বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ০৪:২০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ডাঃ ফাতেমা খানম দশ টাকা কেজির চাল হাতে দিয়ে লোকজনকে ঘরে থাকার আহবান জানালেন এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জের বেসরকারি চিকিৎসকদের পিপিই প্রদান করলেন ডাঃ মুশফিক চৌধুরী মাধবপুরে করোনা সতর্কতা ॥ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সরানো হল বাজার মাধবপুরে পিস্তলের গুলি বের হয়ে এএসআই আহত বানিয়াচঙ্গে গ্রামবাসীর উদ্যোগে ৩০টি গ্রাম লকডাউন “আপনার সুরক্ষা আপনার হাতে” এ স্লোগান এখন চা শ্রমিকের ঘরে ঘরে শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে লোকসমাগম কমাতে কাঁচা বাজার স্থানান্তর হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম বানিয়াচংয়ে আইন অমান্য করে ব্যাবসা প্রতিষ্টান খোলা রাখায় অর্থদন্ড
সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরেছেন লাখাই’র এক নারী

সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরেছেন লাখাই’র এক নারী

আজিজুল ইসলাম সজীব ॥ সৌদী আরবে অমানবিক নির্যাতরে শিকার হয়ে দেশে ফিরেছেন হবিগঞ্জের এক নারী। বর্তমানে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন হবিগঞ্জের পরী বেগম (২০) (ছদ্দনাম)। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লোকড়া ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামের বাসিন্দা পরী বেগম। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়ে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছেন তিনি। ঠিকমত কথা বলতে পারছেন না। চলাফেরাও করতে পারছেন না। পরী বেগমের ভাই ঢাকা গিয়েছেন তাকে দেখতে। পরীর ভাই জানান, ‘গত চৈত্র মাসে দালাল কুতুব আলীর মাধ্যমে সৌদি যায় আমার বইন। আমরা তো জানতাম না ইভাবে নির্যাতন করা হইব আমার বইনরে। হাসপাতালে গিয়া দেখি আমার বইনের হুশ (জ্ঞান) নাই। যখন হুশ আইলো তখন দেখি কথা কইতে পারে না। শুধু একটু হাত নাড়ছে আমারে দেইক্কা। ব্রাকের মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী জানা যায়। নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরে আসা নারীদের মধ্যে ৪ জন হলেন হবিগঞ্জের ১ জন, ৪ জন সুনামগঞ্জ, ৩ জন সিলেট ও ১ জন মৌলভীবাজার জেলার। এর মধ্যে সিলেট বিভাগের ২ জন নারীকে ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম ও প্রবাসী কল্যাণ ডেক্সের তত্বাবধানে ওসিসি সেন্টারে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। বাকী ১০ জন নারী সেদিনই হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে নিজ নিজ বাড়িতে ফিরেছেন বলে জানান ব্র্যাকের তথ্য কর্মকর্তা আল আমিন নয়ন।
এ ব্যাপারে ব্রাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের প্রোগ্রাম হেড শরিফুর হাসান জানান, বিদেশে গিয়ে আমার দেশের নারীরা নির্যাতনের শিকার হওয়া কোনো ভাবেই সহ্য করা যায় না। ফেরত আসা নারীদের কন্ঠে নিয়োগকর্তা কর্তৃক নির্মম নির্যাতন ও দূর্বিসহ যন্ত্রনার করুন বর্ণনা শুনলে যে কেউ শিহরিত হবেন। আমার ব্রাকের পক্ষ থেকে যতটুকু পারছি জরুরী সেবা দিচ্ছি। তবে এ ব্যপারে এককভাবে কাজ করে কোনো ফল আসবে না। কারণ বিদেশ যাওয়ার সময় সবাই পাশে থাকে কিন্তু নির্যাতিত হয়ে ফিরে আসা নারীদের পাশে কেউ থাকেন না। অনেক সময় পরিবারও পাশে থাকে না। এক্ষেত্রে তাদের পূর্ণবাসন করতে সবার সমান ভাবে এগিয়ে আসতে হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com