বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
সিগন্যাল অমান্য করে ক্রসিংয়ে প্রবেশ ॥ লস্করপুরে ট্রেনের ধাক্কায় সিএনজি যাত্রী নিহত বানিয়াচং হাসপাতালে সরকারি নিয়ম ভঙ্গ করে রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায় বাজেট অধিবেশনের বক্তব্যে এমপি আবু জাহির ॥ দেশের মানুষ এখন ‘গরীব বাঁচানোর বাজেট’ শ্লোগানে আনন্দ-উল্লাস করে শায়েস্তাগঞ্জে ৪ কেজি গাঁজাসহ যুবক গ্রেপ্তার জেলা ছাত্রদল সভাপতি রিংগনের মুক্তির দাবিতে নবীগঞ্জে তৌহিদ চৌধুরীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল চুনারুঘাটে ৬ বছরের ব্যবধানে দুই ভাইকে হত্যা ॥ গ্রেপ্তার ৩ বানিয়াচংয়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন বাস্তবায়নে সেমিনার অনুষ্টিত এমপি আবু জাহির সিঙ্গাপুরে গেছেন নবীগঞ্জে হাওরে অভিযান চেক ডিজঅনার মামলায় কাউন্সিলর পান্না গ্রেপ্তার

বানিয়াচং হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির দুইজন সদস্যের চোখে চিকিৎসায় ব্যাপক অনিয়মের চিত্র

  • আপডেট টাইম রবিবার, ২ জুন, ২০২৪
  • ১৬ বা পড়া হয়েছে

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ বানিয়াচং হাসপাতালের চিকিৎসা ব্যবস্থায় চরম হযবরল অবস্থা তৈরী হয়েছে। জরুরী বিভাগের সরকারী চেয়ারে বসে রোগীদের চিকিৎসা এবং ব্যবস্থাপনাপত্র দিচ্ছেন এক ঔষধ কোম্পানীর রিপ্রেজেনটেটিভের শ্যালক। গতকাল রাতে হাসপাতাল পরিদর্শন করে এমন চিত্র পেয়েছেন হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির দুইজন সদস্য বানিয়াচং প্রেসক্লাবের সভাপতি ইমদাদুল হোসেন খান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আঙ্গুর মিয়া। শ্বাসকষ্ট, পেটের ব্যাথা, জ্বর, ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগাক্রান্ত মানুষ ভর্তি রয়েছেন। কিন্তু তারা সঠিকভাবে সেবা পাচ্ছেন না। এনিয়ে রোগীদের স্বজনরা তাদের কাছে অভিযোগ করেন। ইর্মাজেন্সি বিভাগে একজন ঔষধ কোম্পানির রিপ্রেজেনটেটিভের শ্যালক রোগী দেখছেন এবং প্রেসক্রিপশন করছেন। তার কথামতো রোগী ভর্তি করা হচ্ছে। লোকটির নাম জহিরুল। তিনি হাসপাতালের ডাক্তার না হয়েও সরকারি চেয়ারে বসে রোগী দেখেন। নিম্নমানের ঔষধ লিখে দেন বলে লোকজন অভিযোগ করেন। পরিদর্শনকালে উপর তলায় গিয়ে দেখা যায় ডাক্তার সুস্মিতা রাউন্ড দিচ্ছেন, তাঁর সামনেই রোগীদের অনেক অভিযোগ। সব ইনজেকশন নাকি বাহির থেকে কিনে আনতে হয়, নার্সদের সাথে নাকি একবারের বেশি দুইবার কথাই বলা যায় না, বললেই দুর্ব্যবহার করা হয়। বিদ্যুৎ চলে গেলে ডিউটি ডাক্তার ও নার্সস্টেশন রুমে আইপিএস দ্বারা বৈদ্যুতিক পাখা ও লাইট সচল রাখা হয়, কিন্তু ওয়ার্ডগুলোতে আইপিএস কিংবা জেনারেটর দ্বারা বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয় না। খাবার নিয়েও রোগী এবং তাদের সাথে থাকা স্বজনরা অভিযোগ করেন। ১ জুন সকালে যেসব রোগী ভর্তি হয়েছেন তাদেরকে সকাল, দুপুর এবং রাতের বেলা খাবার দেয়া হয়নি। ৫/৬ দিন ধরে যেসব রোগী ভর্তি রয়েছেন তারা জানালেন সবাইকে নাকি ভর্তি হওয়ার একদিন পর খাবার দেয়া হয়। ভর্তি রেজিস্টার অনুযায়ী ৪৬ জন রোগী ভর্তি থাকলেও ডাইনিংয়ে গিয়ে বাবুর্চিকে জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান রাতে ২২ জনের খাবার রান্না করা হয়েছে এবং ২২ জনকেই খাবার দেয়া হয়েছে। অথচ তার কাছে থাকা লিস্ট অনুযায়ীই রাতে ৩৫ জনকে খাবার দেওয়ার কথা ছিল। খাবারের মান নিয়েও রোগীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। একজন রোগীর স্বজন দুপুরে দেয়া খাবার বের করে দেখিয়ে বললেন, হাসপাতালের খাবার এত খারাপ খেলে বমি চলে আসার মতো অবস্থা হয়, তাই না খেয়ে রেখে দিয়েছেন। মানসম্মত খাবার না হওয়ায় রাতের খাবার গ্রহনই করেননি তিনি। ডিউটিরত ডাক্তার সুস্মিতার সামনে যখন রোগী এবং তাদের স্বজনরা এসব অভিযোগ করছিলেন তখন তিনি এসব নিয়ে ইউএইচ এন্ড এফপিও ডাক্তার শামীমা আক্তার এবং আরএমও ডাক্তার শাহনেওয়াজ এর সাথে কথা বলে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করার আশ্বাস দেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com