শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাটে দুই সহোদরসহ ৩ জন গ্রেফতার ॥ ২০ কেজি গাঁজা উদ্ধার শায়েস্তাগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে স্বামী-স্ত্রীর মনোনয়নপত্র দাখিল আজ শায়েস্তাগঞ্জ থানা উদ্বোধন করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আউশকান্দি এলাকা থেকে মহিলার লাশ উদ্ধার আন্দোলনের মুখে শেখ হাসিনা পালানোর পথ খুঁজে পাবেনা-শেখ সুজাত মিয়া সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চুনারুঘাটের সোহাগের মরদেহ ২৮ দিন পর দেশে ॥ দাফন সম্পন্ন বানিয়াচঙ্গে পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ এক ব্যাক্তি আটক শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ের জংশন গাড়ির স্ট্যান্ডে পরিণত আজমিরীগঞ্জের কৃতি সন্তান আনিসুল ইসলাম জুয়েল কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মনোনীত জুমার খুৎবায় মাওলানা গোলাম মোস্তফা নবীনগরী ॥ রাত জেগে খেলা দেখে উল্লাস করে ঘুমন্ত মানুষকে ডিস্টার্ব করছে তাদের জন্য দোযকের বার্তা রয়েছে

হবিগঞ্জে দখল দূষণে অস্তিত্ব সংকটে পুরাতন খোয়াই নদী

  • আপডেট টাইম রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১৯ বা পড়া হয়েছে

ইখতিয়ার খান লোদী ॥ হবিগঞ্জে দখল আর দূষণে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে পুরাতন খোয়াই নদী। বিভিন্ন স্থানে ভরাট করে দখলে নেয়া হয়েছে কয়েক কোটি টাকা মূল্যের সরকারী ভূমি। কেউ এতে নির্মাণ করেছে বিশাল অট্টালিকা। আবার কেউ দোকান নির্মাণ করে ভাড়া দিয়েছে। অনেকেই মাটি ভরাট করে প্লট বিক্রির মাধ্যমে রমরমা ব্যবসা করছে। এ দখল প্রতিযোগিতায় রয়েছেন রাজনৈতিক নেতা, মুক্তিযোদ্ধা, ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধি, সরকারি চাকুরীজীবীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ। ২০১৯ সালে তৎকালীন জেলা প্রশাসক মাপঝোক করে নদীর দখলদার উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেন। কিছু অংশ উচ্ছেদ করার পরই তিনি বদলী হয়ে যান। এরপর তা আর এগুয়নি। এদিকে সম্প্রতি ফের নদীটি দখল হতে শুরু করেছে। শুধু দখলই নয়, ময়লা আবর্জনা ফেলে নদীর অস্তিত্ব সংকটে ফেলা হয়েছে। হারিয়ে যেতে চলেছে এর চিহ্নটুকুও।
বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল বলেন, শহর রক্ষার জন্য ’৭০-এর দশকের শেষে মাছুলিয়া-রামপুর ও খোয়াই মুখ-গরুর বাজার পর্যন্ত দুই দফায় ৫ কিলোমিটার লুপ কাটিংয়ের মাধ্যমে খোয়াই নদীর গতিপথ পরিবর্তন করে শহরের পাশ দিয়ে প্রবাহিত করে দেয়া হয়। খোয়াই নদীর এ ৫ কিলোমিটার অংশ লুপ কাটিং করার আগে নদীর প্রস্থ ছিল স্থান ভেদে ২৫০ থেকে ৩শ’ ফুট এবং গভীরতা ছিল ২৫ থেকে ৪০ ফুট পর্যন্ত। কিন্তু এখন অনেক অংশেই নদীর চিহ্নও নেই। নদীর বিভিন্ন অংশ দখল হয়েছে, পরিকল্পিত-অপরিকল্পিতভাবে ভরাটের শিকার হয়েছে, দূষণের শিকার হয়েছে পুরাতন খোয়াই। সব মিলিয়ে নদী সংশ্লিষ্ট হবিগঞ্জের মানুষের জন্য ব্যাপক দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে নদীটি। বর্তমানে পুরাতন খোয়াই নদী হবিগঞ্জ শহরের সর্ববৃহৎ ডাস্টবিনে রূপ নিয়েছে। নদীর আশপাশের বাসাবাড়ির পয়ঃনিষ্কাশন, ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে নদীতে। এতে দেখা দিচ্ছে পরিবেশ বিপর্যয়। আমাদের নিজেদের রক্ষার জন্য খোয়াই ও পুরাতন খোয়াই রক্ষা করতে না পারলে ভবিষ্যতে এ অঞ্চলে মানবিক বিপর্যয় নেমে আসতে পারে। তিনি বলেন, পুরাতন খোয়াই নদীকে ঘিরে কোন উন্নয়ন কর্মকান্ডই যেন অবৈধ দখলদারদের বৈধতার সুযোগ সৃষ্টি না করে।
শহরের পুরানমুন্সেফি এলাকার বাসিন্দা পুরাতন খোয়াই নদী রক্ষা আন্দোলনের অন্যতম সদস্য আহসানুল হক সুজা বলেন, এক সময় জেলার শহরের অর্ধেক অংশেরই পানি নিষ্কশন হতো পুরাতন খোয়াই নদীতে। এখন নদীটি দখল হয়ে যাওয়ায় শহরে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। আমরা দীর্ঘ কয়েক বছর ধরেই নদীটি দখল ও দুষণমুক্ত করার দাবিতে আন্দোলন করে আসছি। বিভিন্ন সময় ছিটেফুটো ভাংচুর করেই অদৃশ্য কারণে তা বন্ধ হয়ে যায়। আমরা দাবি জানাই অবিলম্বে নদীটি দখলমুক্ত করে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে নেয়া হোক।
জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান বলেন, অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ অভিযান আসলে আমাদের নিয়মিত কাজ। ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের উল্টোপাশে অর্ধ কিলোমিটার অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ করে ওয়াকওয়ে করা হচ্ছে। বাকিটাও পর্যায়ক্রমে উচ্ছেদ করা হবে। কোন অবৈধ দখলদারই ছাড় পাবেনা।
ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলা শহরকে অকাল বন্যার ভয়াল থাবা থেকে রা করতে হবিগঞ্জবাসীর সুখ-দুঃখের সাথী প্রমত্তা এ খোয়াই নদীর গতিপথ ১৯৭৮ সালে পরিবর্তন করা হয়। মাছুলিয়া থেকে রামপুর পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার এলাকা নদী কেটে শহরের বাইরে দিয়ে নেয়া হয়। স্বেচ্ছাশ্রমে নদী কাটায় অংশ নেন কৃষক, শ্রমিক, ছাত্রসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা। তখন থেকে শহরের ভেতরের অংশের নদীর ৫ কিলোমিটার (প্রায় ৭১ একর জায়গা) এলাকা পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে। বিগত কয়েক বছর যাবত নদীর এ পরিত্যক্ত অংশটুকু মাটি ভরাট করে দখলে নিতে থাকে প্রভাবশালীরা। ধীরে ধীরে তা খালে রূপ নেয়। এখন নদীটির শেষ চিহ্নটুকুও হারিয়ে নালা হয়ে গেছে। আবার কোথাও গড়ে ওঠেছে বিশাল অট্টালিকা। নদীর একটি অংশে গড়ে তোলা হয়েছে সরকারি একাধিক ভবন। ইতিমধ্যে বিভিন্ন সরকারের আমলে ডায়াবেটিস হাসপাতালের জন্য ৬০ এবং জেলা পরিষদ ভবনের জন্য ৩০ শতাংশসহ মোট ১১০ শতাংশ জমি লিজ দেয়া হয়। আর বাকি ৭০ একর জমির অধিকাংশ টুকুই বেদখল হয়ে গেছে। বিভিন্ন সময় তত্ত্বাবধায়ক সরকারগুলো এসে উচ্ছেদের নামে ছিটে ফুটো ভাংচুর করলেও কাজের কাজ কিছুই হয়না। ১/১১ সরকারের সময় দু’একটি স্থানে ভাংচুর করা হলেও কোথাও কোথাও এক দখলদারকে হটিয়ে আরেক দখলদারের নিকট হস্তান্তর করা হয়। অনেকেই লিজের ভূয়া কাগজ দেখিয়ে দখল টিকিয়ে রেখেছেন। বিভিন্ন স্থানে যেটুকু উচ্ছেদ হয়েছিল তাও বেশীদিন টেকেনি। সরকার পরিবর্তনের সাথে সাথে পূণরায় দ্বিগুণ উৎসাহে দখল প্রতিযোগিতায় নামে ভূমিদস্যুরা। নদীর সবচেয়ে মূল্যবান অংশ সিনেমাহল বাজার থেকে নাতিরাবাদ পর্যন্ত এলাকায় প্রায় নিশ্চিহ্ন করে দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে ময়লা আবর্জনা ফেলে নদীটি রিতিমতো ভরাট করে ফেলা হয়েছে। দুষিত করা হচ্ছে পরিবেশ। এ অবস্থায় দফায় দফায় শহরবাসী নদীটি দখল ও দুষণমুক্ত করার দাবিতে বিক্ষোভ, সমাবেশ, মানববন্ধনসহ আন্দোলন চালিয়ে যেতে থাকেন। এদিকে ২০১৯ সালে তৎকালিন জেলা প্রশাসক নদীটি উদ্ধারের উদ্যোগ নেন। তিনি ম্যাপ দেখে নদীর জমি চিহ্নিত করে উচ্ছেদ শুরু করেন। মাছুলিয়া থেকে অভিযান শুরু করে সদর হাসপাতাল পর্যন্ত পৌছান। ভেঙ্গে দেয়া হয় বিশাল অট্টালিকাও। তখন দখলদাররা নিজেদের দখলে থাকা জমি টিকিয়ে রাখতে দৌড়ঝাপ শুরু করেন। কিন্তু তারা কোন কুলকিনারা করতে পারেননি। এক পর্যায়ে বদলী হয়ে যান জেলা প্রশাসক। আর তখন থেকেই থমকে যায় খোয়াই নদীর উচ্ছেদ অভিযান। অথচ এ নদীটিই জেলা শহরের অর্ধেক অংশের পানি নিষ্কাশনের একমাত্র স্থান ছিল। নদীটি দখল হয়ে যাওয়ায় শহরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এমনকি অধিকতর উচু এলাকাও এখন জলমগ্ন হয়ে পড়ে। এমনকি নদী দখল করে গড়ে ওঠা এলাকাগুলোতে অপরাধ প্রবণতাও রয়েছে মারাত্মক।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com