শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ১১:০০ অপরাহ্ন

এই দিনে খলিফা হযরত আলী (রাঃ) বিষাক্ত ছুরির আঘাতে মারাত্মকভাবে আহত হন

এই দিনে খলিফা হযরত আলী (রাঃ) বিষাক্ত ছুরির আঘাতে মারাত্মকভাবে আহত হন

এক্সপ্রেস রিপোর্ট ॥ আজ ১৯ রমজান। ৪০ হিজরীর ১৯ রমজান ইসলামের চতুর্থ খলিফা হযরত আলী রাদি আল্লাহ তায়ালা আনহু কুফার মসজিদে খারেজি আততায়ী আব্দুর রহমান ইবনে মজলুমের বিষাক্ত ছুরির আঘাতে মারাত্মকভাবে আহত হন এবং কয়েক দিনপর শহীদ হন। সর্বপ্রথম ইসলাম গ্রহণকারীদের তালিকায় হযরত খাদিজা (রাঃ) এর পরই তার স্থান। প্রিয়নবী (সাঃ) যে ১০ জন সাহাবির জান্নাত লাভের আগাম সুসংবাদ দেন তাদের অন্যতম তিনি। মক্কার কাফির মুশরিকদের চরম বিরোধীতার সময় প্রিয়নবী (সাঃ) নিজ গোত্র হাশিমী নেতাদের সভা ডেকে সমর্থন চাইলে সর্বপ্রথম তিনিই সমর্থন দেন। প্রিয়নবী (সাঃ) মদিনায় হিজরত করবার প্রাক্কালে তাঁকেই নিজ বিছানায় শুইয়ে রেখে মক্কা ত্যাগ করেন। মক্কায় প্রিয়নবী (সাঃ) এর নিকট যে সব গচ্ছিত ধন ছিল তা মালিকদের দিয়ে তিনি হিজরত করেন। তিনি তাবুক অভিযান ছাড়া প্রায় সব যুদ্ধেই অংশগ্রহণ করেন। খায়বার যুদ্ধে কামুশ দুর্গের পতনে তিনি অসীম বীরত্বের স্বাক্ষর করেন। তাবুক অভিযানের সময় প্রিয়নবী (সাঃ) তাঁকে মদিনার শাসনভার দেন। নবম হিজরীতে হজ্বের বিধান নাজিল হলে শুরা তওবার প্রথম ১৩টি হায়াতে কারীমার ঘোষণা দেবার জন্য প্রিয়নবী (সাঃ) এর নির্দেশে তিনি মক্কার মিনা প্রান্তরে গমন করে তা সমবেত সকলের সামনে পাঠ করে শুনান। এর মাধ্যমে মুশরিকদের সঙ্গে সকল চুক্তি বাতিল ঘোষিত হয় এবং তাদের ইসলাম গ্রহণ করতে অথবা চার মাসের মধ্যে চিরতরে মক্কা ত্যাগ করতে বলা হয়। প্রিয়নবী (সাঃ) এর নির্দেশে তিনি ইয়েমেনে ইসলাম প্রচার করেন। হযরত উমর (রাঃ) ইন্তেকালের পূর্বে যে ৬জন নির্বাচক মনোনীত করেন তার অন্যতম ছিলেন হযরত আলী (রাঃ)। তাঁরই পরামর্শে হযরত উমর (রাঃ) ৬৩৯ খ্রিষ্টাব্দে হিজরতের বছর হতে গননা স্থির করে হিজরী সালের প্রবর্তন করেন। হযরত উসমান (রাঃ) এর গৃহে বিদ্রোহীরা অবরোধ করলে তিনি তাঁর দুই পুত্র হযরত হাসান (রাঃ) ও হযরত হোসাইন (রাঃ)কে বিদ্রোহীদের বাধা দেবার জন্য প্রেরণ করেন। হযরত ওসমান (রাঃ) এর শাহাদতের পর সাহাবাবে কেরামের অনুরোধে তিনি খিলাফতের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। ৩৫ জিলহয শুক্রবার মোতাবেক ৬৫৬ খ্রিষ্টাব্দের ২৪ জুন মদিনার মসজিদুন নব্বীতে সমবেত সকলের তার হাতে বায়আত করেন। তাঁর খিলাফত কালে বেশ ক’টি যুদ্ধ সংগঠিত হয়। ৬৫৭ খ্রিষ্টাব্দে তিনি মদিনা হতে রাজধানী কুফাতে স্থানান্তরিত করেন। প্রিয়নবী (সাঃ) কন্যা ফাতিমা (রাঃ)কে তার সঙ্গে শাদী দিয়েছিলেন। ইমাম হাসান (রাঃ) ও হযরত হোসাইন (রাঃ) তাদের পুত্র। একদা প্রিয়নবী (সাঃ) হযরত আলী, ফাতিমা, হাসান, হোসাইনকে নিজের চাঁদর দিয়ে আবৃত্ত করে দোয়া করেন। এজন্য তাদেরকে আহলুল কিসা অর্থাৎ চাঁদরওয়ালা বলা হয়। এর ঘটনার প্রেক্ষিতে নাজিল হয় ঃ এ আহলে বায়েত, আল্লাহ তো কেবল চান তোমাদের হতে অপবিত্রতা দূর করতে এবং তোমাদেরকে সম্পূর্ণরূপে পবিত্র করতে (সূরা আহযাব ঃ আয়াত ৩৩)। প্রিয়নবী (সাঃ) বলেছেন, আমি জ্ঞানের ঘর এবং আলী তার দরওয়াজা। আরবী ব্যাকরণ এবং কাব্যে তার প্রভূত অবদান রয়েছে। দিউয়ানে আলী তার বিখ্যাত কাব্য গ্রন্থ। তাঁর অনেক উপাদী রয়েছে। যেমন মুরতাযা, হায়দার, আসাদ উল্লাহ, আল গালিব প্রভৃতি। তাঁর বর্ণিত হাদিসের সংখ্যা ৫৮৬। তিনি বলতেন ঃ পৃথিবীটা গলিত গোশ্ত সদৃশ। ইলমে তাসাউফের বিশাল ধারা প্রিয়নবী (সাঃ) হতে তারই মাধ্যমে জারী হয়ে থাকে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com