সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১১:২৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
লাখাই উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী আজাদ ও মাহফুজের সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ২০ উচ্চ আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে চুনারুঘাটে পণ্য উঠানামা ও টোল আদায় করছে ইজারাদার শহরে আধঘন্টা বৃষ্টিতে বিদ্যুৎ থাকে না ১০ ঘন্টা ॥ ত্রুটিপূর্ণ লাইন নিয়ে কর্মচারিদের গাফিলতি নবীগঞ্জে অর্ধলক্ষাধিক শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন এ প্লাস পবিত্র ঈদুল আজহার সম্ভাব্য তারিখ জানাল মিসর সৈয়দ মোঃ শাহজাহান উপজেলাবাসীর কল্যাণে কাজ করেছে-সৈয়দ ফয়সল শহরের গেজেট দোকানে চুরির ঘটনায় বিপুল পরিমাণ মোবাইল উদ্ধার ॥ এক চোর আটক স্কুল শিক্ষিকা বিরন রূপা দাসের অস্বাভাবিক মৃত্যুতে আইনজীবি ঐক্য পরিষদের প্রতিবাদ সভা সৈয়দ মোঃ শাহজাহান কাজের বিনিময়ে কারু কাছ থেকে ১ টাকাও ঘুষ খায় না-সৈয়দ মোঃ ফয়সল সদর হাসপাতালে অজ্ঞাত নারীর খবর নিচ্ছে না কেউ?

হবিগঞ্জ জেলা জুড়ে ঘন্টার পর ঘণ্টা লোডশেডিংয়ে জনজীবন অতিষ্ঠ

  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ৫ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৩১ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গরম শুরু হতে না হতেই বিদ্যু দ্বিভ্রাটে (লোডশেডিং) অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন হবিগঞ্জ জেলার বাসিন্দারা। প্রতি এক ঘণ্টা পর পর লোডশেডিংয়ের ফলে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি দপ্তর, আদালত, কলকারখানা, গৃহস্থলির সব ধরনের কাজে ব্যাঘাত হচ্ছে। জানা যায়, সম্প্রতি বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের প্যানেল বোর্ডে আগুন ধরে গেলে প্যানেলসহ ট্রান্সফরমারের ব্যাপক ক্ষতি হয়। ভেঙে পড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা। এতে বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থায় আরও বিঘ্ন ঘটে। অপর দিকে হবিগঞ্জে একটি বিদ্যুৎ সাব-স্টেশনের নির্মাণকাজ দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে আছে। শহরের আধুনিক স্টেডিয়ামের কাছে ২-৩ বছর আগে সাব-স্টেশনের নির্মাণকাজ শুরু হলেও তা শেষ হয়নি। ঢিমেতালে চলা এই কাজ কবে শেষ হবে, তা জানাতে পারেননি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের হবিগঞ্জ নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলায় দিনে ১৪ ও রাতে ১৬ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদা রয়েছে। তবে চাহিদার কখনো অর্ধেক আবার কখনো অর্ধেকেরও কম বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয় জাতীয় গ্রিড থেকে। যার কারণে ৭টির ফিডারে ১ ঘণ্টা বিদ্যুৎ এবং ১ ঘণ্টা লোডশেডিং দেওয়া হচ্ছে। নাসির উদ্দিন নামের এক গ্রাহক বলেন, ঘন ঘন বিদ্যুৎ আসা-যাওয়ার কারণে বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম নষ্ট হচ্ছে। পাম্পের সাহায্যে পানি তোলা যাচ্ছে না। প্রিপেইড মিটার ব্যবহার করার পরেও যদি বিদ্যুৎ না পাই, তাহলে এ দুঃখ রাখি কোথায় ?। নবীগঞ্জ উপজেলায় অতিরিক্ত লোডশেডিং নবীগঞ্জ উপজেলায় ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে লোডশেডিং। তীব্র গরমের মধ্যে ঝড়ের প্রভাব ও বিদ্যুৎবিভ্রাটের কারণে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে মানুষ। মানুষের মাঝে হাঁসফাঁস দেখা দিয়েছে। চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ না পাওয়ায় এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা। অন্যদিকে বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ঘটনায় ভুক্তভোগী গ্রাহকেরা আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। গত বুধবার (২ এপ্রিল) দুপুরে নবীগঞ্জ উপজেলায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সকাল থেকে সারা দিন বিদ্যুৎ ছিল না উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়। নবীগঞ্জের এক গ্রাহক সাইফুর রহমান জানান, রবিবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত প্রায় ৮-৯ ঘণ্টা বিদ্যুৎ ছিল না। অপর আরোক গ্রাহক আবু মোতালিব জানান, গত তিন দিনে প্রতিদিন ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ২০-২১ ঘণ্টাই বিদ্যুৎ এর সরবরাহ বন্ধ।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসের উপ-মহা ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ ফয়জুল্লাহ জানান, ‘অতিরিক্ত লোডশেডিং হচ্ছে। চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ সরবরাহ করা যাচ্ছে না। বানিয়াচং উপজেলায় লোডশেডিং
বানিয়াচং উপজেলায় থেমে নেই পল্লী বিদ্যুতের লোডশেডিং। লোডশেডিংয়ের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় রোজার মাসজুড়ে অসহনীয় ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে উপজেলা বাসীর। তারাবির নামাজ, সেহরি ও ইফতার প্রতিনিয়ত চলছে লোডশেডিং। টেকনিক্যাল সমস্যা, ওভারলোড ও লো-ভোল্টেজ ছাড়াও রয়েছে ঘন ঘন ট্রিপ ও সোর্স লাইন রণক্ষাবেক্ষণের কাজ। শুধু তাই নয়, আকাশে মেঘ জমতে দেখলেই পালাচ্ছে বিদ্যুৎ। আবার বিদ্যৎ থাক বা না থাক মাস শেষে মোটা অঙ্কের বিল গুনতে হচ্ছে গ্রাহকদের। বিদ্যুৎ অফিসের প্রতিটি অভিযোগ নম্বর সবসময় ব্যস্ত। আবার অভিযোগ দিলেও কোনো কাজ হয় না।
বানিয়াচংয়ের বাসিন্দা আকবর আলী জানান, একে তো গরম, তার ওপর রমজান মাস। এমন সময় বিদ্যুতের ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে নাকাল সবাই। বিদ্যুৎ অফিসে ফোন দিলেই সেই পুরোনো ৩৩ কেভি লাইনের দোহাই দেওয়া হয়। তারা বলেন শাহজীবাজারে সমস্যা। শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় লোডশেডিং পল্লী বিদ্যুতের আওতাধীন শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলাতে ৭২ হাজারেও বেশি গ্রাহক পল্লী বিদ্যুতের লোডশেডিং নিয়ে পড়েছেন মহাবিপাকে। বিদ্যুতের এ অবস্থায় শায়েস্তাগঞ্জে ব্যবসা বাণিজ্যে মন্দাভাব দেখা দিয়েছে। ঈদ সামনে রেখে হাটবাজারের ব্যবসায়ীরা ঠিকমতো তাদের বেচাকেনা করতে পারছেন না। শায়েস্তাঞ্জের বাসিন্দা ইউসুফ জানান, চলছে রমজান মাস, আবার পড়েছে গরম। এ অবস্থা ঘন ঘন লোডশেডিং। এসব নিয়ে স্থানীয়রা বিশেষ করে মুসল্লিরা ক্ষুব্ধ।
এদিকে লোডশেডিংয়ের কারণে বাসাবাড়ির ফ্রিজ, টিভি, কম্পিউটার, ব্যবসায়ীদের ফটোস্ট্যাট মেশিনসহ বিভিন্ন দামি দামি জিনিসপত্র নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বিদ্যুৎ না থাকার ফলে জেলাজুড়ে ইন্টারনেটের সেবাও বিঘ্নিত হচ্ছে। বিদ্যুৎ ঠিকমতো পাওয়া না গেলেও বিদ্যুতের বিল কিন্তু কমছে না। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের হবিগঞ্জ নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয়ের সহকারি প্রকৌশলী জানান, পুড়ে যাওয়া ট্রান্সফরমার ও প্যানেলের যন্ত্রপাতি ঢাকা থেকে এনে কাজ শুরু হয়েছে। কবে নাগাদ শেষ হবে, তা বলা যাচ্ছে না। তবে ঈদের আগে নতুন প্যানেল বোর্ড ও ট্রান্সফরমার স্থাপন শেষ করার চেষ্টা চলছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com