মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম বাগুনিপাড়া ডিফেন্স হোল্ডার এ্যাসোসিয়েশন ঈদ উপহার বিতরন
চুনারুঘাটে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জের মহিলার অত্যাচারে অতিষ্ট আত্মীয়-স্বজন

চুনারুঘাটে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জের মহিলার অত্যাচারে অতিষ্ট আত্মীয়-স্বজন

প্রবাস জীবন যাপনের পর ২০১১ সালে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি দুই স্ত্রী, ৪ পুত্র ও ৯ কন্যা রেখে যান। আবুল হাছানের ২য় স্ত্রীর নাম মিনারা খাতুন। তার গর্ভে ৪ কন্যা ও ইকবাল হোসেন নামে এক পুত্র জন্মগ্রহণ করে।
অভিযোগ উঠেছে, নিজ পুত্র ইকবাল হোসেনের নামে একটি জাল হেবা দলিল তৈরি করে বসতভিটাসহ ৩৩৮ শতক ভূমির মালিকানা দাবি করছে আবুল হাছানের ২য় স্ত্রী মিনারা খাতুন। ২০১০ সালের ১৮ আগস্ট রেজিস্ট্রি করা ওই হেবা দলিলটির নাম্বার হচ্ছে ৩২০৭।
দলিলটি পরখ করে দেখা যায়, সাক্ষরের জায়গায় লেখা রয়েছে ‘হাজী আবুল হাসান তালুকদার’। অথচ তার অন্যান্য দলিলে সাক্ষর দেয়া আছে ‘হাজী আবুল হাছান মিয়া’ নামে। ১ম পক্ষের স্ত্রী সন্তানদের অভিযোগ, সাক্ষরের ভিন্নতা প্রমান করে দলিলটি জাল। তাছাড়া দলিলে যেসব সাক্ষীর নাম উল্লেখ করা হয়েছে তাদের সকলের বাড়িই ওই এলাকা থেকে ২০/২৫ কিলোমিটার দূরে। এলাকার কোন লোকই তাদের চিনেন না। শুধু তাই নয়, আবুল হাছান মিয়া জীবিত অবস্থায় নিকট প্রতিবেশি ও আত্মীয়-স্বজনসহ কাউকে কোনদিনই বলেননি ওই হেবা দলিলের কথা।
১ম স্ত্রী জুবেদা খাতুন জানান, দলিলটি ২০১০ সালে করা হলেও এতদিন তারা কিছুই বলেনি। গত দুই বছর যাবত তারা ওই জাল দলিলে উল্লেখিত ভূমিটির মালিকানা দাবি করছে। মিথ্যা মামলা মোকদ্দমা দিয়ে তাদেরকে করা হচ্ছে হয়রানী।
১ম পক্ষের পুত্র আব্দুল কাদির ও আব্দুস সামাদ অভিযোগ করে বলেন, ‘দাজ্জালরূপী মামলাবাজ মিনারা খাতুনের অত্যাচারে আমরা এখন অতিষ্ট। সে প্রায়ই আমাদের প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। শুধু পৈত্রিক সম্পত্তি নয়, আমাদের ক্রয়কৃত পুকুরে মাছ চাষ ও ধরতে বাধা দিচ্ছে সে। গত কয়েকদিন আগে ওই পুকুরের মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে সে আমাদের পরিবারের লোকজনদের ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করার চেষ্টা করে। তারা বলেন, হেবা জাল দলিলে উল্লেখিত ৩৩৮ শতক ভূমিসহ ২০১৩ সালে আমাদের পৈত্রিক সকল সম্পত্তির একটি বাটোয়ারানামা হয়। ওই বাটোয়ারানামায় মিনারা বেগমও সাক্ষর করেন। যার এফিডেভিট নং- ২৫৯/১৩, তারিখ-৫/৯/২০১৩ইং। আব্দুল কাদির ও আব্দুস সামাদ প্রশ্ন রেখে বলেন, বাটোয়ারানামা অনুযায়ি যদি ওই ৩৩৮ শতক ভূমি আমাদের সকলের পৈত্রিক সম্পত্তি হয় এবং এতে যদি মিনারা বেগমও সাক্ষর করে থাকেন তাহলে আমাদের বৈমাত্রেয় ভাই ইকবাল হোসেন জাল হেবা দলিলে উল্লেখিত ৩৩৮ শতক ভূমির একক মালিক হয় কি করে?

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com