রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৪০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সায়হাম গ্রুপের কর্ণদার সৈয়দ মোঃ ফয়সল সেরা করদাতা নির্বাচিত বেকারত্ব দূর করতে ভূমিকা রাখতে পারেন ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা-এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জ-বাহুবলের সাবেক এমপি আব্দুল মোছাব্বির এর কুলখানি অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জ ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের কমিটি ও উপদেষ্ঠা পরিষদ গঠন নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন বিএনপির কাউন্সিল সম্পন্ন দাঙ্গা-হাঙ্গামায় সহযোগিতা নয় প্রতিরোধ করুন-রবিউল ইসলাম নবীগঞ্জ আউশকান্দি ইউনিয়ন বিএনপির ওয়ার্ড কমিটি গঠন হজ্ব পালনের বিভিন্ন নিয়মাবলী সম্পর্কে ধারণা দিলেন এমপি আবু জাহির বাসদ নেতা হুমায়ূন খানের বড় বোনের ইন্তেকাল ॥ শোক নবীগঞ্জের চৌকি গ্রামে ঠাকুর অনুকুল চন্দ্রের বিশেষ সৎসঙ্গ অধিবেশন
উদ্দেশ্য মৃত স্বামীর অর্থ ও সম্পত্তি আত্মসাৎ ॥ চৌধুরী বাজারে বিক্রিত মালকে লুন্টিত দেখিয়ে দেবর ও সালিশদের উপর মেয়েকে দিয়ে মহিলার মামলা দায়ের

উদ্দেশ্য মৃত স্বামীর অর্থ ও সম্পত্তি আত্মসাৎ ॥ চৌধুরী বাজারে বিক্রিত মালকে লুন্টিত দেখিয়ে দেবর ও সালিশদের উপর মেয়েকে দিয়ে মহিলার মামলা দায়ের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের চৌধুরী বাজার এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কুদ্দুছ মিয়ার মত্যৃর পর তার ব্যবসার অর্থ ও সম্পত্তি আত্মসাতের চেষ্টায় দেবর ও সালিশদেরকে মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। তার স্ত্রী তাহেরা খাতুন দোকানের বিক্রিত মালকে লুন্টিত দেখিয়ে তার মেয়ে ফাহিমা আক্তার ডলিকে দিয়ে এই মামলা দায়ের করেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৯ জুলাই ব্যবসায়ী কুদ্দুছ মিয়া মারা যান। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও ৪ মেয়ে রেখে যান। কুদ্দুছ মিয়ার মৃত্যুর পর ১১ জুলাই তার আত্মীয় ছমেদ মিয়া, আ. মান্নান, আ. কাইয়ূম, মতিউর রহমান ও মোহাম্মদ আলী মিটিং করে তার যাবতীয় ঋণ পরিষোধ এবং ব্যবসা পরিচালনার জন্য কুদ্দুছ মিয়ার ভাই মধু মিয়া ও শ্যালককে দায়িত্ব দেয়া হয়। বিষয়টি তাদের বংশের মুরুব্বি আকল মিয়াও অনুমোদন করেন।
এদিকে কুদ্দুছ মিয়ার কোন ছেলে সন্তান না থাকায় তার সম্পত্তির একটি অংশ আপন ভাই ফারুক মিয়া ও মধু মিয়া পাবে এবং মধু মিয়া ব্যবসা পরিচালনা করলে তাহেরা খাতুনের সমস্যা হবে মনে করে তাদেরকে হয়রানী করতে গত ২৮ জুলাই হবিগঞ্জ সদর থানায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলার বাদী করা হয় কুদ্দুছ মিয়ার মেয়ে ফাহিমা আক্তার ডলিকে। আসামী করা হয় ডলির দুই চাচা ফারুক মিয়া ও মধু মিয়া এবং চাচাত চাচা ও সালিশ আ. মান্নান এবং আ. কাইয়ূমকে। মামলায় অভিযোগ করা হয় কুদ্দুছ মিয়ার দোকানের ২৫০ বস্তা সুপারি তারা লুট করেছে।
মামলা দায়েরের পর আসামীরা উমেদনগর এলাকার মুরুব্বি, কাউন্সিলার আবুল হাসিম ও মাচেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ মিয়ার উপস্থিতিতে এলাকার ব্যবসায়ীরা উক্ত সুপারী ক্রয় করেছে বলে হাতে নাতে প্রমান পান।
সরজমিনে দেখা যায়, উমেদনগর গ্রামের সুপারী ব্যবসায়ী বিশ্ব ও অর্জুন ২০ বস্তা, লক্ষণ ৫ বস্তা এবং আইয়ুব আলী ৯ বস্তা সুপারী ক্রয় করে তাদের বাড়িতে এনেছেন। তারা স্বীকারও করেন কুদ্দুছ মিয়ার মৃত্যুর পর তারা এই মালামাল ক্রয় করেন। তারা এ সময় মাল ক্রয়ের রশিদও প্রদর্শন করেন।
গতকাল বিকেলে বিষয়টি অবগত হয়ে এবং বিক্রিত মালামাল দেখে কাউন্সিলার আবুল হাশিম হবিগঞ্জ সদর থানার ওসি নাজিম উদ্দিন ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই পার্থ রঞ্জন চক্রবর্তী কে খবর দেন। এসআই পার্থ রঞ্জন চক্রবর্তী আসতেছেন বলে জানালেও রাত ১০টা পর্যন্ত যান নি।
এ ব্যাপারে এসআই পার্থ রঞ্জন চক্রবর্তী জানান, মামলার এজাহারে বর্ণিত মালামালের সাথে সন্ধানপ্রাপ্ত মালের মিল নেই বলে তিনি ঘটনাস্থলে যাননি। না গিয়ে কিভাবে মিল নেই বুঝতে পারছেন জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, সাদা পোষাকে একজন কনস্টেবল দিয়ে তিনি মালামাল যাচাই করেছেন।
মামলার আসামী আ. মান্নান বলেন, কোন লোক এসে উমেদ নগরে মালামাল যাছাই করেনি। করলে ঠিকই দেকতে পেত সুপারীর বস্তায় কুদ্দুছ মিয়ার দোকানের মার্কা আছে এবং বিক্রয় রশিদও আছে। কাউন্সিলার আবুল হাশেম জানান, তিনি তার এলাকার সুপারী ব্যবসায়ীদের বাড়িতে গিয়ে কুদ্দুছ মিয়ার দোকানের মার্কাযুক্ত মাল দেখতে পেয়েছেন। ক্রেতারাও এই মাল কুদ্দুছ মিয়ার দোকানের বলে স্বীকার করেছে।
কুদ্দুছ মিয়ার স্ত্রী তাহেরা আক্তার জানান, আসামীরা তার দোকান থেকে ৫০ বস্তা সুপারী লুট করেছে। আসামীরা তার কোন আত্মীয় নয়। তার স্বামীর কোন আত্মীয় নেই। ফারুক মিয়া ও মধু মিয়া তার স্বামীর সৎ ভাই। সৎ ভাই কোন আত্মীয় হয়না বলেও তিনি জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com