বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৯:৪৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মৌলভীবাজারে বিয়েতে দাওয়াত খেতে গিয়ে উমেদনগরের মা-মেয়ে আগুনে পুড়ে নিহত কিবরিয়া হত্যার বিচার ও খোয়াই খননে দুই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানালেন-এমপি আবু জাহির বানিয়াচঙ্গে ভাগনার সাথে খালার বিয়ে ॥ এলাকাজুড়ে তোলপাড় ! নবীগঞ্জের ঘোনাপাড়া গ্রামে শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ বাহুবলে গ্যাস নিতে গিয়ে ২ সিএনজি চালকের মৃত্যু মাদক ছেড়ে সৃজনশীল কাজ করতে হবে-পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহ কাউরিয়াকান্দি হযরত শাহজালাল (রহ:) উচ্চ বিদ্যালয়ের বিদায় অনুষ্ঠান-নবীন বরন ও বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ভ্রাম্যমান আদালতে ৩ মাদকসেবীর কারাদন্ড ॥ ম্যাজিস্ট্রেট, চুনারুঘাট থানার ওসি, সহকারী পরিচালক মাদকদ্রব্যকে লিখিত ব্যাখ্যা দেয়ার আদেশ সরকারি নিবন্ধন পেল সামাজিক সংগঠন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের হবিগঞ্জ জেলা কমিটি গঠন
হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস আজ

হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস আজ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজ ৬ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সদস্যরা মুক্তিযোদ্ধাদের প্রবল প্রতিরোধের মুখে হবিগঞ্জ ত্যাগ করতে বাধ্য হয়। মুক্ত হয় হবিগঞ্জ। কিন্তু স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও হবিগঞ্জের অবহেলিত মুক্তিযোদ্ধাদের পূর্ণবাসন ও বীরাঙ্গনাদের তালিকা প্রকাশ করা হয়নি। মুক্তিযোদ্ধাদের একটাই দাবি রাজাকার মুক্ত বাংলাদেশ চাই। ১৯৭১ সালের ৪ এপ্রিল হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় তেলিয়াপাড়া ডাকবাংলো থেকে সারা দেশকে মুক্তিযুদ্ধের ১১টি সেক্টরে ভাগ করা হয়। ৩নং সেক্টরের দায়িত্ব পালন করেন তৎকালীন মেজর শফিউল্লাহ। তাঁর নেতৃত্বে হবিগঞ্জের সীমান্ত এলাকার দুর্গম অঞ্চলগুলোতে পাকিস্তানিদের সাথে তুমুল যুদ্ধ সংঘটিত হয়। ডিসেম্বরের শুরুতে মুক্তিবাহিনী জেলা শহরের কাছাকাছি এসে পৌঁছে। তখন মুক্তিযোদ্ধারা তিন দিক থেকে আক্রমণ শুরু করে।
৫ ডিসেম্বর রাতে মুক্তিযোদ্ধারা হবিগঞ্জ শহরে প্রবেশ করে এবং ৬ ডিসেম্বর ভোর রাতে পাকসেনাসহ রাজাকাররা শহর ছেড়ে পালিয়ে যায়। পরে ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের নেতা মো. শাহাজাহান মিয়াসহ মুক্তিযোদ্ধারা হবিগঞ্জ সদর থানা কম্পাউন্ডে বিজয় পতাকা উত্তোলন করেন।
সূত্রে জানা যায়, ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধে জেলার ২৭ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। যুদ্ধে আহত হন ৩৭ জন। এছাড়া নিরীহ অসংখ্য নর-নারী হানাদার বাহিনীর নির্মম নিষ্ঠুরতার শিকার হন। এসব শহীদদের জন্য তেলিয়াপাড়া, ফয়জাবাদ, কৃষ্ণপুর, নলুয়া চা বাগান, বদলপুর, মাখালকান্দিতে বধ্যভূমি নির্মিত হয়।
হবিগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা ও তরুণ প্রজন্মের দাবি রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশ চাই। পাশাপাশি অবহেলিত মুক্তিযোদ্ধাদের পূর্ণবাসন এবং বীরঙ্গনাদের তালিকা প্রকাশ করা প্রয়োজন।
মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান চৌধুরী জানান, জীবন বাজি নিয়ে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি, কিন্তু আমাদের সামনে এখনো অনেক রাজাকার আলবদর ঘোরাফেরা করছে। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সরকারের কাছে দাবি রাজাকার মুক্ত বাংলাদেশ চাই। রাজাকার মুক্ত বাংলাদেশ পেলে পূর্ণাঙ্গ স্বাধীন রাষ্ট্র পাব। এদিকে মুক্ত দিবস উপলক্ষে জেলা মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্যোগে র‌্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com