বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ০৩:১৮ অপরাহ্ন

মালয়েশিয়ায় দালালের বন্দি শিবিরে নবীগঞ্জের ইমা চালক মিজানের মৃত্যু

মালয়েশিয়ায় দালালের বন্দি শিবিরে নবীগঞ্জের ইমা চালক মিজানের মৃত্যু

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জের ইমা গাড়ি চালক মিজানুর রহমান (২৬) ভাগ্যান্বেষনে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া গিয়ে দালালের বন্দি শিবিরে মারা গেছেন। বানিয়াচংয়ের জাহাঙ্গীর মিয়া নামের এক যুবক গত ২০ ফেব্র“য়ারী বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টার দিকে মালয়েশিয়া থেকে মিজানুর রহমানের বাড়িতে ফোন করে এ খবর দিয়েছে বলে তার পরিবার জানিয়েছে। প্রায় আড়াই মাস পূর্র্বে দালালদের বন্দি শিবিরে মিজানুর মৃত্যুবরণ করেছে এবং জাহাঙ্গীর মিয়া নিজে দাফন করেছে বলেও জানায়। এ খবর শুনার পর মিজানের পরিবারে আহাজারি ও কান্নার রুল শুরু হয়েছে। এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া।
মিজানের পরিবার সূত্রে জানা গেছে-নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চৌশতপুর গ্রামের দালাল আবুল মিয়া ২ লাখ ৮০ হাজার টাকার বিনিময়ে একমাত্র উপার্জনকারী ইমা গাড়ী চালক মিজানুর রহমানকে প্রলোভন দিয়ে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া পাঠায়। যাবার সময় নগদ ১ লাখ টাকা দালাল আবুল মিয়াকে দিয়ে বাকী টাকা পৌছার পরে তার দেয়া তথ্যমতে অপর দালালকে দেয়ার কথা ছিল। ভিটেবাড়ি বন্ধক রেখে ১ লাখ টাকা আবুল মিয়াকে দিয়ে প্রায় ৪ মাস পূর্বে জাহাজযোগে অবৈধ পথে মালয়েশিয়া পাড়ি জমায় মিজান। পৌছার পর সেখানে অবস্থানরত দালালের কাছে বন্দি হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে আবুলের কথা মতো সুদি লগ্নী করে চট্রগ্রামের মহেশখালী এলাকার দালাল জয়নাল আবেদীনের নিকট বাকী ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা প্রদান করা হলেও তারা মিজানকে মুক্তি না দিয়ে আরো টাকা দাবী করে। এ অবস্থায় টাকা যোগাড় করতে অক্ষম হয়ে পরিবারের লোকজন দালাল আবুলের বাড়ি গিয়ে ছেলের সন্ধানে ধর্র্ণা দেয়। তাদের প্রতিউত্তরে মিজান ভাল আছে বলে আবুল জানায়। এরই মধ্যে মিজানুর রহমানের মৃত্যুর খবর আসে বাড়িতে।
৪ ভাই-বোনের মধ্যে মিজানুর রহমান সকলের বড়। ইমা গাড়ী চালিয়ে পরিবারের সদস্যদের মুখে আহার যোগাতো। পরিবারের আয় উন্নতি এবং একমাত্র ছোট বোন সুজেনা আক্তারকে ভালঘরে বিয়ে দেয়ার স্বপ্ন নিয়ে দালাল আবুলের খপ্পড়ে পড়ে মালয়েশিয়া পাড়ি জমিয়েছিল মিজান।
এ খবর পেয়ে মিজানুর রহমানের মা শেষ বারের মতো তার ছেলে মুখ দেখার জন্য বিলাপ করছেন। সরকারের নিকট তার আকুতি আমার ছেলের মৃত্যুর জন্য দালাল আবুল দায়ী। তিনি বলেন আমার ছেলে কি অবস্থায় আছে সরকারের মাধ্যমে জানতে চাই। জীবিত বা মৃত আমার ছেলেকে ফেরৎ চাই। এ জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর নিকট জোর দাবী জানিয়েছেন। মিজানুর রহমানের একমাত্র বোন সুজেনা আক্তার বলেন, আমার ভাইকে দালাল আবুল ফুঁসলিয়ে মালয়েশিয়া পাঠিয়েছিল। তার কথা মতো অতিকষ্ট করে টাকাও দিয়েছি। প্রায় ৩ মাস ধরে তার কোন সন্ধান না পেয়ে বার বার আবুলের বাড়ি চৌশতপুরে গিয়েছি। সে প্রতিবারেই বলেছে, আমার ভাই ভাল আছে। আজ তার মৃত্যুর সংবাদ শুনতে হলো কেন। তিনি বলেন, দালাল আবুল টাকার জন্য আমার ভাইকে হত্যা করেছে। নতুবা আমার ভাইকে ফেরৎ দিতে হবে। এ জন্য আইনের আশ্রয় নেয়ার কথাও জানান সুজেনা। এ বলেই হাউমাউ করে কেঁেদ উঠলেন। এ সময় এক হৃদয় বিদায়ক দৃশ্যের অবতারণা হয়। এ ব্যাপারে দালাল আবুলের মোবাইল নম্বারে একাধিকবার চেষ্টা করে কথা বলা যায়নি।
এ ব্যাপারে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমীন রফু জানান, আবুলের মাধ্যমে সে মালয়েশিয়া গিয়েছিল। দু’ দফায় টাকাও দেয়া হয়। সেখানে বন্দি অবস্থায় আরো টাকা দাবী করলে তার বাবা সুদি করে টাকা জোগাড় করে। তখন আবুল অতিরিক্ত টাকা না নিয়ে জানায় মিজান জেলে আছে টাকা লাগবে না। এখন তার মৃত্যু খবর পেয়ে হতবাক হয়েছি। তিনি এঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবী করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com