বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৯:৩৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
লাখাইয়ে যানজট নিরসনে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা আজমিরীগঞ্জে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর আব্দুর রাজ্জাকের দাফন সম্পন্ন হবিগঞ্জে নতুন আরো ১৬ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবিগঞ্জে বকেয়া ভাতা দেয়ার দাবীতে ডিপিএড প্রশিক্ষণার্থীদের মানববন্ধন হবিগঞ্জে হিটস্ট্রোকে এক দিনে তিন ব্যক্তির মৃত্যু মাধবপুরে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষ ॥ মহিলাসহ আহত ২০ নরসিংদীতে মলম পার্টির কবলে পড়ে নবীগঞ্জের যুবকের সর্বস্ব খোয়া বেসরকারী হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার করোনা প্রতিরোধে অগ্রনী ভূমিকা পালন করবে-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম নবীগঞ্জের দাউদপুরে সমিতির প্রয়াত ৩ সদস্যের স্মরণে শোকসভা, দোয়া মাহফিল ও বার্ষিক সাধারণ সভা হবিগঞ্জে ব্র্যাকের ইনসেপশন মিটিং ॥ নিজের পরিবার থেকে জেন্ডার জাস্টিস চর্চা শুরুর আহবান

চুনারুঘাটের বনে গাছচোরদের কালো থাবা ॥ জীব বৈচিত্র ধ্বংস

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১
  • ৩০ বা পড়া হয়েছে

চুনারুঘাট প্রতিনিধি ॥ দেশের ২য় বৃহত্তম প্রাকৃতিক বনভূমি চুনারুঘাট রেমা-কালেঙ্গা সংরক্ষিত বন। এটি একটি শুকনো ও চিরহরিৎ বন। প্রায় ১ হাজার ৭৯৫ হেক্টর আয়তনের এই বনভূমি থেকে প্রতিদিন উজাড় হচ্ছে মহামূল্যবান সব গাছ। ফলে পরিবেশের অপূরণীয় ক্ষতির মুখে পড়ছে রেমা-কালেঙ্গা বনটি। বন বিভাগের লোকজন মাঝেমধ্যে চোরাই কাঠ আটক করলেও চোরাকারবারিরা রয়ে যাচ্ছেন ধরাছোঁয়ার বাইরে।
গত ২৪ এপ্রিল কালেঙ্গা রেঞ্জ অফিসের এক কিলোমিটারের মধ্যে তালতলা টিলা থেকে শতবর্ষী ১১টি গাছ কেটে ফেলেছে গাছ চোরেরা। এর মধ্যে পাহাড়ি মেহগনি ৫টি ও ৬টি ডাগি জামগাছ। বন বিভাগের লোকজন কাটা গাছগুলোর কিছু অংশ উদ্ধার করতে পাড়লেও চোরেরা বেশির ভাগ গাছই পাচার করে ফেলেছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঘটনার ১১ দিন পরও এ বিষয়ে কোনো মামলা হয়নি। কালেঙ্গা-রেমা ও ছনবাড়ি বিট থেকে প্রতিদিনই পাচার হচ্ছে সেগুনগাছ। বেশ কিছুদিন গাছ পাচার বন্ধ ছিলো। করোনার সুযোগে বিগত ১ বছর ধরে আবারো গাছ পাচার চলছে। চোরেরা ইতোমধ্যে রশিদপুর সংরক্ষিত বন উজাড় করে দিয়েছে। সেই বনে নতুন করে লাগানো হয়েছে গাছের চারা। চোরেরা চারা গাছও পাচার করছে।
কালেঙ্গা রেঞ্জ কর্মকর্তা খলিলুর রহমান বলেন, ২৪ এপ্রিল গাছ কাটা হলেও চোরেরা গাছ নিতে পারেনি। কাটা গাছ জব্দ করা হয়েছে। যার পরিমাণ ১৪০ ঘনফুট। এ ব্যাপারে বিট অফিসার মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
অভিযোগ রয়েছে, কিছু অসাধু বন বিভাগের লোক, বন বিভাগ দ্বারা লালিত ভিলেজার (চুক্তিভিত্তিক বনপ্রহরী) স্থানীয় প্রভাবশালী লোকজনই মূলত রেমা-কালেঙ্গা বন ধ্বংসের পেছনে দায়ী। তাদের সহযোগিতায়ই বছরের পর বছর ধরে প্রকাশ্যে চলছে গাছপাচারের মহোৎসব। এক সময় এই বনে ৫০০ প্রজাতির গাছ ছিলো। এখন তা ১০/১২ প্রজাতিতে নেমে এসেছে। অব্যাহতভাবে গাছ কাটার কারণে অনেক প্রজাতির গাছ বন থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে।
স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন কয়েক শত বনমজুর রেমা-কালেঙ্গা বনে প্রবেশ করে বনজ সম্পদ লুট করছে। ওই বনমজুরদের কাছ থেকে জনপ্রতি আদায় করা হচ্ছে ৩০ টাকা। বন বিভাগের কর্মকর্তাদের বক্তব্য হলো, আমাদের লোকবল কম। তাই গাছ পাচার রোধ করা যাচ্ছেনা।
এদিকে চুনারুঘাটে বৈধ ও অবৈধ ৫১টি করাতকলে প্রতিদিন হাজার হাজার ঘনফুট কাঠ চিরাই হচ্ছে। এতে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে বন। বনাঞ্চলের কাছাকাছি স্থানেও করাতকল স্থাপিত হয়েছে। করাত কল থেকে বন বিভাগের লোকজন মাসোয়ারা আদায় করে।
গাছপাচার রোধে ১৯৯৮ সালে চুনারুঘাটে বন বিভাগের স্পেশাল টহল বাহিনী গঠন করা হয়েছিল। এ বাহিনী গঠনের পর উপজেলায় গাছ চোরাকারবারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছিল। এ বছর জানুয়ারীতে এখান থেকে টহল বাহিনী উঠিয়ে নেওয়া হয়। ফলে বন বিভাগ দ্বারা বেষ্টিত এ উপজেলায় বেড়ে যায় গাছপাচার। স্থানীরা গাছপাচার রোধে চুনারুঘাটে টহল বাহিনী পুনঃস্থাপনের দাবি জানিয়েছেন।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com