বৃহস্পতিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:৫৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে টিসিবির পেয়াজ কিনতে গিয়ে ট্রাক থেকে পড়ে আহত ১ বানিয়াচঙ্গে প্রতিবন্ধীর ভাতা ছিনিয়ে নিলেন এক সমাজকর্মী ও ইউপি সদস্য আওয়ামীলীগ জগণের উন্নয়ন ও অগ্রগতির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে-এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জ হাসপাতালে রোগীদের খাবারের মান নিয়ে নানা প্রশ্ন ? একটি টেকসই বিশ্ব গড়তে বাংলাদেশ আইএমও এর সদস্য দেশসমূহের সাথে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করবে-ড. মোহাম্মদ শাহ্ নেওয়াজ নবীগঞ্জে উপজেলা যুবলীগের শহীদ শেখ ফজলুল হক মণির জন্মদিন পালিত যুবলীগের উদ্যোগে শেখ ফজলুল হক মনি’র ৮০তম জন্মদিন উদযাপন মাধবপুর উপজেলার শ্রেষ্ট বিদ্যুৎসাহী সাংবাদিক অলিদ ঢাকার ব্যবসায়ীর আবেদনের প্রেক্ষিতে পাওনা টাকা উদ্ধার করে দিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম আজমিরীগঞ্জে বিষপানে গৃহবধুর আত্মহত্যা
বিদ্যুত ও তেল ব্যবহার ছাড়া শুধুমাত্র পাইপ বসিয়ে হবিগঞ্জে বছরে কোটি টাকার ধান উৎপাদন

বিদ্যুত ও তেল ব্যবহার ছাড়া শুধুমাত্র পাইপ বসিয়ে হবিগঞ্জে বছরে কোটি টাকার ধান উৎপাদন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিদ্যুত ও তেল ব্যবহার ছাড়া পরিবেশ বান্ধব নলকুপ বসিয়ে হবিগঞ্জে বছরে কোটি টাকার ধান উৎপাদন হচ্ছে। এ জন্য কৃষকদের দিতে হচ্ছে না কোন রকম অর্থ এমনকি মাসে মাসেও কোন বিল-ভাউচারের প্রয়োজন হচ্ছে না। সরকারি খরচেই কৃষকরা স্থানীয় বিএডিসি’র মাধ্যমে এ সুবিধা পাচ্ছে। গভীর অথবা অগভীর কুপ বা টিউবওয়েল দিয়ে নয় শুধুমাত্র কয়েকটি পাইপ বসিয়ে হবিগঞ্জ জেলায় বছরে ২৮০ মেট্রিক টন ধান উৎপাদন হচ্ছে।
বিএডিসি সূত্র জানায়, ২০১২ সালে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের অর্থায়নে ও তত্ত্বাবধানে স্বল্প খরচে পানি সেচের সুবিধার্থে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধির উদ্যোগ নেয়। এ জন্য বিএডিসি আর্টিশিয়ান নলকুপ ব্যবহার করে সেচ সম্প্রসারণের জন্য একটি প্রকল্প হাতে নেয়। বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন মাটি পরীক্ষা করে ওই এলাকার কৃষকদের জন্য বিনা খরচে শুধুমাত্র কয়েকটি পাইপ বসিয়ে দেয়। তারপর ওই পাইপ দিয়ে অনবরত পানি সরবরাহ হতে থাকে। বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন আরও জানায় জেলার যেসব এলাকায় বছরের অধিকাংশ সময় কোন টিউবওয়েল বা কুপ ছাড়াই পাইপ বসিয়ে দিলে অনবরত পানি পড়তে থাকে, সেইসব এলাকায় এ প্রকল্প চালু করা হচ্ছে। তবে স্থানীয় কৃষকরা একে ঘাই প্রকল্প বলে অভিহিত করে। এ প্রকল্পের অধিনে হবিগঞ্জ সদর, চুনারুঘাট ও মাধবপুর উপজেলারর ৭০টি স্থানে ৭০টি আর্টিশিয়ান কুপ বসানো হয়েছে। ২০১৪ সাল পর্যন্ত জেলায় ১২০টি আর্টিশিয়ান কুপ বসানো হবে। এতে ১টি কুপ বসাতে বিএডিসি’র খরচ হবে সর্বমোট ৫০ হাজার টাকা। পাশাপাশি সহস্রাধিক কৃষক এর সুফল হাবে। এছাড়া বছরে প্রায় কোটি টাকার ধান উৎপাদন হবে। এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার মররা গ্রামের কৃষক নুরুল হক ও একই উপজেলার কদমতলী গ্রামের কৃষক খলিলুর রহমান জানান, তাদের পক্ষে কোন ধরনের কুপ বসানোর ক্ষমতা নেই। সেখানে তারা বিনা খরচে এ আর্টিশিয়ান কুপ পেয়ে তারা অত্যন্ত আনন্দিত। তারা জানান, এতে স্থানীয় কৃষকদের ব্যাপক উন্নতি হবে। শুধু তাই নয় এ জন্য তাদেরকে কোন রকম অর্থ দিতে হবে না। পাশপাশি বছরের পুরো সময় তারা ধান আবাদের পাশপাশি অন্যান্য ফসল আবাদ করতে পারবে। এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রনজিত কুমার দেব জানান, হবিগঞ্জের যে সব স্থানে ৫ থেকে ৬শ ফুটের মধ্যে পানির স্তর রয়েছে এবং যেসব স্থানে বছরের অধিকাংশ একটি পাইপ বা বাশ দিয়ে অনবরত পানি পড়তে থাকে। সেসব স্থানে সেচ সুবিধার জন্য সরকার বিনা খরচে কৃষকদের আর্টিশিয়ান কুপ স্থাপনের কাজ শুরু করেছে। এতে তারা সেচ সুবিধার পাশপাশি বিশুদ্ধ পানি সংগ্রহ করতে পারবে। তিনি বলেন, হবিগঞ্জের কয়েকটি স্থান রয়েছে যেখানে শুধু পাইপ বসিয়ে দিলেই বিরামহীন পানি উঠতে থাকে। সেই সব এলাকায় কোন ধরনের যান্ত্রিক কিছু ছাড়াই পাইপ বসিয়ে কৃষকরা ১২ মাস সেচ সুবিধা পাবে।
উল্লেখ্য সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী এনামুল হক মোস্তফা শহীদ এমপির প্রচেষ্টায় এ প্রকল্পটি জেলায় ২০১২ সাল থেকে কাজ শুরু করেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com