সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:৩৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের নদী খোকোদের তালিকা প্রকাশ ॥ শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান মাধবপুরে ছোট ভাইয়ের পিটুনীতে বড় ভাই খুন এমপি আবু জাহিরের প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জ সদর ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ ॥ আজ এক যোগে উদ্বোধন নবীগঞ্জে সন্ত্রাসী মুছা ১০ দিনেও অধরা কর আদায়ের উপর নির্ভর করে পৌরসভার উন্নয়ন-মেয়র ছাবির চৌধুরী নবীগঞ্জে নারী প্রতারক গ্রেপ্তার মানুষ বাঁচে তার কর্মে, বয়সের মধ্যে নয়-মিলাদ গাজী এমপি নবীগঞ্জে সাবেক ইউপি সদস্যের দাফন সম্পন্ন ॥ শোক প্রকাশ ‘হবিগঞ্জের মানুষ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী-মেয়র মিজান দুর্নীতি আর লুটপাটের মহাসাগরে নিমজ্জিত আওয়ামীলীগের পতন হবেই- জিকে গউছ
সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরেছেন লাখাই’র এক নারী

সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরেছেন লাখাই’র এক নারী

আজিজুল ইসলাম সজীব ॥ সৌদী আরবে অমানবিক নির্যাতরে শিকার হয়ে দেশে ফিরেছেন হবিগঞ্জের এক নারী। বর্তমানে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন হবিগঞ্জের পরী বেগম (২০) (ছদ্দনাম)। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লোকড়া ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামের বাসিন্দা পরী বেগম। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়ে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছেন তিনি। ঠিকমত কথা বলতে পারছেন না। চলাফেরাও করতে পারছেন না। পরী বেগমের ভাই ঢাকা গিয়েছেন তাকে দেখতে। পরীর ভাই জানান, ‘গত চৈত্র মাসে দালাল কুতুব আলীর মাধ্যমে সৌদি যায় আমার বইন। আমরা তো জানতাম না ইভাবে নির্যাতন করা হইব আমার বইনরে। হাসপাতালে গিয়া দেখি আমার বইনের হুশ (জ্ঞান) নাই। যখন হুশ আইলো তখন দেখি কথা কইতে পারে না। শুধু একটু হাত নাড়ছে আমারে দেইক্কা। ব্রাকের মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী জানা যায়। নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরে আসা নারীদের মধ্যে ৪ জন হলেন হবিগঞ্জের ১ জন, ৪ জন সুনামগঞ্জ, ৩ জন সিলেট ও ১ জন মৌলভীবাজার জেলার। এর মধ্যে সিলেট বিভাগের ২ জন নারীকে ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম ও প্রবাসী কল্যাণ ডেক্সের তত্বাবধানে ওসিসি সেন্টারে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। বাকী ১০ জন নারী সেদিনই হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে নিজ নিজ বাড়িতে ফিরেছেন বলে জানান ব্র্যাকের তথ্য কর্মকর্তা আল আমিন নয়ন।
এ ব্যাপারে ব্রাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের প্রোগ্রাম হেড শরিফুর হাসান জানান, বিদেশে গিয়ে আমার দেশের নারীরা নির্যাতনের শিকার হওয়া কোনো ভাবেই সহ্য করা যায় না। ফেরত আসা নারীদের কন্ঠে নিয়োগকর্তা কর্তৃক নির্মম নির্যাতন ও দূর্বিসহ যন্ত্রনার করুন বর্ণনা শুনলে যে কেউ শিহরিত হবেন। আমার ব্রাকের পক্ষ থেকে যতটুকু পারছি জরুরী সেবা দিচ্ছি। তবে এ ব্যপারে এককভাবে কাজ করে কোনো ফল আসবে না। কারণ বিদেশ যাওয়ার সময় সবাই পাশে থাকে কিন্তু নির্যাতিত হয়ে ফিরে আসা নারীদের পাশে কেউ থাকেন না। অনেক সময় পরিবারও পাশে থাকে না। এক্ষেত্রে তাদের পূর্ণবাসন করতে সবার সমান ভাবে এগিয়ে আসতে হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com