শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০১:৫০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রমিক নেতার উপর হামলার ঘটনায় ॥ আজ থেকে হবিগঞ্জ-বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ ও নবীগঞ্জ রোডে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট হবিগঞ্জ ও শায়েস্তাগঞ্জে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বাড়ানো হয়েছে এলপি গ্যাসের দাম ॥ জরিমানা বামকান্দিতে মক্তবে পড়তে গিয়ে কিশোরী ধর্ষণের শিকার ॥ গ্রাম্য কোন্দলে ফাঁসানো হয়েছে’-আটক মোয়াজ্জিন চুনারুঘাটে ডিবির অভিযানে সরঞ্জামসহ ৫ জুয়াড়ি আটক বাহুবলে এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী’র শীতবস্ত্র বিতরণ চুনারুঘাট থানার ওসি রাশেদুল আলী আশরাফ সুনামগঞ্জে বদলী মাধবপুরে পাল মৃৎশিল্পীদের আধুনিকায়নের উপর দক্ষতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জগতপুরে নিহত হান্নানের দাফন সম্পন্ন ॥ সিএনজি চালককে সনাক্তের চেষ্টা হবিগঞ্জ-শায়েস্তাগঞ্জ সড়কে মাটি বোঝাই ট্রাক্টর চাপায় যুবক নিহত হবিগঞ্জে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ অবহিতকরণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

রিচি ইউনিয়নে উঠান বৈঠকে জি কে গউছ ॥ মানুষের হৃদয় থেকে শহীদ জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়ার নাম মুছে ফেলা যাবে না

  • আপডেট টাইম রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ২৮ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- হাজারো চেষ্টা করেও মানুষের হৃদয় থেকে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নাম মুছে ফেলা যাবে না। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার ঘোষক, তিনি রণাঙ্গণের একজন সেক্টর কমান্ডার, কেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা। তিনি বাংলাদেশ সেনা বাহিনীর প্রধান ছিলেন। তিনি বাংলাদেশে বহু দলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। শহীদ জিয়ার স্বপ্ন ছিল সমৃদ্ধশালী উন্নয়নমুখী একটি রাষ্ট্র গঠনের। তারই ধারাবাহিকতায় তিনি বাংলাদেশের গার্মেন্ট শিল্প চালু করেন, মধ্যপ্রাচ্যে শ্রমিক রফতানি চালু করেন, কৃষিখাতের উন্নয়নের জন্য খালকাটা কর্মসূচি চালু করেছিলেন, উৎপাদনমুখী শিক্ষা ব্যবস্থা প্রবর্তন করেন। তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে উন্নয়নমুখী একটি স্বনির্ভর বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেন।
তিনি গতকাল শনিবার বিকালে সদর উপজেলার ২নং রিচি ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড বিএনপির উঠান বৈঠকে এসব কথা বলেন।
সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনাভোটের আওয়ামী সরকারের কবল থেকে মুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার দাবিতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় জি কে গউছ আরও বলেন- দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী। একজন দেশপ্রেমিক প্রেসিডেন্ট ও সেনা প্রধানের স্ত্রী ছিলেন। তিনি একজন আপোষহীন নেত্রী, যার জীবনে কোনো নির্বাচনে পরাজয় বরণ করতে হয়নি। তিনি ৩ বার প্রধানমন্ত্রী হয়ে দেশ পরিচালনা করে বাংলাদেশের মানুষের হৃদয় জয় করেছেন। এই জনপ্রিয়তায় প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে আওয়ামীলীগ কোর্টকে কাজে লাগিয়ে মিথ্যা মামলায় খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়ে গৃহবন্দি করে রেখেছে। সরকার মনে করেছিল খালেদা জিয়াকে কারাবন্দি করলেই জনগণ তাকে ভুলে যাবে, বিএনপি নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। কিন্তু সরকারের এই ধারণা ভুল প্রমাণিত হয়েছে। বিএনপির চলমান সমাবেশগুলোতে সরকারের বাঁধার কারণে খালেদা জিয়া উপস্থিত থাকতে পারেন না, উনার নামে একটি খালি চেয়ার রাখা হয়। তারপরও লক্ষ লক্ষ মানুষ হয়, খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবী নিয়ে দেশের মানুষ বিএনপির সমাবেশগুলো উপস্থিত হয়। খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া এই মানুষগুলো আর ঘরে ফিরে যাবে না। আন্দোলন শুরু হয়ে গেছে। তারা লড়াই করছে, সংগ্রাম করছে। বিজয়ের মধ্য দিয়েই খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত করা হবে।
তিনি বলেন- দেশে আইনের শাসন নেই। এক দেশে দুই আইন চলতে পারে না। আওয়ামীলীগ সমাবেশ করলে পুলিশ সহায়তা করে। যশোরে আওয়ামীলীগের সমাবেশের জন্য দেয়ার ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে, চট্টগ্রামে ফলোগ্রাউন্ড মাঠ ১৫ দিন আগেই নিয়ন্ত্রণে নিয়ে গেছে। তারা রাস্তা বন্ধ করে সমাবেশ করে, যানজটন সৃষ্টি হয়, মানুষের দুর্ভোগ সৃষ্টি হয় কিন্তু পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয় না, কোনো শর্ত দেয় না। কিন্তু বিএনপি সমাবেশ আহ্বান করলেই পুলিশ বাঁধা সৃষ্টি করে, নেতাকর্মীদের বাসায় বাসায় হয়রানী করে, সমাবেশের অনুমতি দিতে ২৬টি শর্ত দেয়া হয়, পরিবহন ধর্মঘট দেয়া হয়, হোটেল রেস্টুরেন্ট বন্ধ করে দেয়া হয়, ইন্টারনেট পর্যন্ত বন্ধ রাখা হয়। এই হল আওয়ামীলীগের দেশ পরিচালনার নমুনা। তাই আওয়ামীলীগের অধীনে, বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে কোনো সুষ্ঠ নির্বাচন হবে না। আওয়ামীলীগের পতনের মধ্য দিয়েই দেশের হারিয়ে যাওয়া গণতন্ত্র ও মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।
৮নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি আব্দুন নুর মিয়ার সভাপতিত্বে ও জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েলের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, জেলা বিএনপির সদস্য মহিবুল ইসলাম শাহীন, সদর উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক শামছুল ইসলাম মতিন, আজম উদ্দিন, এডভোকেট আফজাল হোসেন, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, বিএনপি নেতা শাহ আলম চৌধুরী মিন্টু, এস এম মানিক, সৈয়দ আজহারুল হক বাকু, কাজী শামছু মিয়া, অলিউর রহমান মেম্বার, মতিউর রহমান, জেলা মহিলা দলের সভাপতি এডভোকেট ফাতেমা ইয়াসমিন, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দা লাভলী সুলতানা, জেলা মৎস্যজীবি দলের সভাপতি এডভোকেট মুদ্দত আহমেদ, জেলা যুবদলের সহ সভাপতি মহসিন সিকদার, তৌফিকুল ইসলাম রুবেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট গুলজার খান, নজরুল ইসলাম কাওছার, এডভোকেট জসিম উদ্দিন, মুর্শেদ আলম সাজন, অলিউর রহমান অলি, মহাম্মদ আলী, বাদশা সিদ্দিকী, রকিবুল ইসলাম, জিন্নত আলী, এডভোকেট আঙ্গুর আলী, জাকির হোসেন, মর্তুজ আলী, আব্দুর রাজ্জাক, হাসান আলী, শাহাব উদ্দিন, সাজন মিয়া, নিজাম উদ্দিন, শফিকুল ইসলাম, কামাল আহমেদ, হাসানুজ্জামান রনু, চান মিয়া, আব্দুল হামিদ, জাবেদ আলী, জিকির মিয়া, আব্দুল খালেক, ফেরদৌস আাহমেদ, ধলাই মিয়া, আব্দুল মোতালিব, আলকাছ মিয়া, আব্দুল কাইয়ুম, আব্দুন নুর, ফরিদ মিয়া, শাহাব উদ্দিন আহমেদ, নুরুজ আলী, রাফ উদ্দিন, ছুবুর মিয়া, আব্দুস সাত্তার, আক্কাস আলী, রশিদ মিয়া, জালাল মিয়া, সালে আহমেদ, আরব আলী, মোবারক আলী, সমুজ আলী, আব্দুল বাশার, কাজল মিয়া, আয়াত আলী, শফিক মিয়া, হালিম মিয়া, আমির আলী, টেনু মিয়া, আফজাল মিয়া প্রমুখ।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com