ্ছেন কর্মকর্তারা। বিভিন্ন অভিযোগে শতাধিক মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। স্থানীয় ভবানীপুর গ্রামের ভূমি মালিক আরজু মিয়া জানান, তিনি ভূমির টাকার জন্য আবেদন করলে জানতে পারেন, ইতোমধ্যেই তার ভূমির টাকা উঠানো হয়েছে। শুধু তাই নয় শেরপুর শ্রীহট্র অর্থনৈতিক অঞ্চলকে ঘিরে প্রায় অর্ধশত দালাল কাজ করছে বলে ভুক্তভোগী জনগন জানান। এতে একদিকে প্রতারিত হচ্ছেন পকৃত ভূমির মালিকগণ, অন্যদিকে রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে এক শ্রেণীর দালালরা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com