বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০১:৫৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
২০ হাজার মানুষের গ্রামে একটি রাস্তাও পাকা নেই ॥ চরম দুর্ভোগ সাবেক মেয়র জিকে গউছের নামে ভূয়া ইউটিউব চ্যানেল ॥ থানায় জিডি নবীগঞ্জে সাংবাদিক আজাদের মায়ের ইন্তেকাল ॥ বিভিন্ন মহলের শোক নবীগঞ্জে বিদ্যুতপৃষ্টে বৃদ্ধের করুন মৃত্যু ইদুর নিধন অভিযান উপলক্ষে নবীগঞ্জে আলোচনা সভা বানিয়াচঙ্গে সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ওসি’র মতবিনিময় কারিতাস সিলেট অঞ্চলের উদ্যোগে বিশ্ব সাদাছড়ি নিরাপত্তা দিবস পালন শায়েস্তাগঞ্জে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত কুদরত নিহত ॥ ৬ পুলিশ আহত বাহুবলের সাবেক চেয়ারম্যান মুদ্দত আলীর বিরুদ্ধে মেয়াদোত্তীর্ণ কাগজ দিয়ে মাটি, বালু উত্তোলনের অভিযোগ আজমিরীগঞ্জে ইমামের পিছনে বসা নিয়ে সংঘর্ষ ॥ মহিলাসহ আহত ১০
নবীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন \ স্বদেশী-প্রবাসী প্রার্থীরা মাঠে

নবীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন \ স্বদেশী-প্রবাসী প্রার্থীরা মাঠে

মোঃ আলমগীর মিয়া, নবীগঞ্জ থেকে \ নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে দেশী-বিদেশী প্রায় শতাধিক চেয়ারম্যান প্রার্থী মাঠে নেমেছেন। প্রথমবারের মতো ইউনিয়ন পরিষদের সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবেন দলীয় প্রতীকে। ইতিমধ্যে দলীয় মনোনয়ন চেয়ে অনেকে দলে আবেদন জমা দিয়েছেন। নির্বাচনে অংশ নিতে ইতোমধ্যে অনেক প্রবাসী দেশে এসেছেন। কেউ কেউ পরিকল্পনা করছেন দেশে আসতে। আবার কেউ কেউ হিসেব নিকেস কষছেন। এ কারণেই প্রার্থীরা অনেকটা ভোট যুদ্ধ সহজ হবে বলে মনে করছেন। কারণ, দলীয় নেতাকর্মীরা সঙ্গে থাকবেন এমন আশায় তারা রয়েছেন খোশ মেজাজে। তবে কিছু প্রার্থী স্বতন্ত্রভাবে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবেন। সম্ভাব্য প্রার্থীদের প্রচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে গ্রামীণ জনপদের হাটবাজারগুলো। ইতিমধ্যে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীদের ব্যানার-ফেস্টুনে ভরে গেছে হাটবাজার ও রাস্তার মোড়। দলীয় মনোনয়ন পেতে আ.লীগ ও বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তফসিল ঘোষণা না হলেও ইতিমধ্যে নির্বাচনী আমেজ শুরু হয়েছে ইউনিয়নগুলোতে। রীতিমতো চায়ের টেবিলেও ঝড় উঠেছে। দলীয় মনোনয়ন পেতে রাজনৈতিক নেতাদের দ্বারে দ্বারে দৌড়াচ্ছেন। পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের জয়জয়কার দেখে এবার উপজেলায় ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংখ্যা বেড়ে গেছে। তাই জোর তদবির-লবিং চলছে উপজেলা ও জেলার শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের কাছে। শীর্ষ নেতাদের ছবি মাথার ওপর রেখে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীরা চেপেছেন পোস্টার-ব্যানার।
১৯৮৩ সালে নবীগঞ্জকে থানায় রূপান্তরিত করা হয়। ১৯৮৪ সালে সাবেক রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব হোসেইন মুহম্মদ এরশাদের আমলে নবীগঞ্জকে উপজেলা ঘোষণা করা হয়। ১৬৯ দশমিক ৭ বর্গকিলোমিটার এলাকার এ উপজেলায় রয়েছে ১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা। রয়েছে ৩৫৯টি গ্রাম। ১৩টি ইউনিয়ন নিয়ে ভোটার রয়েছে ২ লাখ ১৬ হাজার ৯৬৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৬ হাজার ৪৫৩ জন। মহিলা ভোটার ১ লাখ ১০হাজার ৫১৪ জন। এবারের ইউপি নির্বাচনে ১৩টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে অনন্ত ২০ জন লন্ডন প্রবাসী বিভিন্ন দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করা ছাড়াও বর্তমান, সাবেক, স্বতন্ত্র ও দলীয় প্রার্থীসহ শতাধিক চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতার জন্য মাঠে প্রচার প্রচারণায় সক্রিয় রয়েছেন। নবীগঞ্জ উপজেলা প্রবাসী অধ্যুষিত হওয়ায় প্রায় প্রতিটি নির্বাচন হয় অনেক ব্যায়বহুল। যদিও নির্বাচন আচরণবিধিতে ব্যয়ের পরিমাণ নির্ধারণ করা থাকে। কিন্তু এ উপজেলায় ভিন্ন। বিপুল পরিমাণ টাকার ছড়াছড়িতে নির্বাচনী হিসেব নিকেশ অনেক সময় পাল্টে যায়। চেয়ারম্যান প্রার্থীদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন-
১নং বড় ভাকৈর পশ্চিম ইউনিয়ন- (বর্তমান চেয়ারম্যান) ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সমর চন্দ্র দাশ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক গৌতম কুমার দাশ, সাবেক চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা সত্যজিত দাশ, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি স্মৃতিভুষন দাশ, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা শাহিদ তালুকদার, জাতীয় পার্টি নেতা ভুলা দাশ, উপজেলা জামায়াত শিবিরের সভাপতি আলিমুল ইসলাম।
২নং বড় ভাকৈর পূর্ব ইউনিয়ন:- (বর্তমান চেয়ারম্যান) আওয়ামীলীগ নেতা মেহের আলী মহালদার, সাবেক চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন ছুবা, সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ার মিয়ার ছেলে বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী আওয়ামীলীগ নেতা জাকারিয়া হোসেন বকুল, ইউপি বিএনপির সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান আশিক মিয়া, লন্ডন প্রবাসী জাতীয় পার্টি নেতা আবু নাসের, লন্ডন প্রবাসী দিদার আহমেদ, বিএনপি নেতা বজলুর রহমান।
৩নং ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) লন্ডন প্রবাসী বিএনপি নেতা আব্দুল বাতেন, সাবেক চেয়ারম্যান লন্ডন প্রবাসী নজমুল ইসলাম নজরুল, ইউপি আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল মালিক, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, আওয়ামীলীগ নেতা আমিনুর রহমান স্বপন, বিশিষ্ট সমাজ সেবক বজলুর রশিদ বজলু, আওয়ামীলীগ নেতা আজিজুর রহমান আজিজ, ইউনিয়ন জাতীয় পাটির সভাপতি সিরাজ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম, লন্ডন প্রবাসী আকিকুর রহমান, লন্ডন প্রবাসী আব্দুল হারিছ, লন্ডন প্রবাসী জাহিদুর হোসেন।
৪নং দীঘঁলবাক ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) বিএনপি নেতা ছালিক মিয়া, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আব্দুল বারিক, সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা আবু সাঈদ এওলা মিয়া, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি গোলাম হোসেন, ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সভাপতি আব্দুল হান্নান চৌধুরী চাঁন মিয়া, জামাল আহমদ চৌধুরী, বিএনপি নেতা শামিম আহমদ চৌধুরী, কন্ঠশিল্পী ও ইউনিয়নের আলোচিত সাবেক চেয়ারম্যান লিফাই মিয়ার পুত্র রানা শেখ, লন্ডন প্রবাসী ফারুক মিয়া।
৫নং আউশকান্দি ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি দিলাওর হোসেন, আওয়ামীলীগ নেতা মছদ্দর আলী, লন্ডন প্রবাসী মুহিবুর রহমান হারুন, যুবদল নেতা মোর্শেদ আলম মোশাহিদ, আব্দুল লতিফ, যুবলীগ নেতা আব্দুল হামিদ নিকসন, সাবেক চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা মতিউর রহমান পেয়ারা, কাওসর আহমদ কওসর।
৬নং কুর্শি ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) সৈয়দ খালেদুর রহমান খালেদ, সাবেক চেয়ারম্যান উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি লন্ডন প্রবাসী আলী আহমেদ মুছা, আওয়ামীলীগ নেতা লন্ডন প্রবাসী চৌধুরী অনর উদ্দিন জাহিদ, লন্ডন প্রবাসী বিএনপি নেতা মোঃ রিনজল মিয়া,  আওয়ামীলীগ নেতা লন্ডন প্রবাসী আব্দুল মুকিত, যুবলীগ নেতা আব্দুল বাছিত চৌধুরী, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম আহবায়ক উজ্জল সরদার, জামায়াত নেতা শফিকুর রহমান লেচু মিয়া, লন্ডন প্রবাসী আবু তালিম চৌধুরী নিজাম, লন্ডন প্রবাসী শামসুল হুদা চৌধুরী বাচ্চু, ইউনিয়ন জাপা সাধারন সম্পাদক মোঃ আফজল মিয়া।
৭নং করগাঁও ইউনিয়ন ঃ- (বর্তমান চেয়ারম্যান) বিএনপি নেতা ছাইম উদ্দিন, আওয়ামীগ নেতা আলতাফ হোসেন চৌধুরী, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু দাশ রানা, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শৈলেন দাশ, যুবলীগ নেতা আব্দুল কদ্দুস সাগর, আওয়ামীলীগ নেতা শফিকুর রহমান কিরন বাগচী, মাওঃ সুয়েব আহমদ চৌধুরী।
৮নং নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল মুক্তাদির চৌধুরী, উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক হারুনুর রশিদ হারুন, ছাত্রদল নেতা জাকির আহমদ চৌধুরী, পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক হাবিবুর রহমান হাবিব, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাবেদুল আলম চৌধুরী সাজু, আমেরিকা প্রবাসী খসরু মিয়া চৌধুরী।
৯নং বাউশা ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) সদ্য বিএনপিতে যোগদানকারী আনোয়ারুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু সিদ্দিক, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা লন্ডন প্রবাসী আলহাজ্ব জুনেদ হোসেন চৌধুরী, আওয়ামীলীগ নেতা শাহ মরতুজ আলী, বিএনপি নেতা সাদিকুর রহমান শিশু, নজরুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হাই এর স্ত্রী ডেইজি আকতার।
১০নং দেবপাড়া ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) এডভোকেট মাসুম আহমেদ জাবেদ, সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা আ.ক.ম ফখরুল ইসলাম কালাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রবীন্দ্র কুমার দাশ রবি, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল মুহিত চৌধুরী, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি শামিম আহমদ, ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি রজব আলী, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি কাপ্তান মিয়া, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জালাল আহমদ, বিএনপি নেতা আমীর হোসেন, লন্ডন প্রবাসী আবুল হোসেন জীবন।
১১নং গজনাইপুর ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল খায়ের গোলাপ, সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুল, সাবেক চেয়ারম্যান শাহ নেওয়াজ, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নুর উদ্দিন বীর প্রতীক, জেলা প্রজন্মলীগ সহ-সভাপতি লন্ডন প্রবাসী শেখ মাসুদুর রহমান মাসুদ, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি শফিউল আলম বজলু, সাধারণ সম্পাদক আবুল খয়ের কায়েদ, বিএনপি নেতা শাহ মুস্তাকিম, উপজেলা জাতীয় পাটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান মিয়া, যুবলীগ নেতা জমসেদ আলী, সুহেল রানা তালুকদার, জাপা নেতা কাপ্তান মিয়া, ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সভাপতি ছুফি মিয়া।
১২নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) আওয়ামীলীগ নেতা নজরুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব ইমদাদুল রহমান চৌধুরী, ইউনিয়ন জাতীয় পাটির সভাপতি সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী সাজু মিয়া, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব মেরাজ মিয়া, সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর চৌধুরী, লন্ডন প্রবাসী সাবেক মেম্বার জাফর মিয়া, লন্ডন প্রবাসী এলাইচ মিয়া।
১৩নং পানিউমদা ইউনিয়ন :- (বর্তমান চেয়ারম্যান) ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ইজাজুর রহমান, সাবেক চেয়ারম্যান ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আব্দুর রহমান, ইউনিয়ন জাতীয় পাটির সাধারণ সম্পাদক কর্পোরাল (অবঃ) লুৎফুর রহমান, যুবসংহতি নেতা মামুন খান, আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট আতাউর রহমান, শেফুল চৌধুরী, বিশিষ্ট শিল্পপতি শাহিন মিয়া, আবিদুর রহমান।
প্রত্যেকটি ইউনিয়ন পরিষদে ডজন ডজন সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠে থাকায় তাদের মধ্য থেকে একক দলীয় প্রার্থী বাছাই খুবই কঠিন হবে বলে মনে করছে বিশ্লেষকরা। তবে রাজনৈতিক নেতাদের মতে, সব ইউনিয়নে একক প্রার্থী নির্বাচন করা কঠিন হলেও তারা শেষ পর্যন্ত চেষ্টা  চালিয়ে যাবেন। কোন ইউনিয়নে দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
শুধু আওয়ামী লীগ কিংবা বিএনপিই নয়, নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত বিরোধী দল জাতীয় পার্টিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলও দলীয় প্রতীকে ইউনিয়ন নির্বাচনে অংশগ্রহণের প্রস্তুতি নিচ্ছে।
সকল দলের শীর্ষ নেতারা একক চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনয়নে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ শুরু করেছে। দুই জোটের ব্যানারে নির্বাচনের সম্ভাবনা না থাকায় প্রধান দুই জোটে থাকা শরীক দলগুলোও এককভাবে ইউপি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে বলেও সুত্রে জানা গেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com