শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন

২৩ ঘণ্টা বিদ্যুতবিহীন হবিগঞ্জ শহর জনজীবনে বিপর্যয় ॥ অসহায় মানুষ

২৩ ঘণ্টা বিদ্যুতবিহীন হবিগঞ্জ শহর জনজীবনে বিপর্যয় ॥ অসহায় মানুষ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিদ্যুৎ ছাড়া শহরজীবন একেবারেই মূল্যহীন। অফিস-আদালত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বাসাবাড়িতে সার্বক্ষণিক বিদ্যুত প্রয়োজন। এক কথায় বলতে গেলে বিদ্যুতের উপর শহরবাসীর জীবনবাধা। কিন্তু যেখানে ঘণ্টার পর ঘণ্টা এমনকি দিনের পর দিন যখন বিদ্যুতহীন অবস্থায় থাকতে হয় তখন একমাত্র ভুক্তভোগী ছাড়া কারো উপলব্ধি করা সম্ভব নয়।
হবিগঞ্জ শহরবাসীকে এমনই নরকযন্ত্রনায় জীবন কাটাতে হচ্ছে। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যে সাড়ে ৭টা থেকে শুক্রবার সন্ধ্যে সাড়ে ৬টার দিকে বিদ্যুত সরবরাহ দেয়া হয়। এরই মধ্যে প্রায় ২৩ ঘণ্টা একটানা বিদ্যুতহীন দিন কাটাতে হয়েছে হবিগঞ্জ শহরবাসীকে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যে সাড়ে ৭টায় শাহজীবাজার বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্রের হবিগঞ্জ জেলা শহরে সরবরাহকৃত বিদ্যুৎ লাইনে যান্ত্রিক ত্র“টির কারণে প্রায় ২৩ ঘণ্টা বিদ্যুতবিহীন হয়ে পড়ে জেলা শহর। আর বিদ্যুতহীন অবস্থায় শহরবাসীকে গ্রীষ্মের এই ভ্যাপসা গরমে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। অঘুমা অবস্থায় শহরবাসীকে রাত কাটাতে হচ্ছে। এতে করে অনেক মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়েছে। গরমে অসুস্থ অনেকেই ফিজিওথেরাপি নিতে না পারায় আরো অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। বলা হয়ে থাকে পানির অপর নাম জীবন। কিন্তু বিদ্যুতের অভাবে শহরের বাসাবাড়ি পানি শুন্য হয়ে পড়ে। পানির অভাবে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা চরমভাবে ব্যহত হয়। বাসাবাড়ির ফ্রিজে রাখা অনেক খাদ্যসামগ্রি নষ্ট হয়ে গেছে। টাকার অংকে লাখ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান প্রায় অচল হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে যারা কম্পিউটার-ইন্টারনেটসহ বিদ্যুৎ নির্ভর ইলেকট্রনিক্স ব্যবসা করে সংসার চালান তারাই সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
এদিকে বিদ্যুৎ ভোগান্তি থেকে শহরবাসী মুক্তি পাবে এমন আশ্বাস পেয়ে আসছে দীর্ঘ বছর ধরেই। কিন্তু আদতে উন্নতিতো হয়ইনি বরং দিনদিন ভোগান্তির পরিমাণ বাড়ছে। শহরবাসীর প্রশ্ন, কবে এই দুর্ভোগ থেকে নিস্তার মিলবে কিংবা আদৌ নিস্তার মিলবে কি-না?
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হবিগঞ্জে বিদ্যুতের কোন ঘাটতি নেই। কিন্তু অতি পুরনো যন্ত্রপাতি, ঝরাজীর্ণ লাইন এবং কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্ব অবহেলার কারণে বিদ্যুৎ বিপর্যয়ে জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে আসে।
এই দুর্ভোগ কমানোর জন্য জাইকা ২০১৪ সালে ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প হাতে নেয়। প্রকল্পের কাজ এক বছরের মধ্যে শেষ করার কথা থাকলেও রহস্যজনক কারণে এর মেয়াদ বাড়ানো হয়। তখন থেকে দফায় দফায় সময় বাড়ানোর কারণে অদ্যাবধি ২০১৭ সালেও জনদুর্ভোগ না কমে বরং বেড়েই চলেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com