বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul ২০১৯, ১০:৫২ পূর্বাহ্ন

শায়েস্তাগঞ্জের এক গুণধর পুত্রের কাণ্ড ॥ মাকে রাস্তায় ফেলে আসার পর অবশেষে বুঝে আনলেন

শায়েস্তাগঞ্জের এক গুণধর পুত্রের কাণ্ড ॥ মাকে রাস্তায় ফেলে আসার পর অবশেষে বুঝে আনলেন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শায়েস্তাগঞ্জের টগর রানী সাহা (৬৫)কে ময়মনসিংহে রাস্তায় ফেলে আসার পর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মা য়ের দায়িত্ব বুঝে নিয়েছেন ছেলে দেবাশীষ সাহা। শুক্রবার রাতে নান্দাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আতাউর রহমান ও সংবাদকর্মীদের উপস্থিতিতে মাকে বুঝে নেন পুত্র দেবাশীষ। দেবাশীষ সাহা জানান, মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ২ বৎসর আগে তার মা নিখোঁজ হয়। ওই সময় থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছিল।
শায়েস্তাগঞ্জের নিতাই সাহার স্ত্রী টগর রানী সাহাকে গত বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার চন্ডীপাশা ইউনিয়নের মধ্য বাশঁহাটি গ্রামের হাইওয়ে রাস্তার পাশে পড়ে থাকতে দেখতে পান স্থানীয় সাংবাদিক। বিষয়টি তিনি পুলিশকে অবহিত করে তাকে উদ্ধার করে নান্দাইল হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। হাসপাতালে কাতরাতে কাতরাতে তিনি সাংবাদিকদের জানান, দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকায় তার সন্তানেরা চিকিৎসা না করে তাকে রাস্তার পাশে ফেলে যায়।
নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. তাজুল ইসলাম খান জানান, দীর্ঘদিন তার চিকিৎসা না হওয়ায় শরীরের বিভিন্ন স্থানে পচন ধরেছে।
এদিকে বিষয়টি গত বৃহস্পতিবার যুগান্তর অনলাইন এবং শুক্র ও শনিবার দৈনিক যুগান্তরে উক্ত বৃদ্ধা মায়ের বিষয়ে দুটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। পরে পুত্র দেবাশীষ সাহা নান্দাইল হাসপাতালে গিয়ে মাকে বুঝে নেন।
এলাকাবাসীরা জানান, সোমবার সকালে অচেতন অবস্থায় তাকে ওই রাস্তার পাশে পড়ে থাকতে দেখা যায়। পরে স্থানীয় দুই নারী এসে সেবা-যতœ করলে তার চেতনা ফেরে। গ্রামের লোকজন চাটাইয়ের ওপর চটের বস্তা পেতে তার শয্যার ব্যবস্থা করেন। এভাবেই সড়কের পাশে তিন দিন কাটিয়েছেন টগর রানি সাহা। ওই নারীর বাঁ পায়ের পাতায় ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে। আঙ্গুলের হাড় বেরিয়ে এসেছে। মুখের মধ্যে ঘা হওয়ায় শক্ত খাবার খেতে পারছেন না তিনি। গ্রামের লোকজন তাকে তরল খাবার খাওয়াচ্ছেন। তাকে স্যাভলন দিয়ে গোসল করিয়ে দিয়েছে স্থানীয় কয়েকজন নারী। তবে তিনি পুলিশের কাছে তার ছেলে দেবাশীষ সাহার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করতে চান না। নান্দাইল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, টগর রানির সাহার ক্ষতস্থানে অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। কিছুটা সুস্থ হলে উন্নত চিকিৎসায় ময়মনসিংহ মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com