বৃহস্পতিবার, ২০ Jun ২০১৯, ০৬:৫৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সরকারি ধান-চাল সংগ্রহ কার্যক্রমে অনিয়ম ॥ নবীগঞ্জে সংগ্রহ কার্যক্রম স্থগিত ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন নবীগঞ্জে গুদামে চাল সরবরাহ নিয়ে শুরু হয়েছে চালবাজি ॥ অন্য জেলা থেকে চাল এনে গুদামে দিচ্ছে মিলাররা হবিগঞ্জ পৌরসভার ৮৫ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা শহরের পোদ্দাবাড়িতে টাটা গাড়ির শো-রুমের উদ্বোধন চুনারুঘাটে মহিবুল হত্যার আসামীর হুমকিতে বাদী পক্ষ আতঙ্কিত শহরের বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগকালে মেয়র প্রার্থী বিএনপি নেতা তনু ॥ জলাবদ্ধতামুক্ত পরিচ্ছন্ন শহর গড়তে মোবাইল ফোন মার্কায় ভোট দিন মিজানের নৌকার বিজয় নিশ্চিতে একাট্টা ৯নং ওয়ার্ডবাসী ॥ প্রচার মিছিল-সভা পৌরবাসীর ভালবাসা সারাজীবন মনে রাখবো-মেয়র প্রার্থী টিটু দিনারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা শায়েস্তাগঞ্জে প্রকাশ্যে জুয়ার আসর ॥ আটক ৬
সড়ক বিভাগ ও সোনালী ব্যাংকের ১৪ লাখ টাকার চেক জালিয়াতি

সড়ক বিভাগ ও সোনালী ব্যাংকের ১৪ লাখ টাকার চেক জালিয়াতি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ এবং সোনালী ব্যাংকের অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীদের যোগ সাজসে হবিগঞ্জ শহরের এক ঠিকাদারের ১৪ লাখ টাকার ২টি চেক পাশ করিয়ে সমুদয় টাকা আত্বসাত করা হয়েছে। এ ঘটনায় ঠিকাদার মহলে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। বিষয়টি ধামাচাপা দিতে সরকারের উভয় প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন। এদিকে ১৪ লাখ টাকার চেক জালিয়াতির ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দাবী করা হয়েছে। এ ব্যাপারে দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনে মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।
জানা যায়, হবিগঞ্জ-বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ সড়কের কিছু অংশের সংস্কার কাজের ঠিকাদারীর দায়িত্ব পান হবিগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের তালিকাভূক্ত ঠিকাদার মোঃ আব্দুস শহীদ। দীর্ঘদিন পর কাজের ২টি ট্রেজারী চেকের মাধ্যমে বিল পাশ হয় সড়ক বিভাগ থেকে। গত ২৫ মে ৪ লাখ ৮৮ হাজার ৩১৯ টাকার এবং গত ২৯ জুন ৮ লাখ ৮৯ হাজার ৬৫ টাকার ২টি চেক ঠিকাদার মোঃ আব্দুস শহীদের নামে ইস্যু করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। এদিকে আব্দুস শহীদ তার বিলের জন্য সড়ক বিভাগে যোগাযোগ করলে তাকে জানানো হয় এখনও তার বিল পাশ হয়নি। এভাবে কেটে যায় প্রায় ২ মাস। ২ মাস পর আব্দুস শহীদ জানতে পারেন তার নামে উপরুক্ত ২টি চেক পাশ হয়েছে এবং কে বা কারা চেক ২টি নিয়ে গেছে। খোজ খবর নিয়ে তিনি জানতে পারেন ২টি চেকের মাধ্যমে উল্লিখিত পরিমান টাকাও উত্তোলন করা ভিন্ন একজনের একাউন্ট থেকে। ঠিকাদার মোঃ আব্দুস শহীদের নামে ২টি চেক পাশ করা হলেও সোনালী ব্যাংক হবিগঞ্জ শাখায় এসএসএ শহিদ নামের এক ব্যক্তির সঞ্চয়ী হিসাব নাম্বারে ক্যাশ করার জন্য ২টি চেক জমা দেয়া হয়। সোনালী ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা মোঃ আব্দুস শহীদের নামে ইস্যু করা ২টি ট্রেজারী চেক এসএস এ শহিদের একাউন্টে জমা রাখেন এবং টাকা কালেকশন করেন। কোনো ধরনের বিধান না থাকা স্বত্বেও ট্রেজারী চেক ২টি সঞ্চয়ী হিসাবে জমা দেয়ার দিনই কালেকশন দেখিয়ে তা আবার উত্তোলন করতে দেয়া হয়। এব্যাপারে কোনো ধরনের যাচাই বাছাই করেননি সোনালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। তাছাড়া সঞ্চয়ী হিসাব নাম্বারে ট্রেজারী চেক কেন জমা হচ্ছে বা কেন একই দিন তা কালেকশন করে উত্তোলন করা হচ্ছে সে ব্যাপারে চেক হোল্ডার বা একাউন্ট হোল্ডারকে কোনো প্রশ্ন্ও করেননি সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তারা। চেক জালিয়াতির বিষয়টি নজড়ে আনা হলে অনেকটা নড়েচড়ে উঠেন সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তারা। একইভাবে সড়ক বিভাগের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা সামাজিকভাবে বিষয়টি মিমাংসার চেষ্টা করেন। এ ব্যাপারে সোনালী ব্যাংকের প্রধান শাখার ব্যবস্থাপক মোঃ এমরান উল্লাহর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান- একটা অনিয়ম হয়েছে। সেটি হয়েছে ২৯ জুন তারিখে। যারা এর সাথে জড়িত তারা ব্যাংকের সবচেয়ে ব্যস্ততম দিনটিকেই বেছে নিয়েছেন। ওই ব্যবস্থাপককে প্রশ্ন করা হয় মোঃ আব্দুস শহীদের নামে ইস্যু করা একাউন্ট পেয়ি ট্রেজারী চেক এসএসএ শহিদের নামীয় সঞ্চয়ী হিসাব নাম্বারে জমা হওয়ার কোনো সুযোগ আছে কিনা এমন প্রশ্নের কোনো জবাব দিতে পারেননি তিনি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন সংশ্লিষ্ট ক্যাশিয়ারের সচেতনতার অভাব ছিল। এটা একটা সিন্ডিকেট দুর্নীতি কি না এমন প্রশ্নের তিনি কোনো জবাব দেননি। হবিগঞ্জ ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি ও ট্রাস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মোঃ তাজুল ইসলাম জানান, মোঃ আব্দুস শহীদের নামে ইস্যু করা একাউন্ট পেয়ী ট্রেজারী চেক অবশ্যই তার একাউন্টেই জমা দিতে হবে। এক্ষেত্রে এসএসএ শহিদের নামীয় একাউন্টে ট্রেজারী চেক জমা গ্রহনের বা জমা গ্রহনের পর টাকা পরিশোধের কোনো সুযোগ নেই। একাধিক ঠিকাদারের সাথে আলাপকালে তারা জানান, এটা একটা জ্বলজ্যান্ত দুর্নীতি। এ ধরনের দুর্নীতির ঘটনা তারা কল্পনাও করতে পারেন না। সড়ক ও জনপথ বিভাগের হিসাব রক্ষক মোঃ দেলোয়ার হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি নিজের ব্যস্ততা দেখিয়ে এ ব্যাপারে কোনো কথা বলতে রাজী হননি।
জানা যায়, হিসাব রক্ষক নিজেই ট্রেজারী চেকটি ঠিকাদার আব্দুস শহীদকে না দিয়ে ভিন্ন ব্যক্তির কাছে হস্তান্তর করেছেন। এক্ষেত্রে তিনি আর্থিক সুবিধা গ্রহণ করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে এসএসএ শহিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি একজন সাধারণ বিদ্যুৎ শ্রমিক। ঠিকাদার মোহাম্মদ আলী ও আমার বাসা অনন্তপুরে পাশাপাশি। তিনি একদিন তার কাছে গিয়ে বলেন, “আমার কিছু টাকা তোমার একাউন্টে জমা হবে। আমার একাউন্টে জমা হলে কিছু সমস্যা আছে। সরল বিশ্বাসে আমি আমার একাউন্ট নাম্বার দেই। আবার সেই টাকা মোহাম্মাদ আলী ঠিকাদার উত্তোলনও করে নেন। কিসের টাকা কোথা থেকে সেই টাকা এসেছে তা আমি কিছুই জানিনা। আমার একাউন্টে চেকের মাধ্যমে না কি অন্য কোথা থেকে টাকা এসেছে তাও আমি জানিনা।” চেক জালিয়াতির বিষয়টি জানাজানি হলে মোহাম্মদ আলীর সাথে এসএসএ শহিদ যোগাযোগ করেন বলে জানান তিনি। এসএসএ শহিদ জানান, মোহাম্মদ আলী ঠিকাদার তাকে বলেছেন ১৪ লাখ টাকা আমি উত্তোলন করেছি, তোমার কোনো সমস্যা হবে না, যা করার আমিই করব। এ ব্যাপারে ঠিকাদার মোহাম্মদ আলীর মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি প্রতিবেদকের ফোন রিসিভ করেননি। এ ঘটনার পর ঠিকাদার মোহাম্মদ আলী সোনালী ব্যাংকের এক ব্যবস্থাপকের বাসায় গিয়ে বিষয়টি কিভাবে মিমাংসা করা যায় সে ব্যাপারে আলোচনা করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com