রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৬:১৫ অপরাহ্ন

১৩ অক্টোবর ২০১৩ ইং এর সকল সংবাদ

১৩ অক্টোবর ২০১৩ ইং এর সকল সংবাদ

কুঞ্জিকা রূপে পূজিত হলো কোয়েল
পূজো মন্ডপে হাজারো ভক্তের ঢল
বরুন সিকদার ॥ শারদীয় উৎসবের মূল আকর্ষন কুমারী পূজো। প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও হবিগঞ্জের রামকৃষ্ণ মিশনে শান্তিপূর্ন ভাবে কুমারী পূজো অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবছরের পূজোয় হবিগঞ্জ  শহরের টাউন হল রোডস্থ চপল ভট্টাচার্য্য ও  শুকা ভট্টাচার্যের কন্যা দেবরুতী ভট্টাচার্য কোয়েল (৮) কুঞ্জিকা রূপে অধিষ্টিত হয়েছে।
কুমারী দেবীর দর্শন পেতে হবিগঞ্জ জেলা ছাড়াও পার্শ্ববর্তী ব্রাহ্মনবাড়িয়া, মৌলভীবাজার, কিশোরগঞ্জ ও সিলেট সহ নানা স্থানের হাজারো ভক্ত ভোর থেকেই পূজো মন্ডপে জড়ো হতে থাকে। সকাল ১০টায় কুমারী দেবীকে দেবীর আসনে বসিয়ে পূজো অর্চনা শুরু হয়। পুরোহিতের দায়িত্ব পালন করেন হেমেন্দ্র ভট্টাচার্য। ভক্তদের ভীর সামলাতে হিমসিম খেতে হয় পুলিশ প্রশাসনকে। জনসাধারনের চলাচলের সুবিধার্থে শহরের কলেজ হোস্টেল এড়িয়া থেকে চৌধুরী বাজার (নারিকেল হাটা ) পর্যন্ত যানচলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। কুমারী পূজো উপলক্ষে রামকৃষ্ণ মিশনের আশপাশের এলাকায় নানা ধরনের পসরা নিয়ে বসেন দোকানীরা।
রামকৃষ্ণ মিশন সূত্রে জানা যায়, দূর্গা পূজোর সপ্তমী দিন থেকে নবমী পর্যন্ত তিনদিনের মধ্যে দ্বিতীয় দিন অষ্ঠমীতে কুমারী পূজা করা হয়ে থাকে। সন্ধিপূজার অষ্টমীর শেষে ২৪ মিনিট আর নবমীর ২৪ মিনিট মোট ৪৮ মিনিটের মধ্যে পূজো শেষ করতে হয়। সন্ধিপূজা একটি উল্লেখ যোগ্য সময়। ওই সময়ে দেবী দূর্গা অসুরকে বধ করেছিলেন।
কুমারী দেবীকে স্নান করিয়ে পবিত্রতার মাধ্যমে ফুল, বেলপাতা, ডান হাতে ফুল, পায়ে আলতা, গলায় ফুলের মালা সহ সিদুরের তিলক দিয়ে দেবীর সাজে সাজিয়ে আসনে বসানো হয়। এর পর চলে মন্ত্র উচ্চারনে দেবীর আরাধনা।
এদিকে কুমারী পূজো উপলক্ষে রামকৃষ্ণ মিশনে সকালে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ সদর আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ আবু জাহির। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মনীন্দ্র কিশোর মজুমদার ও তার পতিœ শুতপা মজুমদার, চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাষ্টিস এর প্রেসিডেন্ট মোতাচ্ছিরুল ইসলাম, এডভোকেট নলীনি কান্ত রায় নীরু, এডভোকেট নীলাদ্রী শেখর পুরকায়স্থ টিটু, কাউন্সিলর গৌতম কুমার, প্রাক্তন শিক্ষক অজিত কুমার পাল, দুলাল সুত্রধর প্রমুখ।
কোয়েলের (কুমারী) বাবা চপল ভট্টাচার্য বলেন, আমার মেয়েকে মায়ের আসনে বসিয়ে পুজো করা হলো তা দেখে আমার খুব আনন্দ ও প্রশান্তি লাগছে। তবে ধর্মের সত্যকে ভুলে যারা কুসংস্কার ছড়ায় আমি তাদের কথায় বিশ্বাস করি না।
এ বছরের কুমারী দেবরুতী তার অবিব্যাপ্তিতে জানায়, দেবীর আসনে বসিয়ে আমাকে পুজো করানো হয়েছে। আমি সবার মঙ্গলের জন্যে মায়ের কাছে প্রার্থনা করেছি। আমি যেন লেখাপড়া করে দেশের কল্যান করতে পারি।

নবীগঞ্জে পুজা মন্ডপে আনসার নিয়োগে
অনিয়ম-দূর্নীতি ॥ বঞ্চিতদের হট্রগোল
নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন পুজামন্ডপে আইন-শৃংখলা রক্ষায় আনসার-ভিডিপি নিয়োগ নিয়ে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। কাগজ-কলমে যে পরিমান আনসার সদস্যরা দায়িত্ব পালন করার কথা বাস্তবে তার মিল নেই। আবার দল নেতা নেত্রীদের ঘুষের টাকা দিতে না পারায় অনেক প্রকৃত আনসার সদস্য ও দলনেতাকে ডিউটিতে দেয়া হয়নি। এনিয়ে দিনব্যাপী উপজেলা আনসার ভিডিপি অফিসে তুমূল হট্রগোলের সৃষ্টি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
উপজেলা আনসার ভিডিপি অফিস সুত্রে জানা যায়, এ বছর উপজেলার ৭৪টি মন্ডপে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের প্রধান উৎসব দূর্গাপুজা অনুষ্টিত হচ্ছে। মন্ডপ গুলোর নিরাপত্তার জন্য ২৫ জন কমান্ডার (পিসি), ৭৩ জন সহকারী কমান্ডার (এপিসি), ১৯০ জন সদস্য (পুরুষ) ও ১৪৭ জন সদস্য (মহিলা) সহ মোট ৪৩৫ জন আনসার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে প্লাটুন কমান্ডার ও সহকারী প্লাটুন কমান্ডার দৈনিক ৩৫০ টাকা এবং সাধারণ পুরুষ-মহিলা আনসাররা দৈনিক ৩২০ টাকা হিসেবে ভাতা পাওয়ার কথা। এ হিসেবে ৫ দিনের ডিউটির জন্য প্লাটুন কমান্ডার ও সহকারী প্লাটুন কমান্ডার পাবেন ১ হাজার ৭৫০ টাকা এবং সাধারণ আনসাররা পাবেন ১ হাজার ৬শ’ টাকা। প্রতিটি ইউনিয়নের দলপতির দেয়া তালিকা অনুযায়ী তাদের নিয়োগ দেয় কর্তৃপক্ষ। আনসার কর্মীদের অভিযোগ, দলপতিরা কাগজ-কলমে নিয়োগ দিলেও বাস্তবে প্রতি বছরই অর্ধেক লোক কাজের সুযোগ পায়। বিগত কয়েক বছর ধরে ৫ দিনের কাজ শেষে দলপতিরা ১শ’ টাকা করে লোক ভাড়া নিয়ে বাকী অর্ধেক লোকের ভাতার টাকা আত্মসাত করে। এ টাকার ভাগ পৌছে দেয়া হয় প্রশিক্ষক থেকে শুরু করে উপজেলা কর্মকর্তা পর্যন্ত। এদিকে চলতি বছর তালিকাভুক্ত হয়েও নিয়োগ না পাওয়া আনসার-ভিডিপির শতাধিক কর্মী বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা অফিসের সামনে হট্রগোল করে। এছাড়া ভিডিপি কর্মকর্তা ও প্রশিক্ষক মিলে যারা টাকা কামাই করে দিতে পারে এমন দলনেতা-নেত্রীদের তালিকা অগ্রাধিকার দিয়েছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। চলতি বছর উক্ত অফিসের তালিকা অনুযায়ী ৪৩৫ জন আনসার নিয়োগ দেয়া হলেও বাস্তবে ডিউটিরত রয়েছেন ২৯৫ জন। বাকী ১৪০ জন আনসারের হদিছ নেই বলে বিভিন্ন পুজা মন্ডপ সুত্রে জানা গেছে। ফলে পুজা মন্ডপের আইনশৃংখলা ব্যাহত হতে পারে বলে আশংখ্যা করছেন পুজা উদ্যাপন কমিটি। এছাড়া বিভিন্ন পুজা মন্ডপ ঘুরে দেখা যায়, যেখানে ৮ জন আনসার ডিউটি করার কথা সেখানে রয়েছেন ৪/৬ জন। এ ব্যাপারে কথা হয় আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাকের সাথে। তিনি বলেন উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ নিয়ে মন্ডপ গুলো পরিদর্শন করে অভিযোগের সত্যতা যাচাই করছেন। কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নের দলনেত্রী সুপ্রা রানী জানান, তিনি একটি এলাকার দলনেত্রী। অথচ তালিকাভুক্তি হলেও তিনি এ বছর পুজায় ডিউটি করার সুযোগ পাননি। আনসার কমান্ডার সফিক মিয়া, দলনেত্রী আবেদা বেগমসহ কয়েক জন জানান, তালিকাভুক্তি হয়েও জনৈক কমান্ডারের কথামত উৎকোচ না দেয়ায় পুজার ডিউটির সুযোগ পাননি। যাদেরকে সুযোগ দেয়া হয়েছে তাদের কাছ থেকে অফিসারসহ ৩/৪শ’ টাকা করে নেয় ওই কমান্ডার। প্রশিক্ষিকা নীলুফা ইয়াসমিনের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তার বোন ফোন ধরে জানান, তিনি অতিরিক্ত টেনশনে ভোগছেন। হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। ওই প্রশিক্ষিকার বিরুদ্ধেও একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

নবীগঞ্জে জায়গা নিয়ে বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষ ॥ আহত ২০
নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নের রামপুর গ্রামে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গতকাল শনিবার সকালে দু’দল লোকের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয় পক্ষের মহিলাসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ২ জনকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে অপর আহতদের নবীগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি ও প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এলাকাবাসী জানান, ওই গ্রামের আনোয়ার মিয়ার দখলে থাকা ডুবা রকম ভুমি নিয়ে একই গ্রামের আফাছ উদ্দিনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। এ অবস্থায় গতকাল বিরোধীয় ও্ ভুমিতে আফাছ উদ্দিনের লোকজন দখলে যায়। এতে প্রতিপক্ষের লোকজন বাধা দেয়। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে বাদানুবাদের এক পর্যায়ে উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে গুরুতর আহরা হল, আফাছ উদ্দিন, আশক উদ্দিন, দিলাওর মিয়া, জুনু মিয়া, আহমেদ আলী, আনোয়ার মিয়া, সাজন মিয়া, মাহমুদ আলী, আছিয়া বেগম।

ইনাতগঞ্জে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান
দুই ব্যবসা প্রতিষ্টানকে জরিমানা
নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ বাজারে গতকাল শনিবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালত মুল্যে তালিকা ও বিভিন্ন অনিয়মের প্রেক্ষিতে দুটি ব্যাবসা প্রতিষ্টানকে ৫হাজার টাকা জরিমানা করেছে। ব্যবসা প্রতিষ্টানগুলো হচ্ছে, প্রবীর মাষ্টারের সুমন ভেরাইটিজ এ ২ হাজার ও সুজন মসলার দোকানে ৩ হাজার টাকা। অভিযান পরিচালনা করেন, নবীগঞ্জ উপজেলা সহকারী (ভূমি) কমিশনার মাহমুদুল হক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ইনাতগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাতেন, সাংবাদিক রাকিল হোসেন, ইনাতগঞ্জ ফাঁিড়র ইনচার্জ বাশার।

হবিগঞ্জে শ্রমিক লীগের
প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন
স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জে  নৌকার বিজয় অর্জন  ও জঙ্গীবাদ এবং মৌলবাদ শক্তিকে মোকাবেলার অঙ্গীকার নিয়ে জাতীয় শ্রমিক লীগ এর ৪৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে জেলা শ্রমিক লীগ গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে আলোচনা সভার আয়োজন করে।
জেলা শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি প্রফুল্ল চন্দ্র বৈষ্ণবের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারন সম্পাদক ফরিদ আহমেদ রাজু, মোঃ আনোয়ার হোসেন, মোঃ আবু তাহের, জিতেশ চন্দ্র সুত্র ধর, মোঃ আব্দুর কাইয়ুম, জামাল আহমেদ রাজ, আমজাদ হোসেন, আব্দুর কবির, মাহমুদ বিশ্বাস ও আব্দাল মিয়া প্রমুখ।
বক্তারা এই সরকারকে শ্রমিক বান্ধব সরকার হিসাবে উল্লেখ করে আগামী নির্বাচনেও নৌকার জয়লাভের জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহবান জানান।

বাহুবলে রাসুলপুর মাদরাসায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ডাঃ মুশফিক
এম.পি নির্বাচিত না হলেও নবীগঞ্জ
বাহুবলবাসীর সেবা করতে চাই
বাহুবল সংবাদদাতা ॥ বাহুবল উপজেলার রাসুলপুর জামেয়া আমহদীয়া সুন্নীয়া দাখিল মাদরাসায় হবিগঞ্জ জেলার প্রশাসক ও বি.এম.এ সভাপতি ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরী বলেছেন- আমি এমপি নির্বাচিত না হতে পারলেও নবীগঞ্জ ও বাহুবলের মানুষের সেবা করে যেতে চাই। তিনি গতকাল বাহুবল উপজেলার ৩নং সাতকাপন ইউনিয়নে রাসুলপুর জামেয়া আমহদীয়া সুন্নীয়া দাখিল মাদরাসায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। তিনি আরও বলেন, আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে সোনার বাংলা হিসেবে রূপান্তরিত করতে চান। তাই আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আবারো ক্ষমতায় বসাতে হবে। তিনি সকলকে নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার জন্য আহ্বান জানান। হাজী নূর মোহাম্মদ এর সভাপতিত্বে ও ডাঃ ফরিদ চৌধুরীর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ জেলার প্রশাসক ও বি.এম.এ সভাপতি ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরী, বিশেষ অতিথি হিসেব উপস্থিত ছিলেন ৩নং সাতকাপন ইউ/পি চেয়ারম্যান আব্দুর রেজ্জাক, শ্রমীকলীগ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ এনামুল হক, আওয়ামীলীগ নেতা সাবেক মেম্বার আব্দুল মালেক, যুবলীগ সাতকাপন ইউনিয়ন সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মজিদ শেখ, সোয়াইয়া বাজার কমিটি সভাপতি ফারুক আহমেদ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিক্ষক রমিজ আলী, শ্রদ্ধাঞ্জলী পাঠ করেন অত্র মাদ্রাসার সুপার আব্দুল হান্নান। বক্তব্য রাখেন- দাতা সদস্য ওয়াহাব উল্লাহ চৌধুরী, মখলিছুর রহমান, এখলাছ মেম্বার, আব্দুল হাই মেম্বার, আব্দুল খালেক, ওয়াহেদ মাষ্টার, জয়নাল আবেদীন, সমর চন্দ্র দাশ, অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী হেনা আক্তার, দশম শ্রেণীর ছাত্রী লুৎফা আক্তার, পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন- আল আমীন। প্রধান অতিথিকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করেন- ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র দুলাল মিয়া। পরে প্রধান অতিথি অত্র মাদ্রাসার সংস্কারের জন্য ১ লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করেন।

নবীগঞ্জের সাতাইহাল মাঠে আজ অনুষ্ঠিত হবে
জেলা প্রশাসক ফুটবল গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় খেলা
ফখরুল আহসান চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ জেলা প্রশাসক ফুটবল গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের আজকের খেলা নবীগঞ্জের সাতাইহাল মাঠে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সিলেট বনাম সুনামগঞ্জ জেলা ফুটবল দল আজকের খেলায় লড়বে। আজ বিকেলে খেলাটি উদ্বোধন করে উপভোগ করবেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার এন এম জিয়াউল আলম। খেলা উপলক্ষে সাতাইহাল খেলার মাঠ নয়া করে সাজানো হয়েছে। প্যান্ডেল নির্মাণসহ মাঠের যাবতীয় সংস্কার ও প্রস্ততি নেয়া হয়েছে।
নবীগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ লুৎফর রহমান গতকাল জানিয়েছেন জাতীয় ও স্থানীয় খেলোয়াড়দের অংশগ্রহনে অনুষ্ঠিতব্য এ খেলাটি হবে সুন্দর ও নৈপুন্যের। খেলা শেষে থাকছে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বিপুল সংখ্যাক দর্শকের উপস্থিতি ও খেলার মাঠের সার্বিক শৃংখলা রক্ষার লক্ষে ইতিমধ্যে বিভিন্ন উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগে এবং নবীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় সুন্দর ও মনোরম একটি খেলা আশা করছেন আয়োজকরা।

চুনারুঘাটে মোবাইল ও নগদ টাকা ছিনতাই
চুনারুঘাট প্রতিনিধি ॥ চুনারুঘাট উপজেলার নালুয়া চা বাগান থেকে যাত্রা দেখে বাড়ি ফেরার পথে শুক্রবার রাতে ৪ যুবকের কাছ থেকে ৪টি মোবাইল ও নগদ ১০ হাজার টাকা লুটে নেয় ছিনতাইকারীর চক্র। যুবকদের চিৎকারে জনতার সহযোগিতায় যুবকরা এক ছিনতাইকারীকে হাতে নাতে আটক করে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের কাছে সোপর্দ করলে তিনি মুছলেকার বিনিময়ে তাকে ছেড়ে দিয়েছেন।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, উপজেলার উসমানপুর গ্রামের সিপন মিয়া ও মোহাম্মদ আলীসহ ৪ যুবক শুক্রবার রাতে নালুয়া চা বাগান থেকে পুজার যাত্রাপালা দেখে বাড়ি ফিরছিল। রাত ১টার দিকে তারা মানিক ভান্ডার গ্রামের কাছে আসলে ইকরতলী গ্রামের মরম আলীর ছেলে আবজালসহ (২২) ৬/৭ জন তাদের পথরোধ করে তাদের কাছে থাকা ৪টি মোবাইল ও নগদ ১০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্ঠা করে। এসময় তাদের সুরচিৎকারে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় যুবকরা আবজালকে হাতে নাতে আটক করে স্থানীয় ইউপি কার্যালয়ে সোপর্দ করেন। গতকাল শনিবার বিকেলে ইউনিয়ন পরিষদ থানা পুলিশ খবর দিয়ে নিলেও পরে  মোবাইল ও ১০ হাজার টাকা এক সপ্তাহের মধ্যে ফেরত দেওয়ার মুছলেকায় আবজালকে তার মায়ের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়। ইউপি চেয়ারম্যান মাওলানা তাজুল ইসলাম এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার বলে বলেন, সে মোবাইল ও ১০ হাজার টাকা এক সপ্তাহের মধ্যে ফেরত দিবে বলে মুছলেকা দিয়েছে।

নবীগঞ্জে জাতীয় পাটি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের
আউশকান্দি সহ বিভিন্ন পুজামন্ডপ পরিদর্শন
প্রেস বিজ্ঞপ্তি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পাটির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি মুরাদ আহমদ সহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা আউশকান্দি সহ উপজেলার বিভিন্ন পুজা মন্ডপ পরিদর্শন করেন। আউশকান্দি পুজা মন্ডপ পরিদর্শন কালে পূজারী নেতৃবৃন্দের সাথে কুশল বিনিময় কালে পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি আশুতোষ চক্রবর্তী বন্ধন, ডাঃ নিরেন্দ্র পাল, মিহির আচার্য্য, নিখিল ধর, বাবুল পাল, সাংবাদিক এম মুজিবুর রহমান, বুলবুল আহমদ, আউশকান্দি ব্র্যাক কর্মকর্তা আল মামুন, আউশকান্দি ব্যবসায়ী আনা মিয়া, লিটন মিয়া, ইউসূফ মিয়া। এ উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা জাপার যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আব্দুল বাছিত, যুগ্ম অর্থ সম্পাদক ও আউশকান্দি ইউ/পি যুব সংহতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলু মিয়া, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক হালিম হোসেন হৃদয়, জাতীয় ছাত্র সামাজের সভাপতি রাজু আহমেদ, সাধারন সম্পাদক সঞ্জয় দেবনাথ, যুবনেতা আবু ইউসুফ, হাদিস আলী, মোঃ রুবেল মিয়া, মোঃ লিটন মিয়া প্রমুখ।

নবীগঞ্জে বাউশা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুর রহমানের পূঁজা মন্ডপ পরিদর্শন
প্রেস বিজ্ঞপ্তি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার বাউশা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুর রহমানের পরিদর্শন কালে বাউশা ইউনিয়নের নিজচৌকি শ্রীশী দুর্গামন্দিরের সার্বজনীন পূঁজা উদজাপন কমিটি সভাপতি পরশ চন্দ্র দেব, সমন্ময়কারী কমলা কান্ত দেব সহ পূঁজার নেতৃবৃন্দের সাথে কুশল বিনিময় করেন। এছাড়াও তিনি কড়াখাল ও রিফাতপুর পূঁজা মন্ডপ পরিদর্শন করেন। এসময় তাঁর সাথে উপস্থিত ছিলেন, বাউশা ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান শেখ ছাদিকুর রহমান শিশু, ইউপি মেম্বার সাইদুর রহমান, ইউপি সচিব ক্রিতেশ রঞ্জন চৌধুরী, নবীগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সদস্য মুনসুর আহমদ চৌধুরী, হবিগঞ্জ জেলা জাতীয় ছাত্র সমাজের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও নবীগঞ্জ উপজেলা জাতীয় ছাত্র সামাজের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী এম.এ.এম. স্বপন, ছাত্র নেতা জাহেদ চৌধুরী, মুঞ্জুর রহমান, শোয়েব আহমদ প্রমূখ।

নবীগঞ্জ পৌর সভার চাল বিতরণ
নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ পৌর এলাকার হত দারিদ্র ৩ হাজার ৮১ জন কার্ড ধারীদের মাঝে ৩০ হাজার ৮শ’১০ কেজি চাল বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে পৌরসভা প্রাঙ্গনে ৯ ওয়ার্ডের উল্লেখিত লোকদের মাঝে উক্ত চাল বিতরণ উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুৎফর রহমান ও পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী। এ সময় অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন প্যানেল মেয়র আলহাজ্ব ছাবির আহমদ চৌধুরী, রিজভী আহমদ খালেদ, কাউন্সিলর আলা উদ্দিন, রুহুল আমীন রফু, এটিএম সালাম, যুবরাজ গোপ, মিজানুর রহমান, সুন্দর আলী, সন্তোষ দাশ, সংরক্ষিত কাউন্সিলর যতিকা রানী দাশ, জাকিয়া আক্তার লাকি, রেখা রানী আচার্য্য, পৌর সচিব নুরে আলম সিদ্দীকি, স্বরাজ মিয়া, এলেমান চৌধুরী, আবু মুছা প্রমূখ।

সমাজ সেবায় বিশেষ অবদানের জন্য
নবীগঞ্জ পৌর মেয়রকে এওয়ার্ড প্রদান
নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ সমাজ সেবায় বিশেষ অবদানের জন্য নবীগঞ্জ পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরীকে এওয়ার্ড প্রদান করেছে ধারা সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংস্থা। গতকাল শনিবার বিকেলে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে ধারা সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংস্থা এবং নারী উদ্যোগের গুনীজন সংবর্ধনা অনুষ্টিত হয়েছে। সংস্থার সভাপতি শাহ আলম চুন্নুর সভাপতিত্বে অনুষ্টানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন নবীগঞ্জ পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী। এর আগে অনুষ্টান উদ্বোধন করেন সাবেক সিটি মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। পরে নবীগঞ্জ পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরীকে এওয়ার্ড এর ক্রেষ্ট তোলে দেন সং¯’ার সভাপতি শাহ আলম চুন্নু।

নবীগঞ্জ পৌর মেয়র এর পুজা মন্ডপ পরিদর্শন ও আর্থিক অনুদান
নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী পৌর এলাকার বিভিন্ন শারদীয় দূর্গা পুজা মন্ডপ পরিদর্শন করেছেন। এ সময় পৌরসভার পক্ষে মেয়র পুজা মন্ডপ গুলোতে নগদ অর্থ প্রদান সহ সার্বিক বিষয়ে খোজখবর নেন। এবং সকল পুজারীদের শারদীয় শুভেচ্ছা জানান। এ সময় অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী, নবীগঞ্জ পৌর সভার প্যানেল মেয়র আলহাজ্ব ছাবির আহমদ চৌধুরী, রিজভী আহমদ খালেদ, কাউন্সিলর যুবরাজ গোপ, সন্তোষ দাশ, জাকিয়া আক্তার লাকি, জেকে হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুস ছালাম, প্রনব দেব প্রমূখ।

২ শতাধিক মোটর সাইকেলের শোভাযাত্রা নিয়ে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার
৪৯ টি শারদীয় দূর্গাপূজা মান্ডপ পরির্দশন করলেন এমপি আবু জাহির
স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির বলেছেন, আওয়ামীলীগ একটি গণ মানুষের সংগঠন। সকল ধর্ম ও বর্ণের মানুষের অধীকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রতিষ্টাই এই দলের মুল লক্ষ্য। বর্তমান সরকার যে কোন মুল্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নিশ্চিত করতে চায়। প্রতিটি মানুষ যাতে বোমাতঙ্ক ছাড়াই নির্বিঘেœ ধর্মীয় কাজ করতে পারে তার জন্য সরকার দেশে অনুকুল পরিবেশ সৃষ্টি করেছে।
গতকাল বিকেল ৪টা থেকে রাত ১টা পর্যন্ত হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ৪৯টি শারদীয় দূর্গাপূজা মান্ডপ পরিদর্শকালে আয়োজকদের সাথে মতবিনিময়কালে সরকারের পক্ষে একথাগুলো বলেন। এসময় তিনি মৌলবাদ ও জঙ্গীবাদকে প্রতিহত করতে এবং উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আগামী নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করার ও আহবান জানান।
এমপি আবু জাহিরের এই পূজা মান্ডপ পরিদর্শনকালে ২শতাধিক মোটর সাইকেলের শোভাযাত্রায় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের শত শত নেতাকর্মীরা তার সাথে অংশ নেন। নেতৃবৃন্দের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান শামীম, উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ রঞ্জিত কুমার দাস, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এড. আঃ আহাদ ফারুক, সাধারন সম্পাদক আঃ রশিদ তালুকদার ইকবাল, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মোস্তফা কামাল আজাদ রাসেল, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুলাহ সরদার, মোঃ আব্দুল মুকিত, পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি সালেক মিয়া, আওয়ামীলীগ নেতা আদিল হোসেন জজ মিয়া, মাহবুব হোসেন জিলু, মীর জালাল, আহমদ আলী শামীম, জিতু মিয়া লস্কর, যুবলীগ সভাপতি ফজল উদ্দিন তালুকদার, সাধারন সম্পাদক জাকির হোসেন, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি দেওয়ান মাসুম রায়হান চৌধুরী ও সাধারন সম্পাদক কুতুব উদ্দিন, সামাদ মেম্বার, রফিক মিয়া, মাহবুবুর রহমান হিরো, জলফু মিয়া, জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সম্পাদক ডাঃ ইশতিয়াক রাজ চৌধুরী, মিজানুর রহমান কমল. সাইদুর রহমান, রনি, মহিবুর রহমান, গাজিউর রহমান ইমরান, ফখরুল হামিদ সহ অসংখ্য উপস্থিত ছিলেন।
এমপি আবু জাহির লুকড়া ইউনিয়নের ৯টি, রিচি ইউনিয়নের ৫টি, তেঘরিয়া ইউনিয়নের ৪টি, পইল ইউনিয়নের ১টি, রাজিউড়া ইউনিয়নের ৫টি, নুরপুর ইউনিয়নের ৭টি, শায়েস্তাগঞ্জ ইউনিয়নের ৩টি, নিজামুপর ইউনিয়নের ৩টি, লস্করপুর ইউনিয়নের ৬টি ও শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার ৬টি মান্ডপ পরিদর্শন করেন।

উৎসবপ্রিয় বাঙ্গালীর সার্বজনীন শারদীয় দূর্গাপূজা
প্রভাষক উত্তম কুমার পাল হিমেল
শারদীয় দূর্গোৎসব উৎসবপ্রিয় বাঙ্গালী হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় সামাজিক উৎসব। প্রতিবছর শরতকাল এলেই বাঙ্গালী মেতে উঠেন দূর্গাপূজা এই উৎসবে আমেজে। ধর্মীয় এক হৃদয় নিংড়ানো মিলন মেলায় পরিনত হয় এই উৎসব। আর এই উৎসবের উৎসে অধিষ্টিত হিন্দু পুরানের অন্যতম দেবী হলেন দূর্গা। পৌরনিক কাহিনী অনুসারে দেবী দূর্গাই হলেন শিবের স্ত্রী পার্বর্তী। লক্ষ্মী, সরস্বতী, গনেশ ও কার্তিকের জননী তিনিই। কিন্তু কেন শিবজায়া পার্বর্তীর নাম দেবী দূর্গা হল। স্কন্দপুরান বর্ননা অনুসারে রুরু দৈত্যর পুত্র দূর্গকে বধ করেছিলেন বলেই পার্বতীর নাম হয়েছে দেবীদূর্গা। তবে বাঙ্গালীর দূর্গোৎসবে দিবী কিন্তু স্কন্দপুরানের বর্ননামতে দূর্গসুর বধকারী রুপে তিনি পূজিত নন। এখানে তিনি পূজিত হন মহিষাসুর মর্দিনী রূপে। দেবী দূর্গার এই আবির্ভাবের পরিচয় পাওয়া যায় মার্কন্ডেয় পুরানে। ভাগবত পুরান অনুসারে ব্রম্মার মানস পুত্র মনু পৃথিবীর শাসনভার পেয়ে ক্ষীরোদ সাগরের তীরে মৃম্ময়ী মুর্তি নির্মান করে দেবী দূর্গার আরাধনা করেন। মার্কন্ডেয় পুরান মতানুসারে এই দুর্গোৎসবের আয়োজন করেন রাজা সুরথ। আর রাজা সুরথ এই দূর্গাপূজা করেছিলেন বসন্তকালে। সেই পূজা অনুসরন করে পৃথিবীর কোন কোন স্থানে দুর্গোৎসবের আয়োজন করা হলেও ভারতীয় উপমহাদেশে দূর্গাপূজা জনপ্রিয় সময়টা হল শরতকাল। শুরুতে শরতকালে দুর্গোৎসব করেন শ্রী রাম চন্দ্র। কৃর্তিবাস রামায়ন অনুসারে রামচন্দ্রের সঙ্গে যুদ্ধে কান্ত ও পরিশ্রান্ত হয়ে লংকাধিপতি রাবন আকুল সুরে দেবীর স্তব শুরু করলেন। রাবনের কাতর স্তবে দেবীর হৃদয়ে করুনার উদ্রেক হল। রাবনকে অভয় দিলেন তিনি। সম্পূর্নরূপে অনাকাংখিত এই খবরে খুুব আশংকিত হলেন রাামচন্দ্র। দেবতার এ খবরে দুশ্চিন্তাগ্রস্থ হয়ে পড়লেন। দেবরাজ ইন্দ্র ব্রম্মার কাছে গেলেন। এই সংকটাপন্ন অবস্থা থেকে পরিত্রান পাবার জন্য ব্যবস্থা গ্রহনের অনুরোধ জানালেন ব্রম্মাকে। ব্রম্মা রামের কাছে গিয়ে দূর্গা পূজা করার জন্য আবহান জানালেন। দূর্গাপূজাই হল এই সংকট থেকে পরিত্রানের একমাত্র উপায়। কিন্তু বাংলাদেশসহ ভারতীয় উপমহাদেশের দূর্গাপূজা সাধারনত আশ্বিন মাসের শুকপক্ষের ষষ্ট দিন ষষ্টী থেকে দশম দিন অর্থাৎ বিজয়া দশমী দিন পর্যন্ত পাচঁদিন অনুষ্টিত হয়। এই পাচঁটি দিনের পূজা যথাক্রমে দূর্গষষ্টী, মহাসপ্তমী, মহাষষ্টী, মহানবমী ও বিজয়া দশমী নামে পরিচিত। দূর্গাপূজা এই পাচঁদিনসহ সমগ্রপটিকে দেবীপ সামে আখ্যায়িত করা হয়। আর দেবী পরে সূচনা হয় পূর্ববর্তী অমাবশ্যার দিন থেকে। এই দিইট “মহালয়া” নামে পরিচিত। অন্যদিকে দেবীপরে সমাপ্তি হয় পঞ্চদশ দিন অর্থাৎ পূর্ণিমায়। এই দিনটি কোজাগরী পূর্ণিমা নামে পরিচিত এবং বার্ষিক লক্ষ্মীপূজার দিন হিসাবেও গন্য হয়। দূর্গাপূজা মূলত পাচঁ দিনের অনুষ্টান হলেও মহালয়া থেকেই প্রকৃত উৎসবের সূচনা হয় এবং কোজাগরী লক্ষ্মীপূজায় হয় তার সমাপ্তি। বাংলাদেশে দূর্গোৎসবের বহুল প্রচলিত রূপ অর্থাৎ মহিষাসুর মর্দিনীর পূজার উল্লেখ পাওয়া যায় মার্কন্ডেয় পুরানে। মূল পুরানটি চতুর্থ শতাব্দিতে রচনা হলেও দূর্গাপূজা বিবরন সম্বলিত সপ্তশতীতে রয়েছে ৯ম-১২শ শতাব্দির মধ্যকার সময়ের নির্মিত একাধিক মহিষাসুর মর্দিনীর মুর্তিও। তবে সেই সব মুর্তিতে মহিষাসুর মর্দিনী কিন্তু পরিবার সমন্বিতা নন। উপমহাদেশে জমিদারী প্রথা বিলোপের পর শারদীয় দূর্গপূজায় জমিদারদের অংশ গ্রহন স্বাভাবিক ভাবেই অনেকটা কমে যায়। নব্য ধনীক শ্রেনীর উদ্ভবের পরিপ্রেক্ষিতে দূর্গোৎসব আয়োজক কমিটিতে যুক্ত হয় অনেক নতুন নতুন মূখ। তবে প্রতিটি দুর্গোৎসবই তখনকার সময় আয়োজিত হত সম্পূর্ন একক উদ্যোগে। আনুমানিক ১৭৯০ খ্রীষ্টাব্দে অবিভক্ত বাংলার পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলার গুপ্তিপাড়ায় ঘটে একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা। গুপ্তিপাড়ার একটি ধনী পরিবারের আকস্মিক অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের ফলে অনিশ্চয়তার সন্মূখীন হয় ঐ বাড়ীটির বাৎষরিক দূর্গাপূজার আয়োজন। তখন গুপ্তিপাড়ায়ার ১২ জন বন্ধু মহলের যুবক এগিয়ে আসেন যৌথ উদ্যোগে দূর্গাপূজা পালন করার জন্য। এই ১২ জন ইয়ার বা বন্ধু সংঘবদ্ধভাবে গ্রহন করে পূজা পালনের  সার্বিক দায়িত্ব। আর গুপ্তিপাড়ার এই পূজাটি মানুষের কাছে পরিচিত হয় “বারোইয়ারী” বা বারোয়ারী পূজা নামে। এই বারোয়ারী পূজার সুত্র ধরে একক উদ্যোগে সম্পাদিত দুর্গাপূজাই আজ পরিনত হল সার্বজনীন শারদীয় উৎসবে। ধনীর আঙ্গিনা থেকে দূর্গাপূজা নেমে এলো অনেকটা সাধারন মানুষের সাধ্যের মাঝে। গুপ্তিপাড়ার আদর্শ অনুসরন করে সম্মিলিত উদ্যোগে বারোয়ারী পূজা ছড়িয়ে পড়ল ভারতীয় উপমহাদেশসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। রাজনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রের এই নৈকট্য সাধারন মানুষকে সাহস জোগালো র্দূগাপূজা মতো সর্ববৃহৎ ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্টানে বিত্তশালীদের একচেটিয়ে অধিকারে ভাগ বসানোর। ব্যক্তি বা বারোয়ারীর সীমা ছাড়িয়ে দূর্গাপূজা আজ পরিনত হল সার্বজনীন শারদীয় উৎসবে। ভারতবর্ষে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন যখন জোরদার হয়ে উঠল তখন মহাত্মা গান্ধীর অহিংস আন্দোলনের পাশাপাশি সশস্ত্র বিপ্লবের পথে স্বাধীনতা অর্জনের প্রচেষ্টাও চলল সমানে তালে। ইংরেজদের নজর এড়াতে দুর্গোৎসবকে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করতে লাগল বিপ্লবীরা। ধর্মীয় অনুষ্টানে ছদ্মাবরনে বিভিন্ন শ্রেনীর মানুষকে সংঘবদ্ধ করার একমাত্র উপায় হল এই শারদীয় দূর্গাপুজা। কালের পরিক্রমায় ব্রিটিশ শাসনের অবসান হল। বিভাজিত হয়ে পড়ল অবিভক্ত বাংলা। পাকিস্তান অপশাসনের বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রাম শেষে বিভাজিত বাংলার পুর্বাঞ্চল রূপান্তরিত হল বাংলাদেশ নামের একটি নতুন স্বাধীন রাষ্ট্রে। আর বাংলাদেশের সিংহভাগ মানুষের অসাম্প্রদায়িক প্রবনতা শারদীয় দূর্গাৎসবকে আজ পরিনত করল প্রকৃত অর্থেই বাঙ্গলীর সার্বজনীন উৎসবে। আর বছর ঘুরে এই সার্বজনীন দূর্গাপূজা এলেই বাঙ্গালী হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন মেতে উঠেন এক আনন্দ উৎসবে। এই আমেজে সকলের মাঝে শান্তির বার্তা বয়ে আনুক।

নবীগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায়
শিশুসহ ৩ জন আহত
নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ উপজেলার পল্লীতে গরু দিয়ে ফসল খাওয়ানোর প্রতিবাদ করায় এক নিরীহ লোকের বাড়িতে হামলা ভাংচুর চালিয়ে স্বামী-স্ত্রী ও শিশু কন্যাকে পিঠিয়ে আহত ও স্বর্ণালঙ্কার ছিনতাই করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। আহত আব্দুল ওয়াহিদ চৌধুরী (৪৫)কে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও অপর আহত মা-মেয়েকে স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
জানা যায়, শনিবার সকাল ৭টার দিকে উপজেলা আউশকান্দি ইউনিয়নের পিঠুয়া গ্রামের মৃত বরকত উল্লার পুত্র শিবুল মিয়া গরু দিয়ে আব্দুল ওয়াহিদ চৌধুরীর ধান ক্ষেতে গরু ছাড়ে। গরু দিয়ে ধান খাওয়ানোর প্রতিবাদ করায় বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে উক্ত শিবুলসহ মহব্বত উল্লার পুত্র ইদই মিয়া ও ইদ্রিছ উল্লার পুত্র ইপন মিয়া আব্দুল ওয়াহিদ চৌধুরীর বাড়িতে ঢুকে তাকে বেদম প্রহার করে। এতে তিনি রক্তাক্ত জখম হন। তাকে রায় স্ত্রী রাহেনা বেগম (৩০) এগিয়ে আসলে তাকেও মারধোর করা হয়। এ সময় রাহেনার কুলে থাকা দশ মাসের শিশু কন্যা ইপা বেগম আহত হয়। মারধোর করার সময় রাহেনা বেগমের গলা থেকে ১ ভরি ওজনের একটি চেইন নিয়ে যায় হামলাকারীরা। আহত আব্দুল ওয়াহিদকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও রাহেনা ও ইপা বেগমকে স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

ডাঃ আবদালের বিভিন্ন
পূজা মন্ডপ পরিদর্শন
প্রেস বিজ্ঞপ্তি ॥ বিএনপি থেকে হবিগঞ্জ-লাখাই আসনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, ডক্টরস এসোসিয়েশন  অব বাংলাদেশ (্ড্যাব) হবিগঞ্জ জেলা সভাপতি ও ইলিয়াস মুক্তি সংগ্রাম পরিষদ হবিগঞ্জ জেলা শাখার আহবায়ক ডাঃ মোঃ আহমুদুর রহমান আবদাল গতকাল শনিবার রাতে জেলা সদরে বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি মন্ডপের আয়োজক, ভক্তবৃন্দ ও পুজারীদের সাথে শারদীয় শুভেচ্ছা বিনিময়কালে দেশ-জাতির সমৃদ্ধি কামনা করেন। পরিদর্শনকালে তার সাথে ছিলেন, ইলিয়াস মুক্তি যুব সংগ্রাম পরিষদ হবিগঞ্জ জেলা আহবায়ক মোঃ শামীম মিয়া, সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোঃ হারুন অর রশিদ হারুন, জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সদস্য মোঃ আবুল খায়ের অপু, মোঃ রুবেল খান, মোঃ আফিল উদ্দিন, মোঃ গোলাম মোস্তফা, রায়হান আহমদ আকাশ, এহতেশামুল হক সোহাগ, মোঃ সুজন মিয়া, সফিউল আলম, জমির আলী, সোহাগ ঠাকুর, মোঃ কামাল মিয়া প্রমূখ।

এমপি প্রার্থী সৈয়দ আহাম্মদুল হকের
লাখাইয়ে পূজা মন্ডপ পরিদর্শন
প্রেস বিজ্ঞপ্তি ॥ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হবিগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ আহাম্মদুল হক লাখাই উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের সনাতন ধর্মাবলম্বিদের সার্বজনিন স্বারদীয় পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করেণ। গতকাল শনিবার তিনি উপজেলার লাখাই, বামৈ, বুল্লা ও করাব ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে পূজামন্ডপ পরিদর্শন করেণ। তিনি পূজারি ও পূণ্যার্থীবৃন্দের সাথে স্বারদীয় শুভেচ্ছা জানান এবং তাদের সাথে কুশল বিনিময় করেন। এসময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আবিদুর রহমান, বিশিষ্ট মুরুব্বি হাজী মোঃ আম্বর আলী, দৈনিক স্বদেশ বার্তার চিফ রিপোর্টার মোঃ রহমত আলী, মোঃ সামছুল হক, মেম্বার মোঃ মালিক মিয়া, পেরা মিয়া, মজনু মিয়া, মোঃ বেনু মিয়া, মোঃ নাছির মিয়া, মওলানা মিয়া ও মোঃ বাছির মিয়া।

মাধবপুরে পূজামন্ডপ পরিদর্শনকালে এডঃ মাহবুব আলী
ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সকলের
আবুল হোসেন সবুজ, মাধবপুর, হবিগঞ্জ থেকে ॥ কেন্দ্রীয় আওয়ামী আইনজীবি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সাবেক সহকারী এটর্নি জেনারেল হবিগঞ্জ ৪ মাধবপুর-চুনারুঘাট নির্বাচনী এলাকা থেকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী এডভোকেট মাহবুব আলী বলেছেন ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সকলের আওয়ামীলীগ সাম্প্রদায়িক সম্প্রতীতে বিশ্বাসী বলে সকল ধর্মের লোকজন আওয়ামীলীগকে নৌকা মার্কায় ভোট দেয়। আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে দেশ থেকে বোমাবাজরা উচ্ছেদ হয়েছে। মুসলমানরা যেভাবে ওয়াজ মাহফিল, ওরস সহ নির্বিঘেœ ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করে তেমনি হিন্দুরা পূজা পার্বন করতে পারেন। কিন্তু বিএনপি ক্ষমতা এলে তার উল্টো চিত্র দেখা যায়। এডঃ মাহবুব আলী শনিবার সকাল থেকে গভীর রাত পযন্ত চুনারুঘাট উপজেলার নলুয়া, আমু, চাঁনপুর, দেওন্দী, লালচাঁন চা বাগান ও মাধবপুর উপজেলার বাঘাসুরা এবং ছাতিয়াইন ইউনিয়নের প্রায় ২০টি পূজা মন্ডপ পরিদর্শনকালে এ কথা বলেন। এ সময় তার সাথে ছিলেন আওয়ামীলীগ নেতা রহম আলী, আব্দুল আউয়াল মোল্লা, রফিকুল ইসলাম, আব্দুল কুদ্দুছ চকদার মাখন, মিজানুর রহমান, তাহের মিয়া, ছাত্রলীগ নেতা নিজামুল হক চৌধুরী, মাসুক মিয়া, দেওয়ান আরিফ, চা শ্রমিক নেতা নির্মল চক্রবর্তী, অনিরুদ্ধ, যুবরাজ জড়া, ধরন নাথ, বিনোদ তাঁতী প্রমুখ।

চালককে খুন করে সিএনজি ছিনতাই মামলার
আসামী পিন্টু রাজবংশী গ্রেফতার
আবুল হোসেন সবুজ, মাধবপুর, হবিগঞ্জ থেকে ॥ মাধবপুরে চালককে খুন করে লাশ লুকিয়ে রেখে সিএনজি ছিনতাই মামলার মূল আসামী পিন্টু রাজবংশী (২৮) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত শুক্রবার রাতে মাধবপুর উপজেলার নোয়াহাটি থেকে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে হরষপুর পুলিশ ফাঁড়ির (তেলিয়াপাড়া) ইনচার্জ এস.আই আব্দুল্লা আল মামুন তাকে গ্রেফতার করে। পিন্টুকে শনিবার সকালে চুনারুঘাট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। পিন্টু রাজবংশী মাধবপুর উপজেলার সুরমা চা বাগানের লটু রাজবংশীর ছেলে।
উল্লেখ্য যে, গত ২৪জুন ২০১৩ইং সাতছড়ি অবয়ারন্যের মাধবপুর অংশে বিজয়নগর উপজেলার এক সিএনজি চালকে খুন করে লাশ লুকিয়ে রেখে সিএনজি নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় চুনারুঘাট থানা পুলিশ সিএনজিসহ খুনি ছিনতাইকারীকে শায়েস্তাগঞ্জ গোল চত্ত্বর থেকে আটক করে। এ ব্যাপারে ২৪জুন চুনারুঘাট থানায় খুন ও ছিনতাইয়ের অভিযোগে মামলা রেকর্ড হয়। মামলা নং- জি.আর-২৯। পিন্টু রাজবংশী ঐ মামলার এজাহারভূক্ত মূল আসামী বলে জানান হরষপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আব্দুল্লা আল মামুন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com