মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ১১:৪২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ভিজিএফ’র ২ লাখ টাকা ছিনতাইকারী মনির পুলিশের খাচাঁয় শহরতলীর কাকিয়ারআব্দায় গাইড ওয়াল নির্মাণ ॥ ফুসে উঠেছে এলাকাবাসী মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে যাচ্ছে দেশ-এমপি আবু জাহির নিউইয়র্কে নবীগঞ্জের সন্তান পুলিশ সুপার আব্দুল ওয়াহাবকে সংবর্ধনা নবীগঞ্জের জহুরপুরে সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা ॥ অভিযুক্ত আবু সামা গ্রেপ্তার মাধবপুরে পুলিশের পৃথক অভিযানে গাঁজা ও বিয়ার সহ ৪ জন আটক নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের কার্য নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলার আসামী আসিফ ৪ মাস পর গ্রেফতার নবীগঞ্জে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধু’র মৃত্যুর ঘটনায় মামলা ॥ স্বামী গ্রেফতার নবীগঞ্জের করাগাও গ্রামের যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সমাজসেবক আব্দুল হাকিমের ইন্তেকাল ॥ বিভিন্ন মহলের শোক
পৌষ-সংক্রান্তি ॥ কদমা ও তিল্লি বিক্রির ধুম ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কারিগরেরা

পৌষ-সংক্রান্তি ॥ কদমা ও তিল্লি বিক্রির ধুম ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কারিগরেরা

বরুন সিকদার ॥ পৌষ সংক্রান্তি উপলক্ষে হাট বাজারে মিষ্টির ও পসরার দোকানগুলোতে কদমা ও তিল্লি বিক্রির ধুম পড়েছে। চিনি, দুধের (ছানার পানি), ময়দার মিশ্রিত সাদা বর্নের এসব কদমা লোভনীয় ও মিষ্টি স্বাদের হয়ে থাকে। বছরে শীতের মৌসুমে কদমা তৈরীতে ব্যস্ত সময় পার করছেন হবিগঞ্জ জেলার কুড়িপট্টি এলাকার কারিগরেরা। তবে সুস্বাদু এই খাদ্য পণ্যটি তৈরী খরচ ও শ্রমের যোগান মিলিয়ে মোটেও লাভবান হচ্ছেনা বলে তারা জানায়। পার্শ¦বর্তী জেলা বিঃবাড়িয়াতে মেশিনেও তৈরী হচ্ছে এসব খাদ্য পণ্য। পাইকারী ক্ষেত্রে ব্যবসায়িরা দাম দিয়ে হাতের তৈরী এ পণ্যের চেয়ে কম মূল্যের মেশিনে তৈরী কদমা ক্রয়ে ঝুকছে বেশি করে। যার প্রভাব পড়ছে খুচরা বাজারে। এতে করে ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে পড়ছে এসব কারিগরেরা। জানা যায়, বৃটিশ আমল থেকে খোয়াই নদীর তীরে হবিগঞ্জ শহরের পুরান বাজার এলাকায় বসবাসরত প্রায় দুইশ পরিবার মুড়ি, নাড়ু ও চানাচুর তৈরী করে আসছে। আর শীতের সময়ে ব্যস্ত সময় পার করেন কদমা ও তিল্লি তৈরীতে। পণ্যটি তৈরীতে ব্যবহৃত হয়ে থাকে চিনি, ছানার জল ও ময়দা। প্রথমে উত্তপ্ত উনুনে কড়াইয়ে পর্যাপ্ত পরিমানে জলে চিনি জ্বাল দেয়া হয়। ঘন্টা দুয়েক পর চিনির সিরাতে ছানার জল মিশিয়ে তা পাকা বক্সে ঢালা হয়। বৈদ্যুতিক পাখার মাধ্যমে ঠান্ডা করে লোহার শিকে (রড) রেখে তা টানা হয়। আঠালো ও নরম পদার্থটি এক পর্যায়ে সাদা রং চকচকে ধারণ করে। সেখান থেকে  মাঝারি সাইজের (বাইন) টুকুরো করে ময়দায় যুক্ত করে সুতো দিয়ে কারিগরেরা নিপুন হাতে খন্ড খন্ড করে তৈরী করেন কদমা ও তিল্লি। পরে তা পুরোপুরি ভাবে শক্ত হয়ে পরিণত হয় খাদ্য পণ্যে। এসব মিশ্রন নরম ও আঠালো থাকা অবস্থায় কারিগরেরা শিল্পিত্বের ছোয়ায় দক্ষতার সাথে তৈরী করেন নানা ডিজাইনের হাস, পাখি, পুতুল, লাউ সহ বিভিন্ন আকৃতির। বড় আকৃতির বল কদমা নামে পরিচিত আর ছোট ছোট বল আকৃতির সাইজের তিল্লি নামের হয়। কারিগরেরা আরোও জানায়, প্রতি ১ কেজি চিনিতে ১ কেজি তিল্লি বা কদমা তৈরী করা যায়। সেক্ষেত্রে পানি, ময়দা ও দুধ-ছানার সাথে যুক্ত হচ্ছে দৈহিক শ্রম। বর্তমান মূল্য অনুযায়ি ১ কেজি চিনির দাম ৪৩ টাকা আর তৈরী করা এসব খাদ্য পণ্য পাইকারী বাজারে বিক্রি করতে হচ্ছে ৫৩ টাকা দরে। এ ক্ষেত্রে খুচরা বাজারে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০-১০০ টাকা দরে ফলে লাভবান হচ্ছে খুচরা বিক্রেতারা। শুধু তাই নয় দৈনিক ১শ থেকে ১শ ৫০ কেজি পণ্য তৈরিতে শ্রম দিতে হচ্ছে ৭-৮ জন শ্রমিককে। অনেকে মনে করছেন, লাভের মাত্রা একবারেই কম থাকায় অচিরেই সুস্বাদু খাদ্য পণ্য হারিয়েও যেতে পারে। কাড়িগর রথীন্দ্র কুড়ি জানায়, বর্তমান সময়ের শ্রমঅনুযায়ী পারিশ্রমিক পাচ্ছিনা। এ কাজটিতে পরিবারের সকল সদস্যদের সম্পৃক্ততার রক্ত জল করে কোনমতে বেচে আছি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com