রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৫:২৯ অপরাহ্ন

নবীগঞ্জের সাহিদ মিয়ার বাসায় হামলা ॥ লুটপাট ॥ থানায় ১৮ জনকে আসামী করে মামলা

নবীগঞ্জের সাহিদ মিয়ার বাসায় হামলা ॥ লুটপাট ॥ থানায় ১৮ জনকে আসামী করে মামলা

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ পৌর এলাকার আনমুনু গ্রামের বিশিষ্ট সমাজ সেবক, শিক্ষানুরাগী মোঃ আব্দুস সহিদ ওরপে সাহিদ মিয়ার বাসভবনে হামলা করে বাসার লোকজনকে মারপিট ও অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে নগদ অর্থসহ প্রায় সাড়ে ৫ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সাহিদ মিয়া বাদি হয়ে ২০ জনের নাম উল্লেখ করে নবীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। উক্ত ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ গভীর রাতে তাকে উদ্ধার করে শ্বশুর বাড়ি রাজাবাদ গ্রামে দিয়ে আসেন। এর পরই এ ঘটনার আতংকে তার বুকে ব্যথা অনুভব করলে তাকে নবীগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। রাতেই কর্তব্যরত চিকিৎসক তার হার্ট এ্যাটাক হয়েছে জানিয়ে দ্রুত তাকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে প্রেরন করেন। সেখানে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে নর্থ ইষ্ট মেডিকেল কলেজে স্থানান্তর করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার উন্নত চিকিৎসার জন্য তার ঢাকা যাওয়ার কথা রয়েছে। তার এই অসুস্থতার জন্য হামলাকারীদের দায়ী করেছেন আব্দুস সহিদ সাহিদ মিয়া।
অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, পৌর এলাকার আনমুনু গ্রামের আরমান উল্লার ছেলে আঃ সহিদ মিয়ার বাসার সামনে আঃ সহিদ শপিং সেন্টারের পাশে তারই সহোদর আঃ কাদির একটি মদের পাট্টা খুলে দীর্ঘ দিন ধরে অসামাজিক, বেআইনী ব্যবসা চালিয়ে আসছেন। সহিদ মিয়াসহ নবীগঞ্জের সুশীল সমাজ উক্ত স্থান থেকে মদের পাট্টা সরিয়ে নেয়ার জন্য কাদির মিয়াকে চাপ প্রয়োগ করেন। এতে কাদির মিয়াসহ তার দলবল সাহিদ মিয়ার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এনিয়ে দীর্ঘদিন ধরে তাদের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। কাদির মিয়া ও তার লোকজন সাহিদ মিয়ার স্বত্ত্বাধিকারী শপিং সেন্টারটি বন্ধ করার পায়তারায় লিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে গত ৮ আগস্ট শনিবার বিকালে কাদির মিয়ার নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত সাহিদ মিয়ার শপিং সেন্টারের সামনের রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে সেখানে দোকান বসিয়ে ময়লা আবর্জনা ফেলে স্তুপ করে রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়। এতে সাহিদ মিয়া প্রতিবাদ করেন এবং ভাতিজা চয়ন মিয়াকে রাস্তাটি খুলে দেওয়ার জন্য বলেন। কিন্তু চয়ন উত্তেজিত হয়ে সহিদ মিয়াকে গালিগালাজ করে ও প্রাণে হত্যার হুমকি প্রদর্শন করে এবং মজা দেখাবে বলেও শাসাইয়া যায়।
পরের দিন ৯ই আগস্ট আব্দুল কাদির ২০/২৫ জনের একদল লোক নিয়ে দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সহিদ মিয়ার বাসার সামনে এসে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ও ডাকাডাকি করে। সহিদ মিয়া সাথে সাথে থানার অফিসার ইনচার্জকে ফোন করে জানালে তাৎক্ষনিকভাবে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে আসামীরা পালিয়ে যায়। এবং আত্মগোপন করে। পুলিশ সহিদ মিয়াকে শান্তনা দিয়ে চলে যায়। পরে রাত প্রায় দেড়টার দিকে আসামীরা গেইটের তালা ভেঙ্গে বাসায় ঢুকে গ্রীলের দরজার গেইট খুলে বাসার বারান্দায় অনুপ্রবেশ করে। এ সময় সহিদ মিয়া ড্রয়িং রুমের দরজা খোলামাত্রই আসামীরা ধর, ধর বলে সহিদ মিয়াকে প্রাণেহত্যার চেষ্টা করেন। এক পর্যায়ে দৌড়ে অপর একটি রুমে ঢুকে দরজা বন্ধ করে আত্মরক্ষা করেন সাহিদ মিয়া। পরে লোকজন তার ছেলে কামরানকে হাতুয়া মারপিট করে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে ঘরের মুল্যমান আসবাবপত্র লুটপাট করে নিয়ে যায়। তাদের অত্যাচারের হাত থেকে রক্ষা পায়নি তার স্ত্রীও। দুর্বৃত্তরা নগদ টাকা ও তার স্ত্রীর স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয়। নগদ টাকাসহ লুটপাটকৃত মালামালের পরিমান হবে প্রায় ৪ লাখ ৪৪ হাজার টাকা বলে জানান সাহিদ মিয়া। আব্দুল কাদির ও তার লোকজনের তান্ডবে সহিদ মিয়া ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পড়েন এবং বুকে প্রচন্ড ব্যথা অনুভব করেন। এক পর্যায়ে তিনি অজ্ঞান হয়ে পরলে স্থানীয়রা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে হার্ট এ্যাটাক হয়েছে বলে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন। বর্তমানে সহিদ মিয়া সিলেটস্থ নর্থ ইষ্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এদিকে আব্দুস সহিদ ওরপে সাহিদ মিয়া এ প্রতিনিধিকে জানান, প্রতিপক্ষের লোকজন তার আত্মীয় হলে তাদের কু’কাজে আশ্রয় না দিয়ে প্রতিবাদ করাটাই তার জীবনের কাল হয়ে দাড়িয়েছে। কাদির ও তার লোকদের অথ্যাচার নির্যাতনে পরিবার পরিজন নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতা ভোগ করছেন। তিনি বলেন, সমাজে তার যে গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে মদখুরদের কারনে তা বিনষ্ট হতে পারে না। এক পর্যায়ে তিনি বলেন এ অবস্থায় তার মৃত্যু হলে হামলাকারীরাই দায়ী থাকবেন। তিনি এ ব্যাপারে প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com