শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:০৬ পূর্বাহ্ন

মহানায়কের মহা-প্রয়ান

মহানায়কের মহা-প্রয়ান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নায়করাজ রাজ্জাক, কলকাতার মহানায়ক যদি উত্তম কুমার হন, তবে বাংলাদেশের মহানায়ক বললে একজনকেই বোঝা যায়। তিনি হলেন নায়করাজ রাজ্জাক। ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে চলচ্চিত্রের সঙ্গে যুক্ত তিনি। তবে তাঁর পথচলার ইতি ঘটেছে সোমবার সন্ধ্যা ৬টায়। এদিন রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃতু্যু হয়। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর।
জানা গেছে, তিনি বেশ কিছুদিন ধরে নিউমোনিয়াসহ বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগছিলেন। ইউনাইটেড হাসপাতালের কাস্টমার কেয়ারের ইনচার্জ উজ্জ্বল জানান, কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের পর ৫টা ২০ মিনিটে হাসপাতালে আনা হয় রাজ্জাককে। তখন তাঁর পালস পাওয়া যাচ্ছিল না। কর্তব্যরত চিকিৎসকরা অনেক চেষ্টা করেন। সোয়া ৬টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। নায়করাজ রাজ্জাকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক জানিয়েছেন। রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন জানান, এক শোকবাণীতে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বাংলা চলচ্চিত্রের দর্শকপ্রিয়তা অর্জনে নায়করাজ রাজ্জাকের অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।
রাষ্ট্রপতি আরো বলেন, ‘বাঙালি সংস্কৃতি চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেয়ার ক্ষেত্রে তার অবদান প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম স্মরণ করবে।’ রাষ্ট্রপতি রাজ্জাকের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
বাংলাদেশের চলচ্চিত্র জগতে রাজ্জাকের অবদানের কথা স্মরণ করে এক শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘তাঁর মৃত্যুতে দেশের চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য একটি অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল। তিনি ছিলেন বাংলা চলচ্চিত্রের উজ্জ্বল নক্ষত্র।
১৯৪২ সালের ২৩ জানুয়ারি কলকাতার টালিগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন নায়করাজ রাজ্জাক। নীল আকাশের নিচে, নাচের পুতুল, রাজলক্ষ্মী শ্রীকান্ত, বাবা কেন চাকর, ওরা ১১ জন ইত্যাদি সিনেমা দিয়ে খ্যাতি অর্জন করেন নায়করাজ রাজ্জাক। পাঁচবার অর্জন করেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ আরো বেশ কিছু আয়োজনে অর্জন করেন আজীবন সম্মাননা।
তিন শতাধিক বাংলা ও উর্দু চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন এই অভিনেতা। পরিচালনা করেছেন প্রায় ১৬টি চলচ্চিত্র। স্ত্রী লক্ষ্মী আর সন্তান বাপ্পারাজ (রেজাউল করিম), নাসরিন পাশা শম্পা, রওশন হোসাইন বাপ্পি, আফরিন আলম ময়না ও সম্রাটকে নিয়ে ছিল তাঁর সংসার।
নায়করাজ রাজ্জাক নামে সুপরিচিত হলেও তাঁর আসল নাম ছিল আবদুর রাজ্জাক। কলকাতার খানপুর হাইস্কুলে সপ্তম শ্রেণিতে পড়ার সময় সরস্বতী পূজা চলাকালীন মঞ্চ নাটকে অভিনয়ের জন্য তাঁর গেম টিচার রবীন্দ্রনাথ চক্রবর্তী তাকে বেছে নেন নায়ক অর্থাৎ কেন্দ্রীয় চরিত্রে। শিশু-কিশোরদের নিয়ে লেখা নাটক বিদ্রোহীতে গ্রামীণ কিশোর চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়েই নায়করাজের অভিনয়ে সম্পৃক্ততা।
তিনি ১৯৬৪ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে পাড়ি জমান। প্রথমদিকে রাজ্জাক তৎকালীন পাকিস্তান টেলিভিশনে ‘ঘরোয়া’ নামের ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করে দর্শকদের কাছে জনপ্রিয় হন। নানা প্রতিকূলতা পেরিয়ে তিনি আবদুল জব্বার খানের সঙ্গে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করার সুযোগ পান। সালাউদ্দিন প্রোডাকশন্সের তেরো নম্বর ফেকু ওস্তাগর লেন চলচ্চিত্রে ছোট একটি চরিত্রে অভিনয় করে সবার কাছে নিজ মেধার পরিচয় দেন রাজ্জাক। পরবর্তী সময়ে কার বউ, ডাক বাবু, আখেরী স্টেশনসহ আরো বেশ ক’টি ছবিতে ছোট ছোট চরিত্রে অভিনয়ও করে ফেলেন। পরে বেহুলা চলচ্চিত্রে তিনি নায়ক হিসেবে ঢালিউডে উপস্থিত হন সদর্পে।
রাজ্জাকের পথ ধরেই তাঁর দুই ছেলে বাপ্পা রাজ ও সম্রাট ফিল্মের নায়ক হয়েছেন। ১৯৯০ সাল পর্যন্ত বেশ দাপটের সঙ্গেই ঢালিউডে সেরা নায়ক হয়ে অভিনয় করেন রাজ্জাক। এর মধ্য দিয়েই তিনি অর্জন করেন নায়করাজ খেতাব। অর্জন করেন একাধিক সম্মাননা। এ ছাড়া রাজ্জাক জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে কাজ করেছেন।
তাঁর প্রযোজনা সংস্থা রাজলক্ষ্মী প্রোডাকশন থেকে তিনি উল্লেখযোগ্য কিছু ছবি নির্মাণ করেছিলেন।
১৯৭২ থেকে ’৮৯ সাল পর্যন্ত রাজ্জাক অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে রয়েছে স্লোগান, আমার জন্মভূমি, অতিথি, কে তুমি, স্বপ্ন দিয়ে ঘেরা, প্রিয়তমা, পলাতক, ঝড়ের পাখি, খেলাঘর, চোখের জলে, আলোর মিছিল, অবাক পৃথিবী, ভাইবোন, বাঁদী থেকে বেগম, সাধু শয়তান, অনেক প্রেম অনেক জ্বালা, মায়ার বাঁধন, গুণ্ডা, আগুন, মতিমহল, অমর প্রেম, যাদুর বাঁশী, অগ্নিশিখা, বন্ধু, কাপুরুষ, অশিক্ষিত, সখী তুমি কার, নাগিন, আনারকলি, লাইলী মজনু, লালু ভুলু, স্বাক্ষর, দেবর ভাবী, রাম রহিম জন, আদরের বোন, দরবার, সতীনের সংসার প্রভৃতি।
এদিকে নায়করাজের মৃত্যুতে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির তিন দিনের কর্ম বিরতি ঘোষণা করেছে। সমিতির মহাসচিব বদিউল আলম খোকন বলেন, সবচেয়ে বড় এ তারকার মৃত্যু চলচ্চিত্রের জন্য বিশাল ধাক্কা। রাজ্জাক স্যারের সম্মানে আমরা তিন দিন শুটিং বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com