সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৮:১৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আগস্ট মাস আসলেই মনে দাগ কাটে-মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ পইলে ৭৭টি গরু কুরবানী বাড়িয়ে দিল ঈদের আনন্দ নবীগঞ্জ অপহরণের ৭ দিনেও উদ্ধার হয়নি স্কুল ছাত্রী মাধবপুরে মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত দুর্ধর্ষ ডাকাত এরশাদ আলী গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে ছেলে ধরা সন্দেহে এক ডাকাতকে গণধোলাই হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ বনাম জেলা খেলোয়ার কল্যাণ সমিতির মধ্যে ফুটবল টুর্নামেন্ট কাশ্মিরী মুসলমানদের অধিকার অবিলম্বে ফিরিয়ে দিন ॥ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত সমন্বয় পরিষদ জ্যোতির্বিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. দীপেন ভট্টাচার্য্যরে ॥ বক্তৃতা শুনে বিজ্ঞান চর্চায় আগ্রহ বেড়েছে হবিগঞ্জের শিক্ষার্থীদের ধুলিয়াখাল-মাহমুদপুর বাইপাস সড়ক টমটম চুরির অভিযোগে যুবক আটক হবিগঞ্জে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির রক্তদান কর্মসূচী ও শোক সভা
বানিয়াচঙ্গে এক পরিবারকে সমাজচ্যুত ॥ প্রতিকার চেয়ে ইউএনওর নিকট আবেদন

বানিয়াচঙ্গে এক পরিবারকে সমাজচ্যুত ॥ প্রতিকার চেয়ে ইউএনওর নিকট আবেদন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হত্যা মামলা তুলে না নেয়ায় বানিয়াচং সদর ১নং ইউনিয়নের দোকানটুলা মহল্লার মোতালিম মিয়ার পরিবারকের সমাজচ্যুত করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) গ্রাম্য পঞ্চায়েতের মাধ্যমে মোতালিম মিয়ার পরিবারকের সমাজচ্যুত করার রায় দিয়েছেন ওই মহল্লার সর্দার বাচ্চু মিয়াসহ কতিপয় মাতব্বররা। বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) এর প্রতিকার চেয়ে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন মোতালিম মিয়ার স্ত্রী ফাতেমা বেগম। অভিযোগে জানা যায়, ২০১৭ সালের মে মাসে ফাতেমা বেগমের চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ুয়া কন্যা মার্জিনা আক্তারকে হত্যা করে তার প্রতিবেশি মতিন মিয়া গংরা। এই হত্যাকান্ডের বিচারের জন্য মামলা চলমান থাকার কারণে বিবাদী পক্ষ তাকে মামলা প্রত্যাহারের জন্য নানা ভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় ওই মহল্লার সর্দার বাচ্চু মিয়া ও পঞ্চায়েতের অন্যান্য মাতব্বররা তাদের পক্ষ নিয়ে মামলাটি মিমাংসা করার জন্য ফাতেমা বেগমকে চাপ প্রয়োগ করে আসছিলেন। এতে তিনি রাজী না হওয়ায় গত মঙ্গলবার মহল্লার পঞ্চায়েত ডেকে তাকে সমাজচ্যুত করে রায় প্রদান করেন বাচ্চু মিয়াসহ মাতব্বররা। পাশাপাশি রায়ে উল্লেখ করা হয়, ফাতেমার পরিবারের সাথে যে কথাবার্তা বলবে তাকে দশ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে। সাথে কঠিন শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে বলে পঞ্চায়েতে উপস্থিত লোকদের ও মহল্লাবাসীদের জানিয়ে দেয়া হয়। এই রায়ের ফলে বর্তমানে ফাতেমা বেগমের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করে যাচ্ছেন। তার স্কুল পড়ুয়ার কন্যার পড়ালেখা বিঘিœত হচ্ছে। রায়ের ফলে মহল্লায় বসবাস করাই মারাতœক সমস্যার কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে ওই পরিবারটির। সরেজমিনে ওই মহল্লায় গিয়ে এলাবাসীদের সাথে কথা বলে এর সত্যতা পাওয়া গিয়েছে। এই বিষয়ে গ্রাম্য মাতব্বর বাচ্চু মিয়ার সাথে কথা হলে তিনি রাগান্বিত হয়ে বলেন, আপনি যা ইচ্ছা তাই লিখেন, কোনো সমস্যা নাই। এই রায় আমি একা দেইনি মহল্লাবাসীকে নিয়ে আমি রায় দিয়েছে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন বানিয়াচং শাখার সভাপতি সাংবাদিক মোশাহেদ মিয়া বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। এইভাবে একটি পরিবারকে সমাজচ্যুত করার অধিকার কারো নেই। সমাজে বসবাস করার যে অধিকার সেটা কেউ ইচ্ছে করলেই খর্ব করতে পারে না। এটা সুস্পষ্ট মানবাধিকার লংঘন।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকার অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গ্রাম্য মাতব্বররা সমাজচ্যুত করে রায় দিবে এ কাজ করার কোনো সুযোগ নাই। বর্তমানের আইনের সাথে সাংঘর্ষিক বিষয়ে আমরা অবশ্যই পদক্ষেপ নিব। এই ঘটনাটি গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখবো।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com