মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ১১:২১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ভিজিএফ’র ২ লাখ টাকা ছিনতাইকারী মনির পুলিশের খাচাঁয় শহরতলীর কাকিয়ারআব্দায় গাইড ওয়াল নির্মাণ ॥ ফুসে উঠেছে এলাকাবাসী মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে যাচ্ছে দেশ-এমপি আবু জাহির নিউইয়র্কে নবীগঞ্জের সন্তান পুলিশ সুপার আব্দুল ওয়াহাবকে সংবর্ধনা নবীগঞ্জের জহুরপুরে সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা ॥ অভিযুক্ত আবু সামা গ্রেপ্তার মাধবপুরে পুলিশের পৃথক অভিযানে গাঁজা ও বিয়ার সহ ৪ জন আটক নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের কার্য নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলার আসামী আসিফ ৪ মাস পর গ্রেফতার নবীগঞ্জে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধু’র মৃত্যুর ঘটনায় মামলা ॥ স্বামী গ্রেফতার নবীগঞ্জের করাগাও গ্রামের যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সমাজসেবক আব্দুল হাকিমের ইন্তেকাল ॥ বিভিন্ন মহলের শোক
বিশাল শো-ডাউন করে হবিগঞ্জ-২ আসনে ত্যাগী নেতা আমীর হুসেন মাষ্টারের মনোনয়নপত্র জমা

বিশাল শো-ডাউন করে হবিগঞ্জ-২ আসনে ত্যাগী নেতা আমীর হুসেন মাষ্টারের মনোনয়নপত্র জমা

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ বিশাল মিছিল ও শোভাযাত্রা নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন ত্যাগী নেতা বানিয়াচং আওয়ামীলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আমীর হুসেন মাস্টার। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে হবিগঞ্জ-২ (বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য বিশাল এই শো-ডাউন করে তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেন। গত শনিবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউয়ের দলীয় কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় ঢাকায় বসবাসকারী বানিয়াচং ও আজমিরীগঞ্জ উপজেলার প্রায় ৫শতাধিক ভক্ত, কর্মী-সমর্থক উপস্থিত ছিলেন। এসময় আমির হুসেন মাস্টারের পক্ষে নৌকা মার্কায় ভোট চেয়ে শ্লোগান দেন ভক্ত ও কর্মীবাহিনী। নৌকা মার্কার শ্লোগানে উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পরই ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অপর্নের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আমীর হুসেন মাস্টার।
এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামীলীগ সমর্থিত ১নং বানিয়াচং উত্তর-পূর্ব ইউপি’র বার বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান খান, ইংল্যান্ড প্রবাসী আওয়ামীলীগ সমর্থক ড. মোহাম্মদ শাহ্ নেওয়াজ, বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহজাহান মিয়া, এডভোকেট আরিফ হোসেন, বানিয়াচং উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন খানের শ্যালক ব্যবসায়ী নুরুল ইসলাম খান, সাবেক ছাত্রনেতা দেওয়ান ইমরান রাজা, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা আক্তার হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা আশরাফ হোসেন তিতাস, সারোয়ার, রাজিব, ফরহাদ, সানি, সোহেল, মুন্না, সাহাদত, কমল প্রমূখ।
হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব, বীর মুক্তিযোদ্ধা, প্রবীণ শিক্ষক ও রাজনৈতিক নেতা আমীর হুসেন ১৯৫৩ ইং সনের ৩০ সেপ্টেম্বর সাউদপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মোহাম্মদ আজিদ উল্লাহ। মুক্তিযোদ্ধা আমীর হুসেন মাষ্টার ছোটবেলা থেকেই সৎ জীবনযাপন করায় এলাকার সর্বস্তরের মানুষের কাছে অত্যন্ত সুপ্রিয়। তিনি আওয়ামীলীগের রাজনীতির পাশাপাশি দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষকতা করে আসছেন। দীর্ঘদিনের শিক্ষকতায় তাঁর হাতে অসংখ্য সুনাগরিক তৈরী হয়েছে। তারা বানিয়াচং উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলাগুলোর গ্রামে গ্রামে এবং দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে রয়েছেন। একারণে প্রবীণ শিক্ষক আমীর হুসেন বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ উপজেলার ছোট-বড় সব শ্রেণীর মানুষের কাছে ‘স্যার’ হিসাবে ব্যাপকভাবে সমাদৃত। বানিয়াচং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমীর হুসেন মাষ্টার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি  ও জেলা শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি হিসাবেও এলাকার শিক্ষকসমাজের কাছে অত্যন্ত প্রিয়ভাজন। সর্বজন শ্রদ্ধেয় এই শিক্ষক ছোটবেলা থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের রাজনীতি করে চলেছেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর প্রতি এতটাই অনুরক্ত যে, ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট কালো রাতে সপরিবারে বঙ্গবন্ধু শাহাদাত হওয়ার খবর পেয়ে এই নির্মম হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে তাৎক্ষণিক বানিয়াচংয়ে সর্বস্তরের জনতাকে নিয়ে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিবাদে দেশের অন্য কোন এলাকায় এত তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলা কোন নেতার পক্ষে সম্ভব হয়নি বলে জনশ্র“তি রয়েছে। বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে আন্দোলন তীব্র থেকে তীব্রতর করতে তিনি ১৯৭৬ সালের ১৭ই মার্চ বানিয়াচংয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী পালন করেন। একারণে তৎকালীন সরকার তাঁকে ’৭৬ সনের ২২ মার্চ গ্রেফতার করে দীর্ঘ ১৮ মাস কারা নির্যাতন করে। তবুও তাঁকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে বিচ্যুত করতে পারেনি। আমীর হুসেন মাষ্টার ১৯৬৯ সনে বানিয়াচংয়ে ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে এতদঞ্চলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতির শুভ সূচনা করেন। তিনি বানিয়াচং থানা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসাবে বানিয়াচং, আজমিরীগঞ্জসহ হাওরাঞ্চলের প্রত্যন্ত গ্রামগঞ্জে দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে ৬৯-এর গণআন্দোলন সংগঠিত করেন এবং এতদঞ্চলকে আওয়ামীলীগের শক্তিশালী ঘাঁটিতে পরিণত করেন। বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে তিনি ’৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন এবং যুদ্ধ শেষে বিজয়ীর বেশে এলাকায় ফিরে এসে ১৯৭২ সালে বানিয়াচং থানা যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেন এবং থানা যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হন। পরবর্তীতে ’৭৪ সালে তিনি থানা যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৮১ সালে তিনি বানিয়াচং থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। আমীর হুসেন মাষ্টার স্বৈরাচার এরশাদের সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে এলাকায় তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলেন। একজন ক্যারিসমেটিক নেতার গুণাবলির কারণে তাঁর আহবানে সাড়া দিয়ে ১৯৮৪ সালে স্বৈরশাসকের অধীনে উপজেলা নির্বাচনে বানিয়াচং উপজেলায় কেউ মনোনয়নপত্র দাখিল করেনি। স্বৈরাচার বিরোধী এ ধরনের তীব্র গণআন্দোলনের নেতৃত্বদান ও ’৮৬ সালের জাতীয় নির্বাচনে স্বৈরশাসকের নির্দেশে প্রশাসনের ভোট ডাকাতি প্রতিহত করার কারণে স্বৈরাচারী এরশাদ সরকার ওই সময় আমীর হুসেন মাষ্টারকে গ্রেফতার করে। দীর্ঘ কারা নির্যাতন করেও তাঁকে আদর্শ থেকে বিচ্যুত করতে না পেরে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। ১৯৯১ সালে তিনি বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে কাউন্সিলের মাধ্যমে তিনি বার বার সভাপতি নির্বাচিত হয়ে দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে সভাপতির দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। দীর্ঘদিন দল চালিয়ে প্রতিটি গ্রামে দলের মজবুত ভিত্তি গড়তে এবং নিরীহ নেতা-কর্মীদের মামলা-মোকদ্দমাসহ জাতীয় নির্বাচন এবং ছাত্রসংসদ নির্বাচনের খরচের যোগান দিতে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধা আমীর হোসেন মাষ্টার নিজের অনেক পৈত্রিক জমিজমা বিক্রি করতে পর্যন্ত দ্বিধাবোধ করেননি। এ ধরনের ত্যাগ-তিতিক্ষা এবং দলমত নির্বিশেষে সর্বস্তরের জনগণের মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা থাকা সত্ত্বেও তিনি ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ আসনে দলীয় মনোনয়ন চাননি। কারণ ’৯৬ সাল পর্যন্ত এ আসনে মনোনয়ন চেয়েছেন আমীর হুসেন মাষ্টারের শিক্ষক ও জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি মরহুম এডভোকেট শরীফ উদ্দিন আহমেদ। তাই ওই সময় পর্যন্ত নিজে মনোনয়ন চাওয়াকে শিক্ষকের সাথে বেয়াদবি তুল্য মনে করে আমীর হুসেন মাষ্টার মনোনয়ন চাননি। ’৯৬ এর জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন চলাকালে শরীফ উদ্দিন আহমেদ এমপি’র মৃত্যু হলে শূন্য আসনের উপ-নির্বাচনে প্রথম মনোনয়ন চান আমীর হুসেন মাষ্টার। কিন্তু ওই সময় সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী, বদরুদ্দোজা চৌধুরী, ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদ সাহেবদের মত বিরোধী দলের অনেক অভিজ্ঞ এমপিদের সাথে সংসদে সরকারি দলের তোফায়েল আহমেদ সাহেবদের মত গুটি কয়েক অভিজ্ঞ এমপিকে বিতর্কে বেগ পেতে হত বিধায় বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ আসনের উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগ সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে মনোনয়ন দেয়। এসময় এই দুই উপজেলার আওয়ামীলীগসহ সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মী এবং সচেতন ভোটাররা বাগেরহাটের পঞ্চানন বিশ্বাসের মত আমীর হুসেন স্যারকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেও আমীর হুসেন মাষ্টার দলীয় প্রার্থী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে পরাজিত করে নিজে এমপি হতে পারবেন এটা বুঝতে পেরেও দলের বৃহত্তর স্বার্থের কথা চিন্তা করে বিদ্রোহী প্রার্থী হননি। পরবর্তীতে ২০০১ সালের নির্বাচনে আমীর হুসেন মাষ্টার মনোনয়ন চান। ওই নির্বাচনে সারাদেশে এনজিও ব্যুরোর সমর্থন পাওয়ার জন্য দলীয় মনোনয়ন বোর্ড ত্যাগী নেতা আমীর হুসেন মাষ্টারকে মনোনয়ন না দিয়ে ব্র্যাক প্রতিষ্ঠাতা ফজলে হাসান আবেদ’র বড় ভাই এনএইচ জাহেদকে মনোনয়ন দেয়। তাকে মনোনয়ন দেয়ায় বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ উপজেলার তৃণমূল নেতা-কর্মীসহ নৌকা সমর্থক সাধারণ জনগণ বিদ্রোহী হয়ে উঠেন। এমনকি জাহেদ সাহেবের মনোনয়ন বাতিল করে আমীর হুসেন মাষ্টারকে মনোনয়ন দেয়ার দাবিতে আজমিরীগঞ্জে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অর্ধদিবস হরতাল পর্যন্ত পালিত হয়। দলীয় প্রার্থী এনএইচ জাহেদকে মনোনয়নপত্র জমা দিতে বাধা দেয়ার জন্য দুই উপজেলার ইউএনও অফিসের রাস্তা অবরোধ করা হয়। এসময় সারাদেশে দলীয় স্বার্থের কথা চিন্তা করে বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জের দলীয় নেতা-কর্মীসহ নৌকা সমর্থক বিদ্রোহী জনসাধারণকে বুঝিয়ে শান্ত করেন আমীর হুসেন মাষ্টার। জননেত্রী শেখ হাসিনা পরবর্তী নির্বাচনে আমীর হুসেন মাষ্টারকে মনোনয়ন দেয়ার আশ্বাস দেন। ২০০৮ সালে আমীর হুসেন মাষ্টারকে মনোনয়ন দিয়ে কথাও রাখেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু জঙ্গী মৌলবাদী গোষ্ঠীর গ্রেনেড হামলায় নিহত সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলার বাদী তৎকালীন জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক (বর্তমান এমপি ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক) এডভোকেট আব্দুল মজিদ খানকে মনোনয়ন দেয়ার জন্য কিবরিয়া পতœী আসমা কিবরিয়া জননেত্রী শেখ হাসিনাকে অনুরোধ জানান। অন্যথায় মামলার অগ্রগতি হবে না বলে আশংকা প্রকাশ করেন। এছাড়া নবীগঞ্জ-বাহুবল আসনে তার পুত্র ড. রেজা কিবরিয়াকে মনোনয়ন না দেয়ার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে তিনি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে বলেন, ‘আমার পুত্রকে মনোনয়ন দেননি তাতে দুঃখ নেই। কিন্তু মজিদ খানকে আমার আরেক পুত্র মনে করে স্বামীর মামলার স্বার্থে মনোনয়ন দেন। নাহলে দুঃখ পাব।’ আসমা কিবরিয়ার এসব কথাবার্তায় জননেত্রী শেখ হাসিনা ঠিক থাকতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত আমীর হোসেন মাষ্টারের মনোনয়ন বাতিল করে এডভোকেট আব্দুল মজিদ খানকে মনোনয়ন দেন। পরে আবুল মাল আব্দুল মুহিত (অর্থমন্ত্রী)কে নিয়ে আমীর হোসেন মাষ্টার নেত্রীর সাথে দেখা করলে এসব কথা জানিয়ে সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের বিষয় অবগত করেন এবং আগামী নির্বাচনে (দশম) মনোনয়ন দেয়ার আশ্বাস দেন। পরবর্তীতে এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান এমপি নির্বাচিত হলে তাঁর সাথে বিরোধে না জড়িয়ে আমীর হুসেন মাষ্টার দল ও এলাকার বৃহত্তর স্বার্থে সরকারি দলের একজন ত্যাগী নেতা হিসাবে এলাকার উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। মনোনয়পত্র জমা দিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের কাছে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে ত্যাগী নেতা মুক্তিযোদ্ধা আমীর হুসেন মাষ্টার আগামী নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com