বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
ওলিপুরে প্রাণের চিপস কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ॥ কোটি টাকার ক্ষতি নাছিরনগরে কাজ করতে গিয়ে মাধবপুরে ৩ শ্রমিক নিহত শায়েস্তাগঞ্জে আটক প্রেমিক যুগল পুলিশ হেফাজতে দেশে ফিরলেন এমপি আবু জাহির ও হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলেয়া আক্তার চুনারুঘাটে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাউলসহ এক ব্যক্তি গ্রেফতার চুনারুঘাটে নোহা উল্টে শিশু নিহত ॥ হাসপাতালে মা নবীগঞ্জে উপ-নির্বাচনে বিজয়ী ইউপি সদস্য আব্দুল মোমিনের শপথ গ্রহন আজমিরীগঞ্জে গরুর ঘাস কাটা নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০ পবিত্র ওমরাহ পালন শেষে পৌরসভায় ফিরেছেন মেয়র আতাউর রহমান সেলিম নবীগঞ্জের প্রবীণ মুরুব্বি ফজল মিয়ার ইন্তেকাল ॥ দাফন সম্পন্ন

আজমিরীগঞ্জে বাঁধ সংস্কারে ধীর গতি ॥ কৃষকদের শঙ্কা আর ক্ষোভ

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ২৪ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজমিরীগঞ্জে ফসল রক্ষা বাঁধ সংস্কার কাজে ধীর গতির কারনে হাওড়ের ফসল নিয়ে দুঃচিন্তা ও শঙ্কায় দিন পার করছেন স্থানীয় কৃষকরা। এছাড়াও সংস্কার কাজে নানান অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এমনকি দীর্ঘদিন চাকুরীর সুবাদে কোন কোন স্থানে বাঁধ মেরামতের দায়িত্বরত প্রকৌশলীর স্বেচ্ছাচারিতার মাধ্যমে একটি মহলকে পিআইসি কমিটিতে অর্ন্তভুক্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। “প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হবার মাত্র কয়েক ঘন্টা বাকি থাকলেও নয়টি প্রকল্পের পাঁচটিতেই ইতিমধ্যে কাজ হয়েছে মোট কাজের ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ।” জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সুত্রে জানা গেছে, চলতি বছরে জেলার ৫ উপজেলার হাওড় এলাকায় আগাম বন্যা থেকে ফসল রক্ষার্থে কাবিটা প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতাধীন ডুবন্ত বাঁধ মেরামতের জন্য মোট ৪০টি প্রকল্পে ৪৩ হাজার ১৩৩ কিলোমিটার বাঁধ সংস্কার কাজের প্রকল্প নেয়া হয়েছে। যার প্রাক্কলিত ব্যায় ধরা হয়েছে ৪ কোটি ৫০ লক্ষ ৬৪ হাজার টাকা। তন্মধ্যে আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বদলপুর ইউনিয়নে ৭ টি (পাঁচটি বাঁধ মেরামত ও দুটি ইনটেক চ্যানেল খাল খনন), শিবপাশা ইউনিয়নে ১টি এবং কাকাইলছেও ইউনিয়নে ১টি বাঁধ সংস্কার প্রকল্প। উপজেলার ৯টি প্রকল্পে ১২ হাজার ৫৫ মিটার বাঁধ সংস্কারে ব্যায় ধরা হয়েছে ৯০ লক্ষ ৮২ হাজার টাকা। বাঁধ মেরামতের সর্বশেষ মেয়াদ চলতি মাসের ২৮ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত। বদলপুর ইউনিয়নের ১, ২, ৩, ৬, ৭, ৮, ৯ নম্বার প্রকল্পে গিয়ে দেখা যায়, ১ নম্বার প্রকল্পের ৩৮৫ মিটার জায়গায় বাঁধের গোঁড়া থেকে মাটি দিয়ে পুরাতন বাঁধকে নতুন রুপ দেয়া হয়েছে। বাঁধটির প্রাক্কলিত ব্যায় ধরা হয়েছে ৭ লক্ষ ৭৩ হাজার টাকা। ১২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার বরাদ্ধের ২ নম্বার প্রকল্পে বাঁধের ১৬০০ মিটার কাজের মধ্যে প্রায় ৮০০ মিটারের মত মেরামতের কাজ চলমান রয়েছে। ৩ নম্বার প্রকল্পে ৩ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকা বরাদ্ধে ৩৮০ মিটার ইনটেক চ্যানেল খনন কাজে খালের সাইড ও মধ্য থেকে সামান্য খনন করেই শেষ করা হয়েছে কাজ। ৬, ৭ এবং ৮ নম্বার প্রকল্পে, ১০ লক্ষ ৭৬ হাজার টাকা বরাদ্ধের ৬ নাম্বার প্রকল্পে ১৪০০ মিটার বাঁধ মেরামতের কাজ শুরুই করা হয়নি। ২৪ লক্ষ ১৩ হাজার টাকা বরাদ্ধের ৭ নম্বার প্রকল্পে নদীর পাড় কেটে সেই নদীর পাড়েই নতুন করে ২৮০০ মিটার বাঁধ নির্মাণ কাজ চলছে একটি মাত্র খনন যন্ত্র দিয়ে। ৮ লক্ষ ৭৯ হাজার টাকা বরাদ্ধের ৮ নম্বার প্রকল্পের ৩১০০ মিটার বাঁধ সংস্কার কাজে বাঁধের গোঁড়ার মাটি দিয়ে খনন যন্ত্রের মাধ্যমে আঁচড়ে বাঁধের ৪০ শতাংশ জায়গা মেরামত করে রাখা হয়েছে। এই তিনটি প্রকল্পে (৬.৭.৮) মোট প্রাক্কলিত ব্যায় ধরা হয়েছে ৪৩ লাখ ৬৮ হাজার টাকা। ৬ লক্ষ ২৬ হাজার টাকা বরাদ্ধের ৯ নম্বার কৈয়ার ঢালা সুইচ গেইটের ৩২৫ মিটার ইনটেক চ্যানেল খাল খনন কাজে দুপাশের মাটি কেটে খালের মধ্যংশের কিছু জায়গা খনন চলছে। তবে “কাজটি যে কমিটির নামে নেয়া হয়েছে তারা কাজ না করে কাজ করছেন অন্যজন।
উপজেলা প্রশাসন সুত্রে জানাগেছে, উপজেলার নয়টি প্রকল্পের প্রতিটি কমিটিকে ইতিমধ্যে চেকের মাধ্যমে মোট ১৯ লাখ ৭৩ হাজার ৭৫০ টাকা প্রদান করা হয়েছে। যার মধ্যে ১ নম্বার প্রকল্পে ১ লাখ ৬৯ হাজার ১০০ টাকা, ২ নম্বারে ২ লাখ ৬৭ হাজার টাকা, ৩ নম্বারে ৭৫ হাজার ৬৫০ টাকা, ৪ নম্বারে ২ লক্ষ ৪০ হাজার ৩০০ টাকা, ৫ নম্বারে ১ লক্ষ ৩৩ হাজার ৫০০ টাকা, ৬ নম্বারে ২ লক্ষ ৩১ হাজার টাকা, ৭ নম্বারে ৫ লক্ষ ২৮ হাজার টাকা, ৮ নম্বারে ১ লক্ষ ৯৫ হাজার ৮০০ টাকা এবং ৯ নম্বারে কমিটিকে ১ লক্ষ ৩৩ হাজার ৫০০ টাকা। ৬, ৭, ৮ এবং ৯ নম্বার প্রকল্প এলাকর স্থানীয়দের সাথে আলাপকালে শ্রীকান্ত রায়, মতিলাল অধিকারী,অনিল দাস, শাজাহান মিয়া জানান, ৬ নং পিআইসিতে দুইদিন কিছু কাজ করা হয়েছে। ৭ নং প্রকল্পে চারদিন যাবত কাজ শুরু করা হয়েছে কিন্তু নদীর পাড় কেটে যেভাবে নামমাত্র বাঁধের কাজ শুরু হয়েছে চৈত্র মাসের বৃষ্টির তোড়ে সেই মাটি নদীতেই পড়বে। জেলা পাউবোর পওর শাখার উপ প্রকৌশলী একরামুল হক বলেন, প্রতিটি প্রকল্প কমিটিকে দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য বলা হয়েছে। নিজের পরিচিত লোকজনকে কমিটিতে অর্ন্তভুক্ত করার বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জুয়েল ভৌমিক বলেন, সরজমিনে পরিদর্শন করে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শামীম হাসনাইন মাহমুদ বলেন, বাঁধের সংস্কার শুরুর সময় আমরা বাঁধ মেপে প্রকল্প শুরু করি। কাজ শেষ হলে পুনরায় মেপে বিল পরিশোধ করা হয়। যদি কেউ পুরোনো বাঁধে নামমাত্র কাজ করে নতুন বিল নিতে চায় সেটা আমরা দিবোনা। এক্ষেত্রে বাঁধের পুরো ম্যাজারমেন্ট করে তবেই বিল দেয়া হবে।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com