সোমবার, ০১ Jun ২০২০, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে বাংলাদেশী খুন ॥ লাশের অপেক্ষায় স্বজনরা বানিয়াচংয়ের বিভিন্ন বাজারে সেনাবাহিনীর জনসচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শ্রীমঙ্গলে ৬৭ টি মামলায় ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা নবীগঞ্জে সরকারের অর্থ সহায়তার তালিকায় নারী কাউন্সিলরের পরিবারের ৬ সদস্যের নাম শচীন্দ্র লাল সরকারের সমাধীতে জেলা সিপিবি, উদীচী, কিবরিয়া ফাউন্ডেশন, সচেতন নাগরিক কমিটি ও মাতৃছায়া কেজি এন্ড হাইস্কুলের পুষ্পস্তবক অর্পন দৈনিক খোয়াই পত্রিকার সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইফুলের পিতার ইন্তেকাল নবীগঞ্জে ভাতিজার হাতে চাচা খুন শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর আব্দুল আহাদের মৃত্যু বানিয়াচঙ্গের হাওর থেকে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১
বাহুবলে সংঘর্ষের ঘটনায় চারশ জনের বিরুদ্ধে মামলা

বাহুবলে সংঘর্ষের ঘটনায় চারশ জনের বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাহুবল উপজেলার মিরপুর বাজারে দুই পরগনাবাসীর সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে রাজনৈতিক ও ব্যবসায়ী নেতাসহ চারশ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছে। এ ঘটনায় সোমবার ভোররাতে অভিযান চালিয়ে ৬ দাঙ্গাবাজকে আটক করেছে বাহুবল মডেল থানা পুলিশ। গতকাল সোমবার বিকেলে এসআই দোলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে ৬০ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত চারশত জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন।
আটককৃতরা হল উপজেলার পূর্ব জয়পুর গ্রামের ইদ্রিস মিয়ার ছেলে আব্দুল হক (২৫), সজল হক (২৭), নুরুল হক (৩০), চুনারুঘাট উপজেলার রকি বল্লবপুর গ্রামের মন্তাজ উল্লার ছেলে আমির হোসেন (৩২), চারগাঁও গ্রামের আব্দুল জব্বারের ছেলে উস্তার মিয়া (৩৫), হাফিজপুর গ্রামের খুর্শেদ আলীর ছেলে মোহাম্মদ আলী (২০)। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই রুপু কর বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বাকী দাঙ্গাবাজদের আটক করতে আমাদের অভিযান চলছে, বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে বলেও জানান তিনি। মিরপুর চৌমুহনীতে অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন রয়েছে বলেও জানান তিনি।
প্রসঙ্গত, বাহুবল উপজেলার নতুন বাজারে ওমেরা কোম্পানীর পুরাতন সিলিন্ডার বিক্রির টেন্ডার ক্রয় নিয়ে দুই সিন্ডিকেট গ্র“পের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর জের ধরে রবিবার সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চারগাঁও পরগণার ২৮ গ্রাম ও জয়পুর পরগণার ৮ গ্রামের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। দুই ঘন্টাব্যাপী স্থায়ী সংঘর্ষে পুলিশসহ শতাধিক লোক আহত হয়। সংঘর্ষ চলাকালে ২০টি দোকানপাঠ ভাংচুর ও লোটপাটের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সহকারী পুলিশ সুপার রাসেলুর রহমান এর নেতৃত্বে একদল দাঙ্গা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ৩৬৭ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ১৮ রাউন্ড টিয়ারশ্যাল নিক্ষেপ করে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়।
এদিকে ব্যবসায়ী নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করায় ফুঁসে উঠছে মিরপুর ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি (ব্যকস)।
মিরপুর ব্যবসায়ী সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক আজাদ মিয়া জানান, রবিবার সকালে আমরা উপজেলা নির্বাহি অফিসার ও বাহুবল থানায় মিরপুর বাজার ব্যবসায়ীদের জান মাল রক্ষার জন্য আবেদন করে এসেছি। ইউএনও স্যার ওসিকে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিলেও ওসি কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি।
ব্যবসায়ী হুমায়ূন কবীর জানান, পুলিশ যদি সকাল থেকেই মিরপুরে অবস্থান করত তাহলে এতবড় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটত না, দোকান পাঠ লুটও হত না।
মিরপুর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি শামছুল হক মাস্টার জানান, রবিবার সকালে আমাদের ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির প্যাডে জান মাল রক্ষার জন্য ইউএনও ও ওসি সাহেবদের অবগত করেছি। তারা আমাদের দরখাস্তের কোন মূল্যায়ন করেনি। বরং আমাদের ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com