বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ০৯:২৯ পূর্বাহ্ন

আটক ছালেকের স্বীকারোক্তি মহুর্তেই ওরা চুরি করতে পারে মোটরসাইকেল

আটক ছালেকের স্বীকারোক্তি মহুর্তেই ওরা চুরি করতে পারে মোটরসাইকেল

স্টাফ রিপোর্টার, চুনারুঘাট থেকে ॥ এরা পারে না এমন কাজ নেই। মূহুর্তের মধ্যেই ওরা ছিনতাই-চুরি করে নিয়ে নিয়ে যেতে পারে মোটরসাইকেল, সিএনজি। ওরাই আবার চুরি যাওয়া মোটরযান খোঁজ করার মিশনে অংশ নেয় দাপটের সাথে। এদের বাড়ী পৌরসভা লাগোয়া হওয়ায়-খুবই ক্ষমতাধর ওরা। এদের রয়েছে শক্তিশালী নেটওর্য়াক। ওই চক্রটি ইতোমধ্যেই বেশ কয়েকজন জনপ্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, শিক্ষকের মোটরসাইকেল চুরি করে হাত পাকিয়েছে। এরা সমাজে চিহ্নিত মোটরযান চোর। পুলিশ এদেরকে আটকাতে পারেনা। বিগত সময়ে ওই চক্রটি ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর খান, ইউপি সদস্য আকল মিয়া, শিক্ষক মমিন মিয়া, ব্যবসায়ী ফিরোজ মিয়া, সুজাত ভুইয়া, জালাল খাঁন, আঃ হাই, চা বাগান কর্মচারী ফারুকসহ শতাধিক মানুষের মোটরসাইকেল চুরি করেছে। তাৎক্ষনিক তৎপরতা চালানোর কারনে ইউপি সদস্য আকল মিয়া ও ব্যবসায়ী সুজাতের মোটর সাইকেলটি উদ্ধার করা সম্ভব হয়। বাকীরা এখনো ফেলছেন চোখের পানি। ১০ ডিসেম্বর ব্যবসায়ী জালাল খানের মোটর সাইকেলটি রাজার বাজার পূবালী ব্যাংকের পাশ থেকে চুরি হয়। সিসি ক্যামেরার ভিডিও’র সূত্র ধরে এ বিষয়ে মামলা করেন জালাল। ওই মামলায় ১৮ জানুয়ারী পুলিশ ছালেক আহম্মদ নামের এক চোরকে  মৌলভী বাজারের কুলাউড়া থেকে আটক করে। আটক ছালেক চুনারুঘাট পৌর শহরের ইমান আলীর পুত্র। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সে মোটর সাইকেল চুরির চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে। আটক ছালেক বলেছে, মূহুর্তের মধ্যেই তার দল একটি মোটর সাইকেল চুরি করে সটকে পড়তে পারে। তার রয়েছে মোটর সাইকেল চোরের বিরাট সিন্ডিকেট।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com