বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৯:৪১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত প্রাঙ্গণে বিপুল পরিমাণ মাদক ধ্বংস শহরে টমটম স্ট্যান্ডের দখল নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ব্যবসায়ী রশিদের দাফন সম্পন্ন শায়েস্তাগঞ্জের ২ পা হারানো স্কুল ছাত্রী নদীকে মানবিক সহায়তা নবীগঞ্জে অবৈধ যানবাহন আটকে পুলিশের অভিযান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডাব্লিউএইচও এর কো-চেয়ারম্যান মনোনীত হওয়ায় হবিগঞ্জ পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগের আনন্দ র‌্যালী বাহুবল সন্তান নিয়ে পালিয়ে যাওয়া পিতার কবল থেকে শিশু উদ্ধার তাসনোভা-শামীম ফাউন্ডেশন ও মরহুম আব্দুল মালেক এন্ড আয়াত আলী স্মৃতি সংঘের যৌথ উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ হবিগঞ্জে বাড়ছে ঠান্ডা জনিত রোগ এক সপ্তাহে ৩৫০ শিশু আক্রান্ত হবিগঞ্জে নতুন করে ৪ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত শেখ হাসিনা দেশকে এমনভাবে গড়তে চান যেন সারাবিশ্ব অবাক হয়ে দেখে-এমপি আবু জাহির
পিতার অবাধ্য সন্তান ভয়ঙ্কর খুনী ইলিয়াছ

পিতার অবাধ্য সন্তান ভয়ঙ্কর খুনী ইলিয়াছ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস, অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ। আবার কেহ কেহ বলেন- সঙ্গীগুনে লোহা জ্বলে ভাসে। প্রবাদ গুলোর যথার্থতা খুঁজে পাওয়া গেল শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের দাউদনগর গ্রামের বাসিন্দা মোঃ সালেহ মিয়া ওরপে কনা মিয়ার সংসার জীবনে। মোঃ সালেহ মিয়া ওরপে কনা মিয়ার ৪ পুত্র ও ৩ কন্যা সন্তান। কনা মিয়া সংসার জীবনে একজন আপাদমস্তক সংসারী ও সুখী মানুষ। ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায় সহ ধর্ম ও কর্মে সৎ মানুষ। এলাকার মানুষের কাছে একজন ভদ্রলোক হিসেবে যথেষ্ট সুনাম রয়েছে তাঁর। সৎপথে উপার্জন, সৎভাবে বেঁচে থাকা, সৎ জীবন যাপন করার ক্ষেত্রে শতভাগ সচেষ্ট এই মানুষটি পিতা হিসেবে সফল হলেও একটি মাত্র পুত্র সন্তান এর কারণে এখন তার দিন কাটছে কঠিন থেকে কঠিনতর। প্রতিটি মূহুর্ত মানষিক যন্ত্রণায় অতিবাহিত করছেন। যার কারণে তাঁর এই অবস্থা। সে হল তাঁর সেই অযোগ্য অপদার্থ, খুনী, সন্ত্রাসী ছেলে ইলিয়াছ মিয়া। ছেলের ক্রমাগত অপরাধে ছেলের কাছ থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখলেও মানষিক দুরত্ব কমাতে পারছেন না কোন ভাবেই। কিনা মিয়ার কাছ থেকে জানা যায়, সঙ্গীগুনে তাঁর ছেলের আজ এই অবস্থায় পতিত হয়েছে। এছাড়া আর কোন কারণ খুজেঁ পাননা তাঁর ছেলের এই পরিনতির জন্য। ইলিয়াছ পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করে শিক্ষাজীবনের যবনিকা টানে। তার পরেই বখাটে ছেলেদের সাথে মিশে অপরাধের সাথে জড়িয়ে পড়ে। নূর গার্ডের ছেলে হাছান এর গলা কেটে তার অপরাধের রাজ্যে প্রবেশ। এর পর থেকে পর্যায়ক্রমে হত্যার চেষ্টায় শিপনকে চাকু মারা, সুজনকে হত্যা করা, বাহুবলে সি.এন.জি ড্রাইভার জালালকে হত্যা করা, সর্বশেষ কারাগারে আলহাজ্ব জি.কে.গউজকে হত্যার চেষ্টায় ছুরিকাঘাত করা তার অপরাধ মাত্রার পরিধিকে জানান দেয়াই তার মূল লক্ষ্য বলে মনে করছেন সাধারণ জনগণ। তার সম্পর্কে তার গ্রামের বাড়িতে খুঁজ নিতে গিয়ে জানা যায়, সে ছাড়া তার পরিবার পরিজন সবাই ভদ্র মানুষ। গ্রামের মানুষের ভাষ্যমতে একমাত্র ইলিয়াছই ওই পরিবার ও গ্রামের ইজ্জতে কালিমা লেপন করেছে। গ্রামবাসী তার যথাযথ বিচার চাই। কনা মিয়া জানান, ৩/৪ বছর ধরে পুত্র ইলিয়াছ জেল হাজতে রয়েছে। কিন্তু তাকে দেখার জন্য একটি বারের জন্যও জেল খানায় যাইনি। তবে মনের টানে একদিন কোর্টে গিয়ে দুর থেকে দেখে চোখের পানি ফেলেছি। তিনি বলেন-আমি কাউকে বুঝাতে পারবো না আমার ভিতরের জ্বালা। আমি জেনে শোনে কোন অপরাধ করিনি। আমার সন্তান কেন এমন হলো ? তবুও বলছি অপরাধীর বিচার হউক। ইলিয়াছ কেবল অপরাধীই নয় ভয়ংকর খুনী। জেল থেকে ছাড়া পেলে সে আরো মারাত্বক অপরাধের সাথে জড়িত হতে পারে।
ইলিয়াছ মিয়া ওরফে ছোটন শায়েস্তাগঞ্জের আতঙ্ক। তার নাম শুনলেই লোকজনের মাঝে ভয় দেখা দিত। ২০০০ সাল থেকে সে শায়েস্তাগঞ্জ দাউদনগর এলাকায় অপরাধ কর্মকান্ড শুরু করে। ধীরে ধীরে সে ভয়ংকর হয়ে উঠে। এরপর তার ভয়াবহতার এক পর্যায়ে কালো টাকা রোজগারে মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। এলাকায় তার ভয়ে লোকজন আতঙ্কে বসবাস করতো। সে কাউকেই পাত্তা দিত না। ২০০৮ সালে ১৩ এপ্রিল সে দক্ষিণ লেঞ্জাপাড়ার বাসিন্দা মরম আলীর ছেলে আলী আহমদ সুজনকে হত্যা করে পলাতক ছিল। ঘটনার পর কনা মিয়া পুত্র ইলিয়াছকে ত্যাজ্য করেন। খোজ নিয়ে জানা যায়, এরপর সে চলে যায় ভারতে। সেখানে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে সে জড়িয়ে পড়ে। মাঝে মাঝে চুনারুঘাটের আসামপাড়া সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে নিজের অভিযান শেষে পুনরায় ভারতে চলে যেত। ২০১১ সালের ১৬ জুলাই সে একই রুটে ভারত থেকে বাংলাদেশে আসে। পরে চুনারুঘাট থেকে বাহুবল উপজেলার পুটিজুরী বাজারে যাওয়ার জন্য সে আব্দুল জলিলের সিএনজি ১ হাজার টাকায় ভাড়া নেয়। সন্ধ্যায় বাহুবল বাজারে পৌছে জলিল আর যাবে না বলে তার ভাড়া দাবি করে। এসময় ছোটন ৪শ’ টাকা দিয়ে বাকি টাকা পুটিজুরী বাজারে গিয়ে দেবে বলে চালক জলিলকে জানায়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। এ সময় ছোটন নিজেকে হত্যা মামলাসহ বিভিন্ন মামলার পলাতক আসামী বলে পরিচয় দেয়। এক পর্যায়ে জলিলকে ছুরিকাঘাত করতে থাকে। এতে সে মারা যায়। পরে বানিয়াচং উপজেলার মার্কুলী থেকে তাকে আটক করা হয়। দু’টি হত্যা মামলার আসামী হিসাবে কারাগারে থাকা ইলিয়াছকে জেলেও সবাই সমীহ করে চলে বলে বিভিন্ন জনের বর্ননায় প্রকাশ পায়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com