মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১০:৫২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
করোনা প্রতিষেধক শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম
নবীগঞ্জের কৃষকের রঙ্গিন স্বপ্ন এখন পানির নিচে

নবীগঞ্জের কৃষকের রঙ্গিন স্বপ্ন এখন পানির নিচে

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ পাহাড়ী ঢল আর অতিবর্ষণে নবীগঞ্জ উপজেলার প্রায় ৬ হাজর হেক্টর জমির পাকা ও আধা পাকা বোর ধান গত ৪ দিনে এক থেকে দুই ফুট পর্যন্ত পানির নিচে তলিয়ে গেছে। অনেক জমিতে ধানের গোছা এলোমোলো থাকায় কৃষকেরা ধান কাটতে পারেছন না। ফলে আরো দু-একদিনে পরে পাকা ধানে পচন ধরে যেতে পারে। যেকারণে কৃষকের পাকা, আধা পাকা ফসলী জমির ধান ঘরে তোলার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাচ্ছে।
নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসের হিসেব মতে এ বছর উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে বোরো চাষে ১৬ হাজার ৭ শত ১৭ হেক্টর লক্ষ্য মাত্রার মধ্যে আবাদ হয়েছে ১৬ হাজার ৭শ হেক্টর। কৃষকের জমি আদাবাদের সকল প্রস্তুতি থাকা সত্বেও প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে প্রায় ৬ হাজার হেক্টর বোরো ধান পানির নিচে তলিয়ে গেছে।
12961489_1118173058235593_3172688661624924100_n copyএ বছর ফলন ভাল হাওয়ায় কৃষকেরা স্বপ্ন দেখছিলেন বাম্পার ফলন ঘরে তুলবেন। কিন্তু ধান পাকার পূর্বেই হঠাৎ করে আসা বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের পানিতে চোখের সামইে কৃষকের সেই স্বপ্ন তলিয়ে যায়।
গতকাল বুধবার সরেজমিনে বিভিন্ন হাওরের এমনি দৃশ্য দেখা যায়। অনেক জমিতে কলার বেলা দিয়ে ২-৩ ফুট পানির মধ্যে ধান কাটতে দেখা গেছে। এছাড়াও কোন কোন জমির কাচা ধান পানিতে প্রায় ২-৩ ফুট তলিয়ে রয়েছে।
অকাল বৃষ্টিতে নবীগঞ্জ উপজেলার নিন্মাঞ্চলসহ গজনাইপুর ইউনিয়নের কায়স্থ গ্রামের পূর্বের হাওড়ের বোরো ফলল তলিয়ে গেলেও গত বুধবার দিবাগত রাতের আকস্মিক শিলাবৃষ্টিতে পানির উপর ভেসে থাকা ধান একেবারে ঝরে গেছে।
এলাকার কৃষক ফুল মিয়া জানান, অকাল বন্যা ও শিলা বৃষ্টির কারনে সোনালী ফসলের আশা এখন দুঃস্বপ্নে পরিনত হয়েছে।
আউশকান্দি ইউনিয়নের আজলপুর গ্রামের বর্গাচাষী কৃষক ওয়াকিব উদ্দিনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, “এ বারকু ধান ভালো অওয়ায় আশা করছিলাম বাম্পার ফসল তুলব, কিতা করমু চউকের সামনে হকল ধান পানি নিলগি”। একই গ্রামের কৃষক আজাদ মিয়ার সাথে কথা হলে তিনি জানান, “অন্যের ১৪ কেয়ার জমিন বাগি করছিলাম, কিন্তু দেখতে দেখতে সকল ক্ষেতের ধান পানি নিলগি”। তাদের ভাষায় ফলন ভাল হওয়ায় স্বপ্ন ছিল বাম্পার ফলন ঘরে তুলবেন। কিন্তু নিয়তির নির্মম পরিহাস চোখের সামনেই পাকা ও আধাপাকা ধান পানিতে তলিয়ে গেছে। কৃষক আলাওর মিয়া সাথে কথা হলে তিনি জানান, হঠাৎ করে বৃষ্টির পানিতে তার ২ কেদার আধাপাকা ধান পানির নিচে তলিয়ে গেছে। তিনি বলেন, আমার নিজের কিছু ক্ষেতের সাথে অন্যের জমি বর্গাচাষ করেছিলাম লাভের আশায়। এখন লাভ ও আসল উভয়ই গেল। কৃষক ছুফান মিয়া বলেন, এত কষ্টের ধান চোখের সামনে পানিতে তলিয়ে যাওয়াটা মেনে নিতে পারছি না। এখন যা পারি ডুবিয়ে ডুবিয়ে ধান কাটার চেষ্টা করছি।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ দুলাল উদ্দিন জানান, প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের শিকার বোরো চাষিদের সাথে যোগাযোগ রাখছেন। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com