রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৫:০৩ অপরাহ্ন

আজ মহান বিজয় দিবস \ জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ

আজ মহান বিজয় দিবস \ জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ

এম কাউছার আহেমদ \ আজ ১৬ ডিসেম্বর। মহান বিজয় দিবস। বাঙালী জাতীর বিজয় আর গৌরবের দিন। এই দিনটিতেই বাঙালী জাতির তাদের নিজস্ব সত্ত¡ার অধিকারী হয়। ব্রিটিশ আর পাকিস্তানের ২’শ বছরের শাসন শোষন আর নির্যাতনের হাত থেকে মুক্ত হতে ১৯৭১ সালে দীর্ঘ ৯টি মাস পাক হায়েনাদের সাথে যুদ্ধ করে আজকের এই দিনে ছিনিয়ে আনে লাল সূর্যে রক্তে রঞ্জিত পতাকা। বিশ্ব দরবারে প্রমাণিত হয়েছে আমরা দারিদ্র হতে পারি, আয়তনে ছোট হতে পারি, কিন্তু জাতি হিসেবে ছোট নই, অবহেলার নই। বিজয় দিবস বাঙালিদের দিয়েছে এক নতুন জীবন, নতুন চেতনা, রচনা করেছে বাঙালীর নতুন ইতিহাস। হাজারো বছরের শ্রেষ্ট বাঙালী স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণে নিরস্ত্র বাঙালী দেশ শত্র“মুক্ত করতে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে। দীর্ঘ নয় মাস পাকহানাদার বাহিনীর সাথে যুদ্ধ করে বাংলার দামাল ছেলেরা ছিনিয়ে আনে স্বাধীনতা। পরাধিনতার শৃংঙ্খল ভেঙ্গে নয় মাস রক্তক্ষয়ী শসস্ত্র যুদ্ধের মধ্য দিয়ে ৩০ লাখ শহীদের আত্মত্যাগ ও অসংখ্য মা-বোনের ইজ্জতহানির মধ্য দিয়ে অর্জিত হয় বাংলার স্বাধীনতা। বাংলা পায় তার নিজস্ব ভূখন্ড, স্বার্বভৌমত্বের স্বাধীনতা। জনতার পায় তাদের নিজস্ব অন্ন, বস্ত্র, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও বাসস্থানের নিশ্চয়তা।
কিন্তু স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৪ বছর পেরিয়ে গেলেও আমরা কি পৌছুতে পেরেছি আমাদের কাঙ্খিত লক্ষে? যে আশায় বুক বেধে বাংলার কামার, কুমার তাতী, জেলা বৃদ্ধ, বণিতা, শিল্পী কবি সাহিত্যিক স্বাধীনতায় পথ চলতে প্রান বির্সজন দিয়েছেন, পঙ্গুত্ববরণ করছেন অথবা বেঁচে আছেন অন্যের দয়ায়। তারা কি পেয়েছেন আশানুরূপ ফল? কি ছিল তাদের আশা-প্রত্যাশা আকাংখা আমরা কি দেখেছি ভেবে?
“যে মাটির বুকে গুমিয়ে আছে লক্ষ মুক্তি সেনা’, “তরা দেনা সেই মাটিতে আমার অঙ্গ মাখিয়ে দেনা”। এটা নিচক কোন গান নয়, স্বাধীনতার প্রেরণা, হৃদয় স্পর্শী এ গান থেকে জেগে উঠে স্বদেশ প্রেম।
সালাম জানাই, নমশকার জানাই, অভিনন্দন জানাই কৃতজ্ঞতা জানাই, তাদের যাদের প্রানের বিনিময়ে আমরা স্বাধীন দেশের নাগরিক তাদের। নতচিত্তে স্মরন করি তাদের যে সব মা-বোন তাদের ইজ্জত বিক্রি করে আমাদের করেছে মুক্ত। ভালবাসা জানাই তাদের যারা পঙ্গুত্ববরণ করে আমাদের করেছেন স্বাধীন। অগনিত ধন্যবাদ জানাই তাদের যারা শসস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন আমাদের করেছেন গৌরবান্তি।
কিন্তু দুঃখের বিষয়ক এই যে, এখনও দেখেছি অনেক যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাকে জীবনের ক্লাান্তি লগ্নে জীবন জীবিকা সংগ্রহের যুদ্ধ করছেন আর হারিয়ে যাচ্ছে। অনেককে দেখেছি পঙ্গুত্ব বরণ করে অসহায় প্রানীর মত বেছে আছেন। এমনটাই কি ছিল স্বাধীনতার কাম্য?
বাঙালী বীরে জাতির বীর দর্পে বেঁচে তাকা তাই তাদের কাম্য তাইতো দেশকে শত্র“ মুক্ত করতে ৭ কোটি বাঙালী ঐক্যবদ্ধ হয়ে স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়ে বাংলার মুক্তিকামি জনতা। আজ কি আমদের সেই ঐক্য আছে?
কিন্তু স্বাধীনতার আর বিজয়ের বহুবর পর আজ বার পর মনে পরছে পেছনের কথা। যে প্রত্যয় নিয়ে নিরস্ত্র বাঙ্গালী শস্ত্র মুক্তি সংগ্রামে গিয়েছিল, যে স্বপ্নে বুক বেঁধেছিল তার যৎসামন্যই আমরা কি পেয়েছি?। এমন বাংলাদেশের জন্যই কি ৩০ লক্ষ শহীদ আত্মত্যাগ করেছিল?।
আমাদের জীবনে জাল পেতে আছে রাজনৈতিক অস্থিরতা, সন্ত্র¿াস, দুর্নীতি আর কালো টাকার দৌরাত্ম্য। শিক্ষাঙ্গনও আজ রাজনীতির ময়দান। সর্বত্রই এক অস্থিরতা। দারিদ্রতার কড়াল গ্রাসে এখনো বহু মানুষ যুদ্ধ করছে পরাজয় মানছে, আর হারিয়ে যাচ্ছে। মানুষ হয়ে মানুষকে পশুর মতো খুন হচ্ছে। এমনটাই কি ছিল স্বাধীনতা কাম্য বীর বাঙ্গালীদের।
১৯৪৭ সালের আগস্ট মাসে অবিভক্ত ভারতবর্ষ ভেঙ্গে পাকিস্তান ও ভারত নামে দুটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়। পাকিস্তানের জাতির পিতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর দেয়া দ্বি-জাতি তত্তে¡র উপর ভিত্তি করে আমাদের পূর্ব বাংলা পাকিস্তানে অন্তর্ভূক্ত হয়। কারণ পূর্ব বাংলার অধিকাংশ লোক ছিল মুসলমান। সুদীর্ঘ দু’শ বছর ব্রিটিশ সম্রাজ্যের শৃঙ্খলে আবদ্ধ থাকার পর বাঙালী জাতি মুক্তির স্বপ্ন দেখে। বাঙ্গালী মুসলমানদের কাছে একটি সুবর্ণ সুযোগ আসে দীর্ঘদিনের প্রতারণা ও বঞ্চনা থেকে উদ্ধার লাভের। কিন্তু সংখ্যাগরিষ্ঠতার কারণে পূর্ব বাংলার মুসলমান স্বাধীন দেশ পাকিস্তান লাভ করলেও প্রকৃতপক্ষে স্বাধীনতার স্বাদ থেকে বঞ্চিত হয়। বাংলার অখন্ডতাকে পরিত্যাগ করে ধর্মভিত্তিক পাকিস্তানি রাষ্ট্রের অংশীদারই হয়ে যেন বাঙালীরা মস্তবড় ভূল করে। বাঙালীরা তা শীঘ্রই উপলব্দি করে। পশ্চিম পাকিস্তানিরা বাংলাভাষী পূর্ব বাংলার অধিবাসীদের উপর চালায় অত্যাচারের স্টিম রোলার। তারা উর্দুকে পাকিস্ত—ানের রাষ্ট্রভাষা করে এবং এদেশের মানুষ তা মেনে নিতে বাধ্য করে। এ থেকে দেশের মানুষ মনে জাগে ঘৃণা, জাগে প্রতিবাদ। প্রতিবাদে মুখরিত হয় ছাত্র-জনতা। দাবী বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা দিতে হবে। এ দাবীতে শুরু হয় আন্দোলন। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্র“য়ারী ভাষা আন্দোলন করতে  গিয়ে পুলিশের গুলিতে নিহত হন-সালাম, রফিক, রবকত, জব্বার প্রমূখ সূর্য সন্তানরা। এ থেকে আন্দোলন আরো বেগবান হয়। স্বাধীকারের সংগ্রামের বাঙালি পরিপক্বতা লাভ করে। ঐতিহাসিক ৬ দফা এবং ১১ দফার আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে সংঘঠিত হয় ব্যাপক গণজাগরণ। এই ফলশ্র“তিতে ১৯৬৯ সালে সফল গণঅভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে স্বৈরাচার আইয়ূব খানের পতন ঘটে। এর পর মার্শাল’ল হাতে ক্ষমতায় আসে ইয়াহিয়া খান। গণ-আন্দোলনের চাপে ১৯৭০ সালে সাধারণ নির্বাচন ঘোষণা করা হয়। এ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে বাঙ্গালির প্রিয়দল আওয়ামীলীগ। বাঙালির প্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হবে-এটি প্রায় নিশ্চিত হয়ে যায়। কিন্তু বাধ সাথে পশ্চিম পাকিস্তানের পিপল পার্টির প্রধান জুলফিকার আলী ভূট্টোর। শুরু হয় ষড়যন্ত্রের নীল নকশা। ক্রমশ এ ষড়যন্ত্র তীব্র থেকে তীব্রতর হয়। ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ইয়াহিয়া খান ও জুলফিকার আলী ভূট্টোর মাঝে বৈঠক হয়। কিন্তু এ বৈঠকের সিদ্ধান্ত অমীমাংসিত রেখে ইয়াহিয়া খান ও জুলফিকার আলী ভূ্্ট্েটা চলে যান। ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ ভয়াল রাতে পাকিস্তানি জেনারেল টিক্কা খান ঢাকা শহরের নিরীহ মানুষের উপর চালায় আক্রমন। বর্বর পাকিস্তানি সৈন্যরা ট্যাংক হামলায় বিধস্ত হয় সমন্ত নগরী। দেশকে শত্র“ মুক্ত চলে ঝাপিয়ে পড়ে বাংলার দামাল ছেলেরা। চলে ৯ মাস রক্তক্ষয়ী সস্ত্র সংগ্রাম। তিরিশ লক্ষ শহীদের রক্ত এবং অসংখ্যা মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা পাই আমাদের প্রাণপ্রিয় স্বাধীনতা। আজ সেই বিজয়ের দিন ১৬ ডিসেম্বর এই দিনই আমরা প্রথম আমাদের আপন স্বদেশে উড়াই আমাদের লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে চিনিয়ে আনা লাখ সবুজের পতাকা।
এদিকে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনীর মাধ্যমে দিবসের শুভ সুচনা, পতাকা উত্তোলন ও সরকারী, আধা-সরকারী, স্বায়ত্বশাসিত, বেসরকারী ভবনে আলোকসজ্জা, দূর্জয় স্মৃতি সৌধ শহীদ মুক্তিযোদ্ধা মহফিল হোসেন ও হাফিজ উদ্দিন এবং মুক্তিযুদ্ধের সেকেন্ড ইন কমান্ড মরহুম মেজর জেনারেল আব্দুর রব বীরউত্তম, মুক্তিযুদ্ধকালীন হবিগঞ্জ জেলার সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদের আহŸায়ক মরহুম মোস্তফা আলী, মরহুম কমান্ডেন্ট মানিক চৌধুরী, শহীদ মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম ও মরহুম ডাঃ শামসুল হোসেন উমদা মিয়ার কবরে পুষ্পস্তবক অর্পন ও ফাতেহা পাঠ, সকাল ৮ টায় স্থানীয় জালাল স্টেডিয়ামে কুচকাওয়াজ, সকাল ১০ টায় নিমতলায় মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সংবর্ধনা, বালকদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, ১০ টায় বিকেজিসি স্কুল মাঠে মহিলাদের অংশগ্রহণে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক আলোচনা সভা, মহিলা ও বালিকাদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, শিশু একাডেমী প্রাঙ্গণে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, দুপুরে হাসপাতাল, জেলখানা, এতিমখানা, ভবঘুরে প্রতিষ্ঠান ও শিশু পরিবার সমুহে উন্নতমানের খাদ্য পরিবেশন, ৪ টায় প্রীতি ফুটবল প্রতিযোগিতা, ৬টায় নিমতলায় আলোচনা সভা ও রাত ৮ টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্টান।
এদিকে আওয়ামীলীগ, বিএপিসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনও যথাযথ মর্যাদায় দিবস পালনের উদ্যোগ নিয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com